ফখরুদ্দীন-মইন সম্পর্কে ফাটল

উইকিলিকসের নথি থেকে
সেনা সমর্থিত গত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় চার উপদেষ্টার পদত্যাগের ঘটনা নিয়ে প্রধান উপদেষ্টা ফখরুদ্দীন আহমদ ও সেনাপ্রধান মইন উ আহমেদের মধ্যে সম্পর্কে ফাটল দেখা দিয়েছিল। একসঙ্গে হজ পালনের মধ্য দিয়ে তাঁদের সম্পর্কের বন্ধন আবার দৃঢ় হওয়ার আশা করেছিলেন অনেকে। কিন্তু সে রকম কোনো লক্ষণই পরিলক্ষিত হয়নি। ২০০৮ সালের ১৪ জানুয়ারি মইন উ আহমেদ ঢাকায় নিযুক্ত তখনকার মার্কিন চার্জ দি অ্যাফেয়ার্স গীতা পাসিকে এক ভোজসভায় আমন্ত্রণ জানান। সেখানে তাঁদের মধ্যে আলাপচারিতায় ফখরুদ্দীন-মইন সম্পর্কে ফাটলের বিষয়টি উঠে আসে। ১৭ জানুয়ারি যুক্তরাষ্ট্র সরকারের কাছে গীতা পাসির পাঠানো এক গোপন তারবার্তা থেকে এ তথ্য জানা গেছে। সম্প্রতি বিকল্প ধারার গণমাধ্যম উইকিলিকস অন্য অনেক তারবার্তার সঙ্গে এটিও ফাঁস করে।

মইন উ আহমেদ মার্কিন চার্জ দি অ্যাফেয়ার্সকে বলেছিলেন, নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম ক্রমশ বাড়তে থাকা, পোশাক শ্রমিকদের সহিংস আন্দোলন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র বিক্ষোভসহ উদ্ভূত নানা পরিস্থিতি সামাল দিতে তিনি চাপের মুখে রয়েছেন। প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী নির্বাচন অনুষ্ঠানের ১১ মাস আগেই ওই পরিস্থিতিতে অনেকটা বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছিলেন সেনাপ্রধান। তবে নানা প্রতিকূলতা সত্ত্বেও তিনি পেছন থেকে তত্ত্বাবধায়ক সরকারকে এগিয়ে নিতে সতর্কতার সঙ্গে পদক্ষেপ নিচ্ছিলেন। নির্বাচন অনুষ্ঠান করতে পারবেন কি না, সে নিয়ে মইনের মনেই অনেক প্রশ্ন দেখা দিয়েছিল। তবে তিনি ও তাঁর ঘনিষ্ঠ সহযোগীরা একুটু বুঝেছিলেন যে নির্বাচনের পথ তৈরি করতে সেনাবাহিনী, তত্ত্বাবধায়ক সরকার ও রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে ঐকমত্য প্রতিষ্ঠা করতে হবে।

তারবার্তায় গীতা পাসি উল্লেখ করেন, সেনাপ্রধান মইন উ আহমেদের সঙ্গে কথা বলে মনে হয়েছে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান উপদেষ্টা ফখরুদ্দীন আহমদের সঙ্গে তাঁর সম্পর্কের অবনতি হয়েছে। কেন এমন মনে হয়েছে_এর ব্যাখ্যা করে গীতা পাসি বলেন, মইনকে তিনি জানান ২৩ থেকে ২৭ জানুয়ারি দাভোসে বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামের বৈঠকে অংশ নেওয়ার কথা রয়েছে ফখরুদ্দীনের। তখন মইন বলেন, এ ব্যাপারে তিনি কিছুই জানেন না। ফখরুদ্দীন আদৌ ওই সম্মেলনে যেতে পারবেন কি না, তা নিয়েও মইন সংশয় প্রকাশ করেন।

গীতা পাসি তারবার্তায় উল্লেখ করেন, ‘প্রকৃতপক্ষে ফখরুদ্দীন ওই বৈঠকে অংশ নিতে যাচ্ছেন। কিন্তু মইনকে কিছু জানাননি। আমরা অন্যদের কাছ থেকে জেনেছি যে ফখরুদ্দীনের সঙ্গে মইনের সম্পর্ক ভালো যাচ্ছে না। চলতি মাসে (২০০৮ সালের জানুয়ারি) চারজন উপদেষ্টার পদত্যাগসহ নানা বিষয় নিয়ে তাঁদের সম্পর্কে চিড় ধরেছে।’

কালের কন্ঠ

Leave a Reply