মুন্সীগঞ্জে স্বামীর বিরুদ্ধে হত্যা চেষ্টার অভিযোগে মামলা

ফলোআপ – লঞ্চ থেকে গৃহবধূকে মেঘনা নদীতে নিক্ষেপ
কাজী দীপু, মুন্সীগঞ্জ থেকে : যাত্রীবোঝাই লঞ্চ থেকে ধাক্কা মেরে নিজ স্ত্রীকে মেঘনা নদীতে নিক্ষেপের ঘটনায় মুন্সীগঞ্জ সদর থানায় পাষন্ড স্বামীর বিরুদ্ধে হত্যা চেষ্টার অভিযোগে মামলা দায়ের করা হয়েছে। শনিবার রাতে স্ত্রী সঞ্চিতা রানী দাস বাদী হয়ে রুজু করা এই মামলায় স্বামী সুজন দাসসহ ৫ সঙ্গীকে আসামী করা হয়েছে। এদিকে গতকাল রোববার মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন গৃহবধূর শারিরিক অবস্থার উন্নতি হয়েছে বলে কর্তব্যরত ডাক্তার জানিয়েছেন। পুলিশ জানায়, ঢাকায় বেড়ানোর কথা বলে স্বামী সুজন দাস সঙ্গীয় সহযোগীদের সাহায্যে গৃহবধূকে রাজধানীতে নিয়ে যায়। পরে গৃহবধূকে হত্যার উদ্দেশ্যে যাত্রীবোঝাই এমভি জমজম নামের লঞ্চ থেকে ধাক্কা মেরে মেঘনা নদীতে নিক্ষেপ করে শুক্রবার মধ্য রাতে। ওই রাতে মেঘনা নদীর জেলেরা গৃহবধূকে সংজ্ঞাহীন অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে। চাঁদপুরের স্বরূপখালী ফরিদগঞ্জ গ্রামের গৃহবধূর স্বামীর সুজন দাস স্ত্রীকে মেঘনায় নিক্ষেপ করার পর লঞ্চযোগে নিজ বাড়ি এলাকায় চলে যায়।

=================

পাষণ্ড স্বামী গ্রেফতার হয়নি, সঙ্গীতার স্বজনরা মুন্সীগঞ্জে
স্ত্রীকে মেঘনায় নিক্ষেপ

সাত মাসের অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূ সঙ্গীতা রানী দাসকে (২০) শুক্রবার গভীর রাতে মেঘনায় নিক্ষেপ করার ঘটনায় পাষ- স্বামী এখনও গ্রেফতার হয়নি। ভাগ্যক্রমে বেঁচে যাওয়া সঙ্গীতা মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। ঘাতক স্বামী সুজন চন্দ্র দাসকে (৩২) গ্রেফতারে চেষ্টা চলছে বলে পুলিশ জানায়।

শনিবার রাতে মুন্সীগঞ্জ সদর থানায় সঙ্গীতা বাদী হয়ে ঘাতক স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে। এদিকে কুষ্টিয়া থেকে সঙ্গীতার স্বজনরা রবিবার মুন্সীগঞ্জে এসে পেঁৗছেছে। হাসপাতালে আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডা. এহসানুল করিম জানান, দরিদ্র সঙ্গীতার চিকিৎসার যথাযথভাবে চলছে। ঢাকার সেলুনে চুল কাটার কাজ করা ঘাতক সুজন চন্দ্র দাস চাঁদপুর জেলার ফরিদগঞ্জের খুরম্নমখালী ভাষণ চন্দ্র দাসের পুত্র।

মুন্সীগঞ্জ সদর থানার ওসি শহিদুল ইসলাম রবিবার রাতে জানান, পাষ- স্বামীকে গ্রেফতারের সব রকমের চেষ্টা চলছে। ইতোমধ্যে অভিযানও শুরু হয়েছে।
শ্বশুরবাড়ি যাওয়ার কথা বলে শুক্রবার রাতে স্বামী তাকে নিয়ে সদরঘাট থেকে চাঁদপুরের লঞ্চে রওনা হয়। চাঁদপুরের মতলব থানার ষাটনলের কাছে রাত ১টার দিকে স্বামী সুজন তাকে নদীর তীরের সৌন্দর্য দেখার কথা বলে লঞ্চের একপাশে নিয়ে যায়। কথা বলার একপর্যায়ে সুজন সঙ্গীতাকে আকস্মিক ধাক্কা দিয়ে মেঘনা নদীতে ফেলে দেয়।

জনকন্ঠ

Leave a Reply