গজারিয়ায় বালুকাটাকে কেন্দ্র করে ৩জন গুলিবিদ্ধ

ফলোআপ
মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সীগঞ্জ থেকে: মঙ্গলবার সকাল ১০টার পর মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার বাউশিয়া বড়কান্দি নামক স্থানে মেঘনা নদীতে বালুকাটাকে কেন্দ্র করে গ্রামবাসীদের সাথে সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ ৩জনসহ প্রায় ৩০ আহত হয়েছে। হামলার পর থেকে ইব্রাহিম, লিটন, হাসেম ও রিপন নিখোঁজ রয়েছে বলে তাদের পরিবার থেকে দাবী করা হয়েছে। এ ঘটনার জের হিসেবে বাউশিয়া ইউনিয়নের ৮টি গ্রামের প্রায় ১২ হাজার গ্রামবাসী সকাল পৌনে ১২টার দিকে ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করে। এই অবরোধের কারণে মহাসড়কের কুমিল্লার চান্দিনা থেকে নারায়নগঞ্জের সোনারগাঁও পর্যন্ত ২০ কিলো মিটার এলাকায় যানজট দেখা দেয়।

নবাবের পুত্র সুরুজ (২২), আব্বাসের পুত্র রবিন (২০) ও মালেকের পুত্র সাইফুল (১৮) বালুর ট্রলারে থাকা সন্ত্রাসীদের ছোড়া গুলিতে আহত হয়। তাদের সকলেরই বাড়ি বাউশিয়ার বড় কান্দি গ্রামে। তাদেরকে প্রথমে গজারিয়া হাসপাতালে ভর্তি করা হলে অবস্থার অবনতি ঘটায় ঢাকা মেডিকেলে পাঠানো হয়। অন্যান্য আহতরা বিভিন্ন ক্লিনিকে চিকিৎসা নেয়।

প্রতক্ষ্যদর্শী সুত্রে জানা যায়, বড় কান্দি গ্রামের পাশে মেঘনা নদীতে বালু দস্যুরা দীর্ঘদিন যাবত অবৈধভাবে বালু কেটে নিয়ে যাচ্ছিলো। নদীতে পানি বেড়ে যাওয়ায় বালুদস্যুরা গ্রামের বসতি জমির বালু কাটা শুরু করে। এতে কিছুদিন ধরে গ্রামবাসী বালু কাটায় তাদেরকে নানা রকমের বাধা দেয়। কিন্তু তারা এতে কর্নপাত করেনি। মঙ্গলবার সকালে গ্রামবাসী এ বিষয়ে গজারিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করে। নির্বাহী কর্মকর্তা গজারিয়া থানার ইনচার্জকে বিষয়টি দেখার জন্য আদেশ দেন বলে খবর পাওয়া যায়। থানার ইনচার্জ এ বিষয়ে সঠিক ব্যবস্থা না নেওয়া বিক্ষুব্দ গ্রামবাসী বালুদস্যুদের ওপর হামলে পড়ে। এরপরই বালুদস্যুরা গ্রামবাসীদের লক্ষ্যে করে গুলি ছোড়ে। এই ঘটনায় গজারিয়ার পুলিশ ৩জনকে আটক করে। আর এই কারণে বিক্ষুব্ধ গ্রামবাসী পৌনে ১২টার দিকে ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করে। পরে পুলিশের হস্তক্ষেপে পৌনে ১টার দিকে গ্রামবাসী অবরোধ তুলে নেয়।

এই নদীতে গজারিয়ার জিন্নাহ ও খোকন চৌধুরী এবং দাউদকান্দির কন্টাকটর শাহজাহানের লোকজন প্রতিদিন বালু কেটে নিয়ে যাচ্ছিলো।

মুন্সীগঞ্জ পুলিশ সুপার শফিকুল ইসলাম জানান, ঘটনাটি কুমিল্লার দাউদকান্দিতে ঘটেছে। সেখানে যোগাযোগ করতে বলেন। কেউ গুলিবিদ্ধ হয়নি বলে দাবি করেন।

গজারিয়া থানার ইনচার্জ আরজু মিয়া মোবাইল রিসিভ করে ব্যস্ত আছেন বলে মোবাইল কেটে দেন।

মুন্সিগঞ্জ নিউজ
=============================

গজারিয়ায় সংঘর্ষে ১৫ জন আহতের জের ধরে ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়ক দুই ঘন্টা অবরোধ

কাজী দীপু মুন্সীগঞ্জ থেকে : মেঘনা নদী থেকে অবৈধ ভাবে বালু কাটার প্রতিবাদ করতে গিয়ে গতকাল মঙ্গলবার ইজারাদারের সন্ত্রাসীদের হামলা ও সংঘর্ষে ১৫ গ্রামবাসী আহত হয়েছে। এছাড়া ২ যুবক নিখোজঁ রয়েছে বলে জানা গেছে। এতে ক্ষুব্ধ গ্রামবাসী সকাল ১০টা থেকে বেলা ১২ টা পর্যন্ত ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করে রাখায় যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে পড়ে। এ সময় মহাসড়কের দাউদকান্দির গৌরিপুর থেকে নারায়নগঞ্জের মুগ্ধাপাড়া পর্যন্ত ১৫ কিলোমিটার এলাকায় দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। এর আগে দাউদকান্দি এলাকায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে পুলিশ ফাকাঁ গুলি বর্ষন করেছে বলে জানা গেছে। ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

স্থাণীয় সূত্র জানায়, মেঘনা-গোমতী সেতুর কাছে দাউদকান্দির চেঙ্গারচর ও গজারিয়ার মনাইকান্দি গ্রাম সংলগ্ন মেঘনা নদীর বালু মহালে ২টি ড্রেজার দিয়ে বালু কাটার কথা থাকলেও ১০ থেকে ১২টি ড্রেজার দিয়ে প্রতিদিন বালু কাটার ফলে ওই দুইটি গ্রামের বিস্তীর্ন জমি নদী গর্ভে চলে যায়। এতে গ্রামবাসী বালু কাটা বন্ধের দাবীতে এক সপ্তাহ আগে গজারিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে স্বারকলিপি দাখিল করে। এতে প্রশাসন আশ্বাস দিলেও বালু কাটা বন্ধ না হওয়ায় গতকাল মঙ্গলবার সকালে একদল গ্রামবাসী ট্রলারযোগে মেঘনা নদীতে গিয়ে বাধা দেয়। এ সময় বালু কাটার শ্রমিকরা গ্রামবাসীর উপর হামলা চালিয়ে কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করে। এছাড়া বলগেট দিয়ে গ্রামবাসীর ট্রলার ডুবিয়ে দিলে মাহাবুব ও ইব্রাহিম নামের দুই যুবক নিখোঁজ হয়ে পড়ে।

গ্রামবাসী জানায়, শ্রমিক ও সন্ত্রাসীদের হামলায় ১৫ জন আহত ও ২ জন নিখোজঁ হওয়ার খবর পেয়ে দুই গ্রামের শত শত গ্রামবাসী ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে এবং ড্রেজার শ্রমিক ও সন্ত্রাসীদের উপর পাল্টা হামলা চালালে সংঘর্ষ বেধে যায়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করেন। এ সময় দাউদকান্দি পুলিশ ফাকাঁ গুলিবর্ষন করে বলে জানা গেছে।

গজারিয়া থানার ওসি আরজু মিয়া ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, বালু মহাল বন্ধ করার আশ্বাস দিলে গ্রামবাসী অবরোধ তুলে নেয়। বর্তমানে যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে।

Leave a Reply