মনের কথা বললেন নগরপিতা

সকাল থেকেই নগর ভবন ছিলো থমথমে। নগরপিতার বিদায় দিনে নগর ভবনে একটু অপরিচিত পরিবেশ বিরাজ করছিলো। এই দিনটি ঢাকার ইতিহাসে একটি স্মরণীয় দিন। সংসদে বিল পাশ হলে আজই নগর ভবনে তার শেষ কর্মদিবস। তাই অনেকটা শেষ দিনের অফিসের মতো করে দিনটি অতিবাহিত করলেন ঢাকার মেয়র সাদেক হোসেন খোকা। আবেগাপ্লুত খোকা শেষ দিনে সবার সাথে কুশল বিনিময় করলেন। তার সহকর্মী, সাংবাদিক, ডিসিসির কর্মকর্তা-কর্মচারী, ওয়ার্ড কাউন্সিলর সবার কাছেই বিদায় নিলেন তিনি। সাংবাদিকদের জানালেন তার আবেগ অনুভূতির কথা।

সব কিছু ঠিকঠাক থাকলে আজই বিভক্ত হচ্ছে ঢাকা সিটি করপোরেশন। সংসদের চলতি অধিবেশনে এই সংক্রান্ত বিল পাস হবার কথা।

সোমবার নগর ভবনে তার কার্যালয়ে খোকা বলেন, ‘সরকারের ডিসিসি ভাগের এ সিদ্ধান্ত হঠকারিতার শামিল। আমি আগামী নির্বাচন করবো না ঘোষণা দেওয়ার পরও সরকার এটি ভাগ করছে। তারপরও আমি আপনাদের পাশে থাকবো। ইতিহাসই বলে দেবে আমার স্থান কোথায় হবে। আমি আমার সাধ্য অনুযায়ী কাজ করেছি।’

এ সময় ডিসিসি কর্মকর্তা-কর্মচারী সমন্বয় পরিষদের সভাপতি ও ডিসিসি এলাকা-৬ এর নির্বাহী প্রকৌশলী মেসবাহ উল হককে স্ট্যান্ড রিলিজ করে বরিশালে বদলি করার নিন্দা জানান তিনি।

খোকা বলেন, ‘আমি কতটুকু সফল তা বিচার করবে জনগণ। তবে ঢাকাকে আধুনিক একটা রাজধানী করতে চেয়েছিলাম। নানা কারণে সেই লক্ষ্য পূরণ হয়নি। সব সেবা খাতকে এক ছাতার নিচে আনা যায়নি। রাজধানীর পর্বত সমান সমস্যা শুধু ডিসিসির সঙ্গেই সম্পৃক্ত নয়। বরং ওয়াসা, ডেসা, ডেসকো, তিতাসসহ ৫০টির বেশি সরকারি সেবা সংস্থাকে ডিসিসির সঙ্গে সমন্বয় করার স্বপ্ন পূরণ হয়নি।’

তিনি নির্বাচিত হয়েছিলেন ২০০২ সালের ১৫ মে। মেয়াদ শেষ হয়েছিল ২০০৭ সালের ১৫ মে। নির্ধারিত সময় পার করার পর আরও প্রায় সাড়ে চার বছর ডিসিসির মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন খোকা।

নিজের কাজের মূল্যায়ন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমার সাড়ে নয় বছরে সাফল্য-ব্যর্থতা আছে। তবে আমার সাফল্যের পাল্লাই ভারী। তার প্রমাণ আমি জনগণের ভালোবাসা পেয়েছি। আমি নিজেকে এই ভেবে সফল মনে করি যে, সরকার আমার প্রতিদ্বন্দ্বী না পেয়ে ডিসিসি ভাগের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এতে নির্বাচনে অংশ না নিয়েও আমি নিজেকে বিজয়ী মনে করি।’

বিদায়ী নগরপিতা বলেন, ‘২০০২ সালে দায়িত্ব নেওয়ার সময় ডিসিসির রাস্তাঘাট ভেঙে পড়েছিল। ড্রেনেজ সমস্যা ছিল। পুরো মহানগরী পরিণত হয়েছিল ময়লা আবর্জনার ভাগাড়ে। পর্যাপ্ত ফুট ওভারব্রিজ ছিল না। যেগুলো ছিল সেগুলো মানুষের ব্যবহার অনুপযোগী। ফলে সিটি করপোরেশনের উপর নগরবাসী আস্থা হারিয়েছিল। সেটা দূর করে মানুষের আস্থা ফিরিয়ে এনেছি। তখন সিটি কর্পোরেশন ৬৩১ কোটি টাকা দেনার দায়ে আবদ্ধ ছিলো। আমরা ৪০০ কোটি টাকা দেনা শোধ করেছি। প্রতিষ্ঠানকে খেলাপি বানাইনি। এখন তিন কোটি ৭৮ লাখ টাকার নগদ স্থিতি রয়েছে কর্পোরেশনের ফান্ডে। অথচ আমরা কোন নতুন ট্যাক্স ধার্য করিনি।’

আফসোস করে তিনি বলেন, ‘রাজধানী ভাগ না করার ব্যাপারে সুশীল সমাজ, রাজনৈতিক নেতা, বিশেষজ্ঞ, নগর পরিকল্পনাবিদ, ডিসিসির মেয়র ও কাউন্সিলররা তাদের মতামত দিয়েছেন। রাজনৈতিক উদ্দেশে ঢাকা সিটি করপোরেশনকে (ডিসিসি) বিভক্ত করার সিদ্ধান্ত হয়েছে। ডিসিসির বিভক্তি নগরবাসীর চাওয়া নয়। সরকার জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল নয় তা প্রমাণ হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী ও অন্য মন্ত্রীরা বিভক্তির যে যুক্তি দেখাচ্ছে তা শুধু রাজনৈতিক। ঢাকাকে দুই ভাগ করা হচ্ছে। এটি ঢাকাবাসীর হৃদয়কে দুই ভাগ করার শামিল।’

নিজের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আপনারা জানেন দীর্ঘদিন কোনো জনপ্রতিনিধি ক্ষমতায় থাকলে তার জনপ্রিয়তা হ্রাস পায়। আর আমার ক্ষেত্রে হয়েছে উল্টো। বর্তমান নির্বাচন কমিশন ঢাকা সিটি করপোরেশনের নির্বাচন অনুষ্ঠানের প্রায় সব প্রক্রিয়া সম্পন্ন করলেও সরকার সহযোগিতা না করায় নির্বাচন সম্ভব হয়নি।’

দু:খ প্রকাশ করে তিনি বলেন, ‘ঢাকা সিটি করপোরেশনকে ভাগ করার মানে নগরবাসীর হৃদয়কে দু’ভাগ করে দেওয়া। তাই নগরবাসীসহ সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যেও সরকারের এ সিদ্ধান্তে অসন্তোষ তৈরি হয়েছে। আমি মেয়র পদ থাকছি না বলেই বেদনা ভারাক্রান্ত হয়েছি তা নয়, বরং এ শহরের ধুলাবালি মেখে আমি বড় হয়েছি। আমার চোখের সামনে ঢাকা কোটি মানুষের শহরে পরিণত হয়েছে। আমি আমার এ ভালোবাসার শহর ঢাকার জন্য আজীবন কাজ করে যেতে চাই।’

সাদেক হোসেন খোকা শেষ দিনের মতো সোমবার অফিস করতে দুপুর ১টার দিকে নগর ভবনে যান। সকাল থেকেই নগর ভবনে থমথমে পরিবেশ বিরাজ করছিলো। ডিসিসির বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সাথে তিনি কথা বলেন। এ সময় তার সহকর্মীরাও তার সঙ্গে আবেগাপ্লুত হন।

‘আপনার আগামী দিনগুলো কিভাবে কাটবে?’ বাংলানিউজের এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমি জনগণের সেবায় ও নগরের উন্নয়নে কাজ করবো। সরকার এই নগরীর প্রতি আমার ভালোবাসা কেড়ে নিতে পারবে না। আমি নগরবাসী, ডিসিসির সর্বস্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী, সাংবাদিক বন্ধু ও সব দলের মানুষের সহযোগিতা পেয়েছি। আমি সবার প্রতি কৃতজ্ঞ। সবাই আমার জন্য দোয়া করবেন।’

মনোয়ারুল ইসলাম, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

Leave a Reply