রানা মিজি হত্যার বিচার ঝুলে আছে

আশরাফ-উল-আলম
মুন্সীগঞ্জের সদর থানার বাঘাইকান্দি গ্রামের আসাদ মিজির ছেলে রানা মিজি হত্যাকাণ্ডের বিচার ঝুলে রয়েছে অধিকতর তদন্ত শেষ না করার কারণে। গত বছরের ১৭ ডিসেম্বর বাদীর আবেদনে মুন্সীগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত অপরাধ তদন্ত বিভাগকে (সিআইডি) ঘটনার অধিকতর তদন্তের নির্দেশ দেন। কিন্তু ওই নির্দেশ এখনো কার্যকর করা হয়নি।

মামলার বাদীপক্ষ কালের কণ্ঠকে জানায়, সিআইডি এখনো অধিকতর তদন্ত শুরু করেনি। সিআইডির কোনো কর্মকর্তা এখনো ঘটনাস্থলে যাননি, সাক্ষীদের জবানবন্দি নেননি, এমনকি বাদীর সঙ্গেও কোনো যোগাযোগ করেননি।

বাদীপক্ষ আরো জানায়, চাঞ্চল্যকর মামলা হিসেবে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মনিটরিং সেল ইতিমধ্যে মামলাটির বিচার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে সম্পন্ন করার নির্দেশ জারি করেছে। কিন্তু অধিকতর তদন্তের প্রতিবেদন না দেওয়ায় মামলার নথি দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে স্থানান্তর করা যাচ্ছে না। এ কারণেই বিচারপ্রক্রিয়া ঝুলে রয়েছে।

ঘটনার বিবরণ : রানা মিজির বয়স ছিল ২২ বছর। তিনি রাজমিস্ত্রির কাজ করতেন। ২০১০ সালের ১০ সেপ্টেম্বর রাত ৮টার দিকে একই গ্রামের কয়েকজন যুবক রানাকে ঘর থেকে ডেকে নিয়ে যায়। এরপর তিনি আর বাড়ি ফিরে আসেননি। পরদিন রাতে রানাকে খুঁজতে তাঁর চাচা ফজল হক মিজি ডেকে নিয়ে যাওয়া নান্নু বেপারির বাড়িতে গেলে তাঁকে বেদম মারধর করা হয় এবং হুমকি দেওয়া হয়। রানাকে ডেকে নিয়ে যাওয়ার দুই দিন পর স্থানীয় লোকজন স্বরণ ও আওলাদ নামের দুজনকে আটক করে। জিজ্ঞাসা করলে তারা জানায়, রানাকে অন্যদের সহযোগিতায় খুন করে লাশ ধানক্ষেতে লুকিয়ে রাখা হয়েছে। পরে স্থানীয় লোকজন ও পুলিশের উপস্থিতিতে লাশ উদ্ধার করা হয়। পুলিশ সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করে লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে পাঠিয়েছে।

মামলা : এ ঘটনায় নিহত রানার বাবা মো. আসাদ মিজি বাদী হয়ে মুন্সীগঞ্জ সদর হাসপাতালে একটি হত্যা মামলা করেন। যে দুজনের দেখানো মতে রানার লাশ ধানক্ষেত থেকে উদ্ধার করা হয়, তাদের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী স্বরণ বেপারি, রাজিব, আওলাদ বেপারি, নান্নু বেপারি, নাছির উদ্দিন ওরফে কালু, মনু বেপারি ও মো. জসিমকে আসামি করে মামলা করা হয়।

অভিযোগপত্র : মুন্সীগঞ্জ থানার পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) খালিদ হোসেন ঘটনা তদন্ত করেন। এমন একটি হত্যাকাণ্ডের তদন্ত মাত্র আড়াই মাসের মধ্যে সম্পন্ন করে তিনি তড়িঘড়ি স্বরণ, আওলাদ ও রাজিবের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন এবং অন্যদের মামলা থেকে অব্যাহতি দেওয়ার আবেদন করেন।

তদন্ত প্রশ্নবিদ্ধ : তদন্ত প্রতিবেদন (অভিযোগপত্র) দাখিল করার পর মামলার বাদী আদালতে নারাজি দেন। তিনি অভিযোগ করেন, তদন্ত কর্মকর্তা আসামিপক্ষের দ্বারা প্রভাবিত হয়ে এজাহারনামীয় চার আসামিকে মামলা থেকে অব্যাহতি দেওয়ার আবেদন করেন। আবেদনে বাদী আরো বলেন, আটক তিন আসামির স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি নেওয়ার সময় তদন্ত কর্মকর্তা তাদের দিয়ে অন্য আসামিদের নাম না বলাতে বাধ্য করেন। বাদী নারাজি আবেদনে উল্লেখ করেন, দুই আসামি যখন প্রথম আটক হয়েছিল, পুরো গ্রামবাসীর কাছে তারা বলেছিল যে সাতজন মিলে বাদীর ছেলেকে হত্যা করে লাশ গুম করার চেষ্টা করে।

বাদী মো. আসাদ মিজি কালের কণ্ঠকে জানান, সিআইডিতে মামলাটি অধিকতর তদন্তের জন্য পাঠানো হলেও এখনো কোনো কর্মকর্তা তাঁদের সঙ্গে যোগাযোগ করেননি। বাদী আরো বলেন, সাত আসামিই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকলেও থানার পুলিশ চারজনকে বাদ দিয়ে অভিযোগপত্র দেয়। সব আসামির বিরুদ্ধে সাক্ষ্য-প্রমাণ রয়েছে। তিনি এ মামলার অধিকতর তদন্ত দ্রুত শেষ করার দাবি জানান।

কালের কন্ঠ

Leave a Reply