ইমদাদুল হক মিলনের নূরজাহান

ইফতেখারুল ইসলাম
কাহিনীর বিস্তার, বর্ণনার ব্যাপকতা, চরিত্রসংখ্যা ও তাদের সামগ্রিক সমাজ-পরিচয়, ক্রমবিকাশ ইত্যাদি লক্ষণ বিবেচনায় দীর্ঘ উপন্যাসকে কথাসাহিত্যের প্রায় স্বতন্ত্র একটি উপবিভাগ হিসেবে দেখা যেতে পারে। বাংলা সাহিত্যে দীর্ঘ উপন্যাসের কালজয়ী ঐতিহ্য আছে। গত শতাব্দীর দ্বিতীয়ার্ধে আমরা এ রকম উপন্যাসে উৎকর্ষের শীর্ষ উদাহরণও দেখেছি। তবে জীবনগতির বিবর্তনে গত কয়েক দশকের কথাসাহিত্যে, বিশেষত বাংলাদেশে এ ধরনের উদাহরণ ক্রমেই হয়ে উঠেছে বিরল ও বিলীয়মান। বিশেষত গ্রাম-জীবনের স্বল্পচেনা জটিল সম্পর্ক ও সংঘাতকে উপন্যাসের সরল কাহিনীপ্রবাহে দীর্ঘ কাল-পরিসরে উন্মোচন করে যাওয়ার কাজটি সহজসাধ্য নয়। এর জন্য গল্পের বুননশৈলী ও ভাষা-দক্ষতার পাশাপাশি অনেক বেশি প্রয়োজন লেখকের ব্যাপক প্রস্তুতির; একটি জনগোষ্ঠীর ভাষা, ধর্মচর্চা, লোকসংস্কৃতি ও দৈনন্দিন জীবনযাপনের অভিজ্ঞান-সমন্বিত নিবিড় পর্যবেক্ষণ। ‘নূরজাহান’ উপন্যাসে সুচারুভাবে বাংলাদেশের একটি পুরো গ্রাম এবং তার পরিবেশ-পরিপার্শ্বকে তুলে ধরেছেন ইমদাদুল হক মিলন। গ্রামের ভেতরকার অনেকগুলো পরিবার, তাদের প্রত্যেকের বাড়িঘর, পেশা, শিক্ষা, অর্থনৈতিক ও সামাজিক শ্রেণী-অবস্থান, তাদের দিনযাপনের বিবরণ ও পারস্পরিক সম্পর্ক, তাদের চারপাশের প্রকৃতি, ঋতুর আবর্তন, নদী, খাল, সড়ক, বৃক্ষরাজি, নতুন নির্মিত মহাসড়ক, চক ও ক্ষেতখোলার সম্পূর্ণ ভূগোল এমন নিবিড়ভাবে তিনি চিত্রায়িত করেছেন যে আমরা পুরো গ্রাম চোখের সামনে দেখতে পাই। দেখতে পাই শুধু তার নদী ও শস্যক্ষেতের প্রকৃতিকে নয়, বহু মানুষের সংসার, জীবনযাপন ও আন্তসম্পর্কের পরিবর্তনশীল জটিলতা মিলিয়ে পূর্ণাঙ্গ বাস্তব গ্রামজীবনকে। নূরজাহান কোনো কল্পিত চরিত্র নয়। সদ্য কৈশোর পেরোনো এই চঞ্চল তরুণী স্বার্থান্ধ ধর্মব্যবসায়ীর হিংস্র নখরে ছিন্নভিন্ন হয়েছে এই বাংলাদেশেরই প্রত্যন্ত এক গ্রামে। তার প্রাণচঞ্চল কৈশোর আর অতি সাধারণ স্বপ্নময় জীবন হারিয়ে গেছে দুশ্চরিত্র স্বাধীনতাবিরোধী মৌলবাদী মাওলানার অপব্যাখ্যা ও অন্যায় বিধানে। প্রতিবাদী নূরজাহান কঠোরতম শাস্তির মুখোমুখি হয়েছে, সবার সামনে তার এবং তার মা-বাবার ওপর নেমে এসেছে মধ্যযুগীয় নিপীড়ন। শেষ পর্যন্ত এই দুঃসহ অপমানের বোঝা সইতে না পেরে আত্মহননের পথ বেছে নেয় নূরজাহান। নূরজাহানের আত্মহত্যা প্রকৃতপক্ষে এ দেশের ধর্মান্ধ অপবিধানের বিরুদ্ধে প্রথম সোচ্চার প্রতিবাদ। আর এই বাস্তব চরিত্র এবং মর্মান্তিক ঘটনাবলিকে একটি চলিষ্ণু জনপদের পটভূমিতে রেখেই রচিত হয়েছে মিলনের উপাখ্যান।

সমকালীন মূলধারার বাংলা কথাসাহিত্যে বেশির ভাগ চরিত্র তুলির সামান্য আঁচড়ে, স্বল্প কথায়, কিছু অপূর্ণ ইঙ্গিতে, কিছুটা অস্ফুট রেখে তুলে ধরা হয়। এসব উপন্যাসে সব চরিত্রের পূর্ণাঙ্গ সমাজ-পটভূমি ও শ্রেণী-পরিচয় ধারণ এবং তাদের জীবনধারার সামগ্রিক উন্মোচন সহজলভ্য নয়। কারণ এতে উপন্যাসের আয়তন বেড়ে যায় এবং তা গ্রহণ করতে হলে লেখক, প্রকাশক, পাঠক_সবারই নতুন প্রস্তুতির প্রয়োজন হয়।

‘নূরজাহান’ তাই একাধিক কারণে সাহসী ও ব্যতিক্রমী রচনা। বহু চরিত্রের সমাবেশ ঘটেছে এখানে। সেই সঙ্গে রয়েছে প্রতিটি পরিবারের ছোটবড় সব মানুষের দৈনন্দিন জীবনের পুঙ্খানুপুঙ্খ বিবরণ। উপন্যাসের দীর্ঘ পরিসরে বর্ণিত রয়েছে এসব চরিত্রের ক্রমবিকাশের কাহিনী। প্রতিটি চরিত্র এবং তাদের সংসারজীবনের খুঁটিনাটি বিস্তার উপন্যাসের আয়তন বৃদ্ধি করলেও কাহিনীর ক্রম-অগ্রগতি, বিশ্বাসযোগ্যতা ও বিকাশের জন্য তারা অত্যন্ত প্রাসঙ্গিক। গল্পের মূল কাঠামোর জন্য আপাতদৃষ্টিতে অত্যাবশ্যক মনে না হলেও কাহিনীর অনুষঙ্গ হিসেবে পরিবেশ ও পটভূমিকে পূর্ণাঙ্গ ও বাস্তব করে তোলার জন্য এদের গুরুত্ব অসীম। এমনকি অপ্রধান চরিত্রগুলোও নিজের ও তার পরিবার-পরিবেশের সম্পূর্ণ পরিচয় নিয়ে উপস্থিত। কিছু চরিত্র ও পরিবার গ্রামের ভেতরে থেকেও উপার্জন, সম্পদ, প্রভাব ও ক্ষমতার দিক থেকে প্রান্তিক ও গুরুত্বহীন; তবে জনপদের সামষ্টিক পরিচয়ের জন্য অপরিহার্য। এদের ব্যক্তিজীবন, পেশা, দৃষ্টিভঙ্গি ও সামাজিক ভূমিকার বিশদ বর্ণনা এই চরিত্রগুলোকে যেমন স্পষ্টভাবে চিনতে সাহায্য করে, তেমনি এদের দৃষ্টির ভেতর দিয়েই অধিকতর উন্মোচিত হয় প্রধান-অপ্রধান অন্যান্য চরিত্রের বৈশিষ্ট্য। প্রতিটি চরিত্রের অন্তর্জগৎকে মিলন উন্মোচন করতে চেয়েছেন এবং সে জন্য গুরুত্বভেদে বিভিন্ন পদ্ধতি বেছে নিয়েছেন অনেকটা স্বতঃস্ফূর্তভাবেই। কেন্দ্রীয় চরিত্র নূরজাহান অথবা দবির গাছির ক্ষেত্রে তিনি অন্তর্জগৎকে মেলে ধরেছেন চরিত্রটির নিজস্ব ও অনুচ্চারিত ভাবনাকে অবলম্বন করে, নিজের বিশ্লেষণে। আবার অন্য কিছু চরিত্র, যেমন_মাওলানা মান্নান, আতাহার, নিখিল, পারু, মাওলানা তোসারফ আলী, আলফু_এদের ক্ষেত্রে লেখক এদের নিত্যদিনের কর্মে, আচরণে, চলাফেরায়, সংলাপে তুলে ধরতে চেয়েছেন তাদের অন্তর্জগতের অভিসন্ধি, কালিমা, বিষাদ, ন্যায়-অন্যায় বোধ, বোধহীনতা, ক্রোধ এবং নানা রকম দ্বন্দ্ব ও বৈপরীত্যকে। এতগুলো পরিবারের সমন্বয়ে এই পুরো গ্রামকে নৈপুণ্যের সঙ্গে চিত্রিত করা মিলনের জন্য সহজ, কারণ গ্রামের সঙ্গে তাঁর নিবিড় পরিচয়, উপলব্ধি-সঞ্জাত গভীর একাত্মতা এবং যত্নে লালিত মমত্ববোধ। লেখক হিসেবে তিনি শুধু একজন শাণিত দৃষ্টির পর্যবেক্ষক নন, মৃত্তিকা ও জীবনের সঙ্গে তাঁর আজন্ম সংলগ্নতা; যেন তিনি ওই জনপদের ভেতরেই বাস করেন। তাঁর চরিত্রগুলো নিজেদের পরিচয় অনুযায়ী স্বচ্ছন্দে চলাফেরা করে, কথা বলে, বেড়ে ওঠে। ঘটনার পর ঘটনা ঘটে যায়, সম্পর্কের ক্রম-উত্তরণ ঘটে, অনেকটা যেন লেখকের অজান্তেই। বাস্তবের সঙ্গে কল্পনা মিশে যায়, নির্মিত হয় দিনযাপনের বিশ্বস্ত চিত্রাবলি। ইতিপূর্বে মিলন বিভিন্ন পর্যায়ে গ্রামজীবনের গল্প নিয়ে রচনা করেছেন অল্প কিছুসংখ্যক সার্থক উপন্যাস। সেসব রচনায় তাঁর সমাজমনস্কতা, শক্তিমত্তা ও প্রতিশ্রুতির যে চিহ্ন দেখা যায়, তার পরিপূর্ণ বিকাশ ঘটেছে এখানে। চরিত্রসৃজনের সহজাত দক্ষতা, লোকজ ভাষার মিশ্রণ, পরিপাশ্র্বের নিবিড় পর্যবেক্ষণ, সমাজ-বিশ্লেষণের নৈপুণ্য এবং সার্বিক সার্থকতার বিচারে ‘নূরজাহান’ তাঁর আগের সৃষ্টির তুলনায় উচ্চতর মানে পেঁৗছে গেছে। বাংলা কথাসাহিত্যে নিজের স্বতন্ত্র ও যথোপযুক্ত আসনটি তৈরি করে নেওয়ার প্রত্যয় এবং নিরন্তর পরিশ্রমের ফসল মিলন তুলে দিয়েছেন তাঁর পাঠকের হাতে।

গত শতাব্দীর মধ্যভাগে কয়েকজন অগ্রগণ্য কথাসাহিত্যিকের হাতে বাংলা উপন্যাসের যে উৎকর্ষ লক্ষ করা গিয়েছিল, সেখানে তৎকালীন গ্রামজীবনের উপাদান ও প্রাধান্য ছিল ব্যাপক। কিন্তু প্রধানত নাগরিক বিচ্ছিন্নতা ও জীবনযাপনের ব্যবধানের কারণে এই ধারাবাহিকতা থেকে সরে গেছে গত কয়েক দশকের মূল ধারার কথাসাহিত্য। গ্রাম জনপদের বিশ্বস্ত চিত্র নির্মাণে মিলনের অর্জিত সার্থকতা বাংলাদেশের বা সমগ্র বাংলা ভাষার সমকালীন কথাসাহিত্যে অতি দুর্লভ। এই দুঃসাধ্য অর্জনের পাশাপাশি মিলন ধারণ করতে চেয়েছেন আরো সমকালীন কিছু মানবিক বিষয়কে এবং সুবিধাবঞ্চিত অথবা সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠীর অস্তিত্ব-সংকট ও অন্যান্য জটিলতাকে। নিখিল এবং অন্য দু-একটি চরিত্রের মধ্যে তিনি অনুভবযোগ্য করে তুলেছেন প্রতিকূল পরিবেশে জীবনযাপনের প্রাত্যহিক হীনম্মন্যতা, মনঃকষ্ট ও বিপর্যয়ভীতি। সার্বক্ষণিক অমঙ্গল-আশঙ্কা এবং তা থেকে পরিবারের নিরাপত্তা ও মর্যাদাকে বাঁচিয়ে চলার নিরন্তর ও নিঃশব্দ সংগ্রামটিকে সহজেই প্রতিষ্ঠা করেছেন লেখক। যে সাবলীল ভাষায় ও নিরাবেগ ভঙ্গিতে তিনি গ্রামজীবনের অর্থনৈতিক ও পেশাভিত্তিক শ্রেণীবিন্যাস, নানা সংঘাত, সংকট ও জটিলতা, গ্রামীণ ক্ষমতার বিন্যাস ও ক্ষমতাবানদের পারস্পরিক নৈকট্য, নারী-পুরুষের ব্যবধান ও বৈষম্য, ধর্ম-সম্প্রদায় ও অন্যান্য দিক থেকে সমাজের অপেক্ষাকৃত দুর্বল জনগোষ্ঠীর মনস্তত্ত্ব, মৌলবাদজনিত নানা শৃঙ্খল-নিপীড়নমূলক ব্যবস্থা ইত্যাদিকে উপন্যাসে তুলে এনেছেন, তা কথাসাহিত্যিক হিসেবে ইমদাদুল হক মিলনকে অন্য এক শ্রেণীতে উত্তীর্ণ করে দেয়।

এত দিন ধরে নিজের ব্যবহৃত কুশলী গদ্যভাষার সঙ্গে তদ্ভব ও আঞ্চলিক শব্দ মিলিয়ে এই উপন্যাসে মিলন নির্মাণ করেছেন একটি নতুন শৈলী। শুধু চরিত্রের মুখের ভাষায় নয়, তাদের ভাবনা ও মানসজগতের বিবরণে, এমনকি লেখকের নিজের ভাষ্যে, প্রকৃতি, মানবিক সম্পর্ক অথবা পরিপাশ্র্বের বর্ণনায় গ্রামজীবনের উপকরণ ও উপমা ব্যবহার করে, লোকজ ও আঞ্চলিক শব্দ জুড়ে দিয়ে উপন্যাসের অভিজাত ও প্রমিত ভাষাকে ভেঙেচুরে নতুন সুর ও প্রাণ প্রতিষ্ঠা করেছেন মিলন। এটি কোনো চমক বলে মনে হয় না। তিন খণ্ডে প্রকাশিত বারো শর বেশি পৃষ্ঠায় বিস্তৃত উপন্যাসে এই শৈলী শীতল ধারাবাহিকতার সঙ্গে ব্যবহার করে গেছেন তিনি।

‘নূরজাহান’ উপন্যাসের আরেক প্রধান সম্পদ তার বর্ণনাভঙ্গি, অসামান্য পর্যবেক্ষণ ও বিস্তারিত আখ্যান। এর উদাহরণ ছড়িয়ে আছে এই দীর্ঘ উপন্যাসের প্রতিটি পর্ব ও অধ্যায়ে। হেমন্তের দিগন্তবিস্তৃত মাঠ, সবজি-লতার মাচার তলায় বর্ষার ঘোলা জল, লতাগুল্ম, নৌকার মতো বাঁকা খেজুরগাছ, নির্মীয়মাণ সড়কের দীর্ঘ বিস্তার, জীবনযাপনের খুঁটিনাটি, খেজুর রসের ঘ্রাণ-বর্ণ ও ঘনত্ব, এমনকি পিঠা তৈরির উপকরণ ও পদ্ধতির বিশদ আখ্যানে ইমদাদুল হক মিলন তাঁর অনন্য শক্তি ও শৈলীর পরিচয় রেখেছেন। কোথাও এই বর্ণনা বিশদ এবং একটানা, আবার কোথাও ছোট ছোট বাক্যে, ঘটনার ফাঁকে ফাঁকে সুচারুভাবে বিন্যস্ত। অল্প কিছু উদাহরণ দিয়ে তা বোঝানো সম্ভব নয়।

