বিলুপ্তির পথে মুন্সীগঞ্জের মৃৎশিল্প

সন্তানদের এ পেশায় শিক্ষা দিচ্ছেনা মৃৎশিল্পিরা
শামীম বেপারী: মুন্সীগঞ্জের মৃৎশিল্পিরা মোটেই ভালো নেই। ক্ষুদ্র ঋণ ও উপকরণাদির সমস্যাসহ প্রয়োজনীয় সহযোগিতা না পাওয়ার কারণে এই শিল্পটি এখন বিলুপ্তির পথে। স্বল্পমূল্যের মাটির বাসন-কোসনের চাহিদা কমে যাওয়া, উপকরণের মূল্য বৃদ্ধি, আধুনিকরণের ক্ষেত্রে আধুনিক যন্ত্রপাতির অভাব এবং এর জন্যে প্রয়োজনীয় অর্থ যোগান দিতে না পাড়ার কারণে মৃৎশিল্প পরিবারগুলোর এখন জীবিকা নির্বাহ কঠিন হয়ে পড়েছে। প্রাচীন জনপদ বিক্রমপুর তথা মুন্সীগঞ্জে ঐতিহ্যবাহী শিল্পকর্মের অন্যতম এই মৃৎশিল্পর নাজুক অবস্থার কারণে অনেকেই পেশা পরিবর্তন করতে বাধ্য হচ্ছে। তাই একদা মৃৎশল্পীদের পল্লীগুলোর চিত্র এখন অন্যরকম।

সিরাজদিখান উপজেলার আবিরপাড়া, চোরমর্দন ও রশুনিয়া ইউনিয়নের বেশ কয়েকটি গ্রামের প্রায় দেরশতাধিক পরিবার মৃৎশিল্পির সাথে জড়িত ছিলো। বর্তমানে রয়েছে হাতেগুনা কয়েকজন। টঙ্গিবাড়ী উপজেলার পাচঁগাঁও গ্রামের মৃৎশিল্পি বাসনা রানী পাল জানান. বর্তমানে এ কাজ করে আর সংসার চালাতে পারছিনা । নিজে সারাদিন মাটি দিয়ে বিভিন্ন জীনিষপত্র বানাই । বাড়ীর কর্তা রতন পাল সেগুলো মাথায় করে বাড়ি বাড়ি নিয়ে বিক্রি করে এতে যা আয় হয় তা দিