পদ্মা সেতুর গাইড বাঁধের উপর বালু চরে সরিয়ে নেয়া হচ্ছে মাওয়া লঞ্চ ঘাট

নিরাপত্তাঝুঁকিসহ দক্ষিনবঙ্গের যাত্রীদের পোহাতে হতে পারে চরম দুর্ভোগ
মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সীগঞ্জ থেকে : পদ্মা সেতুর গাইড বাঁধের উপর বালুর চরে সরিয়ে নেয়া হচ্ছে ঢাকা-মাওয়া-খুলনা মহাসড়কের মাওয়া ঘাটের স্থায়ী লঞ্চ ঘাট। বর্তমান স্থান থেকে মাওয়া লঞ্চ ঘাট চৌরাস্তায় সড়িয়ে নেয়ার এ সিদ্ধান্তে দক্ষিন বঙ্গের ২১ জেলার যাত্রীরা চরম দুর্ভোগ ও নিরাপত্তা ঝুকিতে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। বালু চর এলাকায় বর্তমান লঞ্চ ঘাট স্থানান্তরিত করার সিদ্ধান্তে হযবরল অবস্থা তৈরী হবার আশঙ্কা কার হচ্ছে মাওয়া চৌরাস্তায়। এতে করে আসন্ন ঈদে ঘরমুখো দূর পাল্লার হাজার হাজার যাত্রীরা মহা বিপাকে পড়বে বলে স্থানীয় একাধিক সূত্র দাবি করছে। এসব যাত্রীদের দীর্ঘ পথ পায়ে হেটে ধুলোবালির পথ পেড়িয়ে লঞ্চে গিয়ে উঠতে হবে। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অনুমতি না নিয়ে পদ্মা সেতুর অধিগ্রহনকৃত এলাকায় এ লঞ্চ ঘাট সড়িয়ে আনায় পদ্মা সেতুর কাজ বাধাগ্রস্ত হবার সম্ভাবনা রয়েছে। এ নিয়ে রোববার পদ্মা সেতু কর্তৃপক্ষ নৌ মন্ত্রণালয়ের সচিবের সাথে আলাপ করে তাদের আপত্তির কথা জানিয়েছে বলে একটি সূত্রে জানা যায়।

জানা যায়, গত কয়েক দিন পূর্বে নৌ মন্ত্রনালয়ে এক বৈঠকে হঠাৎ করে মাওয়া স্থায়ী লঞ্চ ঘাটকে প্রায় দেড় কি.মি. অদূরে মাওয়া চৌরাস্তা সংলগ্ন নদীর পাড় এলাকায় বালু চরে স্থায়ী ভিত্তিতে সরিয়ে নেয়ার সিদ্ধান্তে কাজ শুরু হয়েছে। মাওয়া ১নং ও ২ নং ফেরি ঘাটে ফেরি পারাপারে বিঘিœত হওয়াসহ যানজটের কারণে স্থায়ী লঞ্চ ঘাটটি সরিয়ে নেয়ার সিদ্ধান্ত নিলেও পরিকল্পনাহীনভাবে যে স্থানটিতে ঘাট সরিয়ে নেয়া হচ্ছে, তাতে আসন্ন ঈদে মাওয়া চৌরাস্তায় হযবরল অবস্থার সৃষ্টি হতে পারে বলে সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র দাবি করেছে।

সূত্রমতে , লঞ্চ ঘাট চৌরাস্তায় সড়িয়ে আনা হলে তখন ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের লোকাল ও কাউন্টার সার্ভিস পরিবহনসহ সর্বমোট ৩ শতাধিক যাবাহন মাওয়া চৌরাস্তায় সরে আসবে। এর ফলে এ অধিক সংখ্যক যানবাহন চৌরস্তায় স্থান সংকুলান না হওয়ায় এসব যানবাহন সড়কেই অবস্থান করবে। এসব গাড়ী বালু চরে অবস্থান না করলে মাওয়া চৌরাস্তার গোল চক্করে ফেরিপারাপারের গাড়ীসহ চুর্তুমুখী যানচলাচলে নিয়ন্ত্রণহীন যনজাট সৃষ্টি হবে। এসময় দূরপাল্লার যানবাহনও চৌরাস্তার গোল চক্করে যানজটে ঘন্টার পর ঘন্টা আটকে থাকরে। এতে যাত্রী দুর্ভোগ চরম আকার ধারণ করবে।

ঈদের সময় ঢাকা-মাওয়া রুটের ঘরমুখো দক্ষিনবঙ্গের লোকাল যাত্রীরা বালু চরের নতুন লঞ্চ ঘাটে আসতে খান বাড়ি স্থান থেকে প্রায় দেড় কি.মি. পায়ে হেটে চলার সময় ধুলোবালিতে মারাত্মক ভোগান্তি শিকার হবে। এসময়ে রাতের যাত্রীরা ঈদ ছাড়াও সারা বছর চরম নিরাপত্তা ঝুকিতে পড়বে। শিকার হতে পারে ছিনতাই ও লুন্ঠনের। কারণ বালু চরের ওই স্থানটিতে ঈদের সময় নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকলেও অন্ধকারে ছিনতাই ও লুন্ঠনের মত ঘটনা উড়িয়ে দেবার মত নয়। স্থানীয় পায়খানা ও খাবার দাবারের ব্যবস্থা ব্যবস্থা না থাকায় যাত্রীদের স্বাস্থ্য ঝুকিতে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। তাছাড়া সামান্য বৃষ্টিতে কাদায় ব্যাগ ও ব্যাগেজ নিয়ে যাত্রীদের পড়তে হবে এক অসহনীয় অবস্থায়।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, যে স্থানটিতে লঞ্চ ঘাট স্থানান্তর করা হচ্ছে সে স্থানটি সারা বছর লঞ্চ চলাচলের জন্য মোটেই উপযোগী নয়। শুস্ক মৌসুমে এখানে একে বারেই পানি থাকে না। আবার বর্ষায় পদ্মার এ বালু চরটি পানিতে তলিয়ে যায়। তাছাড়া স্থানটি পদ্মা সেতুর গাইড বাধের অধিগ্রহনকৃত জায়গায় হওয়ায় এটি কোন স্থায়ী লঞ্চ ঘাট হতে পারে না । যে কোন সময় পদ্মা সেতু কর্তৃপক্ষ এতে আপত্তি করলে লঞ্চ ঘাট সড়িয়ে নিতে হবে।

আরো জানা গেছে, পদ্মাবহুমুখী সেতু নির্মাণ প্রকল্পের জন্য অধিগ্রহনকৃত গাইড বাঁধের জায়গার উপর দিয়ে মাওয়া স্থানান্তরিত লঞ্চ ঘাটের জন্য মাটি ফেলে লঞ্চ ঘাট তৈরী করায় পদ্মা সেতু প্রকল্পের কাজ হুমকির মধ্যে পড়বে। সেতু কর্তৃপক্ষের সাথে কোন প্রকার আলাপ আলোচনা না করেই এখানে লঞ্চ ঘাট তৈরীর সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিআইডব্লিউটিএ।পদ্মা সেতু রেস্ট হাউজ থেকে ২শ গজ দক্ষিণন ও নির্মানাধীন কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ডের মাত্র ১ শ গজ পশ্চিমে এ লঞ্চ ঘাট নির্মাণ করা হচ্ছে। এখান দিয়েই পদ্মা সেতুর পিলার শুরু হবে বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

এব্যাপারে পদ্মা বহুমুখী সেতু নির্মাণ প্রকল্পের উপদেষ্টা (পূর্নবাসন) নজিবুর রহমান জানান, যে জায়গাটিতে লঞ্চঘাট হিসেবে ব্যবহারের জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে এটি সেতু বিভাগের সম্পূর্ণ অধিগ্রহনকৃত জায়গা । সেতুর গাইড বাঁধের জন্য নদীর পার ধরে ২ শ, মিটার প্রশস্ত করে ১ নং ফেরি ঘাট পর্যন্ত এ আধিগ্রহন করা হয়েছে। এখানে লঞ্চ ঘাট নির্মাণ করা হলে তা পদ্মা সেতুর নির্মান কাজ বাধাগ্রস্ত হতে পারে বলে তিনি জানান। তাছাড়া এ জায়গাটিতে লঞ্চ ঘাট নির্মাণের জন্য সেতু বিভাগ হতে কোন প্রকার অনুমতিও নেয়া হয়নি।

মাওয়া ঘাটের দীর্ঘ দিনের ওষুধ ব্যবসায়ী জাকির হোসেন সিকদার বাবুল জানান, ঘাটে ফেরি পারাপারের গাড়ীর জন্য বিকল্প বৃহদাকারর পাকিং ইয়ার্ড ও লোকাল যাবাহনের জন্য বিকল্প বাইপাস সড়ক নির্মাণ করা হলেই একই জায়গায় লঞ্চ ও ফেরিঘাট রেখে স্থায়ীভাবে যানজট নিরসন সম্ভব। এ ২টি কাজের জন্য যথেষ্ট পরিমাণ জায়গা বর্তমান মাওয়া ঘাটে রয়েছে। এর এতে করে সরকারের রাজস্ব আয়ও বৃদ্ধি হতে পারে। একই সঙ্গে বিআইডব্লিউএ কতৃপক্ষ বার বার লঞ্চ ঘাট স্থানান্তরিত না করে সরকারের অর্থ সাশ্রয় করতে সক্ষম হবে।

এব্যাপেের বিআইডব্লিউটিএর তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী (পূরকৌশল) মোঃ রাকিব হোসেন জানান, মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এ সপ্তাহের মধ্যেই নতুন লঞ্চ ঘাটটি চালু হবে । এতে করে দুর্ভোগ কমার পাশাপাশি দক্ষিন বঙ্গের যাত্রীদের ১০ টাকা বেচে যাবে। বর্ষা কালে ওই স্থানে ঘাটটি কি করা হবে এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বিকল্প ব্যবস্থা আমরা রেখেছি। বালু চরটি সম্পূর্ন ড্রেজিং করে মহাসড়কের শেষ প্রান্তের সাথে পল্টুনটি সংযুক্ত করে দেয়া হবে। আপাতত মাস ছয়েকের জন্য ঘাটটি স্থানান্তরিত করা হচ্ছে।

মুন্সিগঞ্জ নিউজ

Leave a Reply