আলুচাষিদের কান্না শুনবে কে

রংপুর, রাজশাহী, জয়পুরহাট ও মুন্সীগঞ্জের আলু চাষিদের কান্না শোনার কেউ নেই। বাম্পার ফলন হওয়া সত্ত্বেও দাম না পাওয়ায় দিশেহারা হয়ে পড়েছেন তারা। পাশাপাশি রয়েছে কোল্ড স্টোরেজ মালিকদের চাপ। যথাসময়ে উত্তোলন না করলে কর্তৃপক্ষ আলু তাদের জিম্মায় নিয়ে যাবে এমন ঘোষণা সত্ত্বেও চাষিরা আলু উত্তোলন করছেন না। কারণ এখন আলু উত্তোলন করলে তাদের বস্তা প্রতি ৩০০ থেকে ৬০০ টাকা লোকশান গুনতে হবে। এদিকে বিপাকে পড়েছে কোল্ড স্টোরেজ মালিকরাও। তারা ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে চাষিদের দিয়েছিলেন। ফলে এখন তারা সুদের বাড়তি টাকার চাপে রয়েছেন।

এ অবস্থায় চাষি ব্যবসায়ী ও হিমাগার মালিকরা দাবি করছেন সরকারি হস্তক্ষেপ। আলু উৎপাদনে সর্ব বৃহৎ এলাকা থেকে আমাদের ব্যুরো ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর:

রংপুর ব্যুরো জানায়, রংপুর শহরের তাজ হাট এলাকার আজিজুন নেছা কোল্ড স্টোর, গাইবান্ধার সাদুল্লাপুরের ভরসা কোল্ড স্টোরসহ বিভিন্ন কোল্ড স্টোর স্থানীয় প্রত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে ১০ অক্টোবরের মধ্যে আলু উত্তোলন ও ঋণ পরিশোধ না করলে হিমাগারে রক্ষিত আলু মালিক পক্ষ নিজ জিম্মায় নেবে। হিমাগার মালিকদের বেঁধে দেওয়া সময় গতকাল সোমবার শেষ হয়েছে। বাজারে দাম পড়ে যাওয়ায় কৃষক ও ব্যসায়ীরা উত্তোলনে আগ্রহ না দেখায় এখন পর্যন্ত হিমাগারে ৭০ শতাংশ আলু মজুদ রয়েছে।

রংপুর সদর উপজেলার আলু চাষিরা জরুরি ভিক্তিতে ভর্তুকি, হিমাগারের ভাড়া কমানো ও মালিকদের বেঁধে দেওয়া সময় বৃদ্ধির দাবি জানিয়েছেন। এখন হিমাগার থেকে আলু তুললে বস্তা প্রতি কৃষকদের লোকসান হচ্ছে ৬০০ টাকার ওপর।

এদিকে হিমাগার মালিক সমিতির সূত্রে জানা গেছে, উত্তরাঞ্চলের ৯৮ টি কোল্ড স্টোরে প্রায় ১০ লাখ মে. টন আলু সংরক্ষণ করা হয়েছে। কিন্তু বাজারে গ্রানুলা আলুর দাম না থাকায় চাষি এবং ব্যবসায়ী কেউই আলু উত্তোলন করতে আগ্রহ দেখাচ্ছে না। ফলে ৭০ শতাংশ আলু এখনও হিমাগারে সংরক্ষিত রয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বর্তমানে বাজারে গ্রানুলা জাতের আলুর দাম ৫০০ টাকা প্রতি বস্তা। হিমাগার মালিককে দিতে হবে ঋণ এবং ভাড়াসহ সাড়ে ৪০০ টাকা। এখন আলু উত্তোলন করলে উৎপাদন খরচতো দূরের কথা হিমাগার ভাড়াও শোধ হচ্ছে না। ধার দেনা কিভাবে শোধ করবে এই চিন্তায় চাষিরা অস্থির।
বাজারে দাম না থাকায় রংপুরসহ উত্তরাঞ্চলের প্রায় সাড়ে ৩ লাখ আলু চাষি ও ব্যবসায়ী প্রায় ৬ হাজার কোটি টাকা পুঁজি হারিয়ে পথে বসার উপক্রম হয়েছে।

মাঠ পর্যায়ে খোঁজখবর নিয়ে জানা গেছে, রংপুরের কাউনিয়া উপজেলার এক আলু চাষি ৮ একর জমিতে আলু আবাদ করতে ১ লাখ ৭০ হাজার টাকা ঋণ করেছেন। তার প্রায় পুরো টাকাই লোকসান হয়েছে। তিনি এখন ঋণের দায়ে বসতভিটা বিক্রি করার চিন্তা করছেন। পাওনাদারের ভয়ে তিনি এখন পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। এ ঋণ শোধ করতে কত দিন লাগবে তা তার জানা নেই। তার মতো অনেকেই দেনার দায়ে অস্থির।

