শুরুতেই হোঁচট? ॥ স্বপ্নের পদ্মা সেতু

০ সঙ্কট নিরসনে বিশ্বব্যাংক এডিবি আলোচনা
০ জানুয়ারিতে চূড়ান্ত দরপত্র আহ্বানে অর্থমন্ত্রীর আশাবাদ
হামিদ-উজ-জামান মামুন ॥ বার বার হোঁচট খাচ্ছে বহুল প্রত্যাশিত পদ্মা সেতুর নির্মাণ কাজ শুরুর প্রক্রিয়া। সর্বশেষ তদারকির কাজে প্রাথমিক তালিকায় থাকা একটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ ওঠায় পদ্মা সেতুর অর্থায়নে জটিলতা দেখা দিয়েছে। এই সমস্যা সমাধানে বিশ্বব্যাংক ও এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের মধ্যে আলোচনা চলছে। রবিবার এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) আবাসিক প্রতিনিধি থেবাকুমার কান্দিয়াহ এক চুক্তি স্বাৰর অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের এ কথা জানান। রাজধানীর আগারগাঁওয়ে এনইসি সম্মেলন কৰে সরকার ও এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের মধ্যে আড়াই কোটি মার্কিন ডলারের এ ঋণ চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। তবে জটিলতা দেখা দিলেও দাতাগোষ্ঠী পদ্মা সেতুর কাজ শেষ করতে আন্তরিক বলে জানান থেবাকুমার। একই সঙ্গে তিনি বলেন, দুর্নীতিরোধ ও ক্রয়ের (প্রকিউরমেন্ট) ক্ষেত্রে আমাদের নিজস্ব একটি গাইডলাইন আছে, পদ্মা সেতু প্রকল্পে এর প্রয়োগ দেখতে চায় এডিবি।

সূত্র জানায়, পদ্মা সেতু প্রকল্পে প্রধান ঋণদাতা বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নকে কেন্দ্র করে এসএনসি-লাভালিন গ্রুপ নামের একটি কানাডীয় প্রতিষ্ঠানের কর্মীদের সম্ভাব্য দুর্নীতি বিশ্বব্যাংকের অনুরোধে তদন্ত করছে কানাডা। পদ্মা সেতু প্রকল্পের তদারকি প্রতিষ্ঠান নির্বাচনে তৈরি হওয়া সংক্ষিপ্ত তালিকায় এসএনসি-লাভালিন রয়েছে। এ কারণে পদ্মা সেতু প্রকল্প এগিয়ে নিতে দেরি হচ্ছে বলে শনিবার জানান অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। এ বিষয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এডিবির আবাসিক প্রতিনিধি বলেন, এ নিয়ে ম্যানিলা-ওয়াশিংটন কর্পোরেট লেভেলে আলোচনা হচ্ছে। দাতাদের কারণেই পদ্মা সেতুর কাজ শুরম্ন হতে দেরি হচ্ছে বলে অর্থমন্ত্রীর বক্তব্যের বিষয়ে রবিবার বিস্তারিত জানতে চাওয়া হলে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব মোশারাফ হোসাইন ভূইয়া কোন মন্তব্য করেননি।

অন্যদিকে রবিবার অর্থ মন্ত্রণালয়ে বিশ্বব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্ট ইসাবেল এম গেরেরোর সঙ্গে অর্থমন্ত্রীর বৈঠক হয়। তবে বৈঠকের বিষয়ে কেউই সাংবাদিকদের কিছু বলেননি। অর্থমন্ত্রী আশা করছেন, আগামী জানুয়ারির মধ্যে পদ্মা সেতুর নির্মাণের চূড়ানত্ম দরপত্র আহ্বান করা যাবে।

দাতাদের মধ্যে সমন্বয়হীনতার কথা তুলে ধরে অর্থমন্ত্রী শনিবার বলেন, ডোনারদের মধ্যে সমন্বয়হীনতা আছে। বিশ্ব ব্যাংক ও এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) অযোগ্য তালিকা দুই রকম। বিশ্ব ব্যাংকের তালিকায় যারা আছে তারা হয়ত এডিবির তালিকায় নেই, আবার এডিবির তালিকায় যারা আছে তারা হয়ত বিশ্ব ব্যাংকের তালিকায় নেই।

এর আগে বিশ্বব্যাংক ও এডিবির মধ্যে সমন্বয়হীনতা আছে বলে গত ১৭ আগস্ট মনত্মব্য করেছিলেন অর্থমন্ত্রী।
২০০৯ সালে ক্ষমতায় আসার পর ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ পদ্মা সেতু নির্মাণের উদ্যোগ নেয় সরকার। এ সেতু নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছে ২ দশমিক ৯৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। ইতোমধ্যে গত ২৮ এপ্রিল ১ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলার অর্থায়নে বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে ঋণচুক্তি স্বাৰরিত হয়। এছাড়া অন্যান্য দাতা সংস্থার মধ্যে গত ১৮ মে জাপানের সঙ্গে ৪০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ঋণ প্রদান বিষয়ক চুক্তি করে সরকার। গত ২৪ মে ইসলামী উন্নয়ন ব্যাংকের সঙ্গে ১৪০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার সহায়তা বিষয়ক চুক্তি স্বাৰরিত হয়। গত ৬ জুন এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের (এডিবি) সঙ্গে ঋণ চুক্তি স্বাৰর হয়। এর মধ্য দিয়ে সেতু নির্মাণে প্রতিশ্রম্নতি অনুযায়ী সরকারের সঙ্গে সব উন্নয়ন সহযোগী সংস্থার ঋণ চুক্তি স্বাৰরের প্রক্রিয়া শেষ হয়। পদ্মা সেতু নির্মাণে এডিবি বাংলাদেশকে ৪ হাজার ৪৮৯ কোটি টাকা (৬১৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার) ঋণ সহায়তা দিচ্ছে।

সূত্র জানায়, ইতোমধ্যেই পদ্মা সেতুর টেন্ডার ডকুমেন্ট নিয়ে দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়েছে বিশ্ব ব্যাংক ও এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকসহ অন্যান্য দাতা সংস্থা। ফলে এই সেতুর নির্মাণ কাজ পিছিয়ে যাবার আশঙ্কা দেখা দেয়। ৫টি প্রতিষ্ঠানের আগ্রহপত্র জমা নিয়েও পদ্মা সেতুর টেন্ডার আহ্বান নিয়ে সমস্যায় পড়ে সরকার। এ প্রেৰিতে গত ১৪ আগস্ট অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের কাছে পদ্মা সেতুর জটিল পরিস্থিতির কথা তুলে ধরে একটি চিঠি পাঠান যোগাযোগ মন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন। চিঠিতে বলা হয়, সরকারের সবের্াচ্চ অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত পদ্মা সেতু নির্মাণে সকল উন্নয়ন সহযোগীর সঙ্গে ঋণচুক্তি স্বাৰরিত হয়েছে। বর্তমানে মূল সেতুর ঠিকাদার নিয়োগ প্রক্রিয়া চলছে। গত ১ জুলাই প্রাক-যোগ্যতা মূল্যায়ন প্রতিবেদনের ওপর সম্মতি দেয় বিশ্বব্যাংক। এর পর প্রাক-যোগ্য ৫ প্রতিষ্ঠানকে চিঠি দিয়ে পরবতর্ী দুই সপ্তাহের মধ্যে টেন্ডার ডকুমেন্ট সংগ্রহের অনুরোধ জানানো হয়। কিন্তু টেন্ডার ডকুমেন্টের ওপর বিশ্ব ব্যাংকের সম্মতি না পাওয়ায় এসব প্রতিষ্ঠানকে ডকুমেন্ট ইস্যু করা যায়নি। এদিকে এডিবি তাদের দুনর্ীতিবিরোধী নীতিমালা ও গাইডলাইনের বিষয়টি টেন্ডার ডকুমেন্টে অনত্মভর্ুক্তির প্রসত্মাব করেছে। এ বিষয়টিতেই বিশ্বব্যাংকের বিরোধ দেখা দেয়। বিড ডকুমেন্টের মূল অংশ সেকশন-১ এ শুধু বিশ্বব্যাংকের নিজস্ব গাইড লাইন অনত্মর্ভুক্ত করা হয়েছে। এডিবি ও জাইকার গাইড লাইন অনত্মভর্ুক্তির বিষয়টি বাদ দেয়া হয়। কিন্তু এডিবি তার নিজস্ব গাইড লাইনের বিষয়টি অনত্মর্ভুক্ত দেখতে চায়। এডিবি এ নিয়ে বিশ্বব্যাংককে চিঠি পাঠালেও কোন সাড়া মেলেনি। প্রসঙ্গত, সেকশন-১ তৈরি করা হয়েছে বিশ্ব ব্যাংকের গাইডলাইন অনুসরণ করে। ওই সময় বিশ্বব্যাংক সেতু বিভাগকে চিঠি লিখে জানিয়েছিল, এতে এডিবি ও জাইকার সম্মতি রয়েছে। কিন্তু এ বিষয়ে দ্বন্দ্ব দেখা দেয়ায় টেন্ডার ডকুমেন্টে সম্মতি দিতে গড়িমসি করে বিশ্ব ব্যাংক। ওদিকে বিশ্বব্যাংকের অবজারভেশন অনুযায়ী যাবতীয় তথ্যাদি প্রেরণ সত্ত্ব্বেও সম্মতি না পাওয়ায় নির্মাণ তদারকি পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগও চূড়ানত্ম করা যাচ্ছে না। ফলে ডিজাইন পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের মেয়াদ বাড়ানোর প্রয়োজনীয়তা দেখা দিয়েছে। মেয়াদ বৃদ্ধির কারণে এডিবি অতিরিক্ত অর্থ দিতে রাজি না হওয়ায় জটিলতা দেখা দিতে পারে। এ নিয়ে বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগ করেও কোন কাজ হচ্ছে না। এরই মধ্যে টেন্ডার ডকুমেন্ট ৯ বার সংশোধন করে পাঠানো হয়েছে।