বিস্তারিত আখ্যানের আরেকটি স্বল্প-প্রচলিত ধরন মিলন প্রয়োগ করেছেন সুনিপুণভাবে। একই কালপর্বের একই ঘটনাকে বিভিন্ন চরিত্রের দৃষ্টিতে বারবার ঘুরেফিরে দেখেছেন। এই পুনরাবৃত্তের বিবরণ তিনি সব ক্ষেত্রে ব্যবহার করেননি। একে ব্যবহার করা হয়েছে কাহিনীর বিশেষ কোনো বাঁকে, তাৎপর্যপূর্ণ লগ্নে। যেমন_তৃতীয় খণ্ডের সূচনায়ই ঘটক ল্যাংড়া বসির মান্নান মাওলানার কাছ থেকে নূরজাহানের বিয়ের অনাকাঙ্ক্ষিত প্রস্তাব নিয়ে দবির গাছির বাড়িতে আসছে। কাহিনীতে এর তাৎপর্য গভীর, পাঠকের মনে এর যথাযথ অভিঘাত তৈরি হওয়া প্রয়োজন, তাই এ দৃশ্য তিনি দেখেছেন বিভিন্ন মানুষের দৃষ্টিতে। নূরজাহান বড় ঘরের চৌকিতে বসে জানালা দিয়ে দেখছে হিজল-ডুমুরের ঝোপে বসা কানি বক, বাঁশঝাড়, কদমফুল, বর্ষার টলটলে জলে ভেসে যাওয়া দাঁড়াশ সাপ। এমনি সময়ে যখন সে দেখে ল্যাংড়া বসিরের কোষা নাও তাদের বাড়ির দিকে আসছে, পলকের জন্য প্রিয় মানুষ মজনুর কথা মনে পড়ে নূরজাহানের। এই বিবরণ দুই পৃষ্ঠার। খাওয়াদাওয়ার পর নিজ হাতে তামাক সাজিয়ে বসেছে দবির। বৃষ্টির দিন বলে কাজের স্বাভাবিক অনুক্রম বদলে গেছে। শ্রাবণের বৃষ্টিভেজা বিকেলের অবসরে উদাস দৃষ্টি নিয়ে দবির পুরনো দিনের কথা ভাবে, নিজের ছোট সংসারটিকে চোখের ওপর দেখতে পায়। ঠিক তখনই জঙ্গুলে শুকনো জমির আড়াল থেকে বেরিয়ে তাদের বাড়ির দিকে আসতে দেখে ল্যাংড়া বসিরের কোষা নাওটি। এই বিবরণ চার পৃষ্ঠার। বর্ষার জলে ডুবে যাওয়া পুকুরঘাটে বসে থালাবাসন ধুতে গিয়েও নূরজাহানের মা হামিদার মন অন্য রকম ভালো লাগায় আচ্ছন্ন হয়। বেশ খানিকটা আনন্দে থালাবাটি নিয়ে ঘরে ফিরতে গিয়ে হঠাৎ দেখতে পায়, বাড়ির খুব কাছে এসে গেছে একটা কোষা নাও। ল্যাংড়া বসিরকে দেখতে পেয়ে চিরকালীন রীতি অনুযায়ী মাথায় ঘোমটা টেনে দেয় হামিদা। এই বিবরণটুকু প্রায় তিন পৃষ্ঠার। কোষা নাওখানি এসে ভিড়ল দবির গাছির বাড়ির ঘাটে; ল্যাংড়া বসির তাতে সামান্য ধাক্কা খায়। সেখান থেকে তার নানা অতীত ঘটনা ও অভিজ্ঞতার সবিস্তার উল্লেখ, পেশাজীবন ও চরিত্রের উন্মোচন। তারপর অবশেষে ছাতা বন্ধ করে চুল আঁচড়ে, নৌকা থেকে দবিরের বাড়িতে নামার প্রস্তুতি। এই বিবরণ ৯ পৃষ্ঠার। এভাবে নূরজাহানদের বাড়িতে ঘটক ল্যাংড়া বসিরের আগমন, বিভিন্ন দৃষ্টিকোণ থেকে এই দৃশ্যের পুনরাবৃত্তি মিলিয়ে ঘটনার বিস্তার আঠারো পৃষ্ঠাব্যাপী। এই শৈলীর প্রয়োগ সহজসাধ্য নয়, ঘটনাবহুল কাহিনীর মূলধারার সন্ধানে ব্যস্ত পাঠকের জন্য অংশত অনাবশ্যক; কিন্তু প্রকৃত সাহিত্যের রসাস্বাদনের জন্য এ এক অনন্য সংযোজন।

মিলনের কিছু কিছু ছোট বর্ণনার ভেতরে ছড়িয়ে আছে গ্রামীণ প্রকৃতি ও ঋতুর নানা চিত্র; এ রকম সংক্ষিপ্ত বর্ণনায় ঋতুর পরিবর্তনকে, দিনের কোনো অপসৃয়মাণ মুহূর্তের দৃশ্যকে তিনি গ্রামজীবনের নিত্যদিনের চিত্রের মতো অবলীলায় তুলে এনেছেন। উদাহরণ :

এবারের বর্ষা তেমন ছিল না। গাছগুলোর কোমর ছুঁয়েই নেমে গেছে। ফলে প্রায় প্রতিটি গাছেরই কোমরের কাছে সচ্ছল গেরস্তের বউর কোমরের বিছের মতো লেগে আছে বর্ষাজলের দাগ। (পৃষ্ঠা ১৪, প্রথম খণ্ড, আনন্দ পাবলিশার্স, কলকাতা, ১৯৯৫)

কিন্তু এখন প্রায় সন্ধে। পশ্চিমে বহু দূরের গ্রামপ্রান্তে সিঁদুরে আমের মতো বোঁটা আলগা হতে শুরু করেছে পুরনো প্রাচীন সূর্যখানির। যে কোনো মুহূর্তে টুপ করে খসে যাবে। তার আগে কোন ফাঁকে যেন বাড়ির আঙিনায় শুকোতে দেয়া শাড়ি যেমন তুলে নেয় গৃহস্থ বউ, তেমন করে তুলে নিয়েছে দিনমান ফেলে রাখা রোদ।… (পৃষ্ঠা ৭৯, প্রথম খণ্ড, আনন্দ পাবলিশার্স, কলকাতা, ১৯৯৫)

এখানে গ্রামের প্রকৃতি বর্ণনায় মানুষ আর দৈনন্দিন জীবনযাত্রার চিত্রকল্প নিঃশব্দে মিশে গেছে। প্রসারিত হয়েছে কল্পনার জগৎ। পরবর্তীকালে, তিন খণ্ডের ভাষা ও মেজাজে সাযুজ্য ও সামঞ্জস্য বিধান করার জন্য, বিক্রমপুরের আঞ্চলিক ভাষার ভেতরের সুরটিকে ধারণ করার জন্য সাম্প্রতিকতম সংস্করণে মিলন এই ভাষা কোনো কোনো ক্ষেত্রে আংশিক, কোথাও বা একটু বেশি বদলে দিয়েছেন।

এই উপন্যাস রচনাকালের মাঝখানে দীর্ঘদিনের বিরতি ও বিচ্ছিন্নতা ঘটেছে। তা সত্ত্বেও এর কাহিনী ও চরিত্রের ধারাবাহিকতায় কোনো ছেদ পড়েনি; ভাষা ও মেজাজে কোনো উল্লেখযোগ্য পার্থক্য দেখা দেয়নি। শুধু কাহিনীর গতির ক্ষেত্রে নয়, লেখকের সার্বিক কণ্ঠস্বরটিও পুরো উপন্যাসে মোটামুটি একই স্তরে প্রবাহিত হয়েছে। গল্পের গতি-প্রকৃতি অনুযায়ী এবং বিভিন্ন চরিত্রের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে সামান্য ওঠানামা সত্ত্বেও মূল স্বরভঙ্গিটি রয়ে গেছে অপরিবর্তিত। প্রথম দুটি খণ্ড এবং তৃতীয় খণ্ডের মাঝামাঝি পর্যায় অবধি উপন্যাসের ঘটনাপ্রবাহ ও গতি মোটামুটিভাবে একই রকম; কিছুটা ধীর তার যাত্রাপথ। কিন্তু তৃতীয় খণ্ডের শেষ অংশে এসে কাহিনীর গতি বেড়েছে। ঘটনাপ্রবাহ অগ্রসর হয়েছে অনেকটা দ্রুত, কিছুটা রুদ্ধশ্বাসে। এর প্রধান কারণ সম্ভবত নূরজাহানের জীবনের ঘটনাবহুলতা এবং নাটকীয় পরিণতি। গ্রামের দৈনন্দিন জীবন ও পটভূমিতে থাকা অন্যান্য অল্প-প্রাসঙ্গিক চরিত্রের তুলনায় প্রধান চরিত্র ও কাহিনীর গুরুত্ব ক্রমশ বৃদ্ধি পাওয়ার ফলে কাহিনীর মূলস্রোত থেকে বেরিয়ে শাখা-প্রশাখার দিকে যাওয়ার পথ রুদ্ধ হয়ে গেছে। বারো শর বেশি পৃষ্ঠার উপন্যাসে পৃষ্ঠাসংখ্যার দিক থেকে তৃতীয় খণ্ডটি সর্ববৃহৎ_৫৩৫ পৃষ্ঠা। তা সত্ত্বেও শেষ দিকের প্রায় ১৫০ পৃষ্ঠাব্যাপী কাহিনী প্রধানত নূরজাহান ও তার পরিবারকে কেন্দ্র করেই আবর্তিত হয়েছে। আর এই কালপরিধিতেই নূরজাহানের বিয়ের পাত্র সন্ধান, তার প্রথম বিয়ে ও দাম্পত্য জীবন, স্বামীর নিরুদ্দেশ হওয়া, বিরহকাল, তালাকপ্রাপ্তি, দ্বিতীয় বিয়ে, মাওলানা মান্নানের প্রতিহিংসা, প্রহসনমূলক বিচারের আয়োজন, নূরজাহানের শাস্তি ও আত্মহনন; এমনকি শেষ পর্বে গণমাধ্যমের সচেতন উদ্যোগ ও আইনের নিদ্রাভঙ্গ। এই দ্রুত বহমান ঘটনার উত্তেজনাবহুল পর্বে স্বাভাবিকভাবেই উপেক্ষিত হয়েছে অপেক্ষাকৃত গৌণ চরিত্র ও তাদের অন্তর্জগৎ, অন্যান্য শাখা-কাহিনী, জীবনপ্রবাহ ও প্রকৃতি।

নূরজাহান তার ভাষা, চরিত্র, মনোজগৎ, সমাজ-প্রতিবেশ ও গ্রামজীবনের নিত্য রূপান্তরের বিশদ চিত্রের জন্য এখনই যথাযথ মনোযোগ ও মর্যাদা পাওয়ার উপযুক্ত। পরবর্তীকালে একসময় হয়তো এর প্রতিটি বৈশিষ্ট্য নিয়ে তত্ত্ব-পদ্ধতি ও প্রকরণগত দিক থেকে উন্নতমানের আরো বিস্তারিত আলোচনা ও গভীর গবেষণা হবে। হয়তো মিলনের সমাজ-নিরীক্ষণ, ভাষা অথবা বিস্তারিত আখ্যান থেকে নতুন দৃষ্টিকোণ ও শিল্প-শৈলী অন্বেষণ করবেন ভবিষ্যতের আলোচকরা। এই আলোচনার সূত্রপাত এখনই হওয়া দরকার, যাতে এই অসামান্য উপন্যাসটির শক্তি ও বৈশিষ্ট্যের দিকগুলো চিহ্নিত থাকে এবং প্রধান বার্তাগুলো লিপিবদ্ধ হয়। শেষ পর্যন্ত এই উপন্যাস শুধু সমাজচিত্র নয়, নির্মম বাস্তবতার মুখোমুখি দাঁড়ানো একটি প্রজন্মের নিরুপায় ব্যর্থতার সৃজনশীল ভাষ্য। স্বাধীনতা ও প্রগতির আদর্শ থেকে বিচ্যুতির অবশ্যম্ভাবী পরিণতি সম্পর্কে ব্যাকুল সতর্কবার্তা। ‘নূরজাহান’ মৌলবাদের উত্থান, ধর্মান্ধ নেতৃত্বের প্রাধান্য, প্রহসনমূলক বিচারব্যবস্থা, অপবিধান এবং স্বেচ্ছাচারী আস্ফালনের বিরুদ্ধে সাহিত্যিক প্রতিবাদ_যা শৃঙ্খল, নিপীড়ন ও সাম্প্রদায়িকতা থেকে দেশকে মুক্ত করার আকাঙ্ক্ষা তৈরি করে।

কালের কন্ঠ

Leave a Reply