প্রেম-বিয়ে সংসার নিয়ে হাবিবের আত্মপক্ষ সমর্থন

নাগরিক নৈশ পার্টির অন্যতম তারকা মুখ ডিজে সনিকা। গ্ল্যামারাস তো বটেই, ডিজে পার্টিগুলোতে সনিকার মিউজিক্যাল পারফরমেন্সও সত্যিই উপভোগ্য। এর সঙ্গে নতুন করে বাড়তি মাত্রা যোগ হয়েছে মিউজিক বিস্ময় হাবিবের সঙ্গে বিশেষ সম্পর্কের গুঞ্জন। যে গুঞ্জনের অনেক অস্পষ্ট কারণের পাশাপাশি দু’জনে মিলে শুরু করেছিলেন একটি অ্যালবামের কাজ। কথা ছিল হাবিবের প্রকাশিত শেষ একক ‘আহ্বান’-এও থাকছে সনিকার কণ্ঠে একটি বোনাস ট্র্যাক। যদিও শেষ ছ’মাসে সনিকার এককের কোন উন্নয়ন সংবাদ কিংবা হাবিবের এককে কোন গান পাওয়া যায়নি। এই না পাওয়ার সূত্র ধরেই হয়তো গুঞ্জনওয়ালারা ধরে নিয়েছেন দু’জনার মধুর সম্পর্কের অবনতির বিষয়টি। গেল বছর দেড়েকের এই রোমান্টিক গুঞ্জনের সত্যতা স্পষ্ট না হলেও মাঝখানে দু’জনার দূরত্ব বেড়েছে খানিক, এ বিষয় অনেকটাই স্পষ্ট হয়েছে গেল মাস ছয়েক ধরে।

হাবিবের সর্বশেষ একক ‘আহ্বান’ প্রকাশের পর তিনি বলেছেন, এখন তার একমাত্র প্রজেক্ট ন্যান্সির একক অ্যালবাম। এ অ্যালবামের বাইরে আপাতত সে অর্থে কোন অ্যালবাম কিংবা চলচ্চিত্রের গানে হাত দেবেন না তিনি। তবে অতি সমপ্রতি এমন অকাট্য সিদ্ধান্ত থেকে খানিক বেরিয়ে পড়েছেন হাবিব। বলছেন, ন্যান্সির অ্যালবাম তো চলছেই। এটাই এখন আমার মূল কাজ। চাইলে অ্যালবামটি কোরবানি ঈদেও প্রকাশ করতে পারতাম। কারণ, এরই মধ্যে কাজ গুছিয়ে ফেলেছি। তবুও দিচ্ছি না। কারণ, আমি চাই না কোরবানি ঈদে আমার কোন ক্রিয়েশন মুক্তি পাক। আমার ইচ্ছা ভালবাসা দিবস। এদিকে ডিজে সনিকার অ্যালবাম প্রসঙ্গে হাবিব জানান, ন্যান্সির পাশাপাশি তিনি আরও দু’টি অ্যালবামের কাজে হাত দিয়েছেন।

এর অন্যতম হলো ডিজে সনিকার একক আর কায়া-হেলালের রিমেক দ্বৈত। হাবিব বলেন, সনিকার জন্য বেশ কিছু গান করা আছে। এখন আবারও কিছু গান করার চেষ্টা করছি। আশা করছি এ অ্যালবামটির মধ্য দিয়ে নতুন কিছু প্রকাশ করতে পারবো। আর কায়া-হেলাল তো শুরু থেকেই আমার সংগীত সফরসঙ্গী। এদিকে ডিজে সনিকাসহ গেল বছর পাঁচেক ধরে বিভিন্ন সময় জনপ্রিয় মডেল-অভিনেত্রী কিংবা উপস্থাপিকাদের সঙ্গে প্রেম গুঞ্জনের সত্যতা প্রসঙ্গে প্রথমবারের মতো মুখ খুললেন হাবিব। মানবজমিন-এর সঙ্গে একান্ত সাক্ষাৎকারে রাখঢাক না করে স্পষ্টতই তিনি বললেন, বড় সত্যটা হচ্ছে এমন গুঞ্জন কিংবা গসিপ থাকবেই। আমি জনপ্রিয় হতে পেরেছি বলেই হয়তো এমন গুঞ্জন সৌভাগ্যের শিকার প্রায়শই হতে হচ্ছে। হতে পারে ছোট্ট তিলটাকে মিডিয়া কিংবা আপনারা তাল আকারে প্রকাশ করছেন।

