ডঃ তন্ময়ের দেশে ফেরাঃ বিদেশে আশার আলো

রাহমান মনি
ভালো নাম খুরশীদ মেহের তন্ময়। নামটির সাথে অনেকেই হয়ত পরিচিত। অনেকেই আবার নয়। কিন্তু ‘বাংলাদেশ টাইগার্স’ ওয়েব পোর্টালের নামের সাথে পরিচিত নন এমন জাপান প্রবাসী পাওয়া মুশকিল। বিশেষ করে যারা ইন্টারনেট ব্রাউজ করেন। হ্যাঁ- যার নামটি দিয়ে লেখা শুরু করেছি তিনি প্রবাসীদের তন্ময় ভাই।

ডঃ তন্ময়ের সাথে আমার প্রথম পরিচয় (নামের সাথে)২০০১ সালে। ডঃ শামসুল ইসলাম ভূঁইয়ার অনুপ্রেরণায় প্রবাসী কল্যান সমিটি জাপানের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি জাকির হোসেন জোয়ার্দারের পরামর্শে ২০০১ সালে হিগাশি তাবাতা চিইকি শিমিন কাইকানে এক ইফতার পার্টির আয়োজন করা হয়। তখন প্রবাসী কল্যান সমিতির উপদেষ্টা ছিলেন ডঃ শেখ আলিমুজ্জামান। আলিমুজ্জামানের ভাই হলেন শেখ মোস্তাফা আজিজ বাবু (জাপান বাংলাদেশ ডট কম এর এডিটর)। জাকির ভাই এবং আলিম ভাইয়ের সাথে পরামর্শ করে সকলকে দাওয়াত দেবার জন্য একটি পোস্টার বের করার চিন্তা মাথায় এলে আলিম ভাই তার ছোট ভাইকে দিয়ে পোস্টার তৈরি করার দায়িত্ব নেন। বাবু ভাই তার বন্ধু তন্ময়কে দিয়ে পোস্টারটি তৈরি করেন এবং নেটের মাধ্যমে প্রবাসীদের উন্মুক্ত আমন্ত্রন জানানো হয়। বলা যেতে পারে জাপানে এতবড় ইফতার মাহফিলের আয়োজন এবং পোস্টারের মাধ্যমে আমন্ত্রনের সূচনাটি যাদের সক্রিয় সহযোগিতায় হয়েছিলো তাদের একজন তন্ময়। এরপর ২০০৩ এর ২১শে ফেব্রুয়ারি প্রবাসী ম্যাগাজিন ‘পরবাস’ এর সূচনা সংখ্যাটি তারই হাতের সুনিপুন অলংকরনের সাক্ষর। পরবাস’ও তন্ময়ের সক্রিয় সহযোগিতায় আত্মপ্রকাশ করে।

এই দু’টি সূচনা কাজ দেখে মনে হয়েছিলো তন্ময়ের ভাই অন্য সকলের চাইতে একটু আলাদা। পরে জানতে পেরেছি তিনি খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন শিক্ষক। শিক্ষকদেরকে আমি সব সময়ে অন্য দৃষ্টিতে দেখে থাকি। তা সে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকই হোন আর বিশ্ববিদ্যালয়ের। তারা মানুষ গড়ার কারিগর।

কাকতলীয় ভাবে তন্ময়ের বিদায়ের খবরটিও আমি ইফতার মাহফিলেই জানতে পারি। তন্ময় ভাই নিজেই আমাকে খবরটি জানান। শুনে আমি যার পরনাই খুশি হই। কিন্তু বিচ্ছেদের বেদনাও কম নয়। যে লোকটি মাঝে মধ্যেই বিশেষ করে যে সব অনুষ্ঠানে ফ্যামিলিদের অংশ গ্রহন বেশি থাকে সেখানে স্বপরিবারে সদা হাস্যজ্জল যে মুখটি দেখা যায় সেটি হলো ডঃ তন্ময়ের। যদিও অনুষ্ঠানে যথা সময়ে উপস্থিত হবার রেকর্ড আমার চোখে পড়েনি, তথাপি তার উপস্থিতিতে বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর পেয়ে যেতাম। পোর্টালে নিউজ, পোস্টার ইত্যাদি স্থান দেয়া নিয়ে বিলম্বে প্রকাশ করায় কষ্ট যে পাইনি তা কিন্তু নয়। কিন্তু বিলম্বে হলেও তন্ময় ভাই তার হাতের স্পর্শে পোস্টারটির আবেদন শতগুন বাড়িয়ে দিতেন। সন্তানের মুখ থেকে মা যেমন তার কষ্টের কথা ভূলে যান তেমনি তন্ময় ভাইয়ের উপস্থাপন দেখে বিলম্বে পাবার কষ্ট ভূলে যেতাম।

ডঃ তন্ময় খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের দ্বিতীয় ব্যাচে স্থাপত্যকৌশলে মাস্টার্স করেন। তারপর সেখানে শিক্ষক হিসেবে যোগদেন। ১৯৯৯ সালে তিনি পোস্ট গ্র্যাজুয়েট স্কলারশিপ নিয়ে জাপানে আসেন। ২০০৫ সালে তিনি তার পিএইচডি সম্পন্ন করে যুক্তরাজ্যের মালিকানাধীন একটি প্রতিষ্ঠানে প্রজেক্ট কনসাল্ট্যান্ট হিসেবে যোগ দেন।

মাঝে মাঝে তন্ময় ভাইকে বলতাম, আপনাদের দরকার দেশে গিয়ে নিজের দেশের জন্য কাজ করা।

একজন মাহাথির মাহমুদ তার দেশের কল্যানে বিদেশ থেকে দেশের মেধা ফিরিয়ে আনার ব্যবস্থা করেন। তার ফল আমরা দেখতে পাচ্ছি। বাংলাদেশ যদি এমন কোন ব্যবস্থা গ্রহন করতো তা হলে আজ হয়ত বাংলাদেশও অন্যান্য দেশের মডেল হতে পারতো।

তাই তন্ময় ভাইয়ের দেশে ফিরে যাবার কথা শুনে ক্ষনিকের বিচ্ছেদ বেদনা ভুলে খুশি হয়েছি এবং প্রাণ ভরে দোয়া করছি যে আমরা না হয় তন্ময় ভাইয়ের সান্নিধ্য থেকে বঞ্চিত হলাম কিন্তু দেশ তাকে ফিরে পেলো। প্রচন্ড আশাবাদি মানুষ তন্ময় ভাই। তার কথায় স্পষ্ট ছাপ রয়েছে সেটার। আমাকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছিলেন “আমার পোর্টালটিতে নেগেটিভ বা খারাপ খবর দেয়া হয়না। কারণ, খারাপ খবর খুঁজতে হয়না এমনিই বাতাসে ভেসে বেড়ায়। তাই ভালো খবরগুলি জানান দেয়াই পোর্টালের মূল উদ্দেশ্য। প্রবাসীদের পরবর্তী প্রজন্ম যারা বাংলাদেশকে দূর থেকে চেনে, জানে তারা যেন এত কষ্টের দেশেও যে ভালো কিছু আছে তা জানতে পারে, শুনতে পারে এবং বুঝতে পারে। পরবর্তী প্রজন্মের কাছে আলোয় ভুবন ভরা বাংলাদেশকে পরিচিত করতে চাই।”

খুরশিদ মেহের তন্ময় একজন ভালো উপস্থাপক, সফল সংগঠক, সাংস্কৃতিক কর্মী, ক্রিড়াবিদ এবং খবর পাঠক। তিনি একজন ভালো আবৃত্তিকারও। তার স্ত্রী নুসরাত আনোয়ার নিশি একজন সফল অভিনেত্রী। মোরশেদুল ইসলামের দুখাই ছবিতে অভিনয় করে তিনি রাষ্ট্রীয় পদক লাভ করেন। তন্ময় ২ সন্তানের জনক এবং তৃতীয়জনকে বরণ করার অপেক্ষায় আছেন। তার সার্বিক সাফল্য, সুস্বাস্থ্য সুখী জীবন ও দীর্ঘায়ূ কামনা করি।

rahmanmoni@gmail.com

Leave a Reply