সাহিত্য সংস্কৃতি শিক্ষার অগ্রদূত সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী প্রবন্ধ প্রসঙ্গে

২০১১ সালের ২৮ অক্টোবর সংখ্যা দৈনিক যায়যায়দিনের সাহিত্য পাতায় কথাশিল্পী সালাম সালেহ উদদীন লিখেছেন ‘সাহিত্য সংস্কৃতি শিক্ষার অগ্রদূত সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী’ প্রবন্ধটি। অনতিদীর্ঘ এ লেখাটি গভীর মনোযোগ দিয়ে পড়েছি। খুব ভালো লেগেছে এবং নির্দোষ তৃপ্তি পেয়েছি লেখাটি পড়ে। সালামের প্রবন্ধ লেখার পরিচ্ছন্ন স্টাইল আমার ভালো লাগে।

সালাম সালেহ উদদীনকে আন্তরিক কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি ড. সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর মতো একজন মহৎ, চিন্তাশীল, মননশীল, মানবতন্ত্রী লেখকের ওপর লেখার জন্য। চৌধুরী আমারও প্রিয় লেখক। আমার চেতনাকে শানিত করেছে তার ‘গাছ পাথর’ কলাম। সালাম ড. চৌধুরীর সামাজিক অঙ্গীকারের দিকটি মনোজ্ঞ ভঙ্গিতে বিশ্লেষণ করেছেন। সমাজতান্ত্রিক রাষ্ট্রগুলো ধসে যাওয়ার মুহূর্তেও অনড় আছেন ড. চৌধুরী এই বিশ্বাসে যে, ‘সমাজ পরিবর্তন হবেই’। একজন ক্ষুদ্র লেখক হিসেবে আমি এ পর্যন্ত যত প্রবন্ধ ও কলাম লিখেছি, তার মধ্যে ড. চৌধুরীর উদ্ধৃতি ব্যবহার করেছি বেশি। এটা আমার মূল্যবোধ থেকেই উৎসারিত। আমি যখন আবদুল গাফ্ফার চৌধুরীর ওপর বই লিখি, এখন তার ‘পঁচাত্তরের রক্ত পলাশ’ বইতে ড. চৌধুরীর ওপর যে মন্তব্য পেয়েছি, সেটাই ড. সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর সম্পর্কে যথার্থ মূল্যায়ন, আমার মতে।

তিনি বলেছেন, ‘বঙ্গবন্ধুর যারা করুণা পেয়েছেন তারা হয়েছেন মস্কোপন্থী বুদ্ধিজীবী, আর যারা করুণা পাননি তারা হয়েছে চীনপন্থী। সিরাজ এর কোনোটার মধ্যেই নেই।” গাফ্ফার চৌধুরী তার ‘ধীরে বহে বুড়িগঙ্গা’ বইতেও যথেষ্ট গুরুত্ব দিয়ে ড. চৌধুরীকে তার ঘনিষ্ঠ বন্ধু বলে স্মৃতিচারণা করেছেন।

সত্যিকার অর্থে আমি মনীষার মানদ- বিচার করি শিখা গোষ্ঠীর তিনজন লেখকের চিন্তার মাপকাঠিতে কাজী আবদুল ওদুদ, ড. কাজী মোতাহার হোসেন ও মোতাহের হোসেন চৌধুরী। এর পরবর্তী স্তরে আমি ড. আনিসুজ্জামান ও ড. সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীকে মনীষী বলে শ্রদ্ধা করি।

বিদ্যার বাহাদুরিকে মনীষা বলে না মিয়ার বেটা। যদি ড. চৌধুরীর কলম থেকে এই কথা বের হতো, ‘২৬ মার্চকে স্বাধীনতা দিবস বলা যায় না’ ১৯৪৭ সালের ১৪ আগস্ট আমরা স্বাধীন হয়েছি। ভাইয়ে ভাইয়ে পৃথক হওয়াকে স্বাধীনতা বলে না। দ্বিজাতিতত্ত্ব ভিত্তিক পাকিস্তান না হলে বাঙালি জাতীয়তা ভিত্তিক বাংলাদেশ হতো না। ১৯৪৭ সালের ১৪ আগস্ট স্বাধীন হয়েছে মুসলমানরা আর ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর স্বাধীন হয়েছে হিন্দুরা। তাহলে ড. চৌধুরীর প্রতি আর শ্রদ্ধা রাখতে পারতাম না।

আমাদের দু’জন শ্রেষ্ঠ বাঙালি, বঙ্গবন্ধু ও রবীন্দ্রনাথের মূল্যায়ন করেছেন তিনি নির্মোহ দৃষ্টিতে। তবে আমার মনে হয়েছে, রবীন্দ্রনাথের ‘গোরা’ উপন্যাসের আলোচনা করার সময় রবীন্দ্রনাথের ইংরেজ বিরোধিতার প্রখর দিকটি তুলে ধরেননি। শরৎ চন্দ্রের ইংরেজ বিরোধিতার দিকটিও উপেক্ষা করেছেন তিনি। তারা শঙ্করের মধ্যে সাম্রাজ্যবাদের প্রয়োজন থাকলেও গুণগত দিক আর কী আছে, তা খুলে কোথাও বলেননি।

আগাগোড়া তিনি বৈষম্যবিরোধী লেখক। ব্যবস্থার বদল চান মনেপ্রাণে। ব্যবস্থা যদি জোঁক হয়, তাকে বিনাশ করা দরকার না? ড. চৌধুরী শোষণের কলকব্জা বদলাতে চান। তার এই চাওয়ার পক্ষে লিখতে যেতে তিনি বাম মৌলবাদী কিংবা বাম পৗত্তলিক হননি। মানুষের বন্ধু তিনি, বাঙালি তিনি, এমন কি বাঙালও না হলে ইংরেজি সাহিত্যের বিদ্বান হয়েও কোনো গদ্যকে এত আটপৌরে করবেন? তারপর মার্কসবাদী।

তিনি শিখিয়েছেন, রাজা রামমোহন রায়, বিদ্যাসাগর, বঙ্কিমের কতখানি গ্রহণ করতে হবে আর কতটুকু কর্জন করতে হবে।

‘দুই বাঙালির লাহোর যাত্রা’ প্রবন্ধে দেখিয়েছেন শেরেবাংলা ও বঙ্গবন্ধুর সাদৃশ্য ও বৈসাদৃশ্য কোথায়। এটাই মানদন্ড। অন্যসব হয় ভক্তি না হয় বিদ্বেষ।

সালামকে অনেক ধন্যবাদ প্রবন্ধটি লেখার জন্য।

মাহমুদুল বাসার

যায় যায় দিন

Leave a Reply