পদ্মায় পানি কমছে দ্রুত: ফেরি পারাপার সংকটে

শুকনো মওসুম আসতে না আসতেই পদ্মায় পানি কমতে শুরু করেছে। ফলে হুমকির মুখে পড়েছে নৌযান চলাচলসহ ফেরি পারাপার। পানির গভীরতা প্রতিদিন অস্বাভাবিক হারে কমে গিয়ে ডুবোচর জেগে ওঠায় দেশের অন্যতম প্রধান নদীটি এখন বিপর্যস্ত। দক্ষিণাঞ্চলের ২১ জেলার সঙ্গে সড়ক যোগাযোগ রক্ষাকারি মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে ৯টি ড্রেজার দিয়ে ড্রেজিং করেও পরিস্থিতি সামাল দেয়া যাচ্ছে না। ধারণক্ষমতার চেয়ে অর্ধেক যানবাহন নিয়ে পারাপার হয়েও প্রতিদিনই ডুবোচরে আটকে যাচ্ছে।

ইতিমধ্যে বিজ্ঞপ্তি জারি করে রুটটি দিয়ে অতিরিক্ত বোঝাই ট্রাক, ট্যাংক লরি, কাভার্ড ভ্যান পারাপার নিষিদ্ধ করা হয়েছে। ফলে আসন্ন কোরবানির ঈদে রুটটি ব্যবহারকারী যাত্রীদের ফের চরম দুর্ভোগের শংকা দেখা দিয়েছে।

বিআইডব্লিউটিএ, বিআইডব্লিউটিসি ও ঘাট সূত্রে জানা যায়, মাওয়া-কাওড়াকান্দি রুটের পদ্মায় চলতি বছরের অক্টোবরের ১৭ তারিখ পর্যন্ত ১৭ দিনে পানির গভীরতা কমেছে ১ মিটার ৫৪ সেন্টিমিটার। গত বছর একই সময় গভীরতা কমেছিল মাত্র ৮২ সেন্টিমিটার। গত বছর পুরো অক্টোবর মাসে গভীরতা কমেছিল ১৩ সেন্টিমিটার। অস্বাভাবিক দ্রুতগতিতে পানির গভীরতা কমতে থাকার ফলে রুটটির চলমান সাড়ে ১৮ কিলোমিটার দূরত্বের মাওয়া-কাউনিয়াচর-কবুতরখোলা-হাজরা চ্যানেলের অন্তত দুই কিলোমিটার এলাকায় পানি নেমে গেছে পাঁচ থেকে সাড়ে পাঁচ ফুট গভীরতায়।

পরিস্থিতি সামাল দিতে রুটটিতে গত ৬ সেপ্টেম্বর থেকে পর্যায়ক্রমে পানি উন্নয়ন বোর্ডের দুইটি ড্রেজার, বেসরকারি সংস্থা আইসল্যান্ডারের চারটি ও বিআইডব্লিউটিএ’র তিনটি ড্রেজারসহ নয়টি ড্রেজার নদীতলের খনন কাজ করছে। সাতটি ড্রেজার নিযুক্ত আছে পলি পড়ে বন্ধ হয়ে যাওয়া ১৬ কিলোমিটার দূরত্বের হাজরা মাগুরখণ্ড চ্যানেলটি ২৪০ ফুট পর‌্যন্ত প্রশস্তকরণের কাজে। আর একটি খনন করছে হাজরা টার্নিং ও অপরটি মাওয়া লঞ্চঘাট এলাকায়।

নৌ-পথটির নীচের নদীতলে জমা হওয়া সাড়ে ১২ লাখ ঘনমিটার পলি অপসারণে ব্যস্ত ড্রেজারগুলো সোমবার পর্যন্ত চার লাখ ৭০ হাজার ঘনমিটার পলি অপসারণ করেছে। এতে প্রায় সাড়ে ছয় কোটি ব্যয় হয়েছে।

বিপুল অর্থ ব্যয়ের পরও গুরুত্বপূর্ণ রুটটির ফেরি, লঞ্চসহ নৌযান চলাচলব্যবস্থা বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। বাধ্য হয়ে রুটটির দুইটি রো রো ফেরি, পাঁচটি ডাম্ব ফেরি ও চারটি কেটাইপ ফেরিসহ ১৫টি ফেরি ধারণ ক্ষমতার চেয়ে অর্ধেক যানবাহন নিয়ে পারাপার হচ্ছে। ফলে সরকার বিপুল পরিমাণে রাজস্ব হারাচ্ছে।

রো রো ফেরি ভাষা শহীদ বরকতের মাস্টার ইনচার্জ কামাল হোসেন বলেন, “হাজরা কবুতরখোলার দুই কিলোমিটার এলাকা জুড়ে এখন ভয়াবহ নাব্যতা সঙ্কট। অর্ধেক যানবাহন নিয়েও ডুবোচরে ফেরি আটকে যায়।” বিআইডব্লিটিএ’র তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী (ড্রেজিং) মাশুকুল হক বলেন, “বিকল্প মাগুরখণ্ড চ্যানেলটি দুই দিনের মধ্যে চালু করা সম্ভব হবে। এতে ঈদ পর্যন্ত আশা করি সমস্যা হবে না।”

বার্তা২৪ ডটনেট

Leave a Reply