বিস্ফোরণ তো বটেই, কিন্তু তার পরে?

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী
মানুষ যে সুখে নেই সেটা তো বোঝাই যাচ্ছে; বাংলাদেশে যে নেই সেটা তো আমাদের নিত্যদিনের অভিজ্ঞতা, দেখা যাচ্ছে পৃথিবীর সর্বত্রই অসুখী মানুষের বিপুল সমাহার। তা মানুষ কবেই বা সুখে ছিল? কিন্তু একটা পার্থক্য আছে। আগের কালের মানুষ শান্ত থাকতো, অর্থাৎ তাদেরকে শান্ত করে রাখা হতো। এখনকার মানুষ সেভাবে থাকতে প্রস্তুত নয়। তারা ক্ষেপে ওঠে, বিক্ষোভে যোগ দেয়। জানিয়ে দেয় যে তারা অসন্তুষ্ট এবং সবচেয়ে বড় কথা তারা আবার একত্র হয়েছে, ওই সত্যটা জানাবার জন্য যে তারা সুখে নেই।

ব্যাপার আরও একটা আছে। সেটা হচ্ছে তুলনা করা। আগের কালে মানুষ এটা করতো না। ভাবতো সবই ভাগ্যের লিখন। কপালে নেই, তাই কষ্টে আছি। আর যারা বড় কপাল নিয়ে এসেছে তারা রয়েছে মহাসুখে। খেয়াল করতো না এটাও যে, যারা মহাসুখে আছে, তাদের সংখ্যা নিতান্ত অল্প, আর যারা অসুখী তাদের গণনা করা কঠিন, এখন বিপুল তাদের আধিক্য। সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার অবশ্য এটাই যে, মহাসুখীদের সুখের ভিত্তিটা হলো অসুখীদের বঞ্চনা। যারা তথাকথিত ভাগ্য বিড়ম্বিত তাদেরকে বঞ্চিত করেই সুখীরা নিজেদের ভাগ্য গড়েছে, এবং ক্রমাগত সুখী হয়ে উঠেছে।

এটা হচ্ছে ‘অবাধ’ তথ্যপ্রবাহের যুগ। কিন্তু তথ্যের এই প্রবাহ বঞ্চনার সত্যকে প্রকাশ হতে দেয় না, চেপে রাখে। যদি বিক্ষোভ দেখা দেয় কোথাও তার খবরও প্রকাশিত হয় না, অবরুদ্ধদশাতে ছটফট করতে থাকে, তার পরে একসময়ে মিইয়ে যায়। কিন্তু এখন সেটা আর সম্ভব হচ্ছে না। সামাজিক যোগাযোগের একটা ব্যবস্থা গড়ে উঠেছে, ফেসবুক, ইন্টারনেট, মোবাইল ফোন, বিদেশী বেতার ইত্যাদির মধ্য দিয়ে। জনমাধ্যম মহাসুখীদের করতলগত ঠিকই, কিন্তু এ সোসাল নেটওয়ার্কিংটা পৃথিবীব্যাপী অসন্তুষ্ট সাধারণ মানুষদের হাতের মুঠোর ভেতরই এসে গেছে। ফলে চেপে রাখতে গেলেও চেপে রাখা যাচ্ছে না। অন্যদিকে আবার জনমাধ্যমের প্রতিযোগিতাও রয়েছে। তারা কেউ কাউকে বিশ্বাস করে না, কে কখন খবর ফাঁস করে দেয় ঠিক নেই; তাছাড়া খবর যদি বড় হয়, তাহলে সেটাকে জানাতে না-পারলে বিশ্বাসযোগ্যতা হারাতে হবে। লোকে নেবে না। দাম পড়ে যাবে।

জনঅসন্তোষের প্রকাশ ঘটেছে নিউইয়র্কে। নিউইয়র্ক আক্রান্ত হয়েছে। সমগ্র নিউইয়র্ক নয়, তবে তার অর্থনৈতিক প্রাণকেন্দ্র যে ওয়াল স্ট্রিট, আক্রমণটা এসেছে তার ওপরই। ওয়াল স্ট্রিট কেবল নিউইয়র্কেরই নয়, সমগ্র যুক্তরাষ্ট্রেরই অর্থনৈতিক নিয়ন্ত্রণ কক্ষ এবং বিশ্ববাণিজ্যেরও কেন্দ্রীয় দফতর বটে। এর আগে নিউইয়র্কেরই টুইন টাওয়ারের ওপর যে আক্রমণটি হয়েছিল সেটি থেকে এটি আলাদা। কারা যে সেটি ঘটিয়েছিল তা স্পষ্ট করে বোঝা যায়নি, আক্রমণকারীরা উড়োজাহাজে করে এসেছিল, বলা হয়েছিল তারা চরমপন্থী জঙ্গি, আল-কায়দার সদস্য; তাদের সঙ্গে ভেতরের কারও যোগাযোগ ছিল কিনা, থাকলে তারা কারা, এসব প্রশ্ন উঠেছিল, যেসবের মীমাংসা এখনও হয়নি। রহস্য রহস্যই রয়ে গেছে, হয়তো-বা ইচ্ছা করেই তাকে অস্পষ্ট করে রাখা হয়েছে, এই বিবেচনায় যে, ফাঁস হয়ে গেলে বিপদ হতে পারে।

কিন্তু এই ২০১১ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর ‘ওয়াল স্ট্রিট দখল করো’ ধ্বনি দিয়ে যে অভিযান শুরু হয়েছে সেখানে কোনো রহস্য নেই। কাজটা কারা করছে সেটা পরিষ্কার, কেন করছে তাও অজানা নয়। করছে খোদ আমেরিকানরাই এবং তার পেছনের কারণ তথাকথিত জেহাদ নয়, সেটি হচ্ছে শোষণ ও বঞ্চনা। যারা পথে বেরিয়ে এসেছেন, তাঁবু খাটিয়ে দিনের পর দিন অবস্থান ও বিক্ষোভ জানাচ্ছেন তাঁদের বক্তব্য, আমরাই সমাজের নিরানব্বই জন, একজন কেন আমাদের সবাইকে ছাড়িয়ে উঠবে, ধনী হবে, শোষণ করবে? ওয়াল স্ট্রিটের দেয়াল একদিন খাড়া করা হয়েছিল আমেরিকার আদিবাসীদের হাত থেকে শহরকে রক্ষা করার জন্য। আজ আদিবাসীরা নয়, সভ্য আমেরিকানরাই ওয়াল স্ট্রিট দখলে নেবে বলছে, পারলে ভেঙেই ফেলবে।

কেবল ওয়াল স্ট্রিট বলে নয়, তারা দখলে নিতে চায় গোটা আমেরিকাকেই। পেছনের কারণ একই, শোষণ ও বঞ্চনা।

টুইন টাওয়ারের ওপর আক্রমণকে অজুহাত হিসেবে দাঁড় করিয়ে জর্জ বুশ সুন্দরভাবে তাঁর কাজটা হাসিল করেছেন, আফগানিস্তান ও ইরাক দখল করে ফেলেছেন, গণতন্ত্রের স্বার্থে নয়, তেল ও খনিজ সম্পদের লোভে। তার উত্তরসূরি বেচারা ওবামা ওয়াল স্ট্রিটের আক্রমণকে যে তেমন কাজে ব্যবহার করবেন তার কোনো উপায় নেই। কেননা যারা বিক্ষোভ করছে তাদেরকে আল-কায়দা বলে চিহ্নিত করবার কোনো প্রকার অজুহাত নেই, তাদের বিরুদ্ধে ক্রুসেডের আয়োজন করবেন এমন সুযোগও তিনি পাচ্ছেন না। জর্জ বুশরা আমেরিকাবাসীকে ঠাণ্ডা রেখেছে আমেরিকারাই পৃবিথীর সেরা জাতি, ভবিষ্যৎ নিয়ে তাদের কোনো দুশ্চিন্তা করার প্রয়োজন নেই, কেননা দেশের ভেতরে সম্পদ তো আছেই, দখল করবার জন্য খোলা রয়েছে সমগ্র বিশ্ব, এসব বাণী শুনিয়ে। ওসব কথায় এখন আর চিড়ে ভিজবে না, কেননা সাফল্যের আমেরিকান ড্রিমের পুরানো বেলুন এখন চুপসে গেছে।

নির্বাচনের আগে ওবামা প্রতিশ্র“তি দিয়েছিলেন তিনি থাকবেন নিরানব্বই জনের সঙ্গে, একজনের সঙ্গে নয়। একজন মুনাফা করবে, ভোগবিলাসে জীবন কাটাবে, আর বাকিরা সবাই কম বেশী কষ্টে থাকবে এমনটা হতে দেবেন না। চেষ্টা করেছিলেন ধনীদের ওপর কর বাড়াবেন, সরকারী ব্যয় বৃদ্ধি করবেন, আশা করেছিলেন বিনিয়োগ বাড়ালে বেকার সমস্যা কমে আসবে। পারেননি। ধনীরা সেটা হতে দেয়নি। যার ফলে ধরা পড়ে গেছে যে তিনিও আসলে ধনীদেরই সেবক, যদিও ভান করেছিলেন ভিন্ন প্রকারের। তাঁর জনপ্রিয়তা এখন ক্রমাগত কমছে।

বিক্ষোভ আমেরিকায় আগেও হয়েছে। ষাটের দশকে ভিয়েতনাম যুদ্ধবিরোধী বিক্ষোভে আমেরিকা কেঁপে উঠেছিল। কিন্তু সেটা ছিল বাইরের ঘটনার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ, এবারকার ফুঁসে ওঠাটা কোনো একটি ঘটনার বিরুদ্ধে নয়, এ হচ্ছে খোদ পুঁজিবাদের বিরুদ্ধে, যে পুঁজিবাদের ওপর আমেরিকার রাষ্ট্র ও সমাজব্যবস্থা ভর করে টিকে আছে। এই বিক্ষোভে যুবক, ছাত্র, গৃহিণী, শ্রমিক, শিল্পী, প্রবীণÑ সবাই এসেছে। কারণ অভাব ও অনটনে অধিকাংশ মানুষই এখন চতুর্দিকে অন্ধকার দেখছে।

এক শহর থেকে আরেক শহরে ক্ষুব্ধ মানুষের অসন্তোষের মূর্ত প্রকাশ ছড়িয়ে পড়ছে। ধারণা করা হচ্ছে ৮২টি দেশের ১,০৫১টি শহরে ইতিমধ্যেই মানুষ রাস্তায় নেমে এসেছে।

নানা ধরনের অস্পষ্ট বক্তব্য পাওয়া যাচ্ছে। বলা হচ্ছে বাজার অর্থনীতি, মুনাফালোলুপতা, কর্পোরেট পুঁজির দৌরাÍ্য, ব্যাঙ্কওয়ালাদের দুর্নীতি, ভোগবাদীদের লালসা, এসব কারণে মানুষ ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেছে। সবগুলোই সত্য। কিন্তু সমস্ত কিছুকে জড়িয়ে ধরে আছে একটি অভিন্ন বড় সত্য সেটা হল পুঁজিবাদ। এই সত্যটাকে আচ্ছাদিত রাখতে পুঁজিবাদীরা নিজেরা এবং তাদের নিয়ন্ত্রিত মিডিয়া অত্যন্ত উৎসাহিত। কিন্তু এবার আর আচ্ছাদনটা টেকেনি। মূল সমস্যা যে পুঁজিবাদই, অন্য সবকিছু যে তারই দোসর ও অনুষঙ্গ তা ধরা পড়ে গেছে। যে বিক্ষোভ এখন বিশ্বব্যাপী সেটা যে পুঁজিবাদবিরোধী তা আর লুকানো থাকছে না।

আমেরিকার বিক্ষোভকারীরা বলছেন, অনুপ্রেরণাটা তারা পেয়েছেন আরব বিশ্বের ‘বিপ্লব’ থেকে। ইতিহাসের এটি একটি পরিহাস বলে মনে হয়। কেননা যে আরবদেরকে এতদিন বলা হতো মূর্খ, পশ্চাৎপদ, যাদের বিরুদ্ধে ক্রুসেড ঘোষণা করা হয়েছিল, তারাই শেষ পর্যন্ত হয়ে দাঁড়ালেন সুসভ্য আমেরিকা ইউরোপের শিক্ষক! লন্ডনেও বিক্ষোভ হয়েছে, না হয়ে উপায় ছিল না। কিন্তু সেখানে অভূতপূর্ব এক ঘটনা ঘটেছে। লন্ডনের সবচেয়ে প্রাচীন ও বৃহৎ যে গির্জা, সেন্ট পলস ক্যাথিড্রাল, সেটির দরজা বন্ধ করে দিতে হয়েছে। ষাট বছর আগে ওই গির্জার দরজা একবার চারদিনের জন্য রুদ্ধ ছিল, জার্মানদের বিমান আক্রমণের ভয়ে। এবার তা বন্ধ করা হলো কোনো বিদেশী শত্র“র নয়, স্থানীয় বিক্ষোভকারীদের ভয়ে। পাশের রাস্তার ওপরে দিনের পর দিন যারা তাঁবু করে থাকছে, তাদের ওপর আস্থা রাখা যাচ্ছে না কিছুতেই। ওদেরকে নাৎসী জার্মান বা ইসলামী জঙ্গী বলা যাবে না, মুস্কিল সেখানেও। কিন্তু প্রশ্ন হলো এই যে অভ্যুত্থান এর পরিণতিটা কী দাঁড়াবে? বিক্ষোভকারীরা সেটা জানেন না, তাদেরকে সে নিয়ে ভাবতে দেয়া হয়নি, সকলকে পরস্পর বিচ্ছিন্ন ভোগবাদী প্রাণীতে পরিণত করে সন্তুষ্ট রাখার চেষ্টা চলছিল; যুক্ত হওয়া, সংগঠন গড়া এসব ছিল নিষিদ্ধ। এরা, পুঁজিবাদ চান না, কিন্তু কি চান? সমাজ বিপ্লব? হয়তো বলবেন, হ্যাঁ, কিন্তু সে বিপ্লবের পথটা কি, গন্তব্যই বা কোনদিকে সেটা অধিকাংশের পক্ষেই বলা সম্ভব নয়। আরব বিশ্বে যেটা ঘটেছিল সেটা বিস্ফোরণ বটে, মোটেই বিপ্লব নয়। সেখানে পুরানো শক্তি এখন নতুন চেহারায় ফিরে আসছে। কারণটা অস্পষ্ট নয়। সেটি হলো পুঁজিবাদকে ভেঙে যে গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা গড়ে তোলা দরকার তার জন্য কোনো সাংগঠনিক ও রাজনৈতিক প্রস্তুতি ছিল না, এখনো নেই।

নিউইয়র্কে বিক্ষোভকারীদের কেউ কেউ দেখা গেল গান্ধীজিকে স্মরণ করেছেন। তার একটি উক্তিকে প্ল্যাকার্ডে লিখে বুকের কাছে তুলে ধরেছেন। গান্ধী তাতে বলছেন প্রথমে ওরা তোমাদেরকে উপেক্ষা করবে, তারপরে ঠাট্টা করবে, এরপরে আঘাত করবে, শেষে তোমরাই জয়ী হবে। সেটা সত্য। জয় অবশ্যম্ভাবী। কিন্তু তার জন্য বিস্ফোরণকে সামাজিক বিপ্লবে পরিণত করা চাই, যার জন্য কেবল স্বতঃস্ফূর্ত নয়, সংগঠিত আন্দোলন প্রয়োজন হবে। নিউইয়র্কে বিক্ষোভকারীরা বলেছেন, আমাদের স্বপ্নকে হত্যা করো না। বলার অপেক্ষা রাখে না যে, এই স্বপ্ন পুঁজিবাদী নয়, এই স্বপ্ন পুঁজিবাদের দৈত্যের যে নিষ্ঠুর আবেষ্টন তা থেকে মুক্তির।

বিক্ষোভ বাংলাদেশেও হচ্ছে বৈকি। খবরে দেখলাম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সন্ত্রাসবিরোধী রাজু ভাস্কর্যে এক সংহতি সমাবেশের মাধ্যমে একদল তরুণ আন্দোলনের সূত্রপাত করেছে। একটি দৈনিক লিখেছে যে, যখন ওই আন্দোলনের সূচনা ঘটছিল তার কয়েক ঘণ্টা পরেই ওই শাহবাগ এলাকাতেই ঢাকা ক্লাবের একশত বর্ষপূর্তির উদযাপন উপলক্ষে আতশবাজি পোড়ানো হচ্ছিল। সেই একই বৈপরীত্য। একদিকে একজন, বিপরীতে নিরানব্বই জন। ঢাকা ক্লাব ধনীদের বৈঠকখানা, আগেও ছিল, এখনও আছে। যদিও গত একশ’ বছরে এই ধনীদের পরিচয় পাল্টেছেÑ এককালে তারা ছিল ইংরেজ। পরে হল পাকিস্তানি, এখন হয়েছে বাঙালী। ধনী ও দরিদ্র এখন বিশ্বব্যাপী পরস্পরের মুখোমুখি হচ্ছে, বাংলাদেশেও হবে বৈকি।

শেয়ার মার্কেটে সর্বস্ব হারিয়ে যে শত শত মানুষ বিক্ষোভ করছেন তাঁরাও পুঁজিবাদের বিরুদ্ধেই অবস্থান নিয়েছেন। কিন্তু পুঁজিবাদের পতন তো নিজেদের পুঁজিবাদী হবার স্বপ্ন দিয়ে ঘটানো যাবে না; সে জন্য যা দরকার হবে তা হলো, সমষ্টিগত মুক্তি যার জন্য এদেশের মানুষ বহুকাল ধরে লড়ছে, লড়েছে একাত্তরেও। কিন্তু সাফল্য আসেনি। কেননা মুক্তির স্বপ্নকে বাস্তবায়িত করার রাজনৈতিক লড়াইটাকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া সম্ভব হয়নি। ওই একই অভিজ্ঞতা পুঁজিবাদের হাতে নিগৃহীত বিশ্বের সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষের। কিন্তু আবারো স্মরণ করা আবশ্যক যে বিস্ফোরণে লক্ষ্য অর্জিত হবে না, প্রয়োজন হবে সচেতন, সংগঠিত ও ধারাবাহিক আন্দোলন। বাংলাদেশের জন্য যা সত্য, সত্য তা সারা বিশ্বের জন্যই।

এক কথায় বলতে গেলে, বিস্ফোরণকে বিপ্লবে পরিণত করতে না পারলে পরিণতি যে সংস্কারের অধিক কিছু হবে না, তার প্রমাণ তো মধ্যপ্রাচ্যে ইতিমধ্যে দেখা গেছে। আরব বিদ্রোহের সূচনা যে তিউনিসিয়াতে, শাসক শ্রেণী সেখানে দ্রুতগতিতে নির্বাচন দিয়ে দিয়েছে। নির্বাচনে ইসলামপন্থী যে দলটি এতকাল নিষিদ্ধ ছিল সেটাই সংখ্যাধিক্য লাভ করেছে। ওদিকে মিশরে ক্ষমতা চলে গেছে সেনাবাহিনীর হাতে এবং মুসলিম ব্রাদার হুড দৃশ্যমান হয়ে উঠেছে। বাংলাদেশেও তো আমরা তেমনটাই দেখেছি। মুক্তিযুদ্ধ করেছে জনগণ, সুবিধা হয়েছে ধনী ও নব্যধনীদের, যারা লুণ্ঠন ও চৌর্যবৃত্তিতে লিপ্ত।

যেটা প্রয়োজন সেটা হলো গণতান্ত্রিক সমাজ ও রাষ্ট্র। তার জন্য বিস্ফোরণ যথেষ্ট নয়, দরকার সামাজিক বিপ্লব। তাই বলে পুঁজিবাদের মুখোশটা যে এখন খসে পড়ছে, তাকে যে শত্র“ বলে মানুষ চিনতে পারছে, এই অগ্রগতিটা মোটেই সামান্য নয়। এই ভীষণ দুঃসময়ে এটি আশার আলো বৈকি।

ভোরের কাগজ

Leave a Reply