জন্মদিনে শ্রদ্ধাঞ্জলি ॥ যুগসন্ধির নিপুণ নকিব মাহবুব-উল আলম চৌধুরী

ড. মীজানূর রহমান শেলী
খরস্রোতা কালের প্রবাহে ভেসে যায় চলমান জীবন, কখনও থামে না, থেমে থাকতে পারে না। তবুও কোন কোন সময়, কোন কোন দিন, কিছু কিছু ৰণ ঐতিহাসিক ঘটনার আকর্ষিক অভিঘাতে হয়ে ওঠে নিশ্চল, নিশ্চুপ। সারা স্মৃতিতে তারা রেখে যায় অনপনেয় স্বাৰর। যতদিন মানুষ বেঁচে থাকে ততদিন তার স্মৃতির গহনে ঐ সময়, ঐ দিন, ঐ ৰণ অক্ষয় রেখাচিত্র হয়ে আপন দৃপ্তিতে জ্বলে।

১৯৫২ সালে মাধ্যমিক স্কুলের ছাত্র থাকা অবস্থায় প্রজন্ম-সাথীদের মতো আমার মন ও মানসেও ২১ ফেব্রুয়ারি ও সন্নিহিত দিনগুলো তেমনি চিরঞ্জীব ও অব্যয় হয়ে আছে।

ইতিহাস জানে মাতৃভাষা বাংলাকে তৎকালীন অখ- পাকিস্তানের অন্যমত রাষ্ট্রভাষা হিসেবে প্রতিষ্ঠার দাবিতে সেইদিন অকুতোভয় বাঙালী তরুণরা আত্মাহুতি দেন। বিশ্বের প্রথম ভাষাশহীদ হিসেবে এই ছাত্র-তরুণের দল ইতিহাসে অমর হয়ে আছেন। ভাষা সংগ্রামের রক্তরঞ্জিত স্মৃতি আমাদের কিশোর অস্তিত্বের অবিনাসী উপাদানে পরিণত হয়। সেকালের কিশোর-কিশোরী, তরুণ-তরুণীদের স্পর্শকাতর মনে রক্ত-রাঙ্গা বিপস্নবী চেতনার মূলমন্ত্র হয়ে দাঁড়ায় সংগ্রামী, কবি-সাহিত্যিক ও প্রগতিবাদী বিপস্নবী সংগঠক মাহবুল-উল আলম চৌধুরীর সাড়া জাগানো কবিতার কয়েকটি চিরঞ্জীব পঙক্তি :

“… যারা গুলি ভরতি রাইফেল নিয়ে এসেছিল ওখানে
যারা এসেছিল নির্দয়ভাবে হত্যা করার আদেশ নিয়ে
আমরা তাদের কাছে
ভাষার জন্য আবেদন জানাতেও আসিনি আজ।
আমরা এসেছি খুনি জালিমের ফাঁসির দাবি নিয়ে।

যারা আমার মাতৃভাষাকে নির্বাসন দিতে চেয়েছে তাদের জন্যে
আমি ফাঁসি দাবি করছি
যাদের আদেশে এই দুর্ঘটনা ঘটেছে তাদের জন্যে
ফাঁসি দাবি করছি
যারা এই মৃতদেহের উপর দিয়ে
ৰমতার আসনে আরোহণ করেছে
সেই বিশ্বাসঘাতকদের জন্যে …।”

১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রম্নয়ারির রক্তেভেজা করুণ সন্ধ্যায় রচিত এই মর্মস্পর্শী কবিতা সেদিন আমাদের দেখার সুযোগ ছিল না। সেই সুযোগ পায়নি দেশের অনেকেই। অন্যায় অত্যাচারী শাসককুল কঠোর নিষেধাজ্ঞা জারি করে কবিতাটি বাজেয়াফত ও ২৫ বছর বয়সী তরুণ লেখকের বিরম্নদ্ধে জারি করে গ্রেফতারী পরোয়ানা। বহুদিনের জন্য কবিতাটি থাকে লোকচক্ষুর আড়ালে। অনেক দিন পরে আবার আবিষ্কৃত হয়ে এই অনবদ্য লেখাটি বিপ্লবী ভাষা আন্দোলনের অবিস্মরণীয় স্মৃতিকে যেন পূর্ণ প্রভায় নতুন করে প্রতিষ্ঠিত করে। এই কবিতার দৃঢ়, দৃপ্ত ঘোষণা অন্যায় ও নিষ্পেষণের বিরম্নদ্ধে মানুষকে রম্নখে দাঁড়াতে প্রেরণা দেয়। একটি দিন, একটি ক্ষণকে দেয় অতুলনীয় শৌর্য ও পরাক্রম, এ যেন কবি সুধীন্দ্রনাথ দত্তের বর্ণিত তেমনি এক বিরল পল যখন :

“একটি নিমেষ দাঁড়ালো স্মরণী জুড়ে
থামিল কালের চির চঞ্চল গতি।”

গতিস্মান কালকে রুখে দাঁড়ানোর যে নিমেষ বিপ্লবী কবি মাহবুব-উল আলম চৌধুরীর রচনায় জীবন্ত রূপ পেয়েছে তারই নিষ্ঠাবান নকিব হিসেবে তিনি আমরণ সাধনা করে গেছেন। এ সাধনা প্রগতির ও মুক্তির সাধনা, যার মাধ্যমে অর্জিত হয় সাম্য ও চিরায়ত মানবাধিকার। বামপন্থী আন্দোলন ও সংগ্রামের একনিষ্ঠ অনুসারী ও নীরব সংগঠক হিসেবে নানা বাধাবিঘ্ন ও প্রতিকূলতার মধ্য দিয়ে তিনি তাঁর ব্রত সাধনে অক্লান্ত প্রয়াস চালিয়ে গেছেন।

প্রগতিশীল সাময়িকী ‘সীমান্ত’ প্রতিষ্ঠা, সম্পাদনা ও পরিচালনা করে কয়েক যুগ ধরেই তিনি প্রগতিবাদী কল্যাণমুখী সমাজ চেতনা বিস্তারে সক্রিয় ভূমিকা পালন করেন। তাঁর মনোগ্রাহী ও সাহিত্যগুণে ভূষিত কবিতা ও প্রবন্ধসমূহ স্থান পায় বহু সংখ্যক সুপাঠ্য ও জনপ্রিয় গ্রন্থে। এসব লেখার মধ্যে জীবন্ত হয়ে উঠেছে জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে মানুষের প্রতি প্রগাঢ় ভালবাসা এবং মানব কল্যাণের জন্য আন্তরিক আকুতি। তাঁর লেখনীতে বারবার মূর্ত হয় বিদ্রোহী কবি কাজী নজরম্নল ইসলামের উদাত্ত ঘোষণা :

“গাহি সাম্যের গান
মানুষের চেয়ে বড় কিছু নয় নহে কিছু মহীয়ান।”

অন্যায়, অসাম্য ও সাম্প্রদায়িক দ্বন্দ্ব-হানাহানির বিরুদ্ধে বিপ্লবী চেতনায় সদা উদ্বুদ্ধ হয়েও তিনি সদালাপী, সদাশয় ও শান্তিপ্রিয় মানুষের নীরব, নম্র জীবন কাটিয়ে গেছেন। পরার্থপর, পরোপকারী সমাজসেবীর জীবন-শৈলী তাঁর অস্তিত্বকে দেয় এক সৌম্য, সুস্মিত রূপ।

তাঁর সঙ্গে আমার সাৰাৎ পরিচয় ঘটে ১৯৭০-এর দশকের শেষার্ধে। তার আগে তাঁর নাম শুনেছি, লেখা পড়েছি কিন্তু প্রত্যৰ দেখা হয়নি। তাঁর সুযোগ্য সহধর্মিণী জওশন আরা রহমান সমাজসেবার ৰেত্রে দৰতা ও যোগ্যতার উজ্জ্বল স্বাৰর রেখেছেন। একজন প্রশিৰিত ও অভিজ্ঞ সমাজকর্মী হিসেবে তিনি সরকারের সমাজ কল্যাণ বিভাগের উচ্চতর পদে অধিষ্ঠিত ছিলেন প্রায় সারা কর্মজীবন। প্রশাসনিক সার্ভিসের সদস্য হিসেবে আমি ১৯৭৬ সালে ওই বিভাগের প্রধানের পদে নিয়োগ লাভ করে ১৯৮০ সাল পর্যনত্ম কাজ করি। ছাত্রজীবন থেকেই সমাজসেবার কাজে শৌখিনভাবে জড়িত থাকলেও পেশাগত সূত্রে প্রতিষ্ঠিত ও অভিজ্ঞ সমাজকর্মীর কলা-কৌশল স্বাভাবিকভাবেই আমার জানা ছিল না। অথচ বিভিন্নমুখী সমাজকর্মের দেশব্যাপী প্রক্রিয়ার ব্যবস্থাপনার জন্য তার প্রয়োজন অনস্বীকার্য। সেই ৰেত্রে প্রয়োজনীয় কারিগরি জ্ঞান ও দৰতা কিছু পরিমাণে অর্জন করার বিষয়ে যে সহকর্মীরা আমাকে বিশেষভাবে সহায়তা দেন তাঁদের প্রথম কাতারে ছিলেন কে এ তালুকদার, নুরম্নল ইসলাম খান, কাজী শামসুন, শেখ নেয়ামত আলী, আকসিরম্নন্নেসা, সাহেরা আহমদ, তাহেরা শফিক, সাদেকা সফিউল্লাহ, আমাতুল মোর্শেদ, শফিকুল হক, শামসুল হক, কবির উদ্দিন সরকার, জওশন আরা রহমান প্রমুখ। তাঁর সহকর্মীদের মতো মিসেস জওশন আরা রহমান বিপুল উৎসাহ এবং একাগ্র অধ্যবসায় নিয়ে সমাজকল্যাণ বিভাগের সংগঠন ও কার্যক্রম, উন্নয়ন ও বিস্তারে আমাকে আনত্মরিক সাহায্য ও সহায়তা দেন। কর্মব্যস্ত এই সময়ে তাঁর মাধ্যমে তাঁরই জীবনসঙ্গী কবি, সাহিত্যিক মাহবুব-উল আলম চৌধুরীর সঙ্গে ঘটে আমার প্রত্যৰ পরিচয়। যতদিন তিনি জীবিত ছিলেন মাঝে মাঝে দেখা হতো বিভিন্ন সভা-সমাবেশ ও অনুষ্ঠানে। আনুষ্ঠানিক বা অনানুষ্ঠানিক যে কোন অবস্থাতেই হোক না কেন তাঁর আলাপচারিতা ছিল সহজ, সরল ও লৌকিকতামুক্ত। বয়োজ্যেষ্ঠ হওয়া সত্ত্বেও আমাদের এবং আমাদের চেয়ে কনিষ্ঠদের সঙ্গে তাঁর মেলামেশা ছিল অকৃত্রিম ও সৌহার্দ্যময়। প্রতিটি সাৰাৎই তাই মনে রেখে যেত এক প্রীতিময় আনন্দের অনুভব।

তাঁর জীবনাবসানের কিছুদিন আগে তাঁর জন্য আয়োজিত এক সংবর্ধনা সভায় আমাকে প্রধান অতিথি হিসেবে আহ্বান করা হয়। অনুষ্ঠানস্থলে পৌঁছে শুনতে পাই দারম্নণ অসুস্থাতাবশত তিনি আসতে পারবেন না। যাঁর অভিনন্দন সভা তাঁরই অনুপস্থিতিতে সেদিনের অনুষ্ঠান সাদামাটাভাবেই সম্পন্ন হয়। যে অপূর্ণতা নিয়ে সেদিন অনুষ্ঠান শেষে ঘরে ফিরি, সেই শূন্যতার অনুভব আরও গভীর ও বিষাদময় হয়ে ওঠে তাঁর পরলোকগমনে।
সকল প্রাণীর মতো মানুষের জন্য জীবনাবসান এক অবধারিত সত্য। বন্ধু-স্বজনের মৃত্যুতে তাই শোকাবিভূত হয়ে মনে হতে পারে :

“চলেছে পথিক আলোক যানে
আঁধার পানে …।”

কিন্তু আলোকপিয়াসী মাবুব-উল আলম চৌধুরী এই পৃথিবীর আলো-আঁধারের জীবনে আলোকেই নিরন্তর খুঁজে ফিরেছেন, সন্ধান করেছেন মহামুক্তির। আশা করি, প্রার্থনা করি চিরন্ময় মুক্তির ৰণে তিনি উচ্চারণ করতে পারবেন_

“আলোয় আলোকময় করে হে
এলে আলোর আলো।”

লেখক : চিনত্মাবিদ, সমাজবিজ্ঞানী ও সাহিত্যিক

জনকন্ঠ

Leave a Reply