কমিউনিটির উদ্যোগে এবং রাহমান মনির উদারতায় রনি, মিলন মুক্ত

জাপান প্রবাসী বাংলাদেশি কমিউনিটির উদ্যোগে এবং রাহমান মনির উদারতায় অবশেষে মুক্তি পেয়েছে রনি ও মিলন। গত ৯ অক্টোবর টোকিওতে একটি সমঝোতা বৈঠক হয়। রনির বড় ভাই জাপান শাখা যুবলীগের সভাপতি মাযহারুল ইসলাম মাসুম, বাংলাদেশি কমিউনিটির ব্যবসায়ী বাদল চাকলাদার, এমডি এস ইসলাম নান্নু, খন্দকার আসলাম হীরা, আলহাজ নূর আলী, মোল্লা অহিদুল ইসলাম, মো. ছিদ্দিক এবং রাহমান মনিসহ আরো অনেকে উপস্থিত ছিলেন। বাংলাদেশি কমিউনিটির পক্ষে মধ্যস্থতাকারীর ভূমিকা পালন করেন বাদল চাকলাদার।

রনি ও মিলনের পক্ষ থেকে বাংলাদেশি কমিউনিটির নেতৃবৃন্দ রাহমান মনির কাছে দুঃখ প্রকাশ করেন। নেতৃবৃন্দ বলেন, ‘বিষয়টি পুলিশ, আইন-আদালতের দিকে আরো অগ্রসর হলে তা হবে বাংলাদেশিদের ইমেজের জন্যে ক্ষতিকর। রনি, মিলনের জন্যে তা মঙ্গলজনক হবে না। আমরা কেউই বাংলাদেশি কোনো প্রবাসী কোনোভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হোক তা চাই না। আমরা একে অপরের মঙ্গলের জন্য কাজ করতে চাই। ভবিষ্যতে আর কেউ যেন কাউকে লাঞ্ছিত করার মতো কোনো ঘটনা না ঘটায়, ঘটাতে না পারে, সে ব্যাপারে আমরা সতর্ক থাকব। আজকের এই বৈঠকের মধ্য দিয়ে অনাকাক্সিক্ষত এই ঘটনার সকল প্রকার আইনগত ব্যবস্থা পরিহার করে, সমঝোতায় পৌঁছার অঙ্গীকার করছি।’

নেতৃবৃন্দের এই বক্তব্যের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে, একমত পোষণ করে রাহমান মনি পুলিশের কাছে করা অভিযোগ প্রত্যাহার করার সিদ্ধান্ত নেন।

লিখিত সমঝোতার পর তাদের মুক্তির প্রক্রিয়া শুরু হয়। তার পরও পুলিশ মিলন ও রনিকে আরো ১০ দিনের রিমান্ডে আনার উদ্যোগ নেয়।

এই সময় বাদল চাকলাদার, মাযহারুল ইসলাম মাসুমের উদ্যোগে রাহমান মনি আবার পুলিশকে অনুরোধ করেন রনি ও মিলনকে ছেড়ে দেয়ার জন্য।

রাহমান মনির অনুরোধে সাড়া দিয়ে পুলিশ রনি ও মিলনকে ১৪ অক্টোবর রাতে মুক্তি দেয়। তারা গ্রেপ্তার হয়েছিল ২ অক্টোবর।

সাপ্তাহিক

Leave a Reply