নির্বাচনোত্তর চরডুমুরিয়া বাজারে চুরির হিড়িক !

মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সীগঞ্জ থেকে : মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার মোল্লাকান্দি ইউনিয়নে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের পর আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির মারাত্বক অবনতি হয়েছে । পুরো ইউনিয়নের প্রায় প্রতিটি গ্রামে অহরহ ঘটছে চুরি, ডাকাতি, লুটপাট, ছিনতাই, ভাংচুর, মারধর, মদ, জুয়া, গাজাঁখোরীর ঘটনা ।

ইউনিয়নের বিভিন্ন পয়েন্টে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর লোকজন থাকলেও তারা কার্যকর কোন পদক্ষেপ না নিয়ে অপকর্মকারীদের নিরবে সমর্থন দিয়ে যাচ্ছে।

ভূক্তভোগীরা মনে করেন আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর লোকজন অপকর্মকারীদের মধ্যে গোপন সম্পর্ক আছে ।
মোল্লাকান্দি ইউনিয়নে মাকহাটি ও চরডুমুরিয়া বাজার নামে দুটি বাজার রয়েছে । মাকহাটি বাজারে সপ্তাহে রবি ও বুধবার দুদিন হাট বসে । এক সময়ের ঐতিহ্যবাহী ও কর্মব্যস্ত মাকহাটি বাজারটি চুরি, ডাকাতি এবং রাজনৈতিক প্রভাবের কারণে আজ জনমানব শূন্য,নিস্ব-সর্বশান্ত হয়েছে বাজারের শত শত ব্যবসায়ী ও ছোটখাট অনেক পেশাজীবি । ভৌগোলিক এবং বিভিন্ন কারনে চরডুমুরিয়া বাজারটি মানুষের কাছে গুরুত্বপুর্ন হয়ে উঠে। বাজারটির অবস্থান পাচঁটি চরের প্রায় মাঝামাঝি তাই এলাকার ট্রানজিট হিসেবে ব্যবহার হচ্ছে বাজারটি। বাজারে একটি বড় ঈদগাহ, ইউনিয়ন পরিষদ অফিস, সরকারী উপস্বাস্থ্য ক্লিনিক, সরকারী পরিবার পরিকল্পনা হাসপাতাল, জাহানারা ইন্টারন্যাশনাল একাডেমী (স্কুল), হলি লাইফ স্কুল, ঐতিহ্যবাহী একটি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় থাকায় এবং আশেপাশে ভালো কোন বাজার না থাকায় এই বাজারটি ধীরে ধীরে হয়ে উঠে আশে পাশের ৩/৪টি ইউনিয়নের লোকজনের প্রান কেন্দ্র। বিভিন্ন এলাকা থেকে বিভিন্ন কারণে লোকজন এসে বাজারটিকে প্রানচঞ্চল করে রাখে ভোর হতে গভীর রাত অবধি। বাজারে সোম ও বৃহস্পতিবার হাট বসে ।

দূর দূরান্ত থেকে হাজার হাজার লোকজন আসে কেনা-বেচা করতে । কিন্তু চুরি, ডাকাতি এবং রাজনৈতিক প্রভাবের কারনে এলাকার গুরুত্বপূর্ন এই বাজারটি আজ ধ্বংসের পথে। বাজারের সাথে প্রতোক্ষ বা পরোক্ষভাবে জড়িত প্রায় হাজারখানেক পেশাজীবি অজানা আশংকায় দিন কাটাচ্ছে । কখনো কারো দোকানে চুরি করে নিস্ব করে দিয়ে যায় সে চিন্তায় প্রতিটি দোকানদার দিশেহারা । নিয়মিত বিরতিতে অহরহ ঘটছে চুরির ঘটনা । আমিরুল মাদবরের মুদির দোকান থেকে প্রায় এক লক্ষ টাকার মাল চুরি হয়েছে, তাপশ পালের স্বর্নের দোকনে ৮০ হাজার নগদ টাকা ও স্বর্ন চুরি হয়েছে, রনি দাশের স্বর্নের দোকান থেকে ১ লক্ষ ৫০ হাজার নগদ টাকা ও স্বর্ন চুরি হয়েছে, মানিক দাশের স্বর্নের দোকান থেকে প্রায় ৬০ হাজার টাকার স্বর্ন চুরি হয়েছে, আলমগীরের বাংলালিংক পয়েন্ট থেকে প্রায় ২০ হাজার টাকার মোবাইল সামগ্রী চুরি হয়েছে, উজ্জল মোল্লার ঘরে সিধঁ কেটে ঢোকার সময় তার ভাই সাহিন টের পেলে চোরেরা পালিয়ে যায় । চালের টিন কেটে, বেড়া কেটে ঘরে ঢুকে চুরি করে। প্রতিটি চুরির আলামত প্রায় একই রকম। সন্ত্রাসীরা জাকির মোল্লার হোটেলে ঢুকে তাকে মারধর করে, জাহাঙ্গীর মুন্সীর বেকারী ভাংচুর করে মালামাল নিয়ে যায়, কামাল খানের স্টুডিও বন্ধ করে এলাকা ছাড়তে বলে, পলাশ মাদবরের চালের আড়তে আসতে নিষেধ করে দেয়, মোবাইল সামগ্রীর দোকানদার মনিরকে মেরে মারাত্বক আহত করে, চা দোকানদার মনির মোল্লাকে মারধর ও দোকান ভাংচুর করে, বাজারে এক দোকানের সামনে নাছির শেখ (৩০) কে দেখা গেল তুরজন (৩৬) কে হুমকি দিয়ে বলছে-তুই, তোর ভাই নিজাম (৩৮) আর এক সঙ্গী ৫ মিনিটের মধ্যে এলাকা ছাড়বি না গেলে মারধর করে তারানো হবে, তোদের তিনজনের নামে উপরে থেকে অর্ডার আইছে। দোকানদাররা বলছে জানিনা চুরি আর নির্যাতন কতদিন সইতে পারবো ।


নির্বাচনোত্তর হামলায় ভাংচুরকরা একটি ঘর।

এ ব্যাপারে বাজার কমিটির সভাপতি সালাউদ্দিন মিজি ও সাঃ সম্পাদক আমিরুল মাদবরের মতামত জানতে চাইলে তারা দুজন একই কথা বলেন-প্রতিটি দোকানে রাতে থাকতে হবে, পাহারাদার নিয়োগ করতে হবে, প্রশাসনকে জানাতে হবে । মোল্লাকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান হাজী রিপন পাটোয়ারীর মতামত জানতে চাইলে তিনি বলেন- বাজার কমিটির সভাপতি, সেক্রেটারী ও এলাকার মুরুব্বিদের বলেছি এক সপ্তাহের মধ্যে চোর খুজেঁ বের করবেন, যারা বাজারে চুরি-ডাকাতি করছে, এলাকায় অস্থিরতা সৃষ্টি করে আমার মান-সম্মান নষ্ট করছে তারা আমার আপন মার পেটের ভাই হলেও কোন ছাড় দিব না, উপযুক্ত বিচার করবো । এছাড়াও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের আগে ও পরে বিভিন্ন সময়ে সংঘর্ষে প্রায় ৪০০ ঘর ভাংচুর হয়েছে যার আনুমানিক মূল্য প্রায় ৮০০০০০০০ টাকা। কয়েক কোটি টাকার মালামাল ভাংচুর ও লুটপাট হয়েছে, লাখ লাখ টাকার ফসল নষ্ট হয়েছে, হাজার হাজার মানুষ বাড়ীঘর ছেড়ে, এলাকা ছেড়ে বিভিন্ন জায়গায় মানবেতর জীবন যাপন করছে, শত শত মানুষ নির্যাতনের শিকার হয়েছে । দু’একটা ব্যতিক্রম ছাড়া নির্বাচনের পূর্বে নির্যাতনের শিকার হয়েছে রিপন পাটোয়ারীর সমর্থকরা আর পরে নির্যাতনের শিকার হচ্ছে শাহ আলম মল্লিকের সমর্থকরা । নিষ্ঠুর-নির্যাতনের খেলা খেলছে জনগন আর নিরব দর্শকের ভূমিকা পালন করছে প্রশাসন । আর যারা খেলা পছন্দ করে না তাদের দিয়ে চা নাস্তার ব্যবস্থা করছে দর্শক মহারাজারা হোক তারা শিক্ষক, সরকারী কোন কর্মকর্তা, বিত্তশালী, সম্মানী ব্যক্তি, নিরিহ কৃষক অথবা গরীব রিক্সাচালক । এলাকার এই পরিস্থিতি সম্পর্কে আনন্দপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক মোঃ জিয়াউর রহমান বললেন- এলাকায় এখন আইয়ামে জাহিলিয়াতের যূগ বিরাজ করছে । আমার মতে এ পরিস্থিতি থেকে পরিত্রান পেতে তিনটি কাজ করতে হবে- এক. ধনী-গরীব নেতা-কর্মী সবাইকে ধর্মেকর্মে সচেতন হতে হবে, দুই. শিক্ষার হার বাড়াতে হবে, তিন. কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে হবে ।

মুন্সিগঞ্জ নিউজ

Leave a Reply