লঞ্চ থেকে ৭ মাসের গর্ভবতী স্ত্রীকে মেঘনা নদীতে ফেলে দেয় স্বামী

৩ ঘন্টা পর উদ্ধার
কাজী দীপু, মুন্সীগঞ্জ থেকে : চাদঁপুরগামী যাত্রীবাহি লঞ্চ থেকে শুক্রবার রাতে ৭ মাসের গর্ভবতী স্ত্রী সঙ্গিতাকে ধাক্কা মেরে মেঘনা নদীতে ফেলে দিয়েছে স্বামী সুজন দাস। ঘটনার ৩ ঘন্টা পর আহতবস্থায় সঙ্গিতাকে উদ্ধার করে একদল জেলে। পরে গতকাল শনিবার ভোর সকালে তাকে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঢাকা থেকে লঞ্চযোগে চাদঁপুরে যাওয়ার পথে মেঘনা নদীর মুন্সীগঞ্জের কালিরচর এলাকায় পৌছলে রাত ১২ টার দিকে স্বামী সুজন দাস কৌশলে স্ত্রী সঙ্গিতাকে লঞ্চের ছাদের পেছনে নিয়ে যায়। এরপর কথা বলার এক পর্যায়ে স্ত্রী সঙ্গিতাকে ধাক্কা মেরে নদীতে ফেলে দেয় স্বামী সুজন দাস। পরে ভোর রাত ৩ টার দিকে মাছ ধরতে গিয়ে একদল জেলে এক মহিলাবে ভাসতে দেখে তাকে উদ্ধার করে তীরে নিয়ে যায়। এ সময় জীবিত আছে বুঝতে পেরে জেলেরা মুন্সীগঞ্জ হাসপাতালে ভর্তি করে। গতকাল শনিবার সকালে সঙ্গিতার জ্ঞান ফিরে এলে সে সকলকে ঘটনা খুলে বলে।

সঙ্গিতা আরো জানায়, প্রেম করে এক বছর আগে চাদঁপুর জেলার কুডুমখালী গ্রামের কাউছার দাসের ছেলে সুজন দাসকে বিয়ে করে। তার বাড়ি লক্ষিপুর জেলায়। হাসপাতাল সূত্র জানায়, বিষয়টি সদর থানা পুলিশ ও সঙ্গিতার পরিবারকে অবগত করা হয়েছে। পুলিশ জানায়, অভিযোগ হাতে পাওয়ার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

==============================

মেঘনা নদীতে ফেলে মারতে চেয়েছে স্ত্রীকে

যৌতুক না পেয়ে গভীর রাতে চলন্ত লঞ্চ থেকে মেঘনা নদীতে ফেলে দিয়ে এক ব্যক্তি নিজের স্ত্রীকে হত্যা করতে চেয়েছিল।

কিন্তু ভাগ্যক্রমে সাত মাসের অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূ সঙ্গীতা বেঁচে যান।

সঙ্গীতা রানী দাস (২০) জানান, শুক্রবার রাত ১টায় চাঁদপুরের ষাটনল এলাকায় চলন্ত লঞ্চ থেকে তাকে ফেলে দেয় তার স্বামী সুজন চন্দ্র দাশ (৩২)।

জেলে নৌকায় থাকা এক ব্যবসায়ী তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়। শনিবার তিনি মুন্সীগঞ্জ সদর হাসপাতালে ঘটনার বিবরণ দেন।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন সঙ্গীতা বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, এক বছর আগে প্রেম করে চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জের খুরুমখালীর সুজন চন্দ্র দাশকে বিয়ে করেন তিনি। এরপর জানতে পারেন সুজন আগে আরেকটি বিয়ে করেছিলো। সুজন ঢাকায় একটি সেলুনে কাজ করে।

বিয়ের পর থেকেই সুজন ও তার পরিবারের সদস্যরা সঙ্গীতাকে যৌতুকের জন্য নানাভাবে মানসিক ও শারীরিক নির্যাতন করতো।

কিন্তু যৌতুক না পেয়ে নির্যাতনের মাত্রা আরো বাড়িয়ে দেয়।

তিনি বলেন, শুক্রবার সন্ধ্যায় চাঁদপুরে গ্রামের বাড়ি যাওয়ার কথা বলে স্ত্রীকে নিয়ে সদর ঘাট থেকে লঞ্চে ওঠে সুজন। লঞ্চটি রাত ১টার দিকে মতলবের ষাটনলের কাছে পৌঁছলে সুজন তাকে নদী তীরের সৌন্দর্য দেখার কথা বলে লঞ্চের একপাশে নিয়ে আসে।

একপর্যায়ে কিছু বুঝে ওঠার আগেই সুজন তাকে ধাক্কা দিয়ে নদীতে ফেলে দেয় বলে দাবি করেন সঙ্গীতা।

অন্ধকারে নদীতে কিছুক্ষণ ভেসে থাকার পর দূরে একটি আলোর মতো দেখতে পেয়ে চিৎকার করতে থাকেন। ওটি ছিলো একটি জেলে নৌকা।

ওই জেলে নৌকায় থাকা মাছ ব্যাবসায়ী মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার বাংলাবাজারের চর আবদুল্লাহ গ্রামের হারুনুর রশীদ তাকে উদ্ধার করে বাড়ি নিয়ে যান।

শনিবার ভোরে তাকে মুন্সীগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করে দেন।

সঙ্গীতার বাবার বাড়ি লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলার সুন্দরা গ্রামে।

মুন্সীগঞ্জের পুলিশ সুপারিনটেনডেন্ট (এসপি) মো. শফিকুল ইসলাম জানান, সঙ্গীতার পরিবারকে বিষয়টি জানানো হয়েছে। এখনো তারা কেউ আসেনি।

স্বামী সুজনকে গ্রেপ্তারের জন্য চাঁদপুরের পুলিশকে খবর দেওয়া হয়েছে বলে জানান এসপি।

সদর হাসপাতালে আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা এহসানুল করিম জানান, সঙ্গীতার সন্তান সুস্থ রয়েছে। সঙ্গীতাও এখন শঙ্কামুক্ত।

বিডি নিউজ 24

Leave a Reply