নীলফামারী জেলার কিশোরগঞ্জ উপজেলার কয়েকজন চাষি জানান, হিমাগারের আলু সংরক্ষণ করে লোকসানের ভয়ে এখনও আলু উত্তোলন করার সাহস পায়নি। বাজার দর না থাকায় পুঁজি হারিয়ে তারা এখন পথে বসেছে। এদের মতো অবস্থা উত্তরাঞ্চলের প্রায় সাড়ে ৩ লাখ আলু চাষির।

এ অঞ্চলের আলু চাষিরা এখনও প্রায় ৬ হাজার কোটি টাকা লোকসানের বোঝা মাথায় নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে।
রংপুর ও রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, উত্তরের ১৬ জেলায় এবার আলুর আবাদ হয়েছে ৩ লাখ হেক্টরের বেশি। উৎপাদন হয়েছে ৯০ লাখ মেট্রিক টনের ওপর। এর মধ্যে ৭০ শতাংশ আলুই হচ্ছে গ্রানুলা জাতের। বাকি ৩০ শতাংশ ডায়মন্ড, কার্ডিনাল, শীল, গুঁটি ইত্যাদি। এসব আলুর দাম থাকলেও গ্রানুলা জাতের আলুরে দাম একেবারেই নেই। এক পরিসংখ্যানে জানা গেছে, উত্তরাঞ্চলের প্রায় ৩ লাখ হেক্টর জমিতে আলু আবাদে চাষিদের খরচ হয়েছে ৭ হাজার ২৫৭ কোটি টাকা এবং কোল্ড স্টোর ও অন্যান্য খাত বাবদ খরচ হয়েছে প্রায় সাড়ে ৪ হাজার কোটি টাকা। অর্থাৎ আলু চাষিদের উৎপাদন ও সংরক্ষণ ব্যয় হয়েছে সাড়ে ১১ হাজার কোটি টাকার ওপরে। কিন্তু বর্তমান বাজার দর হিসাবে আলুর দাম দাঁড়িয়েছে মাত্র ৫ হাজার কোটি টাকা। সেই হিসাবে এ অঞ্চলের আলু চাষিদের ৬ থেকে সাড়ে ৬ হাজার কোটি টাকার ওপরে লোকসান হচ্ছে।

রংপুর ভিআইপি কোল্ড স্টোরেজ ইনচার্জ জানান, তারা আগামী ১৬ অক্টোবর পর্যন্ত আলু উত্তোলনের সময় বাড়িয়েছে। তিনি জানান, কোল্ড স্টোরে এখনও ৭০ শতাংশ আলু সংরক্ষিত রয়েছে। একই কথা বলেছেন, বগুড়ার সাতগ্রাম কোল্ড স্টোর, আগমনী কোল্ড স্টোরসহ বেশ কয়েকটি হিমাগার কর্তৃপক্ষ।

রাজশাহী ব্যুরো জানায়, রাজশাহীর আলু চাষি ও ব্যবসায়ীদের পাশাপাশি কোল্ড স্টোরেজ মালিকরাও বিপাকে পড়েছেন। বর্তমান দর অনুযায়ী আলু বিক্রি করলে প্রতি ব্যাগে লোকসান দিতে হবে প্রায় ৩০০ টাকা। তাই কেউ কোল্ড স্টোর থেকে আলু বের করতে আগ্রহী হচ্ছেন না। এ অঞ্চলের কোল্ড স্টোরেজে রক্ষিত প্রায় ৩৩ লাখ ব্যাগ আলু নিয়ে এমন বেকায়দায় পড়েছেন চাষি ও ব্যবসায়ীরা।

