জ্যোতির্বিদ জীবনানন্দ

২২ অক্টোবর ছিল কবি জীবনানন্দ দাশের ৫৭তম মৃত্যুবার্ষিকী। মৃত্যুবার্ষিকীতে তাকে শ্রদ্ধা জানাতে জীবনানন্দের এক নতুন পরিচয় অনুসন্ধান করার চেষ্টা করেছেন মোফাখখারুল ইসলাম

তার অনেক পরিচয়। কখনও নির্জনতম কবি, কখনও দুর্বোধ্যতম কবি, কখনও শুদ্ধতম কবি, আবার কখনও শুধুই জনপ্রিয় কবি। তিনি জীবনানন্দ দাশ। তার নিরেট-নৈর্ব্যক্তিক পরিচয় প্রচার করতে গিয়ে প্রাবন্ধিক আহমদ ছফা বলেছেন, তিনি ‘রবীন্দ্রনাথের বাইরে, নজরুল ইসলামের চাইতে দূরে।’ … এবং বলাই বাহুল্য, এই রবীন্দ্র-নজরুল কাব্যভুবনের বাইরে জীবনানন্দের যে কাব্যভুবন, সেই কাব্যভুবনের স্বরূপ উদ্ঘাটন করতে গিয়ে তার সমালোচকবৃন্দ হরহামেশাই তার ললাটে সেঁটে দিয়েছেন নির্জন-স্বতন্ত্র-ঐতিহ্যপ্রেমী-বিশুদ্ধ চৈতন্যের কবি-ইত্যাদি উপাধি। কিন্তু তার এত পরিচয় পসরার বাইরে আরও এক তাত্পর্যময় পরিচয় বোধকরি বিদ্বজ্জনের দৃষ্টিসীমার আড়ালেই রয়ে গেছে। সে পরিচয় জ্যোতির্বিদ জীবনানন্দ! জীবনানন্দের অগণিত কবিতায় অজস্রবার ব্যবহূত আকাশ-নক্ষত্র-নীহারিকা-উল্কা ইত্যাদি শব্দকল্প পড়তে পড়তে আপনার মনে কি গোপনে এই ভাবনার উদয় হয় না যে, তিনি খানিকটা সৌরজগেপ্রমীও ছিলেন?

যদি উত্তর হয় ‘হ্যাঁ’, তবে আসুন, তালাশ করে দেখা যাক জীবনানন্দের এই জ্যোতিষ্কভাবনার সূত্রপাত কখন এবং কোথায়।

‘সেই শৈশবের থেকে এসব আকাশ মাঠ রৌদ্র দেখেছি;
এইসব নক্ষত্র দেখেছি।
বিস্ময়ের চোখে চেয়ে কতবার…।’
-ইতিহাসযান : বেলা অবেলা কালবেলা

হ্যাঁ, মূলত সেই শৈশবেই আকাশ নক্ষত্রের প্রেমে পড়েছেন জীবনানন্দ। আর তার মনে এই নক্ষত্রপ্রেম উসকে দিয়েছেন স্বয়ং তার পিতা সত্যানন্দ দাশ। সত্যানন্দ ছিলেন সেকালের স্নাতক এবং অতিমাত্রায় গ্রন্থানুরাগী। এক একটি জোছনাধোয়া রাতে তিনি প্রিয় সন্তান মিলুকে (জীবনানন্দের ডাকনাম) নিয়ে বসতেন পাটিপাতা উঠোনে আর দরাজ কণ্ঠে আবৃত্তি করে শোনাতেন উপনিষদের বিভিন্ন শ্লোক। জীবনানন্দ গবেষকদের ধারণা, সেসব শ্লোক শুনতে শুনতেই ছোট্ট মিলুর মনে ঠাঁই করে নেয় সূর্য-নক্ষত্রের অমলিন জগত্। তবে সেই অমলিন জগতের টানে তিনি অবশ্য এডউইন হাবলের মতো টেলিস্কোপ নিয়ে গ্রহ নক্ষত্রের ঠিকুজি আবিষ্কারে মত্ত হননি, বরং জ্ঞানের পিপাসা মিটিয়েছেন বাবার লাইব্রেরির বিজ্ঞান বিষয়ক বই পড়ে। স্বস্তি খুঁজেছেন কাব্যদেবীর কাছে। আবার কখনও কখনও অধৈর্য হয়ে প্রশ্ন ছুড়েছেন খোদ নক্ষত্রের কাছেই-

‘নক্ষত্র, কেমন করে জেগে থাক তুমি অই আকাশের শীতে
…কখন থামিয়া যেতে হয়—এই ভয়ে
নক্ষত্র তোমার চোখ কোনদিন হয়েছে কি ম্লান!’
-নক্ষত্র, কেমন করে জেগে থাক : অগ্রন্থিত কবিতা

কোনো উত্তর আসেনি নক্ষত্রের পক্ষ থেকে। জীবনানন্দ তাই ফের আশ্রয় মেগেছেন বাবার লাইব্রেরির কাছে। জেনেছেন-

‘পৃথিবী সূর্যকে ঘিরে ঘুরে গেলে দিন
আলোকিত হয়ে ওঠে—রাত্রি অন্ধকার
হয়ে আসে; সর্বদাই পৃথিবীর আহ্নিক গতির
একান্ত নিয়ম এইসব;
কোথাও লঙ্ঘন নেই তিলের মতন আজও।’
-পৃথিবী সূর্যকে ঘিরে : বেলা অবেলা কালবেলা

