বাজার, ইউপি ভবন কোনোটিই নিরাপদ নয়

পুনর্বাসন গ্রাম তৈরি করতে গিয়ে পদ্মা থেকে অপরিকল্পিতভাবে বালু উত্তোলন করায় লৌহজংয়ে এবার পদ্মার ভাঙন দেখা দিয়েছে। সরকারকে কোনো প্রকার রয়ালটি না দিয়ে অপরিকল্পিতভাবে বালু উত্তোলন করায় লৌহজংয়ের কয়েকটি গ্রাম, একটি বাজার ও একটি ইউপি ভবনসহ শত শত একর জমি এখন ভাঙনের মুখে। এমন অভিযোগ এলাকাবাসীর। ভাঙনকবলিত ওই সব এলাকার মানুষের মধ্যে এখন চাপা উত্তেজনা বিরাজ করছে। রবিবার নিরাপদ বালু উত্তোলনের স্থান চিহ্নিতকরণসহ বিভিন্ন দাবিতে আগামী শুক্রবার মানববন্ধন কর্মসূচি পালনের প্রস্তুতি চলছে বলে জানিয়েছে শিমুলিয়া বাজার কমিটির সভাপতি খান নজরুল ইসলাম হান্নান। সরকারকে কোনো প্রকার রাজস্ব না দিয়ে অপরিকল্পিতভাবে বালু তোলায় এক দিকে যেমন ভাঙছে গ্রামের পর গ্রাম, অপর দিকে সরকার হারাচ্ছে কোটি কোটি টাকার রাজস্ব এমন অভিযোগ তাঁর।

দীর্ঘ দিন ভাঙন বন্ধ থাকলেও আবারও পদ্মায় ভাঙন দেখা দিয়েছে। ভাঙনের কারণ হিসেবে এলাকাবাসী পদ্মা সেতুর তিনটি পুনর্বাসন গ্রাম ও কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ডের জন্য পদ্মা নদী থেকে অপরিকল্পিতভাবে বালু উত্তোলনকেই দায়ী করেছে এলাকাবাসী। তারা জানায়, এ জন্যই কুমারভোগ ইউনিয়নের চন্দ্রেরবাড়ী বরাবর কুমারভোগ ও হলদিয়া ইউনিয়নের পশ্চিম শিমুলিয়া, শিমুলিয়া, উয়ারী ও খড়িয়াসহ বিভিন্ন এলাকায় এখন ভাঙন দেখা দিয়েছে। ফলে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে ওই সব এলাকার হাজার হাজার মানুষ। শিমুলিয়া গ্রামে অবস্থিত ভাওয়ার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি ইতিমধ্যে নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। ওই স্কুলে দুই শতাধিক ছাত্রছাত্রী এখন একটি ছাপরা ঘরে পাঠগ্রহণ করছে। শিমুলিয়া বাজারটির অবশিষ্টাংশ বেশ কয়েক বছর পর এবার দ্বিতীয় বারের মতো ভাঙতে শুরু করেছে। বাজারের দেড় শতাধিক ব্যবসায়ী এখন চিন্তিত হয়ে পড়েছেন তাঁদের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান নিয়ে। ওই বাজারের বেশ কয়েকটি দোকান ইতিমধ্যে নদীগর্ভে চলে গেছে।
পদ্মার ভাঙনের কবলে কুমারভোগ ইউনিয়ন পরিষদ ভবন।

বিআইডাবি্লউটিএর মাওয়া বন্দর কর্মকর্তা বালু লাল জানান, পদ্মা সেতুর ক্ষতিগ্রস্ত আবাসিক প্রকল্পের জন্য উত্তোলন করা বালুর জন্য কর্তৃপক্ষ এখনো একটি টাকাও রাজস্ব পায়নি। নির্দিষ্ট পরিমাণ মাটির জন্য রয়ালটির টাকা পরিশোধ করে কর্তৃপক্ষের দেখিয়ে দেওয়া জায়গা থেকে মাটি কাটার নিয়ম থাকলেও এখানে নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে অপরিকল্পিতভাবে ড্রেজারের মাধ্যমে বালু কাটায় এখন পাশের গ্রামগুলোতে ভাঙন দেখা দিয়েছে। এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসনসহ বিআইডাবি্লউটিএর ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে চিঠি দিয়ে জানানো হলেও কোনো প্রকার ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ পাওয়া যায়নি।

প্রশাসনের বক্তব্য : লৌহজং উপজেলার নবনিযুক্ত নির্বাহী কর্মকর্তা সাইফুর রহমান জানান, পদ্মায় কেউ অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করলে তাদের আটকের ব্যবস্থা করা হবে। পদ্মা সেতু বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী সারফুল ইসলাম জানান, শিমুলিয়া এলাকায় যে ভাঙন দেখা দিয়েছে, তার সঙ্গে পদ্মা সেতুর আবাসন প্রকল্প এলাকার বালু উত্তোলনের কোনো কারণ থাকতে পারে না। শিমুলিয়া থেকে দেড় কিলোমিটার দূরে পদ্মা সেতুর জন্য মাটি কাটা হচ্ছে। তাই এত দূরে গিয়ে ভাঙন শুরু হতে পারে না। তিনি বলেন, নদীর তীরে কনকস্ট্রাশন ইয়ার্ড তৈরি করায় ওই এলাকাবাসীর জন্য উপকারই হয়েছে।

কালের কন্ঠ

Leave a Reply