সালিশে ধর্ষকের ১ লাখ টাকা জরিমানা

অভিযানে ভিকটিম শিশু উদ্ধার
কাজী দীপু, মুন্সীগঞ্জ থেকে : থানা থেকে ধর্ষনের শিকার ভিকটিমকে গ্রামে নিয়ে সালিশের মাধ্যমে ধর্ষকের ১ লাখ টাকা জরিমানা করেছে মাতব্বররা। এমনকি কেউ যাতে খুজেঁ না পায় এ লক্ষ্যে মাতব্বররা ধর্ষিতা ১০ বছরের শিশুকে লুকিয়ে রাখে অন্যত্র। এ খবর পেয়ে গতকাল রোববার পুলিশ সদরের মাঝিকান্দি গ্রামে অভিযান চালিয়ে ধর্ষিতাকে উদ্ধার করেছে। পরে এ ঘটনায় ধর্ষিতার মা বাদী হয়ে ধর্ষক বসিরউদ্দিন ঢালীকে আসামী করে সদর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা রুজু করেছে। তবে এই মামলায় ধর্ষককে মামলা থেকে বাচাঁতে সহায়তাকারী মাতব্বরদের আসামী করা হয়নি। তদন্তে দোষী সাব্যস্ত হলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

গত শনিবার সদরের আধারা ইউনিয়নের মাঝিকান্দি গ্রামের নিজ বসতঘরে ডেকে নিয়ে নিপা আক্তার নামের ১০ বছরের এক শিশুকে ধর্ষন করে বসিরউদ্দিন ঢালী(৬০)। এ সময় চিৎকার দিলে লম্পট বসির পালিয়ে যায়। পরে এ ঘটনায় ভিকটিমকে নিয়ে পরিবারের লোকজন থানায় মামলা করতে গেলে স্থানীয় মাতববররা থানা প্রাঙ্গন থেকে ভিকটিমকে গ্রামে নিয়ে যায়। রাতে স্থানীয় ইউপি সদস্য শরীফ মাহমুদ, আ’লীগ নেতা আক্তার মাহমুদ, মাতব্বর মারফত মিয়া, জয়নাল, ইকবাল মাদবরসহ মাতব্বররা সালিশ কওে র্ধষকের ১ লাখ টাকা জরিমানা করে। এছাড়া কেউ যাকে ভিকটিমকে খুজেঁ না পায় সে জন্য মাতব্বররা তাকে অন্যত্র লুকিয়ে রাখে। এতে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবার থানায় মামলা করা থেকে বিরত থাকে।

গদও থানার ওসি মো. শহীদুল ইসলাম জানান, খবর পেয়ে পুলিশ অভিযান চালিয়ে মাঝিকান্দি গ্রাম থেকে ভিকটিমকে উদ্ধার করে। এ ঘটনায় ধর্ষকের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। ধর্ষককে মামলা থেকে বাচাঁতে সহায়তাকারী মাতব্বরদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে তদন্ত চলছে। তদন্ত শেষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে ওসি শহীদুল ইসলাম জানিয়েছেন। ইউপি সদস্য শরীফ মাহমুদ জানান, তিনি উপস্থিত থাকলেও গ্রামের অপর মাতব্বররা ১ লাখ টাকার জরিমানার রায় দিয়েছে।

অন্যদিকে শনিবার সদরের মাস্তান বাজার এলাকায় দেয়া মনি(৫) নামের অপর এক শিশুকে ধর্ষনের চেষ্টা চালিয়েছে দুদু মিয়া নামের এক লম্পট। এ ঘটনায়ও থানায় মামলা রুজু হয়েছে।

কাজী দীপু
১১.০৯.১১

Leave a Reply