পদ্মা সেতু নির্মাণে দুর্নীতি অনুসন্ধান শুরু করল দুদক

নজমূল হক সরকার: যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ খতিয়ে দেখতে দুদকের পৃথক টিম মাঠে নেমেছে। পদ্মা বহুমুখী সেতু নির্মাণ প্রকল্পে দুর্নীতির অনুসন্ধানে কাজ শুরু করেছে দুদক। দদুক থেকে পদ্মা সেতু নির্মাণের জন্য দরপত্র আহ্বান, নদী শাসন, সংযোগ সড়ক নির্মাণসহ বিভিন্ন তথ্য চেয়ে সেতু বিভাগকে চিঠি দেওয়া হয়েছে। এ সেতু প্রকল্পে কোনও অনিয়ম ও দুর্নীতি হয়েছে কিনা পুঙ্খানুপুঙ্খরূপে তা অনুসন্ধানের জন্য বিশ্বব্যাংক, এডিবি ও কানাডিয়ান প্রতিষ্ঠানের কাছে প্রয়োজনীয় তথ্য চেয়ে শিগগিরই চিঠি পাঠাবে দুদক।

জানা গেছে, পদ্মা সেতু প্রকল্পে উত্থাপিত দুর্নীতিসহ বিভিন্ন অভিযোগ খতিয়ে দেখার জন্য দুদকের নিয়োগ হওয়া সহকারী পরিচালক মির্জা জাহিদুল ইসলাম কাজ শুরু করেছেন। অভিযোগ উঠেছে, পদ্মা সেতু প্রকল্পের জন্য ১০ হাজার ১৬১ কোটি ৭৫ লাখ টাকা ব্যয় অনুমোদন করা হয়েছিল ২০০৭-০৮ অর্থবছরে। গত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এজেন্সি (জাইকা) গবেষণা সুপারিশ অনুযায়ী মাওয়া-জাজিরা স্থানে এ সেতু নির্মাণে সম্ভাব্য ব্যয় ধরা হয়েছিল। কিন্তু এ বছর ১১ জানুয়ারি একনেকের বৈঠকে পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্প সংশোধন করে প্রায় ২১ হাজার কোটি টাকা ব্যয় অনুমোদন দেওয়া হয়। এ সেতু নির্মাণের প্রকল্প ব্যয় প্রায় দ্বিগুণ ও সময় কালক্ষেপণ করার ক্ষেত্রে অভিযোগ রয়েছে।

বিআরটিএর লাইসেন্স ইসুসহ বিভিন্ন অভিযোগ অনুসন্ধানে উপপরিচালক আব্দুল আজিজ ভূঁইয়ার নেতৃত্বে ৩ সদস্যের টিম কাজ শুরু করেছে। এছাড়া বঙ্গবন্ধু সেতুসহ বিভিন্ন সেতুর টোল আদায় ও সড়ক মেরামতে ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ উঠায় এসব দুর্নীতি খতিয়ে দেখতে দুদকের একজন উপপরিচালকের নেতৃত্বে ৩ সদস্যের টিম অক্টোবরের প্রথমদিকে কাজ শুরু করবে।

দুর্নীতি দমন কমিশন ও যোগাযোগ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেনের চিঠির উত্তর দিয়েছেন দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) চেয়ারম্যান গোলাম রহমান। গত মঙ্গলবার এ চিঠি মন্ত্রীর কাছে পৌঁছানো হয়েছে। এ চিঠিতে অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহে যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের দুর্র্নীতিবিরোধী মতবিনিময় বৈঠক হলে সেখানে উপস্থিত থাকবেন বলে সম্মতি জানিয়েছেন দুদক চেয়ারম্যান। দুদক চেয়ারম্যান ২৯ সেপ্টেম্বর দেশে ফেরার পর অক্টোরের শুরুতে মতবিনিময় বৈঠকের সময়সূচি নির্ধারণ করা হবে। গত ১৪ সেপ্টেম্বর যোগাযোগমন্ত্রী দুর্নীতিরোধে দুদক চেয়ারম্যানের সহযোগিতা কামনা করে চিঠি দিয়েছেন।

আমাদের সময়

Leave a Reply