মুনশীগঞ্জ-বিক্রমপুর সোসাইটির ইফতার মাহফিল

মুনশীগঞ্জ-বিক্রমপুর সোসাইটির ইফতার মাহফিল মানে ঈদের চেয়ে বেশি আনন্দ। আগের রাত থেকে রান্নার আয়োজন। বাহারী খাবারের সমাহার। এবারও তার ব্যতিক্রম ঘটেনি। খাবার সংস্কৃতি বিক্রমপুরবাসীর ঐতিহ্য। বিক্রমপুরবাসী খেতে যেমন ভালোবাসে তেমনি খাওয়াতেও পছন্দ করে। তাই গতানুগতিক ধারা থেকে একটু ভিন্নতা নতুন মাত্রা যোগ করে। হরেক রকমের ইফতার আইটেমের সঙ্গে বিভিন্ন ফলফলাদি, সমুচা, হালিম বিক্রমপুর সোসাইটির ইফতার মাহফিল ছাড়া জাপানে আর কোথাও সম্ভবপর হয়ে ওঠে না। রাতের ডিনারে বিক্রমপুরের ঐতিহ্য অনুযায়ী বিভিন্ন রকমের ভর্তা, ভাজি, পদ্মার ইলিশ ভাজা, খাসির রেজালা, গরুর ভুনা মাংসের সঙ্গে সাদা ভাত কার জিভে পানি না এসে পারে?

২৮ আগস্ট রমজানের শেষ দিকে সাইতামা-কেন, মিসাতো-সিটি, তোয়ামিসাতো হলে আয়োজিত ইফতার মাহফিলে দূরদূরান্ত থেকে প্রবাসীদের অংশগ্রহণ শেষ পর্যন্ত মিলনমেলায় পরিণত হয়। যাতায়াত বিড়ম্বনা সত্ত্বেও ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে দুপুরের পর থেকেই সকলের আনাগোনা আয়োজন ভেন্যু মুখরিত হয়ে ওঠে। চারটি হলেও এক পর্যায়ে স্থান সংকুলান না হওয়ায় করিডোরে মাদুর পেতে অনেককে আসন দেয়ার তৃপ্তিতে আয়োজকদের সন্তুষ্টি দেখা যায়। ইফতারের পূর্বে একাধিক মাওলানা ধর্মীয় বয়ান এবং দোয়া মাহফিল পরিচালনা করেন। ইফতার শেষে মাগরিব নামাজের জামাত বাংলাদেশে ছোটখাটো ঈদের জামায়াতকেও হার মানায়। দুইটি জামাতে কয়েকশত মুসল্লি অংশগ্রহণ করেন।

নৈশভোজের পূর্বে মুনশীগঞ্জ-বিক্রমপুর সোসাইটির সভাপতি আলহাজ মো. নুর এ আলম এবং সাধারণ সম্পাদক বাদল চাকলাদার সকলকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়ে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন। বাংলাদেশে একজন মাওলানার কিডনি চিকিৎসার সাহায্যার্থে এক মানবিক আবেদনে সাড়া দিয়ে উপস্থিত অতিথিদের কাছ থেকে তাৎক্ষণিক ১,৩০,০০০ ইয়েন এবং পরে অনেকে ফিতরার টাকা দান করলে সংগৃহীত টাকার পরিমাণ বহুলাংশে বেড়ে যায়। সংগৃহীত টাকা প্রবাসীদের পক্ষে রাহমান মনি মাওলানা হাবিবুল্লাহর মাধ্যমে মাওলানা ইউনুসের জন্য হস্তান্তর করেন।

সদ্য বদলি অর্ডারপ্রাপ্ত বাংলাদেশ দূতাবাসের চার্জ দ্য অ্যাফেয়ার্স এবং ইকোনমিক মিনিস্টার মানজুরুল হককে সোসাইটির পক্ষ থেকে বিদায়ী ফুলেল শুভেচ্ছা জানান সভাপতি নুর এ আলম এবং সাধারণ সম্পাদক বাদল চাকলাদার। ব্যবসায়ী এবং প্রবাসীদের পক্ষ থেকে বিদায়ী ফুলেল শুভেচ্ছা জানান এমডি এস ইসলাম নান্নু।
বিদায়ী ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়, জাপান প্রবাসীদের অতি প্রিয়, অচেনা কাছের মানুষ, যিনি প্রবাসীদের প্রতিটি কর্মকা-ের অগ্রিম বার্তা, বিপর্যয়ে দিকনির্দেশনা সুনিপুণভাবে প্রবাসীদের কাছে এবং জাপান প্রবাসীদের ভালো কাজগুলো বহির্বিশ্বে পৌঁছে দেয়ার গুরুদায়িত্বটি পালন করেছেন দীর্ঘ ১২ বছর তার পরিচালনায় উয়েব পোর্টালের মাধ্যমে, একজন শিক্ষক, আর্কিটেক্ট এবং জাপান প্রবাসীদের অত্যন্ত জনপ্রিয় উয়েব পোর্টাল বাংলাদেশ টাইগারস ডট কম-এর পরিচালক, সম্পাদক খুরশীদ আল মেহের তন্ময়কে। তন্ময় দীর্ঘ ১২ বছর জাপান প্রবাসজীবন শেষ করে বাংলাদেশে ইউনাইটেড গ্রুপে চাকরি নিয়ে বাংলাদেশে ফিরে যাচ্ছেন। ড. তন্ময় জাপানে মাস্টার্স, ডক্টরেট এবং পোস্ট গ্রাজুয়েশন সম্পন্ন করেন। তন্ময় মুনশীগঞ্জ-বিক্রমপুরের জামাতাও বটে। তার শ্বশুরালয় মুনশীগঞ্জ রামপাল সিপাহীপাড়ায়। তার প্রিয়তম স্ত্রী নিশি মোরশেদুল ইসলাম পরিচালিত ছবিতে অভিনয় করে জাতীয় শিশুশিল্পীর পুরস্কার অর্জন করেন। তার হাতে ফুল তুলে দেন সকলের পক্ষে দূতাবাস চার্জ দ্য অ্যাফেয়ার্স মানজুুরুল হক। জনাব তন্ময় বিদায় নিলেও জাপান প্রবাসীদের জন্য তার পরিচালিত উয়েব পোর্টাল আরো ভালো করার প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হন।

রাহমান মনি
rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply