ঝুলে গেল পদ্মা সেতু

আবার অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়েছে পদ্মা সেতুর ভাগ্য। বিজনেস মাফিয়াদের পর শান্তিতে নোবেল বিজয়ী অর্থনীতিবিদ ড. ইউনূসের ষড়যন্ত্র এবং প্রধান দাতা সংস্থা বিশ্বব্যাংকের হাতে সম্ভাব্য দুর্নীতির প্রমাণ থাকার বিষয়টি স্পষ্ট হওয়ায় সেতুর অর্থায়নে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। ঝুলে গেল পদ্মা সেতু নির্মাণ।

পদ্মা সেতু এ সরকারের আমলে নির্মিত হচ্ছে কি না সে বিষয়ে ভাগ্য নির্ধারণ ছিল ২৩ সেপ্টেম্বর শুক্রবার। এ দিন বিশ্বব্যাংকের বার্ষিক সাধারণ সভা হয়েছে। ওই সভা শেষে পদ্মা সেতুর অর্থায়নে যে অনিশ্চয়তার সৃষ্টি হয়েছে সে বিষয়ে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত ব্যাংকটির সর্বোচ্চ কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেন। ওই বৈঠকে বিশ্বব্যাংকের কর্মকর্তারা জানিয়ে দেন তাদের কাছে সম্ভাব্য দুর্নীতির প্রমাণ রয়েছে।
বাংলাদেশের একটি বাণিজ্যিকগোষ্ঠী পদ্মা সেতুর নির্মাণে দেশি-বিদেশি

উপকরণ যুক্ত করার দাবি করেছিল বলে অন্য একটি সূত্র দাবি করেছে। তাদের দাবি না মানার কারণে বিশ্বব্যাংকে একাধিক বেনামি দুর্নীতির ফ্যাক্স প্রেরিত হয়েছে। যার সত্যতার প্রমাণ বিশ্বব্যাংকের কাছে নেই। এ রকম বেশকিছু অভিযোগের বিষয় নিয়ে ১১ সেপ্টেম্বর বিশ্বব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্ট ইসাবেল এম গুরেরো জরুরি ভিত্তিতে ওয়াশিংটন থেকে ঢাকায় উড়ে আসেন। তিনি অর্থমন্ত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বিষয়গুলো নিয়ে কথা বলেন। তখনই বিশ্বব্যাংক ও এডিবির মধ্যকার শীতল দ্বন্দ্ব এবং সমন্বয়হীনতার বিষয়টিও স্পষ্ট হয়। এতে পদ্মা সেতুর অর্থায়নেই অনিশ্চয়তার সৃষ্টি হয়_ যার এখনও সুরাহা হয়নি।

তখন একটা আভাস পাওয়া গিয়েছিল যে, বিশ্বব্যাংক অনেকটা কঠোর হতে চলেছে। নির্মাণকাজে স্বচ্ছতা প্রমাণ করতে না পারলে বিশ্বব্যাংক টাকা নাও দিতে পারে এমন গুজব ছড়িয়েছিল। ওয়াশিংটনে অর্থমন্ত্রীর দেওয়া ভাষ্যে তার প্রমাণ পাওয়া গেছে। আজ শনিবার অর্থমন্ত্রী দেশে ফিরে বিষয়টির বিস্তারিত ব্যাখ্যা দিতে পারেন।
বিশ্বব্যাংক দক্ষিণ এশিয়ায় বিনিয়োগের ইতিহাসে সর্বোচ্চ ১২০ কোটি ডলার সহায়তা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল এই সেতু নির্মাণ প্রকল্পে। নানা কারণে তাতে অনিশ্চয়তা দেখা দিল।

সংশ্লিষ্টরা বলেছেন, পদ্মা সেতু নির্মাণ প্রকল্প শুরুতে দেশি-বিদেশি বিজনেস মাফিয়াদের চক্রান্তে পড়েছে। এতে দেশের কয়েকটি বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান ছাড়াও সরকারের যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের আমলা পর্যায়ে একটি গ্রুপ সক্রিয় রয়েছে এমন ধারণা সংশ্লিষ্টদের।

ষড়যন্ত্রে নতুন করে যুক্ত হল ড. ইউনূসের নাম। অর্থমন্ত্রী ওয়াশিংটনে বলেছেন, পদ্মা সেতুর নির্মাণ নিয়ে ইউনূস নেতিবাচক প্রচারণা চালাচ্ছেন। এর আগে সরকারের বিরুদ্ধে বিদেশে অপপ্রচার চালানোর অভিযোগ উঠেছিল ইউনূসের বিরুদ্ধে।