এই আহ্নিক গতির অমোঘ নিয়মে দিন-রাত্রির পালাবদলে জীবনানন্দ একদা পৌঁছে যান ১৯৩০-এর সৃষ্টিছাড়া সময়ে। তখন তার বন্ধুবর্গ-কি বুদ্ধদেব বসু, কি বিষ্ণু দে, কি কল্লোল যুগের আর সব বন্ধু-সবাই যখন বিক্ষোভ, বিদ্রোহ আর অসন্তোষের সীমিত বলয়ে নিজেদের কাব্যপরিমণ্ডল নির্মাণে ব্যস্ত তখন জীবনানন্দ দাশ শহর ছেড়ে, কোলাহল ছেড়ে একান্ত আপন নির্জনতায় প্রকৃতির মাঝখানে দাঁড়িয়ে দৃষ্টিটাকে তুলে ধরলেন আকাশে। তারার পানে চেয়ে বললেন,

‘সারাটি রাত্রি তারাটির সাথে তারাটিরই কথা হয়
আমাদের মুখ সারাটি রাত্রি মাটির বুকের ’পরে!’
-সারাটি রাত্রি… : ঝরা পালক

আর এসব অতীন্দ্রিয় কাব্যভাষার হাত ধরেই ঘটল সেই ঐতিহাসিক ঘটনা-নেতৃত্বের পালাবদল। এতদিন বাংলা কবিতার অষ্টব্যঞ্জন ক্রমাগত সরবরাহ করে নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন শুভ্রকেশী রবীন্দ্রনাথ। সেই নেতৃত্ব দ্রুত নিজের কাঁধে তুলে নিলেন জীবনানন্দ। আধুনিক বাংলা কবিতা নির্মাণের নব্য উপাদানগুলো এক্ষণে তিনিই সরবরাহ করতে শুরু করলেন, যে উপাদানগুলোর উত্সভাণ্ডার সেই আকাশ নক্ষত্রের ধূপছায়াসংলগ্ন মর্মজ্ঞান। রবি ঠাকুরের ঈশ্বরসমান জীবন দেবতা কিংবা বিহারীলাল চক্রবর্তীর ঈশ্বরীসমান সারদা আর বাংলা কবিতার নাটের গুরু রইল না; বরং নাটের গুরু হয়ে দেখা দিল দ্বাদশ সূর্যের বহ্নি (কিশোরের প্রতি : ঝরা পালক), বরফের মতো চাঁদ ঢালিতেছে ফোয়ারা (পেঁচা : ধূসর পাণ্ডুলিপি), রাতে রাতে হেঁটে হেঁটে নক্ষত্রের সনে তারে আমি পাই নাই (নির্জন স্বাক্ষর : ধূসর পাণ্ডুলিপি) ইত্যাদি।

তাই স্বীকার না করে উপায় নেই, জীবনানন্দের কাব্য-সাধনায় ছিল নান্দনিক বোধের বিস্তৃতি এবং সেই সঙ্গে ছিল দার্শনিক প্রতীতি ও বৈজ্ঞানিক শব্দকল্প প্রতিষ্ঠার এক দুর্মর প্রচেষ্টা। সেই প্রচেষ্টার পথে হাঁটতে হাঁটতে তিনি একদিন নিজেকে সমর্পিত করেন বিশ্বব্রহ্মাণ্ডের কাছে। বিশ্বব্রহ্মাণ্ডের রহস্যময় জগত্ আর যাই হোক মেকি নয়। সে জগতে আর যাই থাকুক অন্তত ছলাকলা নেই। তাই সমকালীন কবি বন্ধুরা যখন ‘মধুর হাসিনী’কে খুশি করার অভিপ্রায়ে পাহাড়-সমুদ্র-বনাঞ্চল মন্থনে ব্যস্ত তখন জীবনানন্দের উচ্চারণ-

‘তোমারে হেরিবে শুধু হিমানীর শীর্ণাকাশ, নীহারিকা, তারা,
তোমারে চিনিবে শুধু প্রেম জোছনা-বধির জোনাকি
তোমারে চিনিবে শুধু আঁধারের আলেয়ার আঁখি…।’
-ওগো দরদিয়া : ঝরা পালক

আর এভাবেই দিনের পর দিন বিজ্ঞান বাস্তবতার আলোছায়ায় জীবনানন্দ যেভাবে সূর্যের সোনার বর্শা, নীল কস্তূরী আভার চাঁদ, মন উড়ে যায় যেন নভোহাঁস, আকাশে নক্ষত্র-সূর্য নীলিমার সফলতা আছে, পৃথিবীর আহ্নিক গতির অন্ধকণ্ঠ শোনা যায় কিংবা মরীচিকা ঢাকা মেঘপুঞ্জ ইত্যাদি শব্দবন্ধ এনেছেন তা অবলোকন করতে করতে আমাদের অভ্যস্ত চৈতন্যও কেঁপে কেঁপে ওঠে। এসব জ্যোতিষ্কমণ্ডলীয় অনুষঙ্গ বারবার আমাদের একটি প্রশ্নের সামনেই কেবল দাঁড় করিয়ে দেয়, ‘জীবনানন্দ কি জ্যোতির্বিদ ছিলেন?’

সকালের খবর

Leave a Reply