টঙ্গীবাড়ী এসিল্যান্ড শূন্য ১৪ মাস

মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ী উপজেলায় গত ১৪ মাস ধরে এসিল্যান্ড পদ শূন্য থাকায় ভূমি অফিসের কাজকর্ম ব্যাহত হচ্ছে। এতে জনগণকে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে বলে জানান অফিসের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। ২০০৯ সালের ২৯ মার্চ উপজেলা সহকারি ভূমি কর্মকর্তা মো. সারোয়ার হোসেন ইউএনও পদে পদোন্নতি নিয়ে ফুলগাজী উপজেলায় চলে যান। ২০০৯ সালের ৭ ডিসেম্বরে বেগম নাছিমা খানম ওই পদে যোগ দিয়ে ২০১০ এর ২৩ সেপ্টেম্বর কালিয়াকৈর উপজেলায় বদলি হয়ে যাওয়ার পর এসিল্যান্ড পদ শূন্য রয়েছে।

২০০৯ থেকে এ পর্যন্ত সিংহভাগ সময় এ উপজেলায় সহকারী ভূমি কর্মকর্তা না থাকার কারণে অফিসে অনেক ফাইল বন্দি হয়ে পড়েছে বলে জানান কানুনগো চ-িপদ বাড়ৈ।

তিনি আরো জানান ওই পদ শূন্য থাকায় যথা সময়ে কাজ সরবরাহ না হওয়ায় সরকারের রাজস্ব আদায়ে বিঘ্ন ঘটছে, এ ছাড়া খাস ও অর্পিত সম্পদের তদারকি থেমে গেছে বলে জানান ওই কর্মকর্তা। সার্ভেয়ার লিয়াকত হোসেন জনি ভূমি অফিস থেকে ইউএনও অফিসের দূরত্ব আধা কিলোমিটারের কথা জানিয়ে বলেন, ফাইল টানাটানি করতে অনেক সময় চলে যায়। তাছাড়া ইউএনও সাহেবের সরকারি কাজে অনেক সময় ব্যস্ত থাকার কারণে যথাসময়ে কাজ সমাধা করা যায় না। এ ব্যাপারে উপজেলার ভুক্তভোগীরা জানিয়েছেন এসিল্যান্ড না থাকায় তাদের ফাইল দীর্ঘ সময় অফিসেই পড়ে রয়েছে।

ডেসটিনি

Leave a Reply