পদ্মা সেতু: সরকারের বক্তব্য বৃহস্পতিবার

পদ্মা সেতু প্রকল্পে জটিলতার বিষয়ে বৃহস্পতিবার সরকারের বক্তব্য প্রকাশ করা হবে জানিয়ে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত বলেছেন, এ প্রকল্প হবেই। বুধবার সচিবালয়ে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, “পদ্মা সেতু নিয়ে বিশ্বব্যাংক যে দুর্নীতির অভিযোগ করেছিল, সে বিষয়ে সরকারের বক্তব্যসহ চিঠিটি আমি তৈরি করেছি। বৃহস্পতিবার এ সংক্রান্ত প্রেসনোট দেবো।”

এ জটিলতার দ্রুত অবসানের আশা প্রকাশ করে মুহিত বলেন, বিশ্বব্যাংক তাদের অর্থায়ন সাময়িক স্থগিত করেছে, তার সমাধান দ্রুত হয়ে যাবে। কাজ শুরু হতে একটু দেরি হরো আর কী।

পদ্মা সেতু প্রকল্প বাস্তবায়ন আটকে গেলো কি না- প্রশ্ন করা হলে তিনি জোর দিয়ে বলেন, “কেন হবে না? অবশ্যই হবে। আমি সবসময় বলে আসছি- এটা হবে, হবেই।”

পদ্মা সেতু নির্মাণে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে এ প্রকল্পে অর্থায়ন স্থগিত করার ঘোষণা দিয়েছে বিশ্বব্যাংক। দেশের সর্ববৃহৎ নির্মাণ প্রকল্প পদ্মা সেতু তৈরিতে সবচেয়ে বেশি ১২০ কোটি ডলার ঋণ দিচ্ছে এ সংস্থাটি।

পদ্মা সেতু প্রকল্প তদারকির জন্য প্রাক নির্বাচনী তালিকায় থাকা কানাডীয় প্রতিষ্ঠান এসএনসি-লাভালিনের ‘দুর্নীতি’র তদন্তে বিশ্বব্যাংক কানাডা পুলিশকে অনুরোধ করলে পদ্মা সেতুতে ‘দুর্নীতি’র বিষয়টি প্রকাশ্য হয়।

এ বিষয়ে একটি বিবৃতিতে বিশ্বব্যাংক বলেছে, তারা সব সময়ই স্বচছতায় বিশ্বাস করে। প্রতিটি ক্ষেত্রে যেন বাংলাদেশের জনগণ বিশ্বব্যাংকের সহায়তার পুরোটাই পায়- সে বিষয়টি নিশ্চিত করতে চায় তারা।

তবে সরকারের পক্ষ থেকে দুর্নীতির অভিযোগ বরাবরই নাকচ করা হচ্ছে। কথিত দুর্নীতি নিয়ে যার দিকে অভিযোগের আঙুল, সেই যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন বলেছেন, যারা পদ্মা সেতু বাস্তবায়ন চায় না, তারাই এ নিয়ে নানা ভিত্তিহীন অভিযোগ করছে।

অর্থমন্ত্রী এর আগে সাংবাদিকদের বলেন, বর্তমান সরকারের সময়ে পদ্মা সেতু নির্মাণে কোনো দুর্নীতি হয়নি।

৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ পদ্মা সেতু নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছে ২৯০ কোটি ডলার। বিশ্বব্যাংক ছাড়া এডিবি ৬১ কোটি, জাইকা ৪০ কোটি এবং ইসলামী উন্নয়ন ব্যাংক ১৪ কোটি ডলার ঋণ দিচ্ছে এ সেতু নির্মাণের জন্য।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর

Leave a Reply