পদ্মা সেতু : ধরা অধরার দোলাচাল!

ধীর গতিতে এগুচ্ছে পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্প। সেতু নির্মাণে আগের দেয়া সব প্রতিশ্র“তি থেকে সরে এসেছে সরকার। ক্ষমতায় আসার পরে বহুবার একাধিক কেবিনেট মন্ত্রীদের মুখে শুনা গেছে এ সরকারের মেয়াদেই সেতুর কাজ সমাপ্তির আশার ফুলঝুরি। নির্বাচনী ইস্তিহারেও এটা ছিল সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার প্রকল্প। কিন্তু গত আড়াই বছরেও শুরু করতে পারেনি বিশ্বের অন্যতম ব্যয়বহুল এ সেতু প্রকল্পের মূল কাজ। খুঁড়িয়ে চলছে আনুসাঙ্গিক প্রক্রিয়াগুলো। ফলে অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে সেতুর ভবিষ্যৎ। আর এ সরকারের মেয়াদে পদ্মা সেতুর কাজ শেষ হবে না, স্বয়ং যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন নিজেই বলেছেন। গত ২৮ জুলাই জাইকা‘র প্রতিনিধি দলের সাথে প্রকল্পের বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, এখনোতো কাজ শুরুই হয়নি। শেষ কবে হবে তা বলবো কিরে। একটা খালের উপর সেতু বানাতে কতদিন লাগে, তা থেকে বুঝে নিন পদ্মা সেতুতে কতদিন লাগতে পারে।

উল্লেখ্য, চলতি বছরের ২৮ এপ্রিল বিশ্ব ব্যাংকের সাথে পদ্মা সেতুস্থল মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার মাওয়ায় পদ্মা নদীর মাঝে বিআইডব্লিউটিসি‘র রো রো ফেরি ভাষা শহীদ বরকত-এ ১২০ কোটি ডলারের ঋণচুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। এ অনুষ্ঠানে সদা হাস্যউজ্জ্বল অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত আগামী অক্টোবরে সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু করার ঘোষণা দেন। এবং তিনি দৃঢ় ভাবে বলেছিলেন বর্তমান সরকারের মেয়াদেই শেষ হবে পদ্মা সেতু নির্মাণের কাজ।

চুক্তির দিন বিশ্ব ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মিস নগোজি ওকানোজো-আইওয়েলাও জোড়ালো কণ্ঠে বলেন, দুর্নীতি কিংবা আর্থিক অনিয়মকে কোন প্রকার ছাড় দেবে না বিশ্ব ব্যাংক। কিন্তু মূল সেতুর কাজ শুরুর আগেই প্রকল্পের ভেতরে নানা মুখী দুর্নীতিতে আঁছর করেছে। পূনর্ববাসন প্রকল্পের জমি অধিগ্রহণে শুরুহয় প্রথম অনিয়মের যাত্রা। ক্ষমতার দাপটে প্রভাবশালীরা নতুন নতুন বাড়িঘর তুলে হাতিয়ে নিয়েছে লাখ লাখ টাকা। গত ৮জুলাই যোগাযোগমন্ত্রী নিজেও তা প্রত্যক্ষ করেছেন। আবার সাধারণ জনগণ জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে বহু কাঠখর পুড়িয়েও তাদের টাকা না পাওয়ার অভিযোগ রয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেক ভুক্তভোগী অভিযোগ করেন, ডিসি অফিসের পিয়ন, কেরানি থেকে শুরু করে সংশ্লিষ্ট সবাইকে খুশি না করলে টাকার চেক পাওয়া যায়না। আবার অনেকের আজ-কাল করে এখনো ক্ষতিপূরণের টাকার খবর নাই। এরই ধারাবাহিকতায় নির্মাণাধীন কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ডে অধিগ্রহণকৃত জমির ন্যায্য ক্ষতিপূরণের দাবিতে শতশত মানুষ রাস্তায় নেমে এসেছে।

