পদ্মা সেতু প্রকল্পে দুর্নীতির মহোত্সব

পদ্মা সেতু প্রকল্পের ভেতরে ও বাইরে গ্রাস করেছে নানামুখী দুর্নীতি। পুনর্বাসন প্রকল্প, জমি অধিগ্রহণ, মাটি ভরাট থেকে শুরু করে ভৌত-অবকাঠামো নির্মাণের প্রতিটি ধাপেই দুর্নীতির মহোত্সব চলছে। ভূমি অধিগ্রহণের টাকা উত্তোলনে সাধারণ জনগণ জিম্মি হয়ে পড়েছেন। ক্ষমতাসীন দলের ছত্রছায়ায় প্রভাবশালীরা নতুন নতুন বাড়ি নির্মাণ করে হাতিয়ে নিয়েছেন লাখ লাখ টাকা। আবার সাধারণ মানুষ জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে বহু কাঠখড় পুড়িয়েও তাদের টাকা না পাওয়ার অভিযোগ রয়েছে।

জানা গেছে, জেলা প্রশাসন থেকে মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময়ে নাল জমিকে ভিটা বানিয়ে ফায়দা লুটছেন অনেকে। আবার অতিরিক্ত টাকা খরচ করতে না পেরে কারও ভিটাকে বানানো হয়েছে নালজমিতে। সবকিছুই যেন একেবারে লেজে-গোবরে অবস্থা। তবে ৭ থেকে ১০ শতাংশ হার বখরার স্বাভাবিক রীতি। আর ২০ থেকে ৩০ শতাংশ হার হলে বিদ্যুত্ গতিতে চেক মেলে বলে ভুক্তভোগীরা জানান।

এব্যাপারে জেলা প্রশাসক মো. আজিজুল আলম আমার দেশকে বলেন, আমরা চেকের মাধ্যমে টাকা দিচ্ছি। অতিরিক্ত টাকা নেয়ার প্রশ্নই ওঠে না। তবে স্থানীয় সংসদ সদস্য ও হুইপ সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি টাকা উত্তোলনে ঘুষ-বাণিজ্য এবং তার এলাকার সাধারণ মানুষের ভোগান্তির কথা স্বীকার করেন। সূত্র জানায়, সর্বশেষ তথ্যানুযায়ী লৌহজং ও শ্রীনগর উপজেলার উত্তর কুমারভোগ, অনন্তসার, জশলদিয়া, কান্দিপাড়া, দক্ষিণ মেদেনিমণ্ডল, উত্তর মেদেনিমন্ডল, মাওয়া, দক্ষিণ পাইকশা, দোগাছি ও হাতরপাড়া মৌজায় সর্বমোট ৭৫.০২ একর (৩০.৩৭ হেক্টর) অধিগ্রহণ করা হয়েছে। অধিগ্রহণ করা জমি মৌজা ওয়ারী ভিন্ন ভিন্ন দাম ধরা হয়েছে। আবার ভিটাবাড়ি, নাল, চালা ও গর্ত এ চার ক্যাটাগরিতে ভাগ করা হয়েছে জমির প্রকৃতি। ডিসি অফিস ১০টি মৌজায় ভিটাবাড়ি জমির প্রতি শতাংশ সর্বনিম্ন ১১ হাজার ৭৬৩ টাকা এবং সর্বোচ্চ কেবল দক্ষিণ মেদেনিমণ্ডল ও মাওয়া মৌজায় ১ লাখ ৫ হাজার ২৭ টাকা, নাল ৯ হাজার ৭৬ থেকে ৩০ হাজার ৪৭১ টাকা, চালা ১৬ হাজার ৩৭৪.৩৭ থেকে ৩৮ হাজার ৮৮ টাকা এবং গর্ত ১০ হাজার ৮০৫ থেকে ৩৮ হাজার ৬২৫ টাকা দাম নির্ধারণ করেছে। যা বর্তমান বাজার দরের সঙ্গে মোটেও সামঞ্জস্য নয়।

তবে সেতু বিভাগ এর পাশাপাশি বর্তমান বদলি মূল্যে আর্থিক অনুদান অব্যাহত রেখেছে বলে সেতু প্রকল্প সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা জানান। সূত্র আরও জানায়, প্রকল্পটি বাস্তবায়নে সর্বমোট ২ হাজার ৮০০ ৫২.৭০ একর (১১৫৪.৯৪ হেক্টর) জমি পর্যায়ক্রমে অধিগ্রহণ করা হবে।

