পদ্মা সেতুর বিরুদ্ধে লবিং করছেন ইউনূস

মুহিতের অভিযোগ
পদ্মা সেতুতে অর্থ বরাদ্দ না দিতে বিশ্বব্যাংকে ড. ইউনূস লবিং করছেন বলে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত। তিনি মঙ্গলবার নিউ ইয়র্কের একটি বাংলা পত্রিকাকে দেয়া সাক্ষাৎকারে এ সন্দেহ প্রকাশ করেছেন। অর্থমন্ত্রী বলেন, “ইউনূস সাহেব এমন কাজ করছেন বলে অনেক গুজব-গুঞ্জন রয়েছে অনেক দিন থেকেই। এ নিয়ে আমাকে অনেকেই প্রশ্নও করেছেন। বিশেষ করে মুডি কর্পোরেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডেভিড টেইচার একই প্রশ্ন করেছেন।”

ড. ইউনূসের লবিং গুজব সংক্রান্ত প্রশ্নে অর্থমন্ত্রী ‘ঠিকানা’ নামের পত্রিকাটিকে বলেন, “বাংলাদেশ গত বছর সর্বোচ্চ কমিটমেন্ট পেয়েছে ৫.১ বিলিয়ন ডলার। এর আগে কোনো বছরই বাংলাদেশ তিন মিলিয়ন ডলারের বেশি পায়নি। কিন্তু জুন থেকে কিছুটা পরিবর্তন দেখছি।”

অর্থমন্ত্রী আরো বলেন, “ইমার্জিং মার্কেট নামক একটি পত্রিকায় ড. মুহম্মদ ইউনূস ইন্টারভিউ দিয়ে বলেছেন, সরকারের সঙ্গে একটি সংকটের আশংকা রয়েছে। সরকার গ্রামীণের কর্মসূচিকে সরকারি করতে চায়। অথচ এগুলো অসত্য অভিযোগ। গ্রামীণ ব্যাংক যেভাবে চলা উচিত সেভাবেই চলছে।”

“ড. ইউনূস বলেছেন যে গ্রামীণে ব্যাংকে সরকারর শেয়ার হচ্ছে ৩%। এটিও সত্য নয়, আইনমতে শেয়ার হচ্ছে ২৫%। গ্রামীণের টাকার প্রয়োজন হয়নি বলে তারা অবশিষ্ট শেয়ারের টাকা সরকার থেকে নেয়নি।”

“গ্রামীণে এখন টাকার কোনো অভাব নেই। তাই সরকারের শেয়ার ২৫%, একে ঢেকে রাখা যাবে না। আইন অনুযায়ী, সরকার ২৫% এর মালিকানা নিয়েই ব্যাংকের চেয়ারম্যান এবং ২ জন পরিচালক নিয়োগ করে” বলেন অর্থমন্ত্রী।

আবুল মাল মুহিত আরো বলেন, “গ্রামীণ ব্যাংকের অপারেশন প্রক্রিয়া হচ্ছে গরিবকে সাহায্য করা। তা বিকেন্দ্রীভূত। জেলা পর্যায়েই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়ে যায়। ব্রাঞ্চ ম্যানেজারই ঋণ মঞ্জুর করতে পারেন। এখন সেভাবেই চলছে। শুধু বদলেছে ম্যানেজিং ডিরেক্টর। আমার ধারণা, এ বছর আরো ভালো চলছে।”

তিনি আরো বলেন, “গ্রামীণের কোনো কিছুরই পরিবর্তন করা হয়নি। সুতরাং সরকার গ্রামীণ ব্যাংক গ্রাস করতে চায় বলে যে প্রপাগান্ডা চালানো হচ্ছে তার কোনোই ভিত্তি আছে বলে আমি মনে করি না।”

অর্থমন্ত্রী বলেন, “ইউনূস সাহেব অত্যন্ত সম্মানী এবং তিনি বিশ্বে একজন বরেণ্য ব্যক্তি। তার জন্যে সকলের দরজা খোলা। তিনি সেখানে গিয়ে কী করেন, আর কী বলেন সেটি তো আমরা জানি না। ইমার্জিং মার্কেটসে আমি উনার কমেন্ট দেখেছি বলেই এ মন্তব্য করলাম।”

তাহলে পদ্মা সেতুর অর্থায়নে বিশ্বব্যাংকের ঢিলেমীকে তাহলে কীভাবে দেখছেন জানতে চাইলে অর্থমন্ত্রী বলেন, “আমি তো জানি না, ইউনূস সাহেব কী প্রভাব ফেলেছেন সেখানে? তবে বিশ্বব্যাংক ইউনূস সাহেবের কথা বলেনি, তারা দুর্নীতির কথা বলেছে।”

অর্থমন্ত্রী পদ্মা সেতুর অর্থায়ন প্রসঙ্গে বলেন, “পদ্মা সেতু নির্মাণ কাজে আগ্রহী দুটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। তার নিষ্পত্তি হলেই বিশ্বব্যাংকের প্রতিশ্রম্নত অর্থ দ্রুত পাওয়া যাবে। দেশে ফিরে আমি কার্যকরী পদক্ষেপ নেব।”

অর্থমন্ত্রী বিশ্বব্যাংক এবং আইএমএফ’র বার্ষিক সাধারণ সভায় যোগদানের জন্যে যুক্তরাষ্ট্রে যান। তিনি বিশ্ব ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের সঙ্গেও বৈঠক করেন।

বৈঠক প্রসঙ্গে অর্থমন্ত্রী বলেন, “বৈঠকে বিশেষ কয়েকটি বিষয়ে কথা হয়েছে। এর অন্যতম ছিল পদ্মা সেতুর নির্মাণ কাজ ত্বরান্বিত করা। কারণ, তারা খুব ধীরে ধীরে চলছেন। দ্বিতীয়ত আমরা যে বাজেট সাপোর্ট পেয়েছিলাম তার কোনো অগ্রগতি নেই। চেয়েছিলাম এ বছরের জন্যেই। কিন্তু তারা বিস্তারিত কর্মসূচি তৈরি করেননি, যদিও তারা প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন যে আমরা ঢাকায় ফিরে গেলেই সেটি শুরু হবে।

“আমি তাকে জানিয়েছি যে, বাংলাদেশে সাহায্য-সহায়তার প্রয়োজন রয়েছে। তারা যে প্রকল্প করেছে, সেখানে বরাদ্দের যে নির্দেশিকা রয়েছে, সেখানে স্পষ্টভাবে উল্লেখ করা না হলে বরাদ্দকৃত অর্থ আমরা পাবো কীভাবে?’

বিশ্বব্যাংক ও আইএমএফর পক্ষ থেকে কেমন সাড়া পেলেন জানতে চাইলে অর্থমন্ত্রী বলেন, “গতবার যেমন উষ্ণ ছিল, এবার তা পরিলক্ষিত হলো না। মনে হলো আমাদের আরো কাজ করতে হবে। কারণ হচ্ছে, তারা বাংলাদেশ থেকে নানা ধরনের অভিযোগ পাচ্ছেন।”

বার্তা২৪ ডটনেট

Leave a Reply