দাঁড়াবার জন্যে

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী
সবাই দৌড়াচ্ছে। এক অস্থিরতার প্রতিযোগিতায় শামিল হয়ে ছুটছে সবাই। এ অস্থিরতা আমাদের বাংলাদেশে কেবল নয়, এ অস্থিরতা সারা বিশ্বে। নিজেদের সঙ্গে নিজেদেরই প্রতিযোগিতায় কেউই যেন পিছিয়ে পড়তে রাজি নয়। জীবনের সব ক্ষেত্রে নিদারুণ অস্থির এক দৌড় সবাইকে পাগল করে তুলেছে।

এই দৌড়ের দুটো কারণ আছে। একটা কারণ হচ্ছে, প্রয়োজন বা বৈষয়িক-বস্তুগত চাহিদা। আর দ্বিতীয়টি হচ্ছে, সেই অসংযত প্রতিযোগিতা। নানামাত্রিক বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে তৈরি করা হচ্ছে এ প্রতিযোগিতা। বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে প্রতিযোগিতাগুলোকে উস্কে দেওয়া হচ্ছে প্রতিনিয়ত। সবার মধ্যেই কেবল ভোগবাদিতার সর্বগ্রাসী মানসিকতাই তৈরি হচ্ছে। অর্থাৎ একটা হচ্ছে প্রয়োজনের দিক_ জীবিকা বা জীবন ধারণের। আরেকটা হচ্ছে_ অন্যের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় লিপ্ত হওয়া। সেই প্রতিযোগিতাটাকে উত্তেজিত করা হচ্ছে পণ্যের বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে।
আসলে আমরা একটা বিজ্ঞাপনের যুগে বাস করছি। এ যুগটাকে গণমাধ্যমের উৎকর্ষের যুগ বলা হলেও এ গণমাধ্যমের একটা বিরাট অংশ হচ্ছে বিজ্ঞাপন। প্রতিযোগিতার হাতিয়ার। এ বিজ্ঞাপনে মানুষকে উত্তপ্ত করা হচ্ছে যে, তুমি পিছিয়ে পড়ছ। আর বস্তুতই কেউ পিছিয়ে পড়তে রাজি নয়। সবাই তাই ছুটছে। সে জন্য দেখা যাচ্ছে যে, আমরা কোনো ক্ষেত্রেই এগুতে পারছি না। যেহেতু সবাই ছুটছে, তাই অগ্রগতি তেমন একটা হচ্ছে না। ঠেলা-ধাক্কা হচ্ছে, পরস্পরের সঙ্গে বিচ্ছিন্নতা বাড়ছে। হিংসা-বিদ্বেষই মূলত মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে প্রত্যেকের মনের ভেতরে। কারণ প্রত্যেকেই প্রত্যেকের প্রতিযোগী। তাই সমষ্টিগত যে অগ্রগতি, সেটাই হচ্ছে না।
এখন আমাদের এ অস্থির গতিশীলতার এক ধরনের কারণ হয়তো বোঝা গেল; কিন্তু এ সমস্যার মূল বা কেন্দ্রীয় বিষয়টা হচ্ছে এই পুঁজিবাদী ব্যবস্থা। যে ব্যবস্থার মূল ধারণাই হচ্ছে প্রত্যেকটা মানুষ কেবল তার নিজের কথাই ভাববে। আর প্রত্যেকটা মানুষের মধ্যেই একটা ভোগবাদিতা তৈরি হবে। এ পুঁজিবাদ দুটো কাজ করে। ব্যক্তিকে বিচ্ছিন্ন করে ফেলে; বিচ্ছিন্ন করে তাকে আত্মকেন্দ্রিক হয়ে উঠতে উদ্বুদ্ধ করে আর অন্যদিকে ব্যক্তিকে ভোগবাদী করে। পুঁজিবাদের এ আসল তত্ত্ব অদৃশ্যভাবে আমাদের এই ছোটাছুটির মধ্যে ব্যস্ত রাখছে। আমাদের ক্ষণিকের জন্যও দাঁড়াতে দিচ্ছে না। বিশ্বব্যাপীই ক্রমবর্ধমান অস্থিরতা দেখা যাচ্ছে এ পুঁজিবাদের কারণে। কোথাও মানুষ স্থিরভাবে নেই।

