পরিত্যক্ত ছাত্রাবাসে শিক্ষার্থীরা অধ্যক্ষ বললেন, কিছু জানি না

মুন্সিগঞ্জের সরকারি হরগঙ্গা কলেজ
মুন্সিগঞ্জের সরকারি হরগঙ্গা কলেজের পুরোনো ছাত্রাবাসটি তিন বছর আগেই পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়েছে। কিন্তু পরিত্যক্ত ওই ভবনেই জীবনের ঝুঁকি নিয়েই থাকছে ছাত্ররা। অধ্যক্ষ বললেন, পরিত্যক্ত ছাত্রাবাসে কোনো ছাত্র থাকে কি না, তা তাঁর জানা নেই। গত সোমবার সরেজমিনে দেখা যায়, জরাজীর্ণ ছাত্রাবাসের বেশ কয়েকটি কক্ষে বাস করছে প্রায় ২৫-৩০ জন ছাত্র। তাদের একজন উচ্চমাধ্যমিক প্রথম বর্ষের ছাত্র মনির হোসেন বলে, ‘কী করব, পাশের জিয়া হলে স্নাতক আর স্নাতকোত্তরের ছাত্ররা থাকেন। আমাদের থাকার কোনো জায়গা নেই। তাই বাধ্য হয়ে ঝুঁকি নিয়েই থাকছি।’

তবে অধ্যক্ষ সুখেনচন্দ্র ব্যানার্জি প্রথম আলোকে বলেন, ‘পুরোনো ছাত্রাবাসটি পরিত্যক্ত ঘোষণার পর ছাত্ররা আর ওখানে থাকে না। এখন আবার কেউ থাকতে শুরু করেছে কি না, তা আমাদের জানা নেই। আমরা বিষয়টি দেখব।’

কলেজ সূত্র জানায়, ১৯৪১ সালে নির্মিত ছাত্রাবাসটি জরাজীর্ণ হয়ে পড়ায় ২০০৮ সালে পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়। ওই ছাত্রাবাসে ১৮০ জন ছাত্র থাকার ব্যবস্থা ছিল। পরিত্যক্ত ঘোষণার পর কলেজ কর্তৃপক্ষ ভবনটিকে ভেঙে সরিয়ে নিতে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে চিঠি দেয়। কিন্তু আজ পর্যন্ত পুরোনো ভবনটি ভেঙে ফেলার কোনো ব্যবস্থা হয়নি।

কলেজ কর্তৃপক্ষ ও স্থানীয় শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর জানিয়েছে, ২০১০-১১ অর্থবছরে কলেজের একাডেমিক ভবন, বিজ্ঞান ভবনের ঊর্ধ্বমুখী সম্প্রসারণ ও ছাত্রাবাস নির্মাণের জন্য প্রায় ১০ কোটি টাকার একটি প্রকল্প অনুমোদন করা হয়েছে। প্রকল্পটি একনেক ও শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে অনুমোদিত হয়েছে। কিন্তু এখনো অর্থ বরাদ্দ না করায় কাজ শুরু করা যাচ্ছে না।

শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের মুন্সিগঞ্জ সদর উপজেলার উপসহকারী প্রকৌশলী মো. এনামুল হক বলেন, ‘ছাত্রাবাস নির্মাণের জন্য প্রকল্প অনুমোদন করা হলেও অর্থ বরাদ্দ হয়নি। তা ছাড়া পুরোনো ছাত্রাবাসটি সরিয়ে নিতে দরপত্র আহ্বানের জন্যও মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন পাওয়া যায়নি। আমরা জটিলতাগুলো কাটিয়ে ওঠার চেষ্টা করছি।’

প্রথম আলো

Leave a Reply