এত বিশাল জমি অধিগ্রহণের ফলে আরও ৮ হাজার ৫২৬টি পরিবার তাদের কৃষিজমি হারাবেন। তাদের ব্যাপারেও আপাতদৃষ্টিতে সরকারি সুনির্দিষ্ট কোনো পরিকল্পনা বাস্তবায়নের লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না।

যোগাযোগ মন্ত্রণালয় সূত্র কাজের অগ্রগতি সম্পর্কে জানায়, সেতু নির্মাণে ব্যয় হবে ২ দশমিক ৯৭ বিলিয়ন ডলার। সরকার এরই মধ্যে ২ দশমিক ৬৫ বিলিয়ন ডলার বৈদেশিক অর্থসংস্থান নিশ্চিত করেছে। তবে কাজের বর্তমান অবস্থা পর্যালোচনা করে আদৌ এ সরকারের মেয়াদে সেতুর অন্তত মূল অংশের কাজ শেষ করা সম্ভব কিনা; তা সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের অনেকেই প্রশ্ন তুলছেন। বারবার দাবি করা হচ্ছে, কনস্ট্র্রাকশন ইয়ার্ডের ও পুনর্বাসনের কাজ শতকরা ৭০ ভাগ শেষ। কিন্তু সরেজমিন যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের ওইসব দাবি নিছক কল্পকাহিনী ছাড়া আর কিছুই না।

সূত্র জানায়, পদ্মা সেতু নির্মাণে ৪১৫ মিলিয়ন ঋণ সহায়তা দিচ্ছে জাপান।

এশিয়ান হাইওয়ের সঙ্গে পদ্মা সেতু অঙ্গাঙ্গিভাবে সম্পৃৃক্ত বিধায় এ কাজে তারা বেশি আগ্রহী। এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি), ইসলামী উন্নয়ন ব্যাংক (আইডিবি) এর সঙ্গেও ঋণচুক্তি শেষ। কিন্তু পদ্মা সেতু প্রকল্প বাস্তবায়নে সবচেয়ে বেশি সহায়তাকারী (১.২ বিলিয়ন ডলার বা প্রায় সাড়ে ৮ হাজার কোটি টাকা) বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে আন্তর্জাতিক অর্থায়নকারী প্রতিষ্ঠান বিশ্বব্যাংক এরই মধ্যে বেঁকে বসায় অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে পদ্মা সেতুর ভবিষ্যত্। উল্লেখ্য, চুক্তির দিন (২৮ এপ্রিল ২০১১) বিশ্বব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মিস নগোজি ওকানোজো-আইওয়েলাও জোড়ালো কণ্ঠে বলেন, দুর্নীতি কিংবা আর্থিক অনিয়মকে কোনো ধরনের ছাড় দেবে না বিশ্বব্যাংক। আজ সেই দুর্নীতির অভিযোগের আঙ্গুল উঠল স্বয়ং যোগাযোগমন্ত্রীর বিরুদ্ধে। এদিকে সেতু নির্মাণে আগের দেয়া সব প্রতিশ্রুতি থেকে সরে এসেছে সরকার। ক্ষমতায় আসার পরে বহুবার একাধিক মন্ত্রীদের মুখে শোনা গেছে, এ সরকারের মেয়াদেই সেতুর কাজ সমাপ্তির আশার ফুলঝুরি। নির্বাচনী ইশতেহারেও এটা ছিল সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার প্রকল্প। কিন্তু গত আড়াই বছরেও শুরু করতে পারেনি বিশ্বের অন্যতম ব্যয়বহুল এ সেতু প্রকল্পের মূল কাজ। খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলছে আনুষঙ্গিক প্রক্রিয়াগুলো। ফলে অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে সেতুর ভবিষ্যত্। আর এ সরকারের মেয়াদে পদ্মা সেতুর কাজ শেষ হবে না।

শফিকুল ইসলাম শ্রীনগর (মুন্সীগঞ্জ) – আমার দেশ

Leave a Reply