তত্ত্বাবধায়ক সরকার কোনো আদর্শ ব্যবস্থা নয়

একান্ত সাক্ষাৎকারে অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী
বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেছেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকার কোনো আদর্শ ব্যবস্থা নয়, রাজনৈতিক দিক দিয়ে এটি কোনো সম্মানজনক বিষয়ও নয়। কেননা তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থার মাধ্যমেই রাজনীতিবিদরা স্বীকার করে নেন তারা নির্বাচন করতে সমর্থ নন। কিন্তু আমাদের যে বাস্তব পরিস্থিতি তাতে রাজনৈতিক নেতাদের নিজেদের মধ্যে আলোচনা করে একটি সমঝোতায় আসতেই হবে। অন্তত দেশের মানুষের জন্য এটি করা তাদের কর্তব্য। এজন্য সাংঘর্ষিক রাজনীতি থেকে বেরিয়ে সৌহার্দ্য আর সমঝোতার রাজনীতি প্রতিষ্ঠা করতে হবে। গতকাল শুক্রবার দৈনিক ডেসটিনিকে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, আমাদের দেশের পরিস্থিতিতে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে এবং হাইকোর্ট থেকে যে রায়টা এসেছে সেখানে বলা হয়েছে যে, পরবর্তী দুটি নির্বাচন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনেই হতে পারে।
আমি মনে করি সেটি সঠিক। সেই ক্ষেত্রে বলা যায় অন্তত আরও দুটি নির্বাচন এই সরকারের আমলে হওয়ার পর দেখা যাক কি দাঁড়ায়। তখন এ ব্যবস্থাটি বদল করা যাবে কি না সেটি ভাবা যাবে। কিন্তু এখনই তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া নির্বাচনের পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে কি না সেটি একটি বড় প্রশ্ন। রাজনৈতিক সরকারের হাতে একটি নির্বাচন করা সম্ভব কি না সেটি নিয়ে ভাববার দরকার আছে।

অন্তর্বর্তীকালীন সরকার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, সংবিধানে তো অন্তর্বর্তীকালীন বলতে কোনো ব্যবস্থা নেই। এটি তো নতুনভাবে বলা হচ্ছে।

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অতীত অভিজ্ঞতার বিষয়ে তিনি বলেন, এটি কিন্তু বিশেষ তত্ত্বাবধায়ক সরকার। কিন্তু যে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের কথা বলা হচ্ছে সেটি হল নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টি করতে পারে এমন একটি তত্ত্বাবধায়ক সরকার। কিন্তু গত তত্ত্বাবধায়ক সরকার তো ছিল সেনা সমর্থিত সরকার, তারা নিজেরাই এটি স্বীকার করত। এই ধরনের সরকার ব্যবস্থা তো কেউ পছন্দ করবে না। গত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আগে যে ধরনের তত্ত্বাবধায়ক ব্যবস্থায় নির্বাচন হয়েছে সেই ধরনের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের কথা বলা হচ্ছে। কিন্তু গত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সংজ্ঞাটাই তো অন্যরকম ছিল।

আমাদের রাজনীতিতে পারস্পরিক অনাস্থার প্রসঙ্গ টেনে সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, অন্যান্য দেশে রাজনৈতিক দর্শনটা অন্যরকম, আমাদের দেশে পারস্পরিক আস্থা আর অবিশ্বাসের জায়গায় ব্যবধানটা খুবই প্রকট। যেটি অন্যান্য দেশে নেই। এ কারণেই তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা এসেছিল। এখনও দুদলের মধ্যে কোনো সমঝোতার আশা দেখা যাচ্ছে না। অনাস্থার বিষয়টি এমনভাবে দেখা যাচ্ছে যে, কেউ কাউকে বিন্দুমাত্র ছাড় দিতে রাজি হচ্ছে না। কেন হচ্ছে না প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এর অনেক কারণ আছে। ঐতিহাসিক কারণ আছে। কিছু বাস্তবিক কারণ আছে।

তিনি বলেন, মিডিয়ায় কথা চালাচালিতে কোনো প্রভাব পড়বে না। কোনো সমাধানও আসবে না। পরিস্থিতি উত্তাল হবে মাত্র। এটি নিয়ে গ্রহণযোগ্য একটি সমাধানে পেঁৗছাতে হলে আলোচনার বিকল্প নেই। এজন্য সংসদকে প্রাণবন্ত করতে হবে। সংসদে বসেই এর সুস্পষ্ট আলোচনা করে এ অবস্থার পরিবর্তন করতে হবে। যেহেতু সংসদই তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বাতিল করেছে সেহেতু সংসদেই এ নিয়ে আলোচনা হতে হবে।
তিনি আরও বলেন, এখানে প্রশ্ন উঠে আসে সংসদে বিরোধী দল আসবে কি না। বিরোধী দলের যে সংখ্যা তাতে তাদের ইচ্ছার ওপর কিছু নির্ভর করবে না। বিরোধী দল সংসদে আসবে কি আসবে না সেটি কিন্তু সরকারের ইচ্ছার ওপর নির্ভর করবে। আমরা আশা করব যে, সরকার যেভাবে কথা বলছে তার বিপরীতে বিরোধী দলের থেকে যে ধরনের প্রতিক্রিয়া আসছে সেটি কাম্য নয়। আমরা যারা সাধারণ নাগরিক আছি তারা আশা করব এর একটি সমঝোতা হবে।

তিনি বলেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে একটি নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন সবসমই সবাই চেয়ে আসছে। এ ব্যাপারটিকে আলোচনায় যোগ করা উচিত।

বর্তমান পরিস্থিতি সম্পর্কে তিনি বলেন, দুটি দলের বিপরীতধর্মী কথাবার্তায় এখন পরিস্থিতি যে ঘোলাটে হচ্ছে সেটিও বলতে চাচ্ছি না। তারা নিজেরাই এটি চাইবে না। কারণ এর ফল তারা গতবারই দেখেছে।

তিনি বলেন, আজকাল দূতাবাসগুলো তো পরামর্শদাতা হিসেবে অনেক ভূমিকা রাখছে। আমাদের রাজনীতিতে তাদের যে ভূমিকা রয়েছে সেটি তো উইকিলিকসে দেখাই যাচ্ছে। তারা আমাদের অনেক পরামর্শ দিয়ে থাকে। এক্ষেত্রেও তারা পরামর্শ দেবে এমনটি আশা রাখতেই পারি।

তিনি আশা প্রকাশ করে বলেন, আমরা চাই আরেকটি ওয়ান-ইলেভেনের দিকে দেশ আর কখনই যাবে না। আর এজন্য আমাদের রাজনৈতিক নেতারা অবশ্যই নিজেদের মধ্যে সমঝোতা করবেন। এর বিকল্প নেই।

রেজা পারভেজ – ডেসটিনি

Leave a Reply