মুন্সীগঞ্জ-বিক্রমপুর সোসাইটির ঈদ পুনর্মিলনী

রাহমান মনি
জাপানে মুন্সীগঞ্জ-বিক্রমপুর সোসাইটি সব দিক থেকেই অন্যান্য যে কোনো আঞ্চলিক সংগঠনগুলো থেকে একটু ভিন্ন মর্যাদাসম্পন্ন। লোকবল, ধার এবং ভার সব দিক থেকেই। মুন্সীগঞ্জ-বিক্রমপুর সোসাইটির আয়োজন মানেই বিশাল ব্যাপার, আসলে তাই। রাজধানীর প্রাণকেন্দ্র থেকে একটু দূরে আয়োজন হলেও প্রতিকূলতা সত্ত্বেও লোক সমাগমের কমতি থাকে না কোথাও। যাতায়াত ব্যবস্থা এখানে কোনো বাধা হয়ে দাঁড়ায় না। যেমনটি দাঁড়াতে পারেনি গত ১৩ নভেম্বর মুন্সীগঞ্জ-বিক্রমপুর সোসাইটি আয়োজিত ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে।

রাজধানীর অদূরে সাইতামা প্রিফেকচার, সোকা সিটি সেজাকি কমিউনিটি সেন্টারে ঈদ আনন্দ নামে সোসাইটি এক ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। পবিত্র ঈদুল আজহার কোরবানির মাহাত্ম্য এবং আনন্দ সকলের সঙ্গে ভাগ করে নেয়ার জন্য এই আয়োজন করা হয়েছিল। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক বাদল চাকলাদার এবং উপদেষ্টা এমডি এস ইসলাম নান্নুর দেয়া কোরবানির পশুর মাংস (১৩০ কেজিরও কিছু বেশি) ভোজন রসিকদের রসনাকে তৃপ্ত করে। সেই সঙ্গে বিক্রমপুরের ঐতিহ্য অনুযায়ী অন্যান্য সুস্বাদু খাবার তো ছিলই। ছিল সালাদ, ঈদের মিষ্টান্ন এবং মিষ্টি। নৈশভোজে চার শতাধিক অতিথি এর স্বাদ গ্রহণ করেন।

সান্ধ্যকালীন এই আয়োজনে টোকিওতে বাংলাদেশ দূতাবাসের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং তাদের পোষ্যগণ উপস্থিত ছিলেন। উপস্থিত ছিলেন বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন, রাজনৈতিক, ধর্মীয়, ব্যবসায়ী, বিভিন্ন আঞ্চলিক সংগঠনসমূহের নেতৃবৃন্দসহ সর্বস্তরের প্রবাসীরা। সেই সঙ্গে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক জাপানিজ সুহৃদরাও উপস্থিত ছিলেন।

সোসাইটির সভাপতি নূর আলীর সংক্ষিপ্ত বক্তব্য শেষে মঞ্চে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিচালনা করে স্থানীয় প্রবাসী সাংস্কৃতিক সংগঠন উত্তরণ। প্রবাসী অ্যামেচার শিল্পীরাও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশ নেন। অনুষ্ঠান চলার এক পর্যায়ে বাংলাদেশ দূতাবাসের প্রথম সচিব নাজমুল হুদা এবং প্রবাসীদের প্রিয় ছড়াকার, সাপ্তাহিক পাঠক ফোরাম জাপানের সভাপতি বদরুল বোরহানের বাংলাদেশে প্রত্যাবর্তন উপলক্ষে মুন্সীগঞ্জ-বিক্রমপুর সোসাইটির পক্ষ থেকে বিদায়ী ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়। সোসাইটির সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক তাদের ফুলেল শুভেচ্ছা জানান।

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে দূতাবাসের কর্মকর্তাগণও সঙ্গীত পরিবেশন করেন। দূতালয় প্রধান মাসুদুর রহমান এবং মইনুল ইসলাম মিল্টন স্বরচিত কবিতা আবৃত্তি করে শোনান। প্রবাসীদের প্রিয় শিল্পী মিথুন সঙ্গীত পরিবেশন করলে জাপান প্রবাসে নানা-নাতি খ্যাত আলহাজ নূর এ আলম এবং লিটন মাঝি একসঙ্গে নৃত্য তালে মেতে ওঠেন। তাদের নৃত্য উপস্থিত দর্শক-শ্রোতা সকলে উপভোগ করে। এই সময় মিডিয়া কর্মীদের ক্যামেরার ফ্লাশ আয়োজন প্রাঙ্গণ আলোর বন্যা বয়ে যায়। অতিথিদের মোবাইল ক্যামেরায় বন্দি হয়ে থাকে নানা-নাতির নৃত্য।
উল্লেখ্য, জাপানে মুন্সীগঞ্জ-বিক্রমপুর সোসাইটি বিভিন্ন সামাজিক কর্মকা-ের পাশাপাশি বিনোদনের জন্য বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করে থাকে। সংগঠনটি বাংলাদেশেও বিভিন্ন সামাজিক উন্নয়ন কাজে অংশগ্রহণ করে থাকে। সেই সঙ্গে দুস্থদের পাশেও সাধ্যমতো দাঁড়ানোর চেষ্টা করে আসছে প্রতিষ্ঠা পাবার পর থেকেই।

rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply