স্কুল ছাত্রীকে উত্ত্যক্তের জের ধরে দু’গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ১ আহত ২০

কাজী দীপু মুন্সীগঞ্জ থেকে : মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে স্কুলছাত্রীকে উত্ত্যক্তের জের ধরে শনিবার রাে ত দু’গ্রুপের সংঘর্ষে আক্তার হোসেন (৩৩) নামের এক জন নিহত ও ২০ জন আহত হয়েছে। উপজেলার দেউলভোগ দয়হাটা গ্রামে বিবাদমান ইউনিয়ন যুবদলের সভাপতি সায়েম গ্র“প ও ইকবাল মাহমুদ আকাশ গ্র“পের মধ্যে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় উভয় গ্র“পের অন্তত ২০ জন গুরুতর জখম হয়েছে। আহতদেরকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও মিডফোর্ড হাসপাতালসহ বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এলাকায় এখনো থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। স্থানীয় এমপি সুকুমার রঞ্জন ঘোষ, পুলিশ সুপার শফিকুল ইসলাম, উপজেলা চেয়ারম্যান বেলায়েত হোসেন ঢালী, উপজেলা নির্বাহী অফিসার সন্জয় চক্রবর্তী ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন ।

শ্রীনগর থানার ওসি মিজানুর রহমান জানান, নিহতের বাবা আঃ রহিম বাদী হয়ে ১৮ জনকে আসামী করে মামলা হয়েছে। পুলিশ আবু সালেহ নামে একজনকে গ্রেপ্তার করেছে।

স্থানীয়রা জানায়, মো ঃ সায়েম গ্র“পের সদস্য আফসু মিয়ার ছেলে রিগ্যাল নামে এক যুবক ইকবাল মাহমুদ আকাশের আতœীয় স্থানীয় উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেনীর এক ছাত্রীকে স্কুলে যাওয়া আসার পথে উত্ত্যক্ত করতো । এ ঘটনায় ওই ছাত্রীর পরিবার শ্রীনগর থানায় একটি এজাহার দায়ের করে। বিষয়টি মিমাংসার জন্য গত শনিবার দুপুরে শ্রীনগর ইউপি চেয়ারম্যান বারেক বেপারীর উপস্থিতিতে থানা কম্পাউন্ডে সমঝোতা বৈঠক বসে। কিন্তুু ওই বৈঠকে কোন সমঝোতা না হওয়ায় দু’গ্র“পই উত্তেজিত হয়ে এলাকায় ফিরে যায়। অপর একটি সূত্র জানায়, দুপুরের পরপরই আকাশ গ্র“প ঢাকা থেকে কতিপয় সন্ত্রাসীকে ভাড়া করে আনে। রাত ৮ টার দিকে তারা সায়েমের ছোট ভাই সালেহকে মারধর করে। এর জের ধরে পরে উভয় গ্র“প সংঘর্ষে জড়িয়ে পরে। সংঘর্ষের সময় এলোপাতাড়িভাবে চাপাতি, দা, ছোড়াসহ ধারালো অস্ত্র ব্যাবহার করা হয়। এ সময় উভয় গ্র“পের মোস্তফা, রাকিব, শাহাদাত, আবু সালেহ, আজিম, বাদল, জামাল, আক্তার, সাগর, নাদিম ও সুমসকে গুরুতর অবস্থায় ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয় । রাত ১০ টার দিকে মিডফোর্ড হাসপাতালে আক্তার এর মৃত্যু হয়।

=================================

শ্রীনগরে দু’গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ১ আহত ১০

যৌন হয়রানির প্রতিবাদ করায় মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার দেউলভোগ দয়াহাটা নাপিত বাড়ি মার্কেট এলাকায় দু’গ্রপের সংঘর্ষে একজন নিহত ও ১০ জন আহত হয়েছেন।

শনিবার রাত ১০টার দিকে এ সংঘর্ষের ঘটনায় আহতদের মধ্যে আক্তার হোসেন (৩৫) নামে এক যুবক রোববার সকাল সাড়ে ৭টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন।

বাকি আহতদের মধ্যে- নাদিম (১৮), সুমন (২৮), সাগর (২৫), শাহাদাত (২৭), আবু সালেক (৩০), জামান (২৫), আজিম (৩২), মোস্তফা (২৮) ও রাকিবকে শ্রীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

শ্রীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান বাংলানিউজকে জানান, স্থানীয় জনৈক আকাশের ভাতিজীকে একই এলাকার রিগ্যান বেশ কিছুদিন ধরে উত্ত্যক্ত করে আসছিলেন। এতে বাধা দেওয়াকে কেন্দ্র করে আকাশ ও রিগ্যানের নেতৃত্বে দু’টি গ্রুপের মধ্যে রাত সাড়ে ১০টার দিকে সংঘর্ষ হলে এই হতাহতের ঘটনা ঘটে।

তিনি জানান, এ ব্যাপারে শ্রীনগর থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। এছাড়া ঘটনাস্থলে উত্তেজনা বিরাজ করায় সেখানে পুলিশ মোতায়েন রাখা হয়েছে।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

=================================

যুবদলের দুপক্ষে সংঘর্ষে নিহত এক

মুন্সীগঞ্জের দয়াহাটা গ্রামে শনিবার রাতে যুবদলের দুপক্ষের সংঘর্ষে একজন নিহত হয়েছে। আহত অন্তত ১০ জন। নিহত আক্তার হোসেন (৩৩) শ্রীনগর উপজেলার দয়াহাটা গ্রামের মৃত আমজাত হোসেনের ছেলে। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে রাজধানীর মিটফোর্ড হাসপাতালে আনা হলে রাত ১০টার দিকে তিনি মারা যান।

আহতদের ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ও মিটফোর্ড হাসপাতালসহ বেসরকারি কয়েকটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

নিহতের লাশ মিটফোর্ড হাসপাতাল মর্গে রয়েছে। আহতদের মধ্যে নিহতের ভাই সাগরও (৩০) রয়েছেন।

মুন্সীগঞ্জের সহকারী পুলিশ সুপার সাইফুল ইসলাম সংঘর্ষ ও নিহতের খবর নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ‍”এলাকার পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।”

শ্রীনগর থানার ওসি মিজানুর রহমান রাত সোয়া ১২টায় বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “যুবদলের বিবাদমান মো. সায়েমের (যুবদলের শ্রীনগর ইউপি সভাপতি) পক্ষ ও ইকবাল মাহমুদ আকাশের (যুবদলের ইউনিয়ন পর্যায়ের নেতা) পক্ষের কর্মীদের মধ্যে এ সংঘর্ষ হয়।”

সংঘর্ষের সময় এলোপাতারি চাপাতি, দা, ছোরাসহ ধারালো অস্ত্র ব্যবহার করা হয়।

পুলিশ জানায়, সায়েমের পক্ষের এক বখাটে আকাশের পক্ষের এক নিকট আত্মীয় স্কুলছাত্রীকে উত্ত্যক্ত করেছিল। এতে এই ছাত্রীর স্কুল যাওয়া বন্ধ হয়ে যায়। এই ঘটনায় শ্রীনগর থানায় সাধারণ ডায়েরি করা হয়।

পরে শনিবার দুপুরে শ্রীনগর ওসির কামড়ায় শ্রীনগর ইউপি চেয়ারম্যান বারেক ব্যাপারীর উপস্থিতিতে সমঝোতা বৈঠকে বসেন। কিন্তু ফয়সালা ছাড়াই বৈঠক শেষ হয়।

পরে এলাকায় ফিরে গিয়ে রাতে তারা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।

বিডি নিউজ 24
========================

মুন্সীগঞ্জে যুব দলের দুই গ্রুপে সংঘর্ষে নিহত ১

মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার দয়াহাটা গ্রামে শনিবার রাত পৌনে ৮টায় যুব দলের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে আক্তার হোসেন (৩৩) নামের এক ব্যক্তি নিহত এবং উভয় গ্রুপের অন্তত ১০ জন গুরুতর জখম হয়েছে। আহতদের ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ও মিটফোর্ড হাসপাতালসহ বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ধারালো অস্ত্রের আঘাতে গুরুতর জখম দয়াহাটা গ্রামের মৃত আমজাত হোসেনের পুত্র আক্তার হোসেন মিডফোর্ড হাসপাতালে চিকিত্সাধীন অবস্থায় রাত ১০ টার দিকে মারা যায়। নিহতের ভাই সাগর (৩০) এবং সালেহ(২৫), আজিমসহ (২২) অন্যান্য আহতদের অবস্থাও আশঙ্কাজনক। এসব তথ্য নিশ্চিত করে সহকারী পুলিশ সুপার সাইফুল ইসলাম জানিয়েছেন, এলাকার পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

সংঘর্ষের সময় এলাপাথারিভাবে চাপাতি, দা, ছোরাসহ ধারালো অস্ত্র ব্যবহার করা হয়। যুবদলের বিবাদমান মো. সায়েম (যুবদলের শ্রীনগর ইউপি সভাপতি) গ্রুপ ও ইকবাল মাহমুদ আকাশ (যুবদলের ইউনিয়ন পর্যায়ের নেতা) গ্রুপের মধ্যে এই সংঘর্ষ বাধে বলে শ্রীনগর থানার ওসি মিজানুর রহমান জানিয়েছেন।

পুলিশের একটি সূত্র জানায়, মো. সায়েম গ্রুপের এক বখাটে আকাশ গুপের এক নিকট আত্মীয় স্কুল ছাত্রীকে উত্ত্যক্ত করেছিল। এতে এই ছাত্রীর স্কুল যাওয়া বন্ধ হয়ে যায়। এই ঘটনায় শ্রীনগর থানায় সাধারণ ডায়েরী করা হয়। পরে শনিবার দুপুরে শ্রীনগর ওসির কামড়ায় শ্রীনগর ইউপি চেয়ারম্যান বারেক ব্যাপারীর উপস্থিতিতে সমঝোতা বৈঠকে বসে। কিন্তু ফয়সালা ছাড়াই বৈঠক শেষ হয়। পরে এলাকায় ফিরে গিয়ে রাতে ভয়াবহ সংঘর্ষ জড়িয়ে পড়ে উভয় গ্রুপ। এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।

ইত্তেফাক
========================

One Response

Write a Comment»
  1. i am very sad for this reason because i am teacher of high school , this girl is beautiful , good student , and business studies student, and preparation for test examination , just this moment her life failure for future but why ?

Leave a Reply