নিখোঁজ শ্রমিক জামালের বস্তাবন্দি লাশ ৯ দিন পর উদ্ধার

কাজী দীপু মুন্সীগঞ্জ থেকে : মুন্সীগঞ্জের ধলেশ্বরীতে বালু মহালের টাকা আদায়কারী নিখোঁজ জামাল হোসেনের বস্তাবন্দি লাশ রোববার রাতে নারায়নগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার শম্ভুপুরা এলাকায় উদ্ধার করা হয়েছে। নিখোঁজের ৯ দিনের মাথায় শম্ভুপুরা এলাকায় মেঘনা নদীর পাড়ে বস্তাবন্দি জামালের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। গতকাল সোমবার ময়নাতদন্ত শেষে জামালের লাশ সামাজিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। এছাড়া নিখোঁজ হওয়ার পর দায়ের করা অপহরন মামলা হত্যা মামলায় রুপান্তর করতে প্রক্রিয়া শুরু করেছে পুলিশ। তবে পুলিশ এই হত্যার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেফতারের ব্যর্থতার পরিচয় দিচ্ছে। আসামীদের সনাক্ত করে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলে জানিয়েছেন তদন্ত কর্মকর্তা এস আই মিজান।

নিহত জামালের পরিবারের অভিযোগ, গত ১৪ অক্টোবর রাত ১২ টার দিকে বালু মহালের ইজারাদারের পক্ষে টাকা আদায়কারী জামালকে ভলগেটের শ্রমিকরা পিটিয়ে হত্যার পর তার লাশ গুম করে। এ ঘটনায় ১৫ অক্টোবর চালকসহ অজ্ঞাতনামা ৫ ভলগেট শ্রমিককে আসামী করে নিহতের ভাই রতন বাদী হয়ে মুন্সীগঞ্জ থানায় অপহরন মামলা করেন। এতে মামা-ভাগ্নে নামের ভলগেট আটক করলেও ঘাতক শ্রমিকদের গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

নিহতের এলাকার বাসিন্দারা জানায়, নিহত জামাল হোসেন শহরের উত্তর ইসলামপুরের মৃত ফুঁলচান মাদবরের ছেলে। সে মাত্র ৫ মাস আগে সদরের এনায়েতনগর গ্রামের শাহ আলম খানের মেয়ে পান্নাকে বিয়ে করেন। মাত্র দেড় মাস আগে আনুষ্ঠানিক ভাবে নববধূকে ঘরে তুলে আনেন। স্বামীকে হারিয়ে এখন নববধূ পান্না পাগল প্রায়। ছেলের লাশ পাওয়ার পর থেকে মা সালেহা বেগম কান্নায় ভেঙ্গে পড়েছেন। বার বার তিনি মুর্চ্ছা যাচ্ছেন।

উল্লেখ্য, গত ১৪ অক্টোবর রাতে ধলেশ্বরী নদীর বালু মহালের টাকা উত্তোলনে নিজ বাড়ি থেকে বের হন জামাল। নদীতে টাকা আদায় নিয়ে ভলগেট শ্রমিকদের সঙ্গে টাকা আদায়কারীদের সংঘর্ষের সময় বলগেট শ্রমিকারা জামালকে বেদম মারধর করে অপহরন করে নিয়ে যায়। এরপর থেকে সে নিখোঁজ হয়ে পড়ে। #

Leave a Reply