সূত্র জানায়, ১১.০৮.২০১১ইং তারিখের সর্বশেষ তথ্যানুযায়ী লৌহজং ও শ্রীনগর উপজেলার উত্তর কুমারভোগ, অনন্তসার, জশলদিয়া, কান্দিপাড়া, দক্ষিণ মেদেনিমণ্ডল, উত্তর মেদেনিমণ্ডল, মাওয়া, দক্ষিণ পাইকশা, দোগাছি ও হাতরপাড়া মৌজায় সর্বমোট ৭৫.০২ একর (৩০.৩৭ হেক্টর) অধিগ্রহণ করা হয়েছে। অধিগ্রহণকৃত জমি মৌজা ওয়ারী ভিন্ন ভিন্ন মূল্য ধরা হয়েছে। আবার ভিটাবাড়ি, নাল, চালা ও গর্ত এ ৪ কেটাগরিতেও ভাগ করা হয়েছে জমির প্রকৃতী।

ডিসি অফিস ১০ মৌজায় ভিটাবাড়ি জমির প্রতি শতাংশ সর্বনিম্ন ১১হাজার ৭শ ৬৩টাকা এবং সর্বোচ্চ কেবল মাত্র দক্ষিণ মেদেনিমণ্ডল ও মাওয়া মৌজায় ১লাখ ৫হাজার ২৭টাকা, নাল ৯হাজার ৭৬টাকা থেকে ৩০হাজার ৪শ ৭১টাকা, চালা ১৬হাজার ৩শ ৭৪.৩৭টাকা থেকে ৩৮হাজার ৮৮টাকা এবং গর্ত ১০হাজার ৮শ ৫টাকা থেকে ৩৮হাজার ৬শ ২৫টাকা মূল্য নির্ধারণ করেছে। যা বর্তমান বাজার দরের সাথে মোটেও সামঞ্জস্য নয়। তবে সেতু বিভাগ এর পাশাপাশি বর্তমান বদলি মূল্যে আর্থিক অনুদান অব্যাহত রেখেছে বলে সেতু বিভাগের এক কর্মকর্তা জানান। সূত্র আরও জানায়, প্রকল্পটি বাস্তবায়নে সর্বমোট ২হাজার ৮শ ৫২.৭০একর (১১৫৪.৯৪ হেক্টর) জমি পর্যায়ক্রমে অধিগ্রহণ করা হবে। এতো বিশাল জমি অধিগ্রহণের ফলে আরো ৮হাজার ৫শ ২৬টি পরিবার তাদের কৃষি জমি হারাবেন।

ওদিকে কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ড-২ এর জন্য মাটি ভরাটের কাজ চলছে। ক্ষতিগ্রস্তদের ভূমির যথাযথ ক্ষতিপূরণের টাকা বুঝিয়ে না দিয়েই এসব জমিতে মাটি ভরাটের কাজ শুরু করে কর্তৃপক্ষ। এ নিয়ে চলতি জানুয়ারিতে ক্ষতিগ্রস্তরা অন্দোলনের ডাক দেয়। পরে স্থানীয় এমপি ও জাতীয় সংসদের হুইপ সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি স্থানীয় প্রশাসনকে সাথে নিয়ে ক্ষতিগ্রস্তদের সাথে উঠোন বৈঠকের মাধ্যমে তাদের যথাযথ ক্ষতিপূরণের আশ্বাস দেন। কিন্তু সেতু বিভাগ বিশ্ব ব্যাংকের দেয়া তাদের অংশের টাকা জমির মূল্য নির্ধারিত না হওয়ার অজুহাতে টাকা না দিয়েই কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। এ নিয়ে গত এপ্রিল২০১১ তে ক্ষতিগ্রস্তরা মানববন্ধন কর্মসূটি পালন করলে শিগগিরই টাকা বুঝিয়ে দেবার আশ্বাস দেন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। কিন্তু দীর্ঘদিন অতিবাহিত হলে টাকা না পেয়ে প্রায় ২ মাস পূর্বে ক্ষতিগ্রস্তরা আবারো আন্দোলনের ডাক দেয়। তখনও সেতু বিভাগ ও সিসিডিবি এনজিওর কর্মকর্তারা ১৫ দিনের মধ্যে তাদের টাকা প্রদানের আশ্বাসই দেয়া হয় মাত্র। সবশেষ গত ৭আগস্ট মাওয়া চৌরাস্তায় গোল চক্করে শতশত ক্ষতিগ্রস্ত লোক তাদের ভূমির যথাযথ ক্ষতিপূরণের দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে। এবং সেতু বিভাগ যথাযথ প্রাপ্য টাকা বুঝিয়ে না দিলে ঈদের পূর্বেই ঢাকা-মাওয়া মহাসড়ক অবরোধসহ বৃহত্তম কর্মসূচির ঘোষণা দেন ভুক্তভোগী পরিবারের প্রতিনিধিরা। তারা আরও অভিযোগ করেন, সরকার ২বছর আগের মূল্যে জমির বর্তমান দাম দিচ্ছে। এ নিয়ে স্থানীয় জনগণ, উপজেলা প্রশাসন, হুইপ ও সেতু বিভাগের পরস্পর বিরোধী বক্তব্য পাওয়া গেছে।

অনুসন্ধ্যানে জানাগেছে, জেলা প্রশাসন থেকে মোটা টাকার বিনিময়ে নাল জমিকে ভিটা বাণীয়ে ফায়দা লুটছেন অনেকে। আবার অতিরিক্ত টাকা খরচা করতে না পেরে কারও ভিটাকে বানানো হয়েছে নাল জমিতে। সব কিছুই যেন একেবারে লেজেগোবরে অবস্থা। তবে ৭% থেকে ১০% বখরা স্বাভাবিক রীতি। আর ২০%-৩০% হলে বিদ্যুৎ গতিতে চেক মেলে বলে ভুক্তভোগীরা জানান। অধিগ্রহণের শুরুতে মাওয়াঘাটের আলী মেম্বার নামের এক ব্রোকার প্রতি লাখে কমপক্ষে আগাম ৮হাজার টাকা করে আদায় করে রাতারাতি কোটিপতি বনেছেন। চরের সাধারণ জনগণ সরল বিশ্বাসে প্লট পাওয়ার আশায় তাকে লাখলাখ টাকা দিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। একে ঘিরে আরও গজিয়ে উঠেছে একটি শক্তিশালী দালাল চক্র। তারা সুকৌশলে হাতিয়ে নিচ্ছে কোটি কোটি টাকা। এদের সাথে স্থানীয় ভূমি অফিসেরও গোপন সখ্যর অভিযোগ পাওয়া গেছে। উত্তর কুমারভোগ মৌজার ওপেল খান অভিযোগ করেন, আটসিসি পিলারে নির্মিত ৮০০ বর্গফুরে বিল্ডিংয়ের মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে মাত্র ৩লাখ ৪২হাজার টাকা। অথচ ২০০০সালে যখন ইটা ছিল প্রতি হাজার মাত্র ৩হাজার টাকা তখনই ওই ভবন তৈরি করতে তার খরচ হয়েছে ৪লাখ টাকার উপরে। তার মতো অনেকে বর্তমান বাজার দরে মূল্য নির্ধারনের জোর দাবি জানান। এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসক মোঃ আজিজুল আলম আমার দেশকে বলেন, আমরা চেকের মাধ্যমে টাকা দিচ্ছি। অতিরিক্ত টাকা নেয়ার প্রশ্নই উঠেনা। তবে স্থানীয় সাংসদ ও হুইপ সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি টাকা উত্তোলনে ঘুষ বাণিজ্য এবং তার এলাকার সাধারণ জনগগনের ভোগান্তির কথা স্বীকার করেন।

জানা গেছে, বর্তমানে দরপত্র মূল্যায়ণের কাজ চলছে। প্রাকযোগ্য প্রতিষ্ঠানগুলো হতে মূল সেতুর দরপত্র জমা নেয়ার তারিখ শীঘ্রই ঘোষণা করা হবে। সূত্র আরও জানায়, জানুয়ারিতে মূল সেতুর কাজ শুরু হবে। স্যামসাং সি এন্ড টি কর্পোরেশন, চায়না মেজর ব্রিজ ইন্জিনিয়ারিং কোং লি:, ডেলিম-বিএএম-ভিসিআই জয়েন্ট ভেনচার, ভিনচি-এইচসিসি জেভি এবং চায়না কমিউনিকেশনস কন্সট্রাকশন কোম্পানি লিমিটেড নামের ৫টি কোম্পানিকে পদ্মা সেতু প্রকল্পের মূল সেতুর জন্য প্রাক-যোগ্যতা সম্পন্ন ঠিকাদার হিসেবে নির্বাচন করা হয়েছে।

যোগাযোগ মন্ত্রণালয় সূত্র কাজের অগ্রগতি সম্পর্কে জানায়, সেতু নির্মাণে ব্যয় হবে ২ দশমিক ৯৭ বিলিয়ন ডলার। সরকার ইতোমধ্যে ২ দশমিক ৬৫ বিলিয়ন ডলার বৈদেশিক অর্থসংস্থান নিশ্চিত করেছে। তবে কাজের বর্তমান অবস্থা পর্যালোচনা করে, আদৌ এ সরকারের মেয়াদে সেতুর অন্তত মূল অংশের কাজ শেষ করা সম্ভব কিনা; তা খোদ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের অনেকেই প্রশ্ন তুলছেন। বারবার দাবি করা হচ্ছে, কন্সট্রাকসন ইয়ার্ডের ও পূনর্বাসনের কাজ শতকরা ৭০ভাগ শেষ। কিন্তু সরজমিনে যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের ওইসব দাবি নিছক কল্পকাহিনী ছাড়া আর কিছুইনা।

জাইকা সূত্রে জানা গেছে, পদ্মাসেতু নির্মাণে ৪শ ১৫মিলিয়ন ঋণ সহায়তা দিচ্ছে জাপান। যা বাংলাদেশের একক কোনো প্রকল্পে জাপান সরকারের এ যাবতকালের সর্বোচ্চ সহায়তা। এশিয়ান হাইওয়ের সাথে পদ্মা সেতু অঙ্গাঅঙ্গি ভাবে সম্পৃক্ত বিধায় একাজে তারা বেশ আগ্রহী। এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি), ইসলামী উন্নয়ন ব্যাংক (আইডিবি) এর সাথেও ঋণ চুক্তি শেষ। কিন্তু পদ্মা সেতু প্রকল্প বাস্তবায়নে সবচেয়ে বেশি সহায়তা কারী বাংলাদেশ সরকারের সাথে আন্তর্জাতিক অর্থায়নকারী প্রতিষ্ঠান বিশ্ব ব্যাংকের সাথেই ঝুট ঝামেলা মিটছেনা বলেই কি দরপত্র আহবানে বিলম্ব হচ্ছে ? বিশ্বব্যাংকের টানাপড়েনের বিষয়টি যোগাযোগ মন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন অস্বীকার করেন। তিনি বলেন, সব চুক্তি শেষ। মূল্যায়ন চলছে। যে কোন মুহুর্তে টেন্ডার আহবান করা হবে।

এদিকে মাওয়া ঘাটসহ লৌহজং ও শ্রীনগরের জনগণের মাঝে সেতু বিলম্বে বিরূপ পতিক্রিয়া দেখা গেছে। আশপাশ এলাকার বাসিন্দাদের অভিমত, সেতু নির্মাণের কাজ বিলম্বিত হলে নদী শাসন ও পূর্ণবাসন প্রকল্পও হবে দেরিতে। এতে সেতুর মূল পয়েন্টের উভয় পাশের প্রায় ৬ কি.মি. নদী তীরবর্তী অঞ্চলের বাসিন্দাদের উৎকণ্ঠার শেষ নেই। এমনিতেই প্রমত্বা পদ্মা রাক্ষুসি রূপ ধারণ করে বর্ষার প্রতি মুহূর্তেই গিলে খায় যশুলদিয়া, কান্দিপাড়া, কবুতর খোলা, ভাগ্যকুল ও শিমুলিয়াসহ ১০/১২ গ্রামের লাগঘেঁষা অঞ্চল সমূহ। বিশেষ করে অসহায় উন্মূল উদ্বাস্তু সেইসব ভাগ্যবিড়ম্বিত ভাঙ্গন কবলিত এলাকার বাসিন্দাদের দৃষ্টি ছিল দ্রুত পদ্মা সেতু নির্মাণের দিকে। কারণ, সেতু নির্মিত হলেই শাসিত হবে পদ্মা। আর ভাঙ্গন আতঙ্কে রাত কাটাতে হবেনা শ্রীনগর ও লৌহজং পদ্মা পাড়ের বাসিন্দাদের। কিন্তু সেতু নির্মাণ বিলম্বের খবরে ওইসব ক্ষতিগ্রস্তদের মাথায় একেবারে বাঁজ পড়েছে। তাছাড়া, রাজধানি ঢাকার সাথে দক্ষিণ বঙ্গের অন্যতম প্রবেশ দ্বার মাওয়া ঘাটের যাত্রাবিড়ম্বনা ও অহেতুক হয়রানি থেকে উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা বঞ্চিত মুক্তিকামি জনগণেরও এ খবরে ভাবনার যেন শেষ নেই।

এডিবি বললো আলোচনা চলছে

ঢাকায় এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) আবাসিক প্রতিনিধি থিবাকুমার কান্দিয়া গতকাল রোববার সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে বলেছেন, তদারকির কাজে প্রাথমিক তালিকায় থাকা একটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ ওঠায় পদ্মা সেতুর অর্থায়নে জটিলতা দেখা দিলেও তার অবসানে বিশ্বব্যাংক ও এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের মধ্যে আলোচনা চলছে।

পদ্মা সেতু প্রকল্পে প্রধান ঋণদাতা বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নকে কেন্দ্র করে এসএনসি-লাভালিন গ্রুপ নামের একটি কানাডীয় প্রতিষ্ঠানের কর্মীদের সম্ভাব্য ‘দুর্নীতি’ বিশ্বব্যাংকের অনুরোধে তদন্ত করছে কানাডা। পদ্মা সেতু প্রকল্পের তদারকি প্রতিষ্ঠান নির্বাচনে তৈরি হওয়া সংক্ষিপ্ত তালিকায় এসএনসি-নাভালিন রয়েছে।এ কারণে পদ্মা সেতু প্রকল্প এগিয়ে নিতে দেরি হচ্ছে বলে শনিবার জানান অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

এডিবির আবাসিক প্রতিনিধি বলেন, এ বিষয়ে ম্যানিলা-ওয়াশিংটন কর্পোরেট লেভেলে আলোচনা হচ্ছে। এডিবির সদর দপ্তর ফিলিপিন্সের ম্যানিলায়, বিশ্বব্যাংকের সদর দপ্তর যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটনে। জটিলতা দেখা দিলেও দাতাগোষ্ঠী পদ্মা সেতুর কাজ শেষ করতে আন্তরিক বলে জানান থিবাকুমার।

তিনি একইসঙ্গে বলেন, “দুর্নীতিরোধ ও ক্রয়ের আমাদের নিজস্ব একটি গাইডলাইন আছে।” দাতাদের কারণেই পদ্মা সেতুর কাজ শুরু হতে দেরি হচ্ছে বলে অর্থমন্ত্রীর বক্তব্যের বিষয়ে বিস্তারিত জানতে চাওয়া হলে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব মোশারর হোসেন ভূইয়া কোনো মন্তব্য করেননি। গতকাল রোববার অর্থ মন্ত্রণালয়ে বিশ্বব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্ট ইসাবেল এম গেরেরোর সঙ্গে অর্থমন্ত্রীর বৈঠক হয়। তবে বৈঠকের বিষয়ে কেউই সাংবাদিকদের কিছু বলেননি।

অর্থমন্ত্রী আশা করছেন, আগামী জানুয়ারির মধ্যে পদ্মা সেতুর নির্মাণের চূড়ান্ত দরপত্র আহ্বান করা যাবে। দাতাদের মধ্যে সমন্বয়হীনতার কথা তুলে ধরে মুহিত গত শনিবার বলেন, “ডোনারদের মধ্যে সমন্বয়হীনতা আছে। বিশ্ব ব্যাংক ও এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) ‘অযোগ্য তালিকা’ (ইনএলিজিবিলিটি লিস্ট) দুই রকম। বিশ্ব ব্যাংকের তালিকায় যারা আছেন তারা হয়তো এডিবির তালিকায় নেই, আবার এডিবির তালিকায় যারা আছেন তারা হয়তো বিশ্ব ব্যাংকের তালিকায় নেই।” বিশ্বব্যাংক ও এডিবির মধ্যে সমন্বয়হীনতা আছে বলে গত ১৭ অগাস্টও মন্তব্য করেছিলেন অর্থমন্ত্রী।

বাংলাদেশনিউজ২৪x৭.কম

Leave a Reply