এদিকে রাজশাহী অঞ্চলে চাষিরা ২ লাখ ৬৩ হাজার ৭০০ বিঘায় আলু আবাদ করে বিঘা প্রতি ৪৫ ব্যাগ (প্রতিব্যাগ ৮৫ কেজি) হিসাবে প্রায় ১ কোটি ১৮ লাখ ৬৬ হাজার ৫ ব্যাগ আলু উৎপাদন করে। এর মধ্যে রাজশাহীর ২৬টি কোল্ড স্টোরেজে মোট উৎপাদনের ৩ ভাগের ১ ভাগ অর্থাৎ প্রায় ৩৩ লাখ ব্যাগ আলু সংরক্ষণ করা হয়। কোল্ড স্টোরেজে সংরক্ষিত আলুর দ্বিগুণেরও বেশি বাইরে ছিল। অন্যান্য বছর মে মাস থেকেই কোল্ড স্টোরেজে রক্ষিত আলু বের হওয়া শুরু হয়। কিন্তু এবার বেশির ভাগ আলু বাইরে থেকে যাওয়ায় এখনও কোল্ড স্টোরেজ থেকে আলু সেভাবে বের হচ্ছে না। একব্যাগ আলু কোল্ড স্টোরেজে সংরক্ষণ করতে চাষিদের স্টোর ভাড়াসহ মোট খরচ হয়েছে প্রায় ৯০০ থেকে হাজার টাকা। এই পরিস্থিতিতে কোল্ড স্টোরেজে রক্ষিত প্রতিব্যাগ আলুতে প্রায় ৩০০ টাকা লোকসান দিতে হবে। সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন, সরকারি উদ্যোগে আলু বিদেশে রফতানি করা গেলে আলু চাষি ও ব্যবসায়ীদের লোকসান কমবে।

রাষ্ট্রপতি পদকপ্রাপ্ত আলুচাষি পবার রহিম উদ্দিন সরকার জানান, এবার তিনি ১২ বিঘা জমিতে আলু আবাদ করেছেন। ৫০০ ব্যাগ আলু তিনি কোল্ড স্টোরেজে রেখেছেন। বর্তমান বাজারদর অনুযায়ী প্রতি ব্যাগে তার প্রায় ৩০০ টাকা লোকসান হবে। তার এলাকার সব চাষিদেরই একই অবস্থা। রাজশাহী জেলা আলু ও কাঁচামাল ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম জানান, রাজশাহী ছাড়াও অন্য জেলাতে এখনও কোল্ড স্টোরেজ থেকে আলু বের হওয়া সেভাবে শুরু হয়নি। বর্তমান দর অনুযায়ী আলুচাষি ও ব্যবসায়ীদের এবার লোকসান দিতে হবে।

এদিকে কোল্ড স্টোরেজ মালিকরাও পড়েছেন বেকায়দায়। সাধারণত নভেম্বর মাসের মধ্যে তারা স্টোর খালি করে দেন। এবার দাম কম থাকায় চাষিরা আলু বের করছেন না। অপরদিকে ব্যাংক থেকে লোন নিয়ে কোল্ড স্টোরেজ মালিকদের অনেকেই চাষিদের লোন দিয়েছিলেন। আলু বিক্রি না হওয়ায় তারা লোনের টাকাও তুলতে পারছেন না। আবার অবিক্রিত আলু বর্তমান দরে বিক্রি করে দিলেও তাদের লোকসান হবে।

এ অবস্থা থেকে মুক্তি পেতে রাজশাহীতে গত ৮ অক্টোবর সংবাদ সম্মেলন করে আলুচাষি, আলু ব্যবসায়ী এবং হিমাগার মালিকদের আর্থিক লোকসানের হাত থেকে বাঁচাতে সরকারের রেশনিং কর্মসূচিতে আলুকে অন্তর্ভুক্ত করার দাবি জানিয়েছেন।

জয়পুরহাট প্রতিনিধি জানান, জয়পুরহাটে গত ১০ বছরের মধ্যে এবারেই মূল্য পতনের কারণে একদিকে কোটি কোটি টাকা লোকসান গুনতে হচ্ছে আলুচাষি ও ব্যবসায়ীদের। অন্যদিকে একই কারণে সংরক্ষণের নির্দিষ্ট মেয়াদ শেষ হলেও হিমাগারগুলো থেকে এখনও চাষি ও ব্যবসায়ীরা তাদের সংরক্ষিত আলুর সিংহভাগই উত্তোলন করেননি। ফলে হিমাগারগুলোর মালিকরাও পড়েছেন মহাবিপাকে।

জেলার কৃষি বিভাগের তথ্য অনুযায়ী জানা গেছে, জয়পুরহাটে গত মৌসুমে ৪৩ হাজার হেক্টর জমিতে আলু উৎপাদন হয়েছিল প্রায় সাড়ে ৯ লাখ মেট্রিক টন। চাষিরা বলেন_ তারা গত ৩০ বছর ধরে জয়পুরহাটের আলু দেশের বিভিন্ন প্রান্তে সরবরাহ করে আসছেন। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি-মার্চে আলু উৎপাদনের ভরা মৌসুমে বিভিন্ন ব্যবসায়ীর মাধ্যমে জয়পুরহাট থেকে যে খানে প্রতিদিন গড়ে কমপক্ষে গড়ে ১ হাজার ট্রাক, এপ্রিল-মে মাসে প্রতিদিন গড়ে ৬০০ ট্রাক এবং জুন-জুলাইয়ে প্রতিদিন গড়ে ২০০ ট্রাক আলু দেশের বিভিন্ন জেলায় সরবরাহ করা হয়েছে আর বর্তমানে প্রতিদিন গড়ে ৩০ ট্রাক আলু দেশের বিভিন্ন এলাকায় যাচ্ছে ।

গত মৌসুমে জাতভেদে আলুর মূল্য ছিল মণ প্রতি কার্ডিনাল ও ডায়মন্ড ১৫০ থেকে ১৯০ টাকা এবং গ্রানুলা জাতের আলুর মূল্য ছিল ৮০ টাকা থেকে ১১০ টাকা। হিমাগার ভাড়া ৮৪ কেজির বস্তা প্রতি ২৫০ থেকে ৩০০ টাকা। এ অবস্থায় কৃষকদের পাশাপাশি ব্যাবসায়ীরাও ক্রয়মূল্যসহ সব মিলিয়ে বস্তা প্রতি ৮০০ থেকে ১ হাজার টাকা খরচ করে মৌসুমের শুরুতেই স্থানীয় হিমাগারগুলোতে আলু সংরক্ষণ করেন। বর্তমানে আলুর মূল্য পতনে তাই স্বপ্নভঙ্গ হয় তাদের।

ক্ষেতলাল উপজেলার তালশন গ্রামের আলু চাষি মাহবুবুর রহমান জানান, তিনি ৮ বিঘা জমিতে আলু চাষ করে ৭০০ মণ আলু পেয়েছেন। তখন আলুর মূল্য কিছটা কম হওয়ায় লাভ হবে না ভেবে বস্তা প্রতি ৩০০ টাকা ভাড়ায় সব আলু কোল্ড স্টোরে সংরক্ষণ করেন। কিন্তু এখন আলু তুলতে গেলে ভাড়ার টাকাও উঠবে না।

চাষিরা জানান_ গত ১০ বছরের মধ্যে এত ভয়াবহ আকারে আলুর বাজার ধস ইতিপূর্বে আর কখনও ঘটেনি। তারা বলেন- জুলাই-আগস্ট মাসে এখান থেকে কিছুদিন বিদেশে আলু রফতানি হচ্ছিল। তখন আশার আলো দেখা গেলেও তা বন্ধ হওয়ায় আবারও সব চাষিদেরই দিশেহারা অবস্থা।

একইভাবে হিমাগারগুলোতে আলু সংরক্ষণ করে বেকায়দায় পড়েছেন আলু ব্যবসায়ীরা। প্রায় ২৫ বছর ধরে আলু ব্যবসা করে আসছেন-কালাই উপজেলার করিমপুর গ্রামের মজিবর রহমান বাবু ও বাখড়া গ্রামের মানিক মেম্বার। তারা বলেন- ২ জনে প্রায় প্রতি বস্তা ৮০০ থেকে ১ হাজার টাকা খরচ করে জেলা ও পার্শ্ববর্তী বিভিন্ন কোল্ড স্টোরেজে প্রায় ৫ হাজার বস্তা আলু সংরক্ষণ করেছিলেন। এখন বিক্রি করতে গেলে বিক্রি হবে বস্তা প্রতি ৪০০ থেকে ৫০০ টাকা।

অন্যদিকে জেলার কোল্ড স্টোরেজগুলো থেকে আলু না উঠানোর ফলে বিপাকে পড়েছেন কোল্ড স্টোরেজ মালিকরা। ক্ষেতলাল উপজেলার বটতলী বাজারে অবস্থিত হিমাদ্রী লিমিটেড নামক হিমাগারের ব্যবস্থাপক আব্দুল হালিম বলেন- গত বছরের এই সময়ে হিমাগারগুলো থেকে কৃষক ও ব্যবসায়ীরা প্রায় ৩৫ থেকে ৪৫ শতাংশ আলু উত্তোলন করেছিলেন। এবারে বাজারে আলুর চাহিদা না থাকায় মূল্য পতনের কারণে তারা আলু উঠাতে আসছেন না। ফলে হিমাগারগুলো থেকে আলু নেেেমছে মাত্র ১৫ শতাংশ। অন্যদিকে নির্ধারিত সময়ের পরও কৃষক-ব্যাবসায়ীরা আলু না উঠালে এই বিপুল পরিমাণ আলুর কি হবে তা নিয়ে হিমাগার মালিকরা উদ্বিগ্ন।

