প্রধানমন্ত্রী নোদা’র প্রথম সাংবাদিক সম্মেলন

জাপানের প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত থেকে রিপোর্ট করেছেন সাপ্তাহিক-এর টোকিও প্রতিনিধি রাহমান মনি
জাপানের নবনিযুক্ত ৯৫তম প্রধানমন্ত্রী ইয়োশিহিকো নোদা ২ সেপ্টেম্বর প্রথমবারের মতো এক সাংবাদিক সম্মেলনের আয়োজন করেন। প্রধানমন্ত্রীর অফিসে বিকেল ৫টা ৩৫ মিনিটব্যাপী জনাকীর্ণ এই সম্মেলনে তার বক্তব্যের শুরুতেই নিয়োগ দেয়ার জন্য জাপানের সম্রাটের প্রতি কৃতজ্ঞতা, ১১ মার্চ ভয়াবহ দুর্যোগে নিহত ও নিখোঁজদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা এবং বেঁচে থাকা ক্ষতিগ্রস্তদের প্রতি সমবেদনা জানান। সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি তার প্রশাসন গৃহীত পদক্ষেপ তুলে ধরেন।

নোদা বলেন, আমার ক্যাবিনেটের প্রধান তিনটি খাতের প্রথম কাজটি হবে বিপর্যয়ে ক্ষতিগ্রস্তদের স্বাভাবিক জীবনযাত্রায় ফিরে যেতে বিভিন্ন সহায়তা দেয়া। ফুকুশিমা পরমাণু চুল্লিতে বিপর্যয়ে তার আশপাশ পরিবেশে যে প্রভাব পড়েছে, বিশেষ করে কৃষি খাতে (মৎস্য, পশু ও খাদ্যশস্য) তার জন্য কাজ করতে হবে। এমন কি জাপানের বাইরে যদি এর কোনো প্রভাব পড়ে থাকে তাহলে দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতার ভিত্তিতে তার সমাধানে কাজ করতে হবে। কৃষি খাত পুনরুদ্ধার না করতে পারলে ভয়াবহ পরিস্থিতির শিকার হতে হবে।

নোদা আরও বলেন, কান প্রশাসন আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করে গেছেন। আমি তারই প্রশাসনের একজন ছিলাম। পৃর্বসূরি কান প্রশাসনের ঘাটতিগুলো খুঁজে বের করে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সমাধানে হাত দিতে হবে। এত বড় একটি বিপর্যয়ে টেপকো (ঞবঢ়পড় টোকিও বিদ্যুৎ সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান) এখনো পর্যন্ত এটাই কাজ করে যাচ্ছে। তাদের পক্ষে যদি সম্ভব না হয় তাহলে সরকার হিসেবে আমরা তাদের পাশে দাঁড়াব, আর্থিক সহায়তা দেব। এ জন্য আমাদেরকে অর্থ মজুদের ভিত গড়ে তুলতে হবে। প্রয়োজনে জনগণের মতামত নিয়ে কর বাড়ানোও হতে পারে। আশা করি জনগণও বিষয়টি উপলব্ধি করতে পারছেন।

নোদা বলেন, চলতি গ্রীষ্মে যতটুকু বিদ্যুৎ ঘাটতির আশা আমরা করেছিলাম, বাস্তবে ততটুকু হয়নি। এর কৃতিত্ব অবশ্যই জনগণের, তাদের সচেতনতায় পরিস্থিতি সামাল দেয়া সম্ভব হয়েছে।

আন্তর্জাতিক প্রসঙ্গে নোদা বলেন, গতরাতে আমেরিকার প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার সঙ্গে আমার কথা হয়েছে ফোনে। আমি তাকে বলেছি জাপান-আমেরিকার বর্তমান সম্পর্ককে কেবল ধরে রাখলেই চলবে না। সম্পর্ক আরও উন্নয়নে দুই দেশকেই কাজ করতে হবে। কারণ এশিয়া প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের শান্তি স্থিতিশীলতা ও সমৃদ্ধির জন্য জাপান-আমেরিকা সম্পর্ক উন্নয়ন অপরিহার্য।

তিনি আরও বলেন, চীন, রাশিয়া এবং কোরিয়ার সঙ্গে আমাদের একযোগে কাজ করতে হবে। কারণ এই দেশগুলোর সঙ্গে বিভিন্নভাবেই জাপানের উন্নতি জড়িত। কাজেই এই দেশগুলোসহ অন্য সকল দেশের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়ন জাপানের জন্য অপরিহার্য।

নোদা বলেন, আমাদের বড় মাঝারি এবং ছোট তিন ধরনের শিল্প কারখানা রয়েছে। বর্তমানে বড় কোম্পানিগুলো কিছুটা হলেও টিকে আছে। সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত মাঝারিগুলো। তাদের কি পূর্বাবস্থায় ফিরিয়ে নেয়া এবং ছোটগুলোকে মাঝারি পর্যায়ে উন্নীত করতে পারলে জাপানে একটা শক্তিশালী অর্থনীতির ভিত গড়ে ওঠবে। আমার প্রশাসন প্রয়োজনে সহায়তা দিয়ে মাঝারি শিল্প কারখানা গড়ে তুলতে উৎসাহিত করবে। চলতি অর্থবছরে তিনি এ কাজটি খাড়ার লক্ষ্যে আগামী মার্চের মধ্যে করারোপ করার চিন্তা করছেন বলে মনে হয়।

কর আদায়, দুর্গত এলাকায় পুনর্গঠনসহ তিনটি প্রধান বিষয় নিয়ে তিনি বিরোধী দলগুলোর সঙ্গে আলোচনা করেছেন বলে উল্লেখ করেন। কারণ জাপান উন্নয়নে তিনি বিরোধী দলগুলোকে নিয়েই কাজ করতে চান। এর পর তিনি সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন।

rahamanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply