ডিসিসিকে দ্বিখণ্ডিত করার সরকারি সিদ্ধান্ত সাংঘর্ষিক

ডিসিসি দুই ভাগের সরকারি সিদ্ধান্তে হতবাক হয়েছেন মেয়র সাদেক হোসেন খোকা। বিস্ময় প্রকাশ করে তিনি বলেন, ঢাকা সিটি করপোরেশনের মেয়র নির্বাচিত হওয়ার পর আমি এবং প্রয়াত মেয়র মোহাম্মদ হানিফ দু’জনই মেট্রোপলিটন গভর্নমেন্ট চেয়েছিলাম। পৃথিবীর বড় বড় দেশে তা আছে। কিন্তু অদৃশ্য কারণে কোন সরকারই এ দাবিকে গুরুত্ব দেয়নি। আর যখন ডিসিসি’র জনগণ তাদের নির্বাচিত প্রতিনিধি দেখার জন্য উদগ্রীব, নির্বাচন কমিশনও নতুন মেয়র নির্বাচনে প্রস্তুতি সম্পন্ন করে রেখেছে ঠিক সে সময় ডিসিসিকে ভাগ করতে মন্ত্রিসভায় নেয়া সিদ্ধান্ত একেবারেই উদ্দেশ্যমূলক।

রাজধানীর উন্নয়নে সমন্বিত পদক্ষেপ গ্রহণে কোন ব্যবস্থা না নিয়ে উল্টো মন্ত্রিসভার এ সিদ্ধান্তে আমরা অনেক দূর পিছিয়ে যাবো। আর এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেয়ার আগে সরকার কারও সঙ্গে বসার প্রয়োজন বোধ করেনি। নগরবাসী কি চান তার কোন গণশুনানি হয়নি। কোন সমীক্ষাও হয়নি। এমনকি নগরীর সরকারসমর্থিত যেসব কাউন্সিলর রয়েছেন তাদের কাছ থেকেও এমন কোন দাবি আসেনি।

২০০৫ সালে বিশ্বব্যাংক ১৬ কোটি টাকা ব্যয়ে ঢাকা নিয়ে একটি সমীক্ষা চালায়। তাতে বলা হয়েছে, সিটি করপোরেশনের অধীনে মেট্রোপলিটনসহ সরকারি অন্যান্য মন্ত্রণালয় এক ছাতার নিচে রাখতে হবে। কিন্তু ডিসিসিকে ভাগের বর্তমান সরকারি সিদ্ধান্ত সাংঘর্ষিক। ডিসিসিকে ভাগের সিদ্ধান্ত রাজনৈতিক। সরকারের যুক্তি নগরী বড় হওয়ায় নাগরিক সুবিধা নিশ্চিত করতেই এই পদক্ষেপ- এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ১৯৮২ সালে গুলশান ও মিরপুরে দু’টি ভিন্ন পৌরসভা ছিল। নাগরিক সুবিধা নিশ্চিত করতেই তৎকালীন সরকার পৌরসভাগুলোকে ঢাকা সিটি করপোরেশনের মধ্যে একীভূত করেছিল।

উচিত ছিল বর্তমানের বড় সমস্যা ট্রাফিক জ্যাম কিভাবে নিরসন করা যায় তার জন্য ট্রাফিক পুলিশকে দায়িত্ব দেয়া। যেটা পৃথিবীর সব দেশেই আছে। কিন্তু এখন ক্ষমতা তো নেই বরং গুলিস্তান, ফার্মগেট সহ বিভিন্ন স্থানের ফুটপাতের পাশাপাশি পুরো রাস্তা দখল হয়ে চলছে। এখন যদি আমার কর্মকর্তাকে পাঠাই তাহলে তো তিনি তাদের উচ্ছেদ করতে পারবেন না। এখানে পুলিশের সাহায্যের দরকার আছে। আবার কখনও কখনও গার্মেন্টস বা অন্য কোথাও পুলিশের দরকার হলেও তাদের পাওয়া যায় না। তাই সিটি করপোরেশনের জন্য আলাদা ফোর্স রাখতে হবে। নির্বাচিত মেয়রদের নিয়ে আলোচনা করেছি। আমাদের সমস্যা চিহ্নিত করার চেষ্টা করেছি। সেগুলো সরকারকে রিকোমেন্ডেশন আকারে দেয়া হয়েছে। আমাদের প্রতিটি কাজের সমন্বয় থাকতে হবে। কিন্তু অন্যদের কারণে আমাদের কাজের সমন্বয়হীনতা দেখা যাচ্ছে।

তাহলে ডিসিসি ভাগের পেছনে আপনি কি কোন যুক্তি দেখছেন না- চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনের পরাজয়ের পর সরকারের কাছে বিভিন্ন সংস্থা রিপোর্ট দিয়েছিল, ঢাকায় নির্বাচন দেয়া হলে সরকারি দলের জয়লাভের আশা খুবই কম। তাই তারা নির্বাচন থেকে সরে গেল। তারা দেখলো, যে সময় আছে সেই সময়ের মধ্যে নির্বাচন থেকে সরে গিয়ে প্রশাসক নিয়োগের দিকে এগোচ্ছে। কিন্তু হাইকোর্টে রুলিং আছে স্থানীয় সরকারের কোন নির্বাচিত প্রতিনিধি আরেকজন নির্বাচিত প্রতিনিধির কাছেই ক্ষমতা হস্তান্তর করতে পারবে। এটা জানার পরও সরকার কিভাবে এ ধরনের সিদ্ধান্ত নিতে পারে এটা আমার কাছে বোধগম্য নয়। প্রশাসক নিয়োগ দেয়া হলে পরিস্থিতি কি দাঁড়াবে এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, এটা বললেই তো হবে না। বাংলাদেশে বললেই সব হয়ে যায় না।

ডিসিসিকে দুই ভাগে বিভক্ত করলে কর্মকর্তারা কোথায় যাবেন সেটা ঠিক করতেই দুই বছর লেগে যাবে। তাছাড়া, নগরীর জনগণ এ সিদ্ধান্ত মেনে নিবে কিনা এটাও দেখার বিষয়। আর আমি একটি দলের সঙ্গে যুক্ত। সুতরাং আমার দলেরও নিশ্চয় এ ব্যাপারে একটি অবস্থান আছে। নাগরিক সুবিধা কিভাবে বাড়ানো যায় এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, প্রতিটি সরকার চায় তার অধীনে করপোরেশন থাকুক- যাতে তাদের নিয়ন্ত্রণ করা যায়। কিন্তু আমাদের উচিত কে মেয়র সেটা বড় কথা নয়। ক্ষুদ্র দরিদ্র দেশে নাগরিক সুবিধাই বড় কথা। সে জন্য যুগোপযোগী ভাবে সিটি করপোরেশনকে সমৃদ্ধ করতে হবে। সরকার দিনবদলের কথা বলছেন কিন্তু বর্তমান ঘোষণার মাধ্যমে তা পশ্চাৎমুখী হয়ে গেল।

মানবজমিন

Leave a Reply