পাঠক-শ্রোতা-ভক্তরা সেসব সংবাদ লুফেও নিচ্ছে। এর জন্য আমি আপনাদেরকে কিংবা পাঠকদের দোষারোপ করবো না। এটা বিশ্বব্যাপী খুবই স্বাভাবিক একটি ঘটনা। এক্ষেত্রে বরং আমি বেশি ভাগ্যবান। কারণ, আমার ঘরে একটা বউ আর দু’তিনটা বাচ্চাকাচ্চা নেই। থাকলে এসব গুঞ্জন আমাকে দারুণভাবে আঘাত করতো। হাবিব আরও বলেন, আঘাত যে এখনও পাচ্ছি না তা কিন্তু নয়। আমিও তো একটা সমাজে বাস করি। যখন পত্রিকায় এসব প্রেমের খবর প্রকাশ পায় তখন মানসিকভাবে একটু আঘাত পাই। হাবিবকে আবারও স্পষ্ট জিজ্ঞাসা- যাহা রটে তাহা কিছু না কিছু তো বটে। নাকি সবটাই মিথ্যা? খানিক অস্পষ্টতা রেখে হাবিব বলেন, আসলে এসব বিষয়ে স্পষ্ট করে বলাটাও মুশকিলের ব্যাপার।

এসব প্রেমকেন্দ্রিক সন্দেহমাখা সংবাদ কিংবা কান-কথার ব্যাখ্যাটা অনেক জটিল। কারও সঙ্গে ভাল কিংবা বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে ওঠার মানে এই নয় তার সঙ্গে আমার প্রেম-বিয়ে হয়ে গেল। ধরুন, গুঞ্জনের যন্ত্রণায় আমি মেয়ে-বিদ্বেষী হয়ে উঠলাম। মেয়ে দেখলেই পেছন দরজা দিয়ে পালিয়ে গেলাম। দু’দিন পরে দেখা যাবে আমার কোন ছেলে বন্ধুর সঙ্গেই আমার প্রেমের গুঞ্জন রটিয়ে দিলেন!! ফলে এসব বিষয়ের স্পষ্ট জবাব বলে কিছু নেই। প্রসঙ্গক্রমে হাবিব আরও বলেন, এটা ঠিক কোন বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক নিয়ে যদি কেউ বাজেভাবে খবর কিংবা আলোচনা করে, সেটা সাময়িকের জন্য হলেও কাজে ব্যাঘাত ঘটায়। জানেন কিনা জানি না, আমি খুবই মুখচোরা মিউজিক-পাগল একজন মানুষ। বাইরে কাজ না থাকলে দৈনিক ১৮ ঘণ্টাই পড়ে থাকি স্টুডিওতে মিউজিক নিয়ে। স্টুডিও আর মিউজিকের বাইরে আমার আর কোন অল্টারনেটিভ প্রেমিকা কিংবা প্রেম নেই।

মিউজিকের বাইরে আমার মধ্যে আর কিছু নেই। তাহলে বিয়ে-সংসার? অপারগতার হাসি হেসে হাবিব বলেন, আমাকে দিয়ে ওসব হবে না ভাই। বিয়ে করে একটা মানুষকে ঠকানোর কোন অধিকার আমার নেই। সবাইকে বিয়ে করে সংসারী কিংবা সুখী হতে হবে এমন তো কথা নেই। আমি মিউজিক করবো, মানুষকে আনন্দ দেবো, অন্যের বিয়ে-সংসারে আমার মিউজিক বাজবে, আমার ক্রিয়েশনে আমজনতা পুলকিত হবে, দেশের মিউজিকটাকে বিশ্ববাজারে নিয়ে যাবো, দেশীয় সংগীতটাকে এগিয়ে নেবো বিশ্বের সঙ্গে টেক্কা দিয়ে- এমন কত শত স্বপ্ন আমার মাথায় গিজ গিজ করছে নিত্যনিয়ত। আশপাশের সবাই তো সংসার করছে। প্রতিনিয়ত সংসারে আগুনে জ্বলছে, বাতাসে ভাসছে। এর মধ্যে আমি একজন মানুষ সংসারী না হলে কী এমন ক্ষতি?

মানবজমিন

Leave a Reply