ওই চিঠিতে আরও বলা হয়, পদ্মা সেতু প্রকল্পের সামগ্রিক প্রক্রিয়া শতভাগ স্বচ্ছতা, দৰতা, দ্রম্নততা ও জবাবদিহিতা পরিপূর্ণভাবে প্রয়োগ করা হয়েছে। কিন্তু বিশ্ব ব্যাংক এ প্রকল্প প্রক্রিয়াকরণে প্রয়োজনের তুলনায় বেশি সময়ৰেপণ করছে। ফলে পদ্মা সেতু বাসত্মবায়নে সরকারের সদিচ্ছা ও সর্বাত্মক চেষ্টা থাকা সত্বেও যথাসময়ে মূল সেতুর কাজ শুরম্ন না করায় দেশবাসীর মধ্যে বিরূপ মনোভাব ও হতাশার সৃষ্টি হয়েছে।

এর আগে গত ২১ জুন আরও একবার পদ্মা সেতু প্রকল্পের মূল নির্মাণ কাজ দ্রম্নত শুরম্ন করতে সম্মতির জন্য বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে কথা বলার অনুরোধ জানিয়ে অর্থমন্ত্রীকে চিঠি পাঠিয়েছিলেন যোগাযোগ মন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন। চিঠিতে বিশ্বব্যাংককে সময়ৰেপণের জন্য অভিযোগ করে উলেস্নখ করা হয়েছে গত বছরের ১১ এপ্রিল বিশ্বব্যাংকের নির্দেশনা অনুযায়ী প্রাক-যোগ্যতার দরপত্র আহ্বান করা হয়। এতে ১১টি প্রতিষ্ঠান অংশ নেয়। এর মধ্য থেকে ৬টি প্রতিষ্ঠান অযোগ্য বিবেচিত হয়। বাকি ৫টি প্রতিষ্ঠান যোগ্য বিবেচিত হলে তাদের বিষয়ে সম্মতির জন্য ঐ বছরের ২০ জুলাই বিশ্বব্যাংকের কাছে পাঠানো হয়। কিন্তু বিশ্বব্যাংক কোন পরামর্শ না দিয়ে ১০ অক্টোবর আবার দরপত্র আহ্বানের পরামর্শ দেয়। ঐ বছরের ১১ অক্টোবর দ্বিতীয়বার প্রাক-যোগ্যতার দরপত্র আহ্বান করা হয়। তাতে ১০টি প্রতিষ্ঠান অংশ নিলে এর মধ্য থেকে বিদেশী উপদেষ্টা ও মূল্যায়ন কমিটির সুপারিশে আগের বিবেচিত ৫টি প্রতিষ্ঠানই পুনরায় যোগ্য বিবেচিত হয়। এ অবস্থায় সেতু বিভাগের পৰ থেকে চলতি বছরের ৭ জানুয়ারি সম্মতির জন্য দ্বিতীয়বারের মতো বিশ্বব্যাংকে পাঠানো হয়। পরে ২৯ মার্চ বিশ্বব্যাংক চীনা রেলওয়ে কনস্ট্রাকশন কোম্পানিকে (সিআরসিসি) প্রাক-যোগ্য বিবেচনার অনুরোধ করে। বিদেশী উপদেষ্টা ও দরপত্র মূল্যায়ন কমিটি ৩০ মার্চ সিআরসিসিকে প্রাক-যোগ্য বিবেচনা করা যায় না বলে প্রতিবেদন দাখিল করে। এরপর বিশ্বব্যাংক আবার গত ৬ এপ্রিল চীনা ঐ কোম্পানিকে প্রাক-যোগ্য বিবেচনা করা যায় কিনা মনত্মব্যসহ প্রতিবেদন দাখিল করার জন্য সেতু কর্তৃপৰকে অনুরোধ করে। সেতু কর্তৃপৰ সেটি না করার কারণ ব্যাখ্যা করে বিশ্ব ব্যাংকের কাছে চিঠি পাঠায়। গত ১৩ এপ্রিল বিশ্বব্যাংক সিআরসিসির কাছ থেকে সেতু নির্মাণের বিষয়ে অধিকতর তথ্য সংগ্রহ ও পরীৰা-নিরীৰা করে প্রাক-যোগ্য বিবেচনা করা যায় কিনা এ মর্মে নিদের্শনা প্রদান করে। এ প্রেৰিতে সিআরসিসির কাছে রেকিং পাইলের অভিজ্ঞতার প্রমাণ চাইলে প্রতিষ্ঠানটি অন্য আরও একটি প্রতিষ্ঠানের নির্মাণ করা সেতুর ছবি দিয়ে প্রমাণপত্র দেয়। গত ৭ মে একটি প্রতিবেদনে এ প্রতিষ্ঠানটি অসত্য তথ্য দিয়েছে বলে উলেস্নখ করা হয়।

বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপৰ গত ১৮ মে প্রাক-যোগ্য বিবেচিত ৫টি প্রতিষ্ঠানের বিষয়ে বিশ্বব্যাংকের কাছে আবারও প্রতিবেদন পাঠায়। কিন্তু এখন পর্যনত্ম কোন সম্মতি পাওয়া যায়নি বলে জানানো হয়েছে অর্থমন্ত্রীকে।

এ নিয়ে যোগাযোগ মন্ত্রণালয় ও বিশ্বব্যাংকের মধ্যে টানাপোড়েনের সৃষ্টি হয়। পরবতর্ীতে বিশ্বব্যাংকের আনুষ্ঠানিক কোন বক্তব্য পাওয়া না গেলেও সময়ৰেপণের কারণ হিসেবে জানা গেছে, দরপত্রের প্রক্রিয়া পুরোপুরি দুনর্ীতির ঝুঁকিমুক্ত নয় বলে মনে করছে প্রধান অর্থ যোগানদাতা উন্নয়ন সহযোগী প্রতিষ্ঠান বিশ্বব্যাংক। এ কারণেই সেতু বিভাগের আওতায় দরদাতা প্রতিষ্ঠানের প্রাক-যোগ্যতা যাচাই প্রক্রিয়া নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করা হয়েছে। যার ফলে সেতু বিভাগের বিবেচনায় প্রাক- যোগ্যতায় উত্তীর্ণ ৫ প্রতিষ্ঠানসহ অযোগ্য বিবেচিত অন্য প্রতিষ্ঠানগুলোর বিষয়ে খতিয়ে দেখেছে সংস্থাটি। এর অন্যতম কারণ হচ্ছে যাতে পরবতর্ীতে বাদপড়া কোন ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান দুনর্ীর্তি বা স্বজনপ্রীতির অভিযোগ তুলতে না পারে। আর এর ফলেই মতামত জানাতে সময়ৰেপণ হয়েছে বলে জানা গেছে। অন্যদিকে যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের পৰ থেকে জোর দাবি করা হয়েছে এই সেতুর প্রকল্প প্রক্রিয়াকরণে সেতু বিভাগ শতভাগ স্বচ্ছতা, দৰতা, সরকারী নিয়মকানুন, বিশ্বব্যাংকের নির্দেশনা এবং দ্রম্নততার সঙ্গে কাজ করছে। এছাড়া দরপত্র বিষয়ে বিলম্বের বিষয়ে বিশ্বব্যাংক দায়ী করে অর্থমন্ত্রীর কাছে চিঠিও দিয়েছে । তবে শেষ পর্যনত্ম এ চিঠির বিষয়ে কিছুই জানানো হয়নি বিশ্বব্যাংককে।

