পদ্মা সেতু: পছন্দের ঠিকাদারকে কাজ না দেওয়ায় বিমুখ বিশ্বব্যাংক!

বিশ্বব্যাংকের পছন্দের ঠিকাদারকে কাজ না দেওয়ায় পদ্মা সেতুর টাকা আটকে দিয়েছে বলে মনে করছে বাংলাদেশ সরকারের অর্থনীতি সম্পর্ক বিভাগ (ইআরডি)। তাদের মতে, এ সরকারের আমলে বিশ্বব্যাংকের এ প্রকল্পের টাকা ছাড়ের সম্ভাবনা নেই।

এদিকে বিশ্বব্যাংকের এ টাকা ছাড় না করার সিদ্ধান্তে ঝুলে গেছে সম্পূর্ণ প্রকল্পের টাকা।

সবচেয়ে বেশি টাকা দেওয়ায় অন্যান্য সংস্থার সঙ্গে ঋণ সমন্বয় ও অবিভাবকের ভূমিকাও পালন করছে বিশ্বব্যাংক। তাই বিশ্ব ব্যাংক টাকা না দেওয়ায় অন্যরাও টাকা ছাড় না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

ইআরডি’র যুগ্ম-সচিব (এডিবি) শফিউদ্দিন আহম্মেদ বাংলানিউজকে বলেন, ‘যেহেতু বিশ্বব্যাংক পুরো লোন (ঋণ) দেখভাল করছে, তাই তাদের সিদ্ধান্তের ওপরই অন্যরা নির্ভর করবে।’

তিনি বলেন, ‘এ ক্ষেত্রে বিশ্ব ব্যাংকের সিদ্ধান্তই সকল ঋণদাতার সিদ্ধান্ত।’

তবে টাকা ছাড়ের জন্য উত্থাপিত ‘দুর্নীতি’র তদন্তের কথা বলেছে বিশ্ব ব্যাংক। তবে ইতিহাস বলে, এ ধরনের দুর্নীতির তদন্ত শেষ হতে কম পক্ষে তিন বছর সময় লাগে সাধারণত।

ফলে মহাজোট সরকার আমলে পদ্মাসেতু প্রকল্পে টাকা পাওয়া অসম্ভব হবে বলেই মনে করছে ইআরডি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ইআরডি‘র এক কর্মকর্তা বাংলানিউজকে বলেন, ‘বিশ্বব্যাংকের পছন্দের ঠিকাদারকে কাজ না দেওয়াই টাকা আটকে দেওয়ার মূল কারণ।’

সেইসঙ্গে এ প্রকল্পে টাকা ছাড় না দিতে দেশের একটি গ্রুপের জোর লবিংও বিশ্ব ব্যাংকের সিদ্ধান্তে প্রভাব ফেলেছে বলে মনে করেন ওই কর্মকর্তা।

নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ ড. মুহাম্মদ ইউনূস, ইসলামী ব্যাংকের পরিচালক মীর কাশেম আলীসহ বিরোধী দলের একাধিক বুদ্ধিজীবী পদ্মা সেতুর অর্থ ছাড় না দেওয়ার ব্যাপারে জোর লবিং চালিয়েছেন বলে গুজব রয়েছে।

এদের সঙ্গে দেশের বৃহত্তম এ সেতুতে টাকা না ঢালতে বিশ্ব ব্যাংককে রসদ যুগিয়েছে দেশেরই আরেকটি নির্মাণ প্রতিষ্ঠান ও কনসালটেন্ট ফার্ম।

এরা ঐক্যবদ্ধভাবে বর্তমান সরকারকে বিব্রত করতে বিশ্বব্যাংকের কাছে একাধিক দুর্নীতির ফাইল পাঠিয়েছে বলেও সূত্র জানায়।

ইআরডি মনে করে, পদ্মা সেতু নিয়ে বিশ্ব ব্যাংকের কাছে যেসব দুর্নীতির অভিযোগ সংবলিত ফাইল পৌঁছেছে তা সত্য হওয়ার সম্ভাবনা নেই। ফলে বিশ্বব্যাংকও এসব ফাইল সরকারকে সরবরাহ করতে চাচ্ছে না।

