পদ্মা সেতু: আলোচনা চলছে, জানালো এডিবি

তদারকির কাজে প্রাথমিক তালিকায় থাকা একটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ ওঠায় পদ্মা সেতুর অর্থায়নে জটিলতা দেখা দিলেও তার অবসানে বিশ্বব্যাংক ও এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের মধ্যে আলোচনা চলছে। ঢাকায় এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) আবাসিক প্রতিনিধি থিবাকুমার কান্দিয়া রোববার অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে এ কথা জানান।

পদ্মা সেতু প্রকল্পে প্রধান ঋণদাতা বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নকে কেন্দ্র করে এসএনসি-লাভালিন গ্র”প নামের একটি কানাডীয় প্রতিষ্ঠানের কর্মীদের সম্ভাব্য ‘দুর্নীতি’ বিশ্বব্যাংকের অনুরোধে তদন্ত করছে কানাডা। পদ্মা সেতু প্রকল্পের তদারকি প্রতিষ্ঠান নির্বাচনে তৈরি হওয়া সংক্ষিপ্ত তালিকায় এসএনসি-নাভালিন রয়েছে।

এ কারণে পদ্মা সেতু প্রকল্প এগিয়ে নিতে দেরি হচ্ছে বলে শনিবার জানান অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।।

এডিবির আবাসিক প্রতিনিধি বলেন, “এ বিষয়ে ম্যানিলা-ওয়াশিংটন কর্পোরেট লেভেলে আলোচনা হচ্ছে।”

এডিবির সদর দপ্তর ফিলিপিন্সের ম্যানিলায়, বিশ্বব্যাংকের সদর দপ্তর যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটনে।

জটিলতা দেখা দিলেও দাতাগোষ্ঠী পদ্মা সেতুর কাজ শেষ করতে আন্তরিক বলে জানান থিবাকুমার। তিনি একইসঙ্গে বলেন, “দুর্নীতিরোধ ও ক্রয়ের (প্রকিউরমেন্ট) আমাদের নিজস্ব একটি গাইডলাইন আছে।”

দাতাদের কারণেই পদ্মা সেতুর কাজ শুরু হতে দেরি হচ্ছে বলে অর্থমন্ত্রীর বক্তব্যের বিষয়ে বিস্তারিত জানতে চাওয়া হলে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব মোশারর হোসেন ভূইয়া কোনো মন্তব্য করেননি।

রোববার অর্থ মন্ত্রণালয়ে বিশ্বব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্ট ইসাবেল এম গেরেরোর সঙ্গে অর্থমন্ত্রীর বৈঠক হয়। তবে বৈঠকের বিষয়ে কেউই সাংবাদিকদের কিছু বলেননি।

অর্থমন্ত্রী আশা করছেন, আগামী জানুয়ারির মধ্যে পদ্মা সেতুর নির্মাণের চূড়ান্ত দরপত্র আহ্বান করা যাবে।

দাতাদের মধ্যে সমন্বয়হীনতার কথা তুলে ধরে মুহিত শনিবার বলেন, “ডোনারদের মধ্যে সমন্বয়হীনতা আছে। বিশ্ব ব্যাংক ও এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) ‘অযোগ্য তালিকা’ (ইনএলিজিবিলিটি লিস্ট) দুই রকম। বিশ্ব ব্যাংকের তালিকায় যারা আছেন তারা হয়তো এডিবির তালিকায় নেই, আবার এডিবির তালিকায় যারা আছেন তারা হয়তো বিশ্ব ব্যাংকের তালিকায় নেই।”

বিশ্বব্যাংক ও এডিবির মধ্যে সমন্বয়হীনতা আছে বলে গত ১৭ অগাস্টও মন্তব্য করেছিলেন অর্থমন্ত্রী।

২০০৯ সালে ক্ষমতায় আসার পর ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ পদ্মা সেতু নির্মাণের উদ্যোগ নেয় সরকার। এতে ব্যয় ধরা হয়েছে ২৯০ কোটি মার্কিন ডলার।

সরকার ইতোমধ্যে এ কাজের জন্য বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে ১২০ কোটি, এডিবির সঙ্গে ৬১ কোটি, জাইকার সঙ্গে ৪০ কোটি এবং ইসলামী উন্নয়ন ব্যাংকের সঙ্গে ১৪টি ডলারের ঋণ চুক্তিতে সই করেছে।

বিডি নিউজ 24

Leave a Reply