মোগল সভ্যতা ও বাঙালী চাঁদরায় কেদাররায়ের বিদ্রোহ

গৌতম ব্যানার্জী : মোগলদের আবির্ভাবের সাথে সাথে ভারত উপমহাদেশের ইতিহাসের এক নতুন অধ্যায়ের সূচনা হয়। ১৫২৬ খৃষ্টাব্দে পানিপথের যুদ্ধক্ষেত্রে বাবরের বিজয়ের ফলে ভারতে মোগল শাসনের বিজয়ের ফলে ভারতে মোগল শাসনের গোড়া পত্তন হয়। কিন্তু ১৫২৬ খৃষ্টাব্দের পানি পথের দ্বিতীয় যুদ্ধ পর্যন্ত ত্রিশ বছর কাল ভারতের ইতিহাস প্রধানত আফগান মোগল সংঘর্ষের ইতিহাস।

ভারতে মোগল শাসন প্রতিষ্ঠিত হলেও বাংলায় তখনও মোগল শাসনের সূর্য উদয় হয়নি। তখন বাংলায় শেরশাহী বংশের অভ্যুদ্বয় ঘটে। এই বংশ ১৫৩৯ তেকে ১৫৬৪ খৃষ্টাব্দ পর্যন্ত বাংলা শাসন করে। শেরশাহী বংশের অবসানে বাংলায় কররানী বংশের অভ্যুদয় ঘটে। তারা ১৫৬৪ খৃষ্টাব্দ থেকে ১৫৭৫ খৃষ্টাব্দ পর্যন্ত বাংলা শাসন করে। অতঃপর মোগল সম্রাট আকবর ১৫৭৬ খৃষ্টাব্দে বাংলা জয় করেন।

মোগল শাসকরা বাংলা দখল করে বাংলা শাসন পরিচালনা করার জন্য তখন এক একজন সুবেদার বা শাসন কর্তা নিয়োগ করেন। ১৫৮৯ খৃষ্টাব্দে রাজা মানসিংহ বাংলার ষষ্ঠ সুবেদার হিসেবে শাসনভার গ্রহণ করেন। তার সময়ে রাজমহলে বাংলা বিহার ও উড়িষ্যার রাজধানী স্থাপিত হয়। মানসিংহের বাংলা শাসনভার গ্রহণ করার পূর্ব থেকেই বিহার ও উড়িষ্যার আফগান বিদ্রোহীরা বিভিন্নভাবে উৎপাত শুরু করে। সে সময়ে ধীরে ধীরে বাংলায় বিভিন্ন অংশে ভৌমিক বা ভূইয়াগণ স্বাধীনতা লাভের চেষ্টা চালায়। ভারত বা প্রাচীন বাংলায় দীর্ঘকাল বিভিন্ন সভ্যতার শাসনামলে বিভিন্ন সংস্কৃতির ঐক্যসমন্বয়ে বাঙালী জনগোষ্ঠী একটি স্বাধীন রাষ্ট্রগঠনের জাতীয়তাবোধ অনুভব করে। সেই জাতীয়তাবোধ থেকেই বাঙালী বার ভূইয়ারা মোগল আগ্রাসনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে থাকে। এই প্রতিবাদের ইচ্ছা থেকেই সংস্কৃতির নৃতাত্ত্বিক চেতানায় তাদের রাষ্ট্রগঠনের ভিত্তির পরিচয় স্পষ্ট হয়ে ওঠে। ষোড়শ শতাব্দীর মধ্যভাগে এ সমুদয় ভৌমিকগণের অভহ্যদয় ঘটে এবং সেলিম বা জাহাঙ্গীর বাদশাহের শাসনামলে তারা পরাজিত হন।