ধরা যাক, আমেরিকা_ যাকে স্বর্গরাজ্য মনে করা হয়ে থাকে। সবাই সেখানে সুখ-শান্তিতে সর্বোচ্চ সুযোগ-সুবিধা নিয়ে বসবাস করে। বস্তুত সেখানেও কেউ স্থিরভাবে থাকতে পারে না। সবাই ব্যস্ত। অন্যের কথা, এমনকি প্রতিবেশীর কথাও ভাবতে পারে না। পৃথিবীর অন্য মানুষদের জন্য ভাবা তো দূরের কথা, ছুটির দিনগুলোতেও তাদের ছুটতে হয়। ছুটতে হয় অবসরযাপনের জন্যও। সর্বোত্তমভাবে ছোটার জন্য দিনকে দিন উন্নত ব্যবস্থাও হাতের নাগালে পেয়ে আসছে তারা। কিন্তু ইচ্ছে হলেই দাঁড়ানোর সুযোগ ক্রমেই দূরে সরে যাচ্ছে।

এ যুগে পুঁজিবাদী ব্যবস্থার অধীনে আমরা যারা আছি তাদের জন্য এ অস্থিরতাই এ যুগের বৈশিষ্ট্য। প্রতিযোগিতাটাই আসল হয়ে দাঁড়িয়েছে এ সময়ে। তাহলে এ অস্থিরতার চক্র থেকে সরে আমাদের দাঁড়ানোর জায়গাটা আসলে কোথায়? ব্যক্তিগতভাবে যদি দাঁড়ানোর জায়গার কথা বলি, তাহলে দাঁড়ানোর জায়গা তৈরি করতে আমাদের ভাবতে হবে দুটো বিষয়ে। একটি হচ্ছে নিজের মধ্যে কতগুলো জায়গা কিংবা পরিসর তৈরি করা, যেখানে আমি সুস্থির হয়ে দাঁড়াতে পারছি। কেউ বই পড়তে ভালোবাসে; কারও হয়তো খেলাধুলা কিংবা মাঝে মধ্যে ঘুরে বেড়াতে ভালো লাগে। এর জন্য প্রত্যেকের মধ্যে এ রকম একটা স্থান তৈরি করতে হবে, যে জায়গাটা তার নিজের। যেখানে সে ইচ্ছে হলেই দাঁড়াতে পারবে, স্থির থাকতে পারবে। অথবা সেখানে সে অবসরযাপন করবে। এ অবসরযাপনটা ব্যক্তিগতভাবে আমরা সংস্কৃতি চর্চার মধ্য দিয়ে করতে পারি। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে, আমরা দাঁড়াতে চাই কি-না? এ মানবতাবিরোধী অস্থিরতার মধ্য থেকে আমরা দাঁড়ানোর পরিসর তৈরি করে নিতে পারি কি-না? কেননা এ পরিস্থিতিতে প্রত্যেকের একটুখানি স্থির হওয়ার, একটুখানি থামার আগ্রহ তৈরি হওয়াটা কঠিন। জনসংখ্যা বৃদ্ধির চাপ এবং স্থানের অভাব সে সুযোগকে আরও বেশি ধ্বংস করে দিচ্ছে। তবুও এ সামগ্রিক অস্থিরতার ভেতরে থেকেই আমরা যে যেখানে আছি সেখানেই একটা সামাজিকতা গড়ে তোলা_ একটা সামাজিক জীবন গড়ে তোলা দরকার। এই সামাজিকতার সঙ্গেই শিল্প-সংস্কৃতি চর্চার অগ্রগতিকে ত্বরান্বিত করতে হবে। গ্রন্থাগার সে রকমই একটা বড় পরিসর। শুধু জ্ঞান চর্চাই নয়, গ্রন্থাগার আমাদের স্থিতিশীল হতেও সহায়তা করে। খেলাধুলাও তেমনি আমাদের আনন্দময় প্রতিযোগিতার স্বাদ পাইয়ে দেয়। তাছাড়া সামাজিক উদ্যোগে প্রত্যেকের সাংস্কৃতিক যোগাযোগের পরিসর তৈরি হওয়া দরকার, যা আমাদের নেই।

আমাদের এমন অনেক কিছুই নেই যেসবের অভাবে আমরা ছুটতে ছুটতে প্রত্যেকেই নিজের ভেতরে নিজে ঢুকে যাচ্ছি দিন দিন। আমাদের পরস্পর বিচ্ছিন্নতাগুলো আরও বেশি প্রতিষ্ঠিত হয়ে উঠছে যেন।

আজকে সারা পৃথিবীতে পুঁজিবাদের বিরুদ্ধে যে বিক্ষোভ_ আমেরিকা থেকে শুরু করে যা পৃথিবীব্যাপী ছড়িয়ে পড়ছে। এ রকম অভিনব বিক্ষোভ এর আগে হয়নি। পুঁজিবাদকে শক্তি হিসেবে চিহ্নিত করে এ রকম ঘটনা ঘটেনি। শতকরা ৯৯ জন একদিকে আর একজন অন্যদিকে_ এ রকম একটি বিভাজন এর আগে হয়নি। এ বিভাজনের স্পষ্ট রেখাটা আগে কখনও টানা হয়নি। এ পুঁজিবাদী ব্যবস্থাটাকেই বদল করা দরকার।

মানুষের জন্য দাঁড়ানোর জায়গাটা তৈরি করতে হলে এ ব্যবস্থাটাকে বদল করতে হবে। এ ব্যবস্থাকে গণতান্ত্রিক করতে হবে অথবা আমরা যাকে বলি সমাজতান্ত্রিক, সে রকম করতে হবে। অর্থাৎ এরকম ব্যবস্থা করতে হবে, যেখানে মানুষের সঙ্গে মানুষের সম্পর্কটা প্রতিযোগিতার কিংবা প্রতিদ্বন্দ্বিতার হবে না। মানুষের সঙ্গে মানুষের সম্পর্কটা হবে মৈত্রীর, আদান-প্রদানের, সৌহার্দ্যের, সহমর্মিতার। আর এ ব্যবস্থাটা যেমন স্থানীয়ভাবে দরকার, তেমনি দরকার বিশ্বব্যাপীও।

এই যে বিশ্বব্যাপী আন্দোলন হচ্ছে_ স্থানীয়ভাবে যেন মানুষের অবকাশের সুযোগটা তৈরি হয় সে জন্যই এ আন্দোলন। যে যেখানে আছে সেখানে যেন সে সুযোগ পায় দাঁড়ানোর। যে সুযোগটা এ পুঁজিবাদী ব্যবস্থা দিচ্ছে না। মানুষকে এ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন করছে, তাকে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় লিপ্ত রাখছে, তাকে ভোগবাদিতার মধ্যে আচ্ছন্ন রাখছে। কাজেই এ বিচ্ছিন্নতা, এ প্রতিদ্বন্দ্বিতা, এ ভোগবাদিতাকে বদলাতে হলে আসলে এ ব্যবস্থাকেই বদলাতে হবে। ইচ্ছে হলেই যাতে একটা মানুষ স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলতে পারে, নিজের অন্তর্গত শান্তি নিয়ে দাঁড়াতে পারে_ সে সুযোগ সম্পন্ন ব্যবস্থা তৈরির জন্য আন্দোলন করতে হবে। তবে এ জন্য যে আন্দোলনটা হচ্ছে, তাকে কেবল নেতিবাচক আন্দোলন হলে চলবে না। এখন পুঁজিবাদবিরোধী যে আন্দোলন সংগঠিত হচ্ছে তার মধ্যে কেবল নেতিবাচক দিকটাই প্রাধান্য পাচ্ছে। শুধু প্রত্যাখ্যানের জায়গা থেকে এ আন্দোলন অগ্রসর হচ্ছে। আর প্রত্যাখ্যান করলেই তো একটা নৈরাজ্যের জায়গায় চলে যেতে হয়। তাই ইতিবাচক একটা দৃষ্টিভঙ্গি দরকার। একটা স্বপ্ন দরকার। যে স্বপ্নটা সমষ্টিগত একটা স্বপ্ন। যে স্বপ্নে আমরা সবাই অংশ নিতে পারি। সবার অংশগ্রহণেই সে স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করতে হবে। আর ওই স্বপ্নটাই কিন্তু একটা সমাজতান্ত্রিক ব্যবস্থার রূপ। সেই সমাজতান্ত্রিক ব্যবস্থা স্থানীয়ভাবে তৈরি করা যাবে, যদি সমাজ ব্যবস্থাটাকে পরিবর্তন করা যায়; এ সমাজ ব্যবস্থাটাকে প্রকৃতই যদি গণতান্ত্রিক করে তোলা যায়। সমাজের সঙ্গে রাষ্ট্র জড়িত_ তাই রাষ্ট্রকেও এখানে প্রকৃত গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় প্রতিষ্ঠিত করতে হবে। বিশ্বব্যাপীও তাই কেবল প্রত্যাখ্যানের নয়_ গড়ে তোলার আন্দোলন প্রয়োজন। আর সে গড়ে তোলার ব্যাপারটাই হচ্ছে একটা সমাজতান্ত্রিক ব্যবস্থা গড়ে তোলা। সমতার পরিবেশ গড়ে তোলা। মূলত ওই ব্যবস্থা ছাড়া আমরা সুস্থির হয়ে কোথাও দাঁড়াতে পারব না। ওই ব্যবস্থা এলেই কেবল ব্যক্তিবিচ্ছিন্নতা দূর হবে, প্রতিদ্বন্দ্বিতা দূর হবে, সহমর্মিতা তৈরি হবে। তখন স্থূল ভোগবাদিতার জায়গায় সেই সূক্ষ্ম এবং সাংস্কৃতিক আনন্দ, সেই বিনোদনের ব্যবস্থা করা যাবে।

বৈষম্য যদি থাকে_ মানুষের সঙ্গে মানুষের সমান মর্যাদা, সমান অধিকার, সমান সুযোগ প্রতিষ্ঠা করা না গেলে সঠিক গণতন্ত্রও হবে না। সেখানে প্রতিযোগিতা হবে। আর বৈষম্য সৃষ্টি করাই হলো পুঁজিবাদী ব্যবস্থার বৈশিষ্ট্য। এমনকি এ পুঁজিবাদী ব্যবস্থা অনেক ক্ষেত্রে এ বৈষম্যকেও পুঁজি করতে দ্বিধাবোধ করে না।

আমরা এখন যে বিশ্বায়নের যুগে বাস করছি সে বিশ্বায়ন মূলত বাণিজ্যের। সেটা মানবিক বিশ্বায়ন নয়। আর বাণিজ্যের মূল বিষয়ই হচ্ছে প্রতিযোগিতা, প্রতিদ্বন্দ্বিতার মাধ্যমে মুনাফা তৈরি করা। বিশ্বায়নের ধুয়া তুলে সারা পৃথিবী বাণিজ্যের অধীনে চলে গেছে। তাই মানবিক বিশ্বায়নের প্রয়োজনেই এ বাণিজ্যিক বিশ্বায়নকে পরিত্যাগ করা দরকার। পৃথিবীর প্রত্যেকটি সংস্কৃতিরই নিজস্বতা আছে। যে নিজস্বতাকে বাণিজ্য আজ স্বীকার করে না।

সংস্কৃতির নিজস্বতাকে ভেঙে দিয়েও মূলত বাণিজ্যিক বিশ্বায়ন মানুষকে অস্থির প্রতিযোগিতার মধ্যে এনে দাঁড় করিয়েছে; সমস্ত পৃথিবীকে এক করে দিচ্ছে বাণিজ্যের স্বার্থে। যেখানে দাঁড়ানোর জায়গাটাই হচ্ছে মানুষের নিজস্ব সংস্কৃতি। যেখানে, ইচ্ছা হলেই আমরা একটু দাঁড়িয়ে দেখে নিতে পারি মানবিক স্বাদের সুন্দর পৃথিবীকে।
তাই এই বাণিজ্যিক বিশ্বায়নের পরিবর্তে যেটা চাই_ সেটা হচ্ছে আন্তর্জাতিকতা। আন্তর্জাতিকতা আর বিশ্বায়ন সম্পূর্ণ আলাদা জিনিস। বিশ্বায়ন হচ্ছে বাণিজ্য আর আন্তর্জাতিকতা হচ্ছে সহযোগিতা, সহমর্মিতা। সকলের সহযোগিতায় বিশ্বকে মনুষ্য বসবাসের উপযোগী করে তোলাই আন্তর্জাতিকতার লক্ষ্য। অন্যদিকে বিশ্বায়ন হচ্ছে পুঁজির সহযোগী। পুঁজিবাদ তাই বিশ্বায়নকে বিস্তৃত করছে আর বিঘি্নত করছে আন্তর্জাতিকতাকে। আর মানুষ চরম গতিশীলতার মধ্যে ধাবিত হতে হতে হারিয়ে ফেলছে তার স্বাধীনতার জায়গা; দাঁড়াবার জায়গা।

সমকাল

Leave a Reply