সিরাজদিখানের খিদিরপাড়া সেতু নির্মাণে অনিয়মের অভিযোগ

মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার লতব্দী ইউনিয়নের খিদিরপাড়া সেতুর নির্মাণ কাজে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। নিম্নমানের পাথর ও রড ব্যবহারসহ সিডিউলের অনেক নিয়মই মানছেন না ঠিকাদাররা। এছাড়া সেতু নির্মাণে পার্শ্ববর্তী মসজিদের জায়গা দখলের অভিযোগ করেছেন স্থানীয়রা। দুর্নীতিরোধে একাট্টা হচ্ছেন গ্রামবাসী।

মুন্সীগঞ্জের লতব্দী ইউনিয়নের খিদিরপাড়ায় নির্মাণ হচ্ছে ২৭ মিটার দৈর্ঘ্যের আর সিসি গাডার সেতু। এলজিইডির বাস্তবায়নে সেতুটির নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়েছে ১ কোটি ৫ লাখ ৯৯ হাজার ৯৬ টাকা। ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের নাম মেসার্স রশিদ মিলা ফেরদৌস জেবি কনস্ট্রাকশন।

সেতু নির্মাণের শুরুতেই বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। সিডিউলে মধ্যপাড়া দিনাজপুরের এক নম্বর পাথরের কথা উল্লেখ থাকলেও সেতু নির্মাণে ব্যবহৃত হচ্ছে নিম্নমানের পাথর। ক্যাববিম ১২ মিটার রড ব্যবহারের কথা থাকলেও করা হচ্ছে ৯ মিটার রড দিয়ে। দুই পার্শ্বের পেটিতে দুইটি ১৬ মিটার বাইন্ডার লাগানোর কথা আছে শিডিউলে। কিন্তু বাইন্ডার রয়েছে একটি। পায়ারে ১২ মিটার রডের রিং লাগানোর কথা থাকলেও ১০ মিটার রিং লাগানো হয়েছে। স্থায়ী কেজিং ৫১ মিটার শিডিউলে উল্লেখ আছে। কিন্তু আটটি কলামের মধ্যে দুইটি কলামে মাত্র ১৫মিটার কেজিং দেয়া হয়েছে। লোড টেস্ট করানো হয়নি। অথচ এ বাবদ ব্যয় ধরা আছে ৯০ হাজার আটশ’ ৪৫ টাকা। এসব বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ করেছেন স্থানীয়রা।

অন্যদিকে, উত্তর খিদিরপাড়া জামে মসজিদ কমিটির লোকজন জানিয়েছেন, নির্ধারিত স্থানে সেতু নির্মাণ না করে মসজিদের জায়গা দখল করে নিয়েছে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান।

শুক্রবার বিকেলে স্থানীয় সমাজসেবক মোজাম্মেল হোসেন পিন্টু বলেন, “সেতুটি নির্মাণে নিম্নমানের পাথর ব্যবহার করা হচ্ছে। নিয়মনীতি না মেনে রড ব্যবহার করা হচ্ছে। লোড টেস্ট না করেই সেতুনির্মাণ কাজ শুরু হয়েছে। এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে এসব অনিয়মের প্রতিবাদ জানাচ্ছি। ব্রীজ এলাকার সম্পদ-দেশের সম্পদ। সেতু নির্মাণে কোনো অনিয়ম আমরা মেনে নেবো না। আমরা গ্রামবাসী মিলে তার প্রতিবাদ করব।”

খিদিরপাড়ার আহসান উল্লাহ্ বলেন, “সেতু নির্মাণে নিম্নমানের এসব পাথর রড সংশ্লিষ্ট দফতরে পরীক্ষা করা উচিত। তাহলে ঠিকাদারের চুরি ধরা পড়বে।”

উত্তর খিদিরপাড়া জামে মসজিদের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মহিবুর রহমান বলেন, “সেতুটির ঠিকাদার আতাউর রহমান নান্নুর বাড়ি সেতুর পাশে হওয়ায় নিজের জায়গা বাঁচাতে মসজিদের জায়গা দখল করেছে। তাছাড়া প্রভাবশালী হওয়ায় কেউ কিছু বলতে সাহস পায় না।”

এসব অভিযোগের বিষয়ে ঠিকাদার আতাউর রহমান নান্নুর কাছে জানতে চাইলে তিনি কোনো সদুত্তর দেননি। দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রকৌশলীর সঙ্গে যোগাযোগের কথা বলে তিনি বিষয়টি সুকৌশলে এড়িয়ে যান।

অভিযোগ সম্পর্কে উপজেলা প্রকৌশলী শাহাজাহান মিয়া বলেন, “আমরা শিডিউল অনুযায়ী কাজ চাই। শিডিউলের বাইরে কাজের কোনো সুযোগ নেই। শিডিউলের বাইরে কোনো কাজ হলে আমরা তার বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নিব। সঠিক কাজ না করলে বিল পাবে না।”

বার্তা২৪ ডটনেট

Leave a Reply