পরবর্তীতে মোগল সম্রাট কর্তৃক নির্বাচিত শাসনকর্তারাই বাংলা শাসন করতে থাকেন। পলাশীর প্রন্তরে শাসন করতে থাকেন। পলাশীর প্রান্তরে বাংলা তখা ভারতের স্বাধীনতা সূর্য অস্তমিত হবার পূর্ব পর্যন্ত এই ব্যবস্থাই অব্যাহত ছিল। মোগলদের শাসন ব্যবস্থা প্রধানতঃ আকবরেরই রচনা। এই সম্পর্কে এডওয়ার্ডস ও গ্যারেট মন্তব্য করেছেন ‘আধুনিক মোগল শ্রেষ্ঠ আকবরের শাসন প্রতিভার নিকট বাহ্যিকভাবে যতটা প্রতীয়মান হয় তার চেয়ে বেশি ঋণ।’ বাবর ও হুমায়ুন নব প্রতিষ্ঠিত সামাজ্যের বহুবিধি সমস্যায় ব্যাস্ত ছিলেন বলে তাদের কেহই শাসন ব্যবস্থার দিকে মনোযোগ দিতে পারেনি। ভারতয়ি ও বৈদেশিক মাসন ব্যবস্থার সমন্বয়ে মোগল শাসন ব্যবস্থা রচিত হয়েছিল। মোগল অধিপতিরা সম্ভবতঃ এশিয়ার বাসিন্দা। মোগল সভ্যতার বিজয় তোরণ যেমন ভারত তথা বাংলার জনসাধারণ স্মরণ করে তরুণ মেগল আগ্রাসনের বিরুদ্ধে বিক্রমপুর থেকে প্রতিবাদের ঝড়ও বাঙালী জাতি তার আত্ম বিকাশের প্রথম ভিত্তি হিসেবে শ্রদ্ধা জানায়।

মোগল সাম্রজ্যের শাসন আমলে বাংলাকে যেমন সমৃদ্ধ করেছে তদ্রুপ সাম্রাজ্য বিস্তারের নামে মগ, ফিরিঙ্গী ও জলদস্যুরা বাংলার সম্পদ লুন্ঠন করেছে। বিক্রমপুর সেই লুন্ঠনের হাত থেকে রেহাই পায়নি। জলদস্যুরা তার হাজার বছররের শ্রমসিক্ত শিল্প-ভাস্কর্যের উপরও নগ্ন থাবা দিয়েছে। বিক্রমপুর মোগল সাম্রাজ্যের যেমন ইতিহাস সমহিসায় প্রতিষ্ঠা পেয়েছিল ঠিক বিপরীতভাবে বাংলার শেষ নবাব সিরজাদৌল্লার হত্যাকান্ডের সাথে রাজা রাজবল্লভের জড়িত থাকার ঘটনা বিক্রমপুর বাসীর আত্মসচেতনতার পথে কালিমা লেপন করেছে।

মোগল সাম্রাজ্যের শাসনামলে সম্রাট শাহজাহা বিক্রমপুরে এসে যেমন ধন্য হয়েছেন বিক্রমপুরবাসীও তার পদার্পণে গৌরববোধ করেছে। বাংলার মোগল সাম্রাজ্যের বিশাল শাসনামলের পটভূমিকার ইতিহাস বিক্রমপুর চোখ নিবন্ধে দু’পূর্ব আলোচিত হবে। নতুন প্রজন্মদের এগিয়ে আসতে হবে। গৌরবদীপ্ত বাঙ্গালীর ইতিহাস নির্মাণে। মধ্যযুগের হীনমন্যতার চিন্তা পরিহার করে আমাদের ইলেকটো মাইক্রো আধুনিক সাম্রাজ্য ব্যবস্থার দিকে এগিয়ে যেতে হবে।

বিক্রমপুরের দুঃসহোদর চাঁদরায় কেদাররায় বাংলায় মোগল আগ্রাসনের বিরুদ্ধে ষোড়শ শতাব্দীর শেষভাগে প্রথম বিদ্রোহ ঘোষণা করেন। সেই বিদ্রোহর দৃঢ়তাই বাঙ্গালীর আত্মচেতনার চির গৌরবময় ইতিহাস। সেই প্রতিবাদের অগ্নিস্ফহলিঙ্গ ভারত তথা প্রাচীন বাংলায় বাঙ্গালীর রাজনৈতিক চেতনাকে সমৃদ্ধ করেছিল। মধ্যযুগে সামন্তবাদী সমাজ ব্যবস্থায় শাসকগোষ্ঠীর অভুদ্যয় হলেও দেশের স্বাধীনতা রক্ষায় তারা ছিল আপোষহীন। আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন, ভহমি বন্দোবস্ত, শিল্প ব্যবসা ও ধর্মীয় অনুভহতির কারণে শ্রেণীগত বৈষম্য সৃষ্টি হলেও বাংলার স্বাধীনতা সূর্য রুখতে শ্রেনী সমন্বয়ের চিন্তা ছিল এক ও অভিন্ন। শ্রেণী সমন্বয়ের এক ও একাধিক চিন্তা থেকে বাঙ্গালী অধিকার প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে গণতান্ত্রিক দীর্ঘতম চর্চার পথই শোষক-শোষিতের চরিত্রে জাতীয়তার ভিত্তি রচিত হয়। তাই মোগল আগ্রাসনের বিরুদ্ধে বাংলার রাজ, কৃষক ও মেহনতি জনতার সুসংগঠিত বিদ্রোহর বহিশিখাই আমাদের জাতীয় ইতিহাস।

১৫৭৬ সালে মেদিনীপুর ও বালেশ্বরের মধ্যবর্তী মোগলমারি স্থানে মোগল পাঠানের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে দাউদ খান পরাজিত হলে বাংলায় পাঠান রবি অস্তমিত হয় এবং মোগল শাসন বাংলায় প্রতিষ্ঠিত হয়। ষোড়শ শতাব্দীর মধ্যভাগে আকবর শাহের শাসনামলে বাঙলায় ভৌমিক বা ভহইয়াদের অভহ্যদয় ঘটে। সেই বার ভহইয়ার প্রাদেশিক শাসন কর্তাদের উৎপীড়নে অতিষ্ঠ হয়ে সমগ্র বাংলায় বিদ্রোহ করে। বার ভহইয়াদের মধ্যে বমোহরের প্রতাপাদিত্য, খিজিরপুরের ঈশা খাঁ ও বিক্রমপুরের অন্তর্গত শ্রীপুরের কেদাররায় চাঁদরায় মোগলদের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ বাংলার ইতিহাস। সম্রাট আকবর ১৫৮০ খৃষ্টাব্দে রাজা টোডরমল্লকে বাংলার শাসনকর্তা নিয়োগ করেন। রাজা টোডরমল্ল সমগ্র বাংলাকে ১৯ সরকার ও ৬৮ টি পরগনায় বিভক্ত করেন। বিক্রমপুর সোনার গাঁয়ের একটি পরগণা হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে। তখন মেঘনা নদীর পূর্ব তীরব্যাপী শীলহাটের দক্ষিণ ও ত্রিপুরার পশ্চিমসীমা পর্যন্ত সোনারগাঁও বিস্তৃত ছিল।

ঐতিহাসিকদের ধারণা, কেদাররায় চাঁদরায় আদি পুরুষ নিমরায় কর্ণাট থেকে এসে বিক্রমপুরস্থ আড়ফুলবাড়িয়া নামক গ্রামে বসবাস করতেন। এই নিমরায়ের বংশেই দু’সহোদর বিপ্লবী জন্মগ্রহণ করেন। খিজিরপুরের ঈশা খাঁর সাথে এই রাজবংশের বন্ধুত্ব ছিল। সোনারগাঁয়ের ভুভাগ ষোষণা দিলেও চাঁদরায় কোদাররায় মোগলদের শাসন শৃংখল ছিন্ন করে বিক্রমপুরস্থ পদা তীরবর্তী শ্রীপুর স্বাধীন রাজা হিসেবে রাজ কাজ পরিচালনা ব্যাপ্ত থাকেন। ফলে বীরশ্রেষ্ঠ কেদাররায় তিন তিনবার মোগল বাহিনীর সাথে মাতৃভহমির স্বাধীনতা রক্ষার্থে যুদ্ধে লিপ্ত হন এবং বাঙ্গালীর শৌর্য-বীর্য ইতিহাসে প্রতিষ্ঠা করেন।

প্রথমবারের যুদ্ধে কেদাররায় মানসিংহের সেনাপতি মন্দারায়কে পরাজিত ও নিহত করেন। দ্বিতীয়বার মানসিংহ স্বয়ং বিক্রমপুরে সৈন্য নিয়ে উপস্থিত হন এবং কেদারের অদ্ভহত রণকৌশলে মুগ্ধ হয়ে কেদাররায়কেই বিক্রমপুরের অধিপতি প্রতিষ্ঠিত করে চলে যান। অতঃপর কেদাররায় মোগল কর্তৃক সন্দ্বীপ পুনরুদ্ধারের জন্য কৃতসংকল্প হয়ে উঠেন। সন্দ্বীপের অধিকার প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে বাঙ্গালী, মগ ও ফিরিঙ্গীদের মধ্যে ঘোরতর যুদ্ধ হয় এবং সে যুদ্ধও বাঙ্গালীদের ইতিহাসকে বলিষ্ঠ করে তুলে। ১৬২০ খৃষ্টাব্দে কেদাররায় কার্ভালিয়ন এবং মার্টিন নামক ফিরিঙ্গীর সহায়তায় নৌযুদ্ধে মোগলদের পরাজিত করে সন্দ্বীপ উদ্ধার করেন এবং আরাকান রাজকে দু’বার পরাজিত করেন। কিন্তু পরিশেষে যুদ্ধে জয়লাভ করেও সন্দ্বীপ আরাকান রাজ্যের দখলে চলে যায়। এদিকে খিজিরপুরের ঈশা খাঁর সাথে কেদার রায়ের মতবিরোধ ঘটে। কথিত আছে ঈশা খাঁর শ্রীপুরে আতিথ্য গ্রহণের সময় কেদাররায় লাবণ্যবতী বিধবা যুবতী বোন সোনামণির রূপ দেখে বিমোহিত হয়ে পড়ে এবং তাকে পাবার প্রবল ইচ্ছা প্রকাশ করে। ঈশা খাঁ খিরিজপুরে পৌঁছে দূত মারফত কেদারের কাছে তার বোনকে বিয়ে কারার প্রস্তাব দেন। এতে কেদাররায় ঈশা খাঁর বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষণা করে খিজিরপুরে রওনা হয় এবং যুদ্ধে ঈশা খাঁর নগরী বিধ্বসত্ম করে কিন্তু কেদারের আমলা শ্রীমমত্ম খাঁ কৌশলে সোনামনিকে খিজিরপুরে ঈশা খাঁর হাতে অর্পণ করেন। চাঁদরায় বোনের কথা শোনে শয্যাশায়ী হয়ে মারা যায়।

মহারাজা মানসিংহ বাংলায় এসে যশোরের প্রাতাপদিত্যের সাথে জামাতা চন্দ্রদীপের রাজা রামচন্দ্রের, রামচন্দ্রের সাথে ভুলুয়ার লক্ষণ মানিক্যের, বিক্রমপুরাধিপতি কেদারের সাথে খিজিরপুরের ঈশা খাঁর দ্বন্দ্ব বিরোধ অবহিত হন। এই দ্বন্দ্ব বিরোধের দুর্বলতা এবং বিশ্বাসঘাতক ভবানন্দ মজুমদার ও শ্রীমন্ত খাঁর সহায়তায় বার ভহইয়াদের স্বাধীনতা মোগলদের হাতে তুলে দিল। অপরদিকে বাংলার স্বাধীনতা রুখতে মানসিংহের সাথে বিসর্জন দেয় মধুরায়। কিন্তু দুই মহাপুরুষ স্বাধীনতা রুখতে মানসিংহের সাথে যুদ্ধের আহববান জানায়। তারা মানসিংহের আধিপত্য স্বীকারে অস্বীকৃতি জানায়। প্রতাপের স্বাধীনতা ঘোষণার অব্যবহিত পরেই পদ্মার তটস্থিত বিক্রমপুরের রাজধানী কেদার রায়ের প্রিয়তম শ্রীপুর দুর্গ থেকে গৌরবের সাথে স্বাধীনতার ঘোষণা দেয়া হয়।

মেঘনার উপকূলে কেদারের সাথে মোগলের নৌযুদ্ধের পরাজয়ের সংবাদ পেয়ে মানসিংহ বিরাট সৈন্যবাহিনী বিক্রমপুরের শ্রীপুরে পাঠায়। ১৬০৬ সালে প্রতাপাধিত্যকে পরাজিত করেন। প্রতাপের পরে মুকুন্দরায়ের রাজধানী ভহষণা নগরী বিধ্বস্ত ও হস্তগত করে মোগল বাহিনী বিক্রমপুরে পৌছেঁ। মানসিংহ শ্রীপুরে সৈন্য শিবির স্থাপন করে কেদাররায়ের কাছে দূত মারফত তরবারি, শৃখল ও একটি চিঠি প্রেরণ করেন।

চিঠিতে লেখা ছিল …

‘‘ত্রিপুর মঘ বাঙ্গালী কাককুলী চাকালী, সকল পুরুষ মেতৎ ভাগি যাও পালায়ী, হয় গজ নর নৌকা কম্পিত বঙ্গভহমি

বিষম-সমর হিংহো মানসিংহং

প্রযাতি।’’

কেদার রায় মানসিংহের মনোভাব বুঝে তরবারিখানা গ্রহণ করেন এবং শৃখংল ফেরত দিয়ে দূতের কাছে পত্রত্তোর লিখে পাঠান –

‘‘ভিনত্তি নিত্যং কবিরাজ কুম্ভং
বিভর্ত্তি বেগং পবনাতিরেকং।
করোতি বাসং গিরিরাজ শৃঙ্গে
তথাপি সিংহং পশুর নান্যঃ । ।’’

মানসিংহ কেদাররায়ের কাছ থেকে এই রকম পত্রের উত্তর পেয়ে তৎক্ষণাৎ শ্রীপুর নগরী অবরোধ করবার জন্য সৈন্য প্রেরণ করেন। সেই যুদ্ধে কেদাররায় ৫ শত রণতীর নিয়ে যুদ্ধ ঘোষণা করেন। কেদাররায় একটানা নয়দিন যুদ্ধ করে মোগল বাহিনীর নিকট আহত ও বন্দী হন। অতঃপর মানসিংহের কাছে তার অবসন্ন রক্তাক্ত দেহ পৌছাঁনোর অব্যবহতি পরই বাঙ্গালীর কাংক্ষিত অগ্নি পুরুষ কেদাররায়ের মৃত্যু ঘটে। অবশেষে বাংলার স্বাধীনতা মোগল অধিপতিদের দখলে চলে যায়।

যুদ্ধ জয়ের পর মানসিংহ কেদাররায়ের গৃহ অধিপতি শিলামাতাকে জয়পুরে নিয়ে যান। সেই শিলামাতা অদ্যবধি জয়পুর রাজ্যের প্রাচীন অম্বর নগরী প্রতিষ্ঠিত আছে। মানসিংহ কেদাররায়ের এক কন্যাকে বিয়ে করেন। বীরেন্দ্র মধুরায় এই যুদ্ধে বীরত্ব প্রদর্শন করেন। মধুরায়ের বীরত্বের জন্য মুকুটরায় নামে পরিচিত। বিক্রমপুরে আজও মধুমুকুটরায়ের স্মৃতিচিন্হ বিরাজমান। মুকুটরায়ের যে স্থানে নিজস্ব বাসভবন (রাজধানী) নির্মাণ করেন তা এখনও মুকুটপুর নামে খ্যাতি রায়।

চাঁদরায় কেদাররায়ের শাসনামলে বিক্রমপুরের বহু উন্নতি সাধিত হয়। তারা ‘দে’ উপাধিধারী বঙ্গক্ত কায়স্থ ছিল। তারা কুলীন না হয়েও বিক্রমপুরে রাজনৈতিক ও সামাজিক ক্ষমতায় প্রতিষ্ঠিত ছিল। রায় রাজাগণের সময় বহু ব্রাক্ষণ, বৈদ্য ও কুলীন কায়স্থ বিক্রমপুরে স্থায়ীভাবে বসবাস করতে থাকে। মালখানাগরের বসু পরিবার, শ্রীনগরের গুহ এবং কাঠালিয়ার দত্তগণ ঐ সময় এসে বসবায় করে।

বিক্রমপুরের দক্ষিণ পূর্বে চাঁদরায় কেদাররায়ের রাজধানী শ্রীপুর অবস্থিত ছিল। পরে পদ্মায় ভেঙে যায় এবং বাকী অংশ রাজাবাড়ী নামে পরিচয় লাভ করে। পরে রাজবাড়ীর মঠও তলিয়ে যায়। কেদাররায় বিক্রমপুর ও কার্তিকপুর এই উভয় পরগণার মধ্যস্থলে একটি বৃহৎ বাড়ী নির্মাণ করার জন্য ইট, সুরকী সংগ্রহ করেছিল। কিন্তু অট্টালিকার মূলভিত্তি স্থাপন করা হলেও উহার কাজ শেষ করে যেতে পারেনি। তখন থেকেই প্রজাসাধারণ ঐ স্থানকে কেদারপুর বা কেদারবাড়ী বলে পরিচয় দিত।

পূর্বে বিক্রমপুরের মধ্যদিয়ে কালীগঙ্গা নদীর স্রোত প্রবাহিত ছিল। তখ কালীগঙ্গা বিক্রমপুরের নানাস্থানে নানা নামে অভিহিত হত। কোথাও কাথারিয়া কোথাও বা কালীগঙ্গা নামে ডাকা হত। এই কালী গঙ্গার তটদেশেই চাঁদরায় ও কেদারারায় ঐশ্বর্যশালী শ্রীপুর নগরী অবস্থিত ছিল। কোটীশ্বর নামক পল্লীতে তখন অসংখ্য সুন্দর সুন্দর দেবমন্দির শোভা পেত এবং সুউচ্চ সবুজ বৃক্ষ দাঁড়িয়ে রাজকীয় অনুভহতির পরিচয় বহন করতো। এই কোটীশ্বর পল্লীতেই দশমহাবিদ্যা এবং সুবর্ণনির্মিত দশভুক্তা দুর্গা মূর্তি প্রতিষ্ঠিত ছিল। আজ আর সেই স্বর্ণময়ী শ্রীপুর নগরীর অসিত্মত্ব টিকে নেই। কেদাররায় ও চাঁদরায়ের অমরকীর্তি ধ্বংস করেই পদ্মা কালিগঙ্গা নামে পরিচয় লাভ করেছে। ভট্ট কবিরা শত বছর আগেও পূজা পার্বণে গান করত

‘‘চাঁদ কেদাররায়ের কীর্ত্তি চমৎকার
ভেঙ্গে নিল কোটীশ্বর,
গোবিন্দ মঙ্গল, সোনার দেউল
খাকুটিয়ালি গ্রাম বহুতর।’’

বিক্রমপুরে কেদারায়ের ‘‘কাচকীর দরজা’’ জনসাধারণের কল্যাণে নির্মাণ করা হয়। ইদিলপুরের বুড়ীর হাট থেকে আরাম্ভ করে এই রাস্তাটি বিভিন্ন গ্রাম ঘুরে ধলেশ্বরীর নদীর তট পর্যন্ত বিস্তৃত। রাজবাড়ীর এই মাইল উত্তরে প্রায় আধা মাইল দীর্ঘ ও পোয়ামাইল প্রশস্ত কেশার মার দীঘি অবস্থিত। বিক্রমপুর অঞ্চলে কেশার মার দীঘি সম্পর্কে একটি জনশ্রুতি থেকে জানা যায় – রাজা কেদাররায় প্রজাসাধারণের কল্যাণে উক্ত দীঘি খননকালে পানি উথিত না হলে সবাই অবাক ও হতবিহবল হয়ে পড়েন। ঐ দিনই রাতে কেদার স্বপ্নে নির্দেশ পেলেন যে তার ধাত্রীমাতার গর্ভপ্রসূত পুত্র কেশা দীঘির মাঝপথ দিয়ে অশ্বারোহেণ করলে দীঘির চারদিক থেকে পানি ধারা বেরুতে থাকে ফলে কেশা পানিতে ডুবে মারা যায়। কেশার মা পুত্রের শোচনীয় মৃত্যু সংবাদ পেয়ে শোকবিহবল চিত্তে কেশা কেশা চিৎকার করে সেই দীঘির প্রবল ধারায় ঝাঁপিয়ে পড়ে মারা যায়। পুত্র ও মায়ের এই মর্মান্তিক আত্মবির্সজনের ঘটনায় প্রজাকুল বিস্মৃত হয়ে এই দীঘির নামকরণ করেন কেশার মার দীঘি।

কেদাররায়ের চাঁদরায়ের পরাজয়ের পর বিক্রমপুর মোগলদের দখলে চলে যায়। তখন থেকেই বিক্রমপুরে মগদস্যুদের বর্বরতা বেড়ে চলে।

লেখক, গৌতম ব্যানার্জী। দপ্তর সম্পাদক, বাংলাদেশ কৃষকলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি। এ প্রতিবেদনটি অধুনালুপ্ত দৈনিক বাংলার বাণী পত্রিকায় ১৯৯৩ সালের ২৮ মে থেকে ধারাবাহিকভাবে প্রকাশিত হয়। জনাব, গৌতম ব্যানার্জী মুন্সীগঞ্জ জেলার প্রথম অনলাইন পত্রিকা ‘মুন্সীগঞ্জ নিউজ ডটকম’ এ প্রতিবেদনটি পুন:প্রকাশের অনুমতি প্রদান করায় মুন্সীগঞ্জ নিউজ ডটকম পরিবারের পক্ষ থেকে তাকে অভিবাদন জানাই।

Leave a Reply