জেলা কৃষি সমপ্রসারণ অধিদফতরের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা, আলু ব্যবসায়ী মিজানুর, মোহসিন, কৃষক মোজাম্মেল, ফরিদসহ আলু চাষ ও ব্যানসার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট প্রায় সকলেই বলেন- আলুর এ মূল্য পতনের জন্য গ্রানুলা জাতের আলু অনেকটায় দায়ী। এ আলুর উৎপাদন বেশি অন্যদিকে বাজারে চাহিদা কম।

এ অবস্থায় আগামী মৌসুমে আলু চাষে বিরূপ প্রভাব পড়বে বলে সংশ্লিষ্টদের অভিমত। বর্তমান বাজারমূল্য কম হওয়ায় তারা হতাশ।

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, দাম কমে যাওয়ায় লোকসানের মুখে রয়েছে মুন্সীগঞ্জের ৫০ হাজার আলু চাষি। এতে জেলার অর্ধশতাধিক কোল্ড স্টোরেজে আলু পড়ে আছে। অধিকাংশ কোল্ড স্টোরেজের আলু বের করার পদক্ষেপ নিচ্ছেন না চাষিরা। কোল্ড স্টোরেজের ভেতর পড়ে আছে প্রায় ৪ লাখ টন আলু। বর্তমানে বস্তা প্রতি আলু বিক্রি হচ্ছে ৬০০ থেকে ৬৫০ টাকায়। অথচ দুই মণ ওজনের এক এক বস্তা আলুর উৎপাদন খরচ পড়েছে সাড়ে ৮০০ থেকে ৯০০ টাকায়। এতে লোকসানের মুখে পড়ে আলু চাষিরা কোল্ড স্টোরেজে সংরক্ষিত আলু উত্তোলন করে বাজারজাত করতে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছে। ফলে কোল্ড স্টোরেজগুলোর মালিক কর্তৃপক্ষ সংরক্ষিত আলু নিয়ে পড়েছেন বিপাকে। শহরের উপকণ্ঠে মুক্তারপুর এলাকার নিপ্পন কোল্ড স্টোরেজের ম্যানেজার জানিয়েছেন, সংরক্ষিত আলু উত্তোলনের জন্য চাষিদের কাছে আগামী নভেম্বর নাগাদ তাগাদা দিবে কর্তৃপক্ষ। নভেম্বরের মাঝামাঝিতে চাষিদের নোটিশ দেওয়ার প্রক্রিয়া হাতে নিয়েছে কোল্ড স্টোরেজ মালিকরা। প্রতি বস্থা আলূর কোল্ড স্টোরেজ ভাড়া ২৮০ টাকা থেকে ৩০০ টাকা। আলু চাষি গোলাম কিবরিয়া জানান, উৎপাদন খরচ বেশি। কোল্ড স্টোরেজের সংরক্ষণ খরচও আগের চেয়ে বেশি। সব মিলিয়ে উৎপাদন খরচও ওঠে আসবে না আলু বিক্রি করে। কাজেই সংরক্ষিত আলু উত্তোলনের কোনো আগ্রহই পাচ্ছেন না চাষিরা। জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্র মতে, এ বছর মুন্সীগঞ্জে ৩৮ হাজার ৬ হেক্টর জমিতে আলু আবাদ করা হয়েছে। শুধু মুন্সীগঞ্জেই এবার দেশের ৩০ ভাগ আলু আবাদ হয়েছে বলে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর জানিয়েছে। মৌসুমের শুরুতে জেলা সদর, টঙ্গীবাড়ী, গজারিয়া, লৌহজং, শ্রীনগর ও সিরাজদিখান উপজেলার সর্বত্র আলু আবাদের মহোৎসব হয়ে গেছে এবার।

কৃষকরা জানান, এই অঞ্চলে এক কানি জমিতে ৪০০ থেকে সাড়ে ৪০০ মণ আলু পাওয়া যায়। এমন অধিক ফলন অন্য কোনো ফসলে পাওয়া যায় না। আর তাই মুন্সীগঞ্জের এক চিলতে জমিও ফাঁকা নেই।

স্বর্ণপদকপ্রাপ্ত কৃষক কাটাখালী এলাকার সিরাজ মীর গেল বার আলুতে লোকসান খেয়েছেন সাড়ে ৬ লাখ টাকা। এবারও আলুতে লোকসানের মুখে পড়েছেন তিনি। তিনি এবার সাড়ে ৩ লাখ টাকার আলু বুনেন। উৎপাদনও হয়েছে গেলবারের তুলনায় বেশি। তারপরও তার মুখে হাসি নেই। এবার তিনি দেড় লাখ টাকা লোকসানের আশঙ্কা করছেন।

ডেসটিনি

Leave a Reply