মুন্সীগঞ্জ পাসপোর্ট অফিসে দালাল চক্রের দৌরাত্ম

পাসপোর্ট নিতে আসা লোকটির নাম আজিজ। বয়স ২২ বছর। গজারিয়া উপজেলার ভাসার চর থেকে এসেছেন মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট তৈরি করে নেয়ার জন্য। গত ১লা আগস্ট ফরম জমা দিয়েছেন। ১৬ আগস্ট ফিঙ্গার প্রিন্ট দিয়েছেন। কর্তৃপক্ষ বলেছেন এ মাসের ৬ তারিখে পাসপোর্ট পাওয়া যাবে কিন্তু সোমবার ১৩ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত তার পাসপোর্ট তৈরি হয়নি। একই উপজেলা থেকে এসেছেন জাহাঙ্গীর আলম। গ্রামের নাম চর বলাকী। বয়স ৪৫ বছর। মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট করার জন্য আসলে এক দালালের খপ্পরে পড়েন। তিন হাজার টাকার পাসপোর্ট করার জন্য তাকে গুণতে হয় পাঁচ হাজার টাকা। গত ২৯ আগস্ট সব কাগজপত্র জমা দিলেও ফিঙ্গার প্রিন্ট ভুল হওয়ার কথা বলে ৩/৪ মাস পর তাকে দেখা করতে বলেন। অথচ তাকে ১১ সেপ্টেম্বর পাসপোর্ট দেয়ার কথা ছিল।

মঙ্গলবার দুপুর আড়াই দিকে শহরের পাঁচঘড়িয়াকান্দিস্থ মুন্সীগঞ্জ আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে সরেজমিনে গেলে এসব অভিযোগ শোনা যায়।

দীর্ঘদিন থেকেই আঞ্চলিক এ পাসপোর্ট অফিস নিয়ে সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ আসছিল। কতিপয় দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তার সহযোগিতা নিয়ে অফিসের বাইরে দালাল চক্রের সিন্ডিকেট গড়ে ওঠেছে।

সরেজমিনে তার দেখা মিলল। কতিপয় দালাল বেশ কয়েকজন পাসপোর্ট করতে আসা লোকজনকে বুঝাচ্ছেন। ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা এসব দালালের বেশ ব্যস্ততাও বোঝা গেল। ভিতরে গিয়ে দেখা চরম বিশৃঙ্খলা। লোকে লোকারণ্য। সব দফতর গুলোতেই দালালরা চষে বেড়াচ্ছেন। নিরাপত্তাকর্মীদের দাফতরিক কাজ করতে দেখা গেল। ভিতরে সাংবাদিক আসছে শুনে সবাই একটু সতর্ক হলেন। অফিসের উচ্চমান সহকারী রেজোয়ান উল হককে বেশি ব্যস্ত দেখা গেল। তিনি অফিসের ভিতর ভিড় করে থাকা সবাইকে ধমকালেন। ছবি ও ফিঙ্গার প্রিন্ট দিতে আসা সবাইকে লাইনে দাঁড় করিয়ে দিলেন।

অফিস সূত্রে জানা যায়, মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট এর নিয়ম হচ্ছে ১৫ দিনের মধ্যে পাওয়ার জন্য তিন হাজার টাকা ও সাত দিনে পাওয়ার জন্য ছয় হাজার টাকা ব্যাংকের মাধ্যমে জমা দিতে হয়। কিন্তু অনেকের অভিযোগ নির্দিষ্ট টাকার দ্বিগুণ টাকা দিয়েও ঠিকমতো পাসপোর্ট পাওয়া যায় না।

ফিঙ্গার প্রিন্ট এ সরকারী নিয়মে কোনো টাকা না লাগলেও সর্বোচ্চ এক হাজার ২০০ টাকা পর্যন্ত নেয়া হয়। ছবি ও ফিঙ্গার প্রিন্ট নিতে ঘণ্টার পর ঘণ্টা দাঁড়িয়ে থাকতে হয়। চাহিদা মাফিক টাকা না দিলে অযথা হয়রানির শিকার হন পাসপোর্ট করতে আসা নিরহ জনসাধারণ।

সম্প্রতি পুলিশ অভিযান চালিয়ে কিছু দালালকে আটক করলেও এখন আবার সেই আগের দৃশ্য যায়।

এ ব্যাপারে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে উপ-সহকারী পরিচালক খোরশেদ আলম জানান, তিনি গত ১১ সেপ্টেম্বর রোববার এখানে যোগ দিয়েছেন। তিনি এখানে কোনো অনিয়ম দেখছেন না। দেখলে ব্যবস্থা নিবেন। সময়ের দীর্ঘতা সম্পর্কে তিনি বলেন, পাসপোর্ট এখানে ছাপা হয় না। পুলিশ তদন্তের বিষয় আছে। তাছাড়া মেশিনের ত্রুটির জন্যেও পাসপোর্ট পেতে দেরি হতে পারে।

বার্তা২৪ ডটনেট/এটি
———————

দৃশ্যপট : মুন্সীগঞ্জ পাসপোর্ট অফিস : হাজার টাকা না দিলে মেলে না ফিংগারিং

মাহাবুব আলম লিটন, মুন্সীগঞ্জ: মুন্সীগঞ্জের পাসপোর্ট অফিসটি পাসপোর্ট করতে আসা মানুষের জন্য চরম ভোগান্তির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এই অফিসের কিছু লোক এবং তাদের নিয়োজিত দালালাদের দৌরাত্ম্যে মানুষ সীমাহীন হয়রানির শিকার হচ্ছেন। পদে পদে আদায় করা হচ্ছে টু পাইস। এমনকি হাজার টাকা ঘুষ না দিলে ফিংগারিংও মিলছে না। অভিযোগ রয়েছে, অফিসটি অজপাড়াগাঁয় হওয়ায় দুর্নীতিবাজদের পোয়াবারো অবস্থা হয়েছে।

মুন্সীগঞ্জ জেলার প্রতিটি পরিবারের মধ্যে অন্ততপক্ষে ১ জন রয়েছেন প্রবাসী। তাই প্রতিদিনই পাসপোর্ট অফিসে দেড়শ’ থেকে দুইশ’ লোক পাসপোর্ট নিতে আসেন। কিন্তু এই সুযোগে অফিসের লোক এবং দালালচক্র হাতিয়ে নিচ্ছে মোটা অঙ্কের টাকা। এখানে এসে পদে পদে বিভিন্ন হয়রানির শিকার হচ্ছেন মানুষ।

ভুক্তভোগীদের অনেকেই অভিযোগ জানিয়েছেন, মুন্সীগঞ্জে ফিংগারিংয়ের সিরিয়াল নিতে হাজার টাকা দিতে হচ্ছে পাসপোর্ট করতে আসা প্রত্যেককে। জানিয়ে দেয়া হচ্ছে, ‘হাজার টাকা নেই তো সিরিয়াল নেই, ফিংগারিং নেই।’ এ অবস্থায় ৩০ দিন পরে আসার সিস্নপ ধরিয়ে দেয়া হয় তাদের।

খোঁজ নিতে গিয়ে জানা যায়, মুন্সীগঞ্জের পাসপোর্ট অফিসে চলছে দালাল ও কর্তৃপক্ষের দুর্নীতির লাগামছাড়া তৎপরতা। মঙ্গলবার এবং আগেরদিন পাসপোর্ট অফিসে গিয়ে জানা যায়, প্রতিদিনই হচ্ছে দীর্ঘ লাইন, চলছে হট্টগোল। পুলিশি তদন্তের নামেও চলছে টু-পাইস হাতানোর মহাউৎসব। টাকা দিলেই অপরাধীও নিরপরাধ বনে যাচ্ছে। এতে করে অরাজকতা সৃষ্টিকারী, হত্যার সঙ্গে জড়িতরাও অনায়াসে পাসপোর্ট করে বিদেশে পাড়ি জমাতে পারছেন। বর্তমানে ডিজিটাল পাসপোর্ট করার সুযোগে ফিংগারিং নামক অসহনীয় যন্ত্রণায় ফেলে প্রতি পাসপোর্টধারীর কাছ থেকে অফিসের আনসারদের মাধ্যমে ১ হাজার টাকা করে নিয়ে কম্পিউটার ল্যাবে হাতে হাতে দেয়া হচ্ছে। যে ১ হাজার টাকা দিচ্ছে না, তাকেই ৩০ দিনের একটি সময় ধরিয়ে দেয়া হচ্ছে। দালালদের ও অফিসারদের কথা_ ‘টাকা আছে তো ফিংগারিং হবে। টাকা নেই হবে না।’ অফিসে দেখা যায়, অনেক পাসপোর্ট আটকিয়ে রাখা হয়েছে। দেয়া হচ্ছে না পাসপোর্ট মালিকের হাতে। ‘আসে নাই’ বলে ফিরিয়ে দেয়ারও অভিযোগ রয়েছে।

ভুক্তভোগীরা জানান, ১০ দিনের কথা বলে টাকা নিয়ে ২৫ দিনেও পাসপোর্ট দিচ্ছে না। বলছে, পুলিশ রিপোর্ট আসেনি। ১-২ মাস ঘুরিয়ে পাসপোর্ট দেয়া হচ্ছে। তারা জানান, যতক্ষণ পর্যন্ত কর্তৃপক্ষের লোকের কাছে উৎকোচ না দেয়া হয়, ততক্ষণ পর্যন্ত পাসপোর্ট না দেয়া ও পুলিশ রিপোর্ট আসেনি বলে ফিরিয়ে দেয়ার চিত্র নিত্যদিনের।

এ ব্যাপারে সদ্য যোগদানকারী উপসহকারী পরিচালক খোরশেদ আলমের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘আমি নতুন যোগদান করেছি, ফিংগারিংয়ের বিষয়ে অতিরিক্ত টাকা নেয়ার বিষয়টি আমার জানা নেই।’ তিনি এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘ফিংগারিংয়ের জন্য যে সময় বেঁধে দেয়া হয়, সেই তারিখে তারা না আসলে স্বাভাবিকভাবেই তারা পিছিয়ে পড়ে।

সংবাদ

Leave a Reply