হিমাগারে সংরক্ষিত আলু এখনো অবিক্রীত

মহাসংকটে ব্যবসায়ী কৃষক
মাহাবুব আলম লিটন, মুন্সীগঞ্জ: কাঙ্ক্ষিত দাম না পাওয়ায় এবং বাজারে চাহিদা না থাকায় আলু উৎপাদনে সুপরিচিত জেলা মুন্সীগঞ্জের বিভিন্ন হিমাগারে সংরক্ষিত আলু বিক্রি করতে পারছেন না কৃষক ও ব্যবসায়ীরা। জেলার ৬টি উপজেলার মোট ৬৬টি হিমাগারের প্রায় অর্ধেক আলু নিয়ে মহাবিপাকে পড়েছেন হাজার হাজার কৃষক ও ব্যবসায়ীরা বিগত বছরগুলোতে। অক্টোবর মাসের মধ্যে সংরক্ষিত আলুর ৬০-৭০ ভাগ বাজারজাত হয়ে গেলেও এবার হিমাগারের সংরক্ষিত আলুর প্রায় ৫০ ভাগ এখনো অবিক্রিত রয়েছে। এ অবস্থায় হাজার হাজার কৃষক এবং ব্যবসায়ী আলুতে বিনিয়োগকৃত টাকা তুলতে না পেরে মহা সংকটে পড়েছেন। এদিকে আগামী আলু আবাদ মৌসুমের আলুর মূলধনের অভাবে চাষাবাদ করতে পারবেন কিনা এ নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন। অপর দিকে পর্যাপ্ত আলু মজুদ থাকা সত্ত্বেও পার্শ্ববর্তী দেশ থেকে আলু আমদানির পাঁয়তারা শুরু হওয়ায় কৃষকরা তাদের ভবিষ্যৎ নিয়ে মহা শঙ্কায় দিন কাটাচ্ছেন।

আলু চাষি ও সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলাপ কালে জানা গেছে, বর্তমানে ৮০ কেজি প্রতি বস্তা আলু ৭৫০ থেকে ৮০০ টাকায় বিক্রয় হচ্ছে, অথচ এ আলু সংরক্ষণে ব্যয় হয়েছে সবমিলিয়ে ১১০০ টাকা। হিমাগার মালিকদের মতে নিয়মানুযায়ী ৩০ নভেম্বরের মধ্যে হিমাগারে সব আলু বের করে আসন্ন মৌসুমে নুতন আলু সংরক্ষণের প্রস্তুতি নেয়া হয়। নির্দিষ্ট সময়ে আলু বিক্রয় না হলে হিমাগার মালিকরাও ভাড়া না পেয়ে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা করছেন।

চরকিশোরগঞ্জের গিয়াস উদ্দিন, ব্যবসায়ী আবুল হোসেন জানান, বিগত মৌসুমে দেশের সব এলাকায় আলুর চাহিদার চেয়ে বেশি ফলন, হিমাগারে জায়গা না পেয়ে বাড়িতে দেশীয় পদ্ধতিতে সংরক্ষিত আলু ধীরে ধীরে বাজারজাতকরণ, আলুর বহুমাত্রিক ব্যবহার না হওয়া, স্বল্প পরিমাণ আলু বিদেশে রপ্তানির সুযোগ, জেলার ২টি ফ্লেক্স (পাউডার) কারখানা বছরের পর বছর বন্ধ থাকায় আলু বিক্রি কমে যাওয়ার অন্যতম কারণ বলে সংশ্লিষ্টসূত্রে জানা গেছে।

চরঝাপটা এলাকার গোলাম হোসেন জানান, বৌয়ের সোনা-গয়না বন্ধক রেখে কিছু লাভের আশায় জমি বর্গা নিয়ে আবাদ করে উৎপাদিত আলু কোল্ড স্টোরেজে রাখছিলাম। এখন চালান উঠাইতে পারতেছি না। এখন মরণ ছাড়া আর আমগো উপায় নাই। পরিবারের কাছেও মুখ দেখাইতে পারুম না। তিনি হিমাগারের ভাড়া ২৮০ টাকা থেকে ৩০০ টাকা করায় তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

জেলা কৃষি সমপ্রসারণ অধিদফতরের তথ্যানুযায়ী, বিগত মৌসুমে মুন্সীগঞ্জের ৬টি উপজেলায় ৩৮ হাজার ৬৬০ হেক্টর জমিতে আলু আবাদ করে পৌনে ১৩ লাখ মেট্রিক টন আলু উৎপাদিত হয়েছিল। এছাড়া জেলার সচল ৬৬টি হিমাগারে ৪ লাখ ৬৯ হাজার মেট্রিক টন আলু সংরক্ষণ করা হয়েছিল।

এ বিষয়ে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপপরিচালক কৃষিবিদ হাবিবুর রহমান জানান, আলুর দাম কম থাকায় বাড়িতে নিজস্ব পদ্ধতিতে ও কোল্ডস্টোরেজে আলু সংরক্ষণ করা হয়। সরকারিভাবে চালের পাশাপাশি আলুর প্রধান্য দিলে কৃষকরা লোকসান থেকে বেঁচে যেত। সরকারি মূল্যে রেশনের মাধ্যমে আলু বিক্রি করা যেতে পারলে সমস্যার ভয়াবহতা লাঘব করা যেত। উৎপাদন বেশি হওয়া এবং দাম কমে যাওয়ার ফলেই কোল্ডস্টোরেজে এখনো ৫০% আলু অবিক্রীত অবস্থায় পড়ে রয়েছে। সরকারিভাবে বিক্রি করার উদ্যোগ নিলে দ্রুত কোল্ডস্টোরেজের আলু বিক্রি হবে এবং আলুচাষি ও ব্যবসায়ীদের লোকসান কিছুটা হলেও কম হবে বলে তিনি মত প্রকাশ করেন।

সংবাদ

Leave a Reply