বিশ্বব্যাংকে মিথ্যা দুর্নীতির ই-মেইল ও ফ্যাক্স ছাড়ার অকাট্য প্রমাণ রয়েছে অ্যাডভেঞ্চার এন্টারপ্রাইজ নামে একটি দেশীয় বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে। অর্থমন্ত্রী এই প্রতিষ্ঠানটির নাম সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশ করেছেন। তিনি আরও বলেন, আরও কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের নামের তালিকা সরকারের হাতে রয়েছে। এরা দেশে এবং বিদেশে বসে পদ্মা সেতুর নির্মাণ প্রকল্প বানচাল করতে ষড়যন্ত্র করছে। মিথ্যা এবং অসত্য দুর্নীতির তথ্য দিয়ে ই-মেইল ও ফ্যাক্স করেছে বিশ্বব্যাংকসহ অন্য দাতা সংস্থাগুলোতে। এছাড়া সরকারের এই প্রকল্পে কোনো না কোনোভাবে জড়িত রয়েছে এমন সরকারি কর্মকর্তা যারা আওয়ামী লীগের রাজনীতির বিরোধী ধারার তারাও এই সেতু নির্মাণে ধীরগতি এনেছে।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুসারে কানাডিয়ান প্রতিষ্ঠান এসএনএস লাভালিনের কাছে উৎকোচ চেয়েছিল বাংলাদেশের একটি গোষ্ঠী বা প্রতিষ্ঠান। পরামর্শক কাজ পাইয়ে দেবে এই শর্তে ওই উৎকোচ চাওয়া হয়েছিল। লাভালিন দিতেও চেয়েছিল_ যা পরে ফাঁস হয়ে যায়। লাভালিনের এই সম্ভাব্য দুর্নীতির বিষয়টি বিশ্বব্যাংকের অনুরোধে কানাডা সরকার তদন্ত করছে। লাভালিন এশীয় ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের (এডিবি) তালিকায় ভালো প্রতিষ্ঠান হলেও বিশ্বব্যাংকের কাছে একটি দুর্নীতিবাজ প্রতিষ্ঠান হিসেবে চিহ্নিত। এছাড়া এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের তত্ত্বাবধানে পদ্মা সেতুর নকশা প্রণয়নে দীর্ঘ সময় এবং নির্ধারিত অর্থ থেকে আরও বেশি অর্থ ব্যয় করায় বিশ্বব্যাংক অনেকটা অসন্তুষ্ট ছিল।

এদিকে উইকিলিকসে ফাঁস হওয়া মার্কিন তারবার্তায় যোগাযোগমন্ত্রীর কাজের স্বচ্ছতা নিয়ে প্রশ্ন ওঠায় বিশ্বব্যাংক বিষয়টিকে বাঁকা চোখে দেখছে।

ওয়াশিংটনে বিশ্বব্যাংকের কর্মকর্তাদের সঙ্গে পদ্মা সেতু বিষয়ে বেশকিছু কঠিন সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথা ছিল অর্থমন্ত্রীর। যেসব প্রতিষ্ঠানের বিষয়ে দুর্নীতির অভিযোগ উঠবে কিংবা অভিযোগের সত্যতা রয়েছে তাদের কালো তালিকাভুক্ত করে এই প্রকল্প থেকে বাদ দেওয়া, যে সব মিথ্যা অভিযোগের ই-মেইল কিংবা ফ্যাক্স পাওয়া যাবে তা বেনামি হলে সঙ্গে সঙ্গে বাতিল করা এবং প্রকল্পে কাজের স্বচ্ছতা বজায় রাখতে একটি কমিশন গঠন করার সিদ্ধান্ত হবে। যে কোনো উপায়ে হোক আগামী জানুয়ারিতেই পদ্মা সেতুর নির্মাণকাজ শুরু করতে চান অর্থমন্ত্রী। সেই আশাও নিরাশায় পরিণত হয়েছে বিশ্বব্যাংকের কঠোরতায়। স্বচ্ছতা না আসলে বিশ্বব্যাংক টাকা দেবে কি না তা এখন নিশ্চিত নয়।

এ মুহূর্তে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষের আকাঙ্ক্ষার প্রতিচ্ছবি হচ্ছে পদ্মা সেতু। সরকারের কাছে তাদের বড় চাওয়া এটি। দেশের উন্নয়নের জন্যও প্রয়োজন। সরকারের প্রেসটিজ ইস্যুতেই রূপান্তরিত হয়েছে পদ্মা সেতু। যে কারণে মরিয়া হয়ে উঠেছে সরকার।

২০০৯ সালে ক্ষমতায় আসার পর ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ পদ্মা সেতু নির্মাণের উদ্যোগ নেয় সরকার। এতে ব্যয় ধরা হয়েছে ২৯০ কোটি মার্কিন ডলার।

সরকার ইতিমধ্যে এ কাজের জন্য বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে ১২০ কোটি, এডিবির সঙ্গে ৬১ কোটি, জাইকার সঙ্গে ৪০ কোটি এবং ইসলামী উন্নয়ন ব্যাংকের সঙ্গে ১৪ কোটি ডলারের ঋণ চুক্তিতে সই করেছে। সরকারের আশা সকল প্রতিকূলতা ভেঙে পদ্মা সেতু তৈরি হবেই।

ডেসটিনি

Leave a Reply