বিশ্ব ব্যাংকের একাধিক সূত্রে জানা গেছে, পদ্মা সেতু প্রকল্পে প্রধান অর্থ যোগানদাতা এবং এ প্রকল্পে অর্থ যোগানদাতা অন্যান্য সংস্থার সমন্বয়কারী সংস্থা হিসেবে বিশ্বব্যাংক মনে করছে বিশ্বব্যাপী এখন বড় বড় অবকাঠামো নির্মাণ সংশিস্নষ্ট প্রকল্পগুলো দুনর্ীতির প্রধান ৰেত্র। বাংলাদেশের শাসন ব্যবস্থার দুর্বলতা ও দুনর্ীতির সমস্যা রয়েছে। ফলে দারিদ্র্য বিমোচন ও উন্নয়নকে ত্বরান্বিত করার প্রাণপণ চেষ্টায় নিয়োজিত অনেক ব্যক্তি উদ্যোগও ৰতিগ্রসত্ম হচ্ছে। এ ধরনের একটি চ্যালেঞ্জিং পরিবেশে পদ্মা সেতুর মতো একটি বড় ধরনের অবকাঠামো নির্মাণ প্রকল্পকে উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ বলার পাশাপাশি উত্তম ফল পাওয়ার সম্ভাবনাময় একটি প্রকল্প হিসেবে দেখছে। এ কারণেই প্রকল্পে দুনর্ীতির ঝুঁকি কমিয়ে আনতে শুরম্ন থেকেই উদ্যোগ নিয়েছে বিশ্বব্যাংক।

অন্যদিকে গত রবিবারের চুক্তি স্বাৰর অনুষ্ঠানে করবিবরণী দাখিল এবং ভূমি রেকর্ড সংরৰণে ইলেকট্রিক পদ্ধতি প্রবর্তনের জন্য বাংলাদেশকে আড়াই কোটি মার্কিন ডলার ঋণ দিচ্ছে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি)। সহজ শর্তে এ ঋণ গ্রহণ করছে বাংলাদেশ। চুক্তিতে স্বাৰর করবেন সরকারের পৰে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব মোহাম্মদ মোশাররাফ হোসাইন ভূইয়া, এডিবির পৰে কান্ট্রি ডিরেক্টর থেবাকুমার কান্দিয়াহ এবং প্রকল্প চুক্তিতে স্বাৰর করবেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য (কর) ও প্রকল্প পরিচালক মোঃ বশির উদ্দিন আহমেদ।

অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, স্ট্রেনদেনিং গবর্নেন্স ম্যানেজমেন্ট প্রজেক্ট শীর্ষক এ প্রকল্পটি বাসত্মবায়নে মোট ব্যয় হবে ৩ কোটি ৩ লাখ মার্কিন ডলার। এর মধ্যে এডিবি দিচ্ছে আড়াই কোটি মার্কিন ডলার, বাংলাদেশ সরকার ব্যয় করবে বাকি টাকা।

প্রকল্পটি জাতীয় রাজস্ব বোর্ড এবং ভূমি মন্ত্রণালয় ভূমি রেকর্ড অধিদফতরের মাধ্যমে ২০১৩ সালের সেপ্টেম্বরের মধ্যে বাসত্মবায়নের কাজ শেষ করবে।

প্রকল্পের আওতায় মূল কার্যক্রম হচ্ছে, করদাতাদের সুবিধার্তে অনলাইনে করবিবরণী দাখিলের সুযোগ সৃষ্টি, কিছু জেলা ও উপজেলায় ডিজিটাল পদ্ধতিতে ভূমি রকর্ড সংরৰণ এবং অনলাইনে করবিবরণী দাখিল ও ভূমি রেকর্ডনসমূহ ব্রাউজ করার সুবিধার্থে কিছু উপজেলায় তথ্য ও সেবা কেন্দ্র চালু করা হবে। গৃহীত এ ঋণের ওপর গ্রেস পিরিয়ডে এক শতাংশ হারে এবং পরবতর্ীতে শতকরা ১ দশমিক ৫ শতাংশ হারে সুদ প্রদান করতে হবে। ৮ বছরের গ্রেস পিরিয়ডসহ ৩২ বছরে এ ঋণ পরিশোধ করতে হবে।

জনকন্ঠ

Leave a Reply