এমনকি সরকার উত্থাপিত অভিযোগ তদন্তের ঘোষণা দিলেও তা মানতে বিশ্ব ব্যাংক রাজি নয় বলে জানান নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই কর্মকর্তা।

উল্লেখ্য, পদ্মা সেতু তৈরিতে সবচেয়ে বেশি ১২০ কোটি ডলার ঋণ দিচ্ছে বিশ্বব্যাংক। সংস্থাটির অভিযোগ, এ প্রকল্পে দুর্নীতি হয়েছে।

এ বিষয়ে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত সাংবাদিকদের বলেন, ‘পদ্মা সেতু নির্মাণে নদী শাসন, পরামর্শক নিয়োগ এবং প্রাক যোগ্যতা যাচাই নিয়ে দুর্নীতি হয়েছে বলে বিশ্বব্যাংক অভিযোগ করেছে এবং আপাতত এ প্রকল্পের অর্থায়ন স্থগিত করেছে তারা।’

এর আগে গত ২৮ এপ্রিল বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে সরকারের ঋণচুক্তি হয়।

২০১৪ সালের জানুয়ারিতে বর্তমান সরকারের মেয়াদ শেষের আগেই পদ্মা সেতু নির্মাণের কথা সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছিলো। কিন্তু বিশ্ব ব্যাংক অর্থায়ন স্থগিত করায় এ প্রকল্প সময়মতো বাস্তবায়ন করা যাবে কি-না, তা নিয়ে জটিলতা তৈরি হয়েছে বলে সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন।

পদ্মা সেতু প্রকল্প তদারকির জন্য প্রাক নির্বাচনী তালিকায় থাকা কানাডীয় প্রতিষ্ঠান এসএনসি-লাভালিনের `দুর্নীতি`র তদন্তে বিশ্বব্যাংক কানাডা পুলিশকে অনুরোধ করলে পদ্মা সেতুতে `দুর্নীতি`র বিষয়টি প্রকাশ হয়।

এ নিয়ে যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের দিকে অভিযোগের আঙুল থাকলেও ওই মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন দুর্নীতির অভিযোগ বরাবরই প্রত্যাখ্যান করে আসছেন।

৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ পদ্মা সেতু নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছে ২৯০ কোটি ডলার। বিশ্বব্যাংক ছাড়া এডিবি ৬১ কোটি, জাইকা ৪০ কোটি এবং ইসলামী উন্নয়ন ব্যাংক ১৪ কোটি ডলার ঋণ দিচ্ছে।

এ বিষয়ে অর্থমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, ‘পদ্মা সেতু নিয়ে সরকার খুব শিগগিরই একটি বিবৃতি দেবে।’

তবে পদ্মা সেতুর অর্থায়ন স্থগিতের ক্ষেত্রে ড. মুহাম্মদ ইউনূসের ভূমিকার কথা অস্বীকার করেছেন অর্থমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘না, এ ধরনের কোনও ঘটনার প্রমাণ আমাদের হাতে নেই।’

গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ থেকে অপসারণের পর নোবেলজয়ী ড. ইউনূসের সঙ্গে সরকারের টানাপোড়েন চলছে।

তবে যুক্তরাষ্ট্রের একটি বার্তা সংস্থা তাদের প্রতিবেদনে পদ্মা সেতু প্রকল্প বাধাগ্রস্ত করতে ড. ইউনূস প্রভাব রাখছেন বলে উল্লেখ করে।

তবে ঘটনা যাই ঘটুক না কেন, এ সেতু কেবল কোনও সরকার বা প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব সম্পত্তি নয়। এ সেতুর ওপর নির্ভর করছে দেশের জিডিপির উন্নতির চাবিকাঠি।

রহমান মাসুদ, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

Leave a Reply