পাঁচঘরিয়াকান্দি এলাকায় গোলাগুলি ॥ বাড়িঘর ভাংচুর ॥ অস্ত্রসহ গ্রেফতার ১

মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সীগঞ্জ থেকে : মুন্সীগঞ্জ শহরের পাঁচঘরিয়াকান্দি এলাকায় বুধবার রাতে গোলাগুলি এবং ১০/১২ টি বাড়িঘর ভাংচুর ও দোকান লুটপাট হয়েছে। এতে গোটা এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে চারটি রাম দা, একটি চাইনিজ কুড়ালসহ শাওন (২১) নামের এক যুবককে গ্রেফতার করেছে।

এই রিপোর্ট লেখার সময় (রাত সাড়ে ১১টা) পুলিশের উপস্থিতি গুলি বর্ষণ অব্যাহত ছিল। এই তান্ডপে প্রায় এক শ’ রাউন্ড গুলি বর্ষণ হয় বলে প্রত্যক্ষদর্শী এলাকাবাসীরা জানান। প্রভাব বিস্তারকে কেন্দ্র করে স্থানীয় পৌর কমিশনার জাকির হোসেন লোকজন নিয়ে রাত পৌনে ৯টায় প্রতিপক্ষ মনির শেখ, আমির শেখ, সেরাজল সরকার ও আরমান সরকারের বাড়িতে সশস্ত্র হামলা চালায়। এর পরই শুরু হয় গোলাগুলি। সদর থানার ওসি শহিদুল ইসলাম রাত ১০টায় ঘটনাস্থলে জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা চলছে। তবে কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। পৌর কমিশনার জাকির হোসেনকে দায়ী করে তিনি বলেন, পূর্ব ঘটনার রেস ধরে এই সহিংসতা বাধে। গ্রেফতারকৃত শাওন কমিশনারের (জাকির) আপন ভাগ্নে।

মুন্সিগঞ্জ নিউজ
==========

যুবলীগ-ছাত্রলীগ সংঘর্ষে মুন্সীগঞ্জ রণক্ষেত্র

কাজী দীপু, মুন্সীগঞ্জ থেকে:
যুবলীগ ও ছাত্রলীগের মধ্যে সংঘর্ষ এবং গোলাগুলির ঘটনায় গত বুধবার রাতে মুন্সীগঞ্জ শহরের পাঁচঘরিয়াকান্দি এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করলেও তাদের উপস্থিতিতেই দুই গ্র“প ফাঁকা গোলাগুলি করে। একপর্যায়ে পুলিশ উভয়পক্ষকে ধাওয়া দিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ সময় পুলিশ ৪টি অস্ত্র উদ্ধার ও শাওন নামের এক যুবককে গ্রেপ্তার করে। শহর যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও পৌর কাউন্সিলর জাকির হোসেন বেপারী গ্র“প এবং জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আসাদুজ্জামান সুমন গ্র“পের মধ্যে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় গতকাল সদর থানায় ৩টি মামলা হয়েছে।

সদর থানার এসআই সুলতানউদ্দিন আহমেদ জানান, সংঘর্ষের ঘটনায় এসআই নারায়ণ চন্দ্র দাস অস্ত্র আইনে এবং ছাত্রলীগ কর্মী সাগর পৌর কাউন্সিলর জাকির হোসেনকে প্রধান আসামি করে মামলা দায়ের করেছেন। অপরদিকে পৌর কাউন্সিলরের মা মরিয়ম বেগম জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি আসাদুজ্জামান সুমনকে প্রধান আসামি করে মামলা করেছেন।

স্থানীয় সূত্র জানায়, পারিবারিক ও এলাকার আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও শহর যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জাকির হোসেনের সঙ্গে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আসাদুজ্জামান সুমনের দ্বন্দ্ব চলছিল। এর জের ধরে উভয়পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। ঘটনায় জড়িত সন্দেহে পুলিশ বুধবার রাতে ছাত্রলীগ কর্মী আজমির ও ফয়সালকে আটকের পর ছেড়ে দিলে এ নিয়ে পুলিশের সঙ্গে ছাত্রলীগ নেতা মিথুনের বাকবিতণ্ডা হয়।

সংঘর্ষের জন্য শহর যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জাকির হোসেন ও জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আসাদুজ্জামান সুমন পরস্পরকে দায়ী করেছেন।

আমাদের সময়

Leave a Reply