রাতের পদ্মায় স্পিডবোটে একের পর এক গুপ্তহত্যা!

ভয়ঙ্কর মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুট
বন্যার বয়স যখন মাত্র ৬ দিন। তখন গার্মেন্টসকর্মী বাবা বকুল মিয়া ঢাকা থেকে আসছিলেন শশুরবাড়ি শিবচরে মেয়েকে প্রথম দেখা দেখতে। উচ্ছ্বসিত বাবা মাওয়া ঘাটে নেমে তার স্ত্রী ঝর্নাকে মুঠোফোনে জিজ্ঞেস করেছিল ছোট্ট সোনামণিসহ সকলের জন্য কি ফলফলাদি আনবে। এরপর স্পিডবোটে ওঠার কথা বলে আর তাকে পাওয়া যায়নি। প্রায় দেড় মাস যাবৎ হাজারো সন্ধান করেও আজও মেলেনি বকুল মিয়ার খবর। একই দিন একই সময় ২০ দিনের ছেলে সন্তান নোমানকে রেখে ঢাকায় কম্পিউটার কিনতে গিয়েও টাকার স্বল্পতার কারণে বাড়িতে ফিরতে থাকা নুর এ আলমের খোঁজ মেলেনি আজও। সম্প্রতি মাওয়া ঘাট থেকে গ্রেপ্তারকৃত স্পিডবোট চালক হƒদয়ের স্বীকারোক্তিতে মাদারীপুরের সুপারউদ্দিন ফকিরকে হত্যার পর পদ্মায় ভাসিয়ে দেওয়ার ঘটনা উম্মোচন হওয়ার পর নিখোঁজ বকুল ও নুর এ আলমের পরিবারে অনিশ্চয়তা নেমে এসেছে। নুর এ আলমের মুঠোফোনটি মাওয়া এলাকায় ব্যবহার হওয়ায় তার পরিবার ধরে নিয়েছে সুপারউদ্দিনের পরিণতিই হয়েছে তার। এদিকে গত ১৬ অক্টোবর এ রুটের লঞ্চে অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পড়ে ওবায়দুল ফকির নামে ভাঙ্গার এক যুবক নিহত হয়েছে। ডাকাতি শেষে হত্যা করে নদীতে ভাসিয়ে দেওয়া বা বালুচরে পুঁতে ফেলা এ রুটের অপরাধের নতুন সংস্করণ। যা বাড়ছে ভয়াবহ আকারে। প্রায় সাড়ে ১৮ কিলোমিটার দূরত্বের এ রুটে নিয়মিত নৌ-টহল না থাকায় রুটটি মৃত্যুকূপে পরিণত হয়েছে।

গত ১৪ রোজায় স্পিডবোটে ডাকাতির কবলে পড়া শিবচরের ব্যবসায়ী নুর সেলিম বলেন, রোজায় মার্কেট করে যখন শিবচর ফিরছিলাম রাত সাড়ে ৯টায় মাওয়া থেকে স্পিডবোটে উঠি। যাত্রীবেশী ওরা ৫ জন আমাকে ২৬ টি কোপ দিয়ে পদ্মায় ফেলে দেয়। তারপর ৩ ঘণ্টা পদ্মায় ভেসে কোনওমতে প্রাণে বাঁচি। এরকম ঘটনা মাঝেমাঝেই শুনি।

কাওরাকান্দি স্পিডবোট মালিক সমিতির সভাপতি দেলোয়ার হাওলাদার বলেন, মাওয়া পাড়ে সবই অনিয়ম। এধরনের ঘটনা ওই পাড়ে প্রায়ই ঘটে।

শিবচর থানার ওসি পদ্মা নদীতে সার্বক্ষণিক নৌ-টহলের দাবি জানিয়ে বলেন, এ দুটি ঘটনায় যারা তদন্ত করছে আমি তাদের সাথে কথা বলেছি। রাতে স্পিডবোট থেকে ডাকাতি শেষে ফেলে দেওয়ার ঘটনা ঘটতে পারে।

আমাদের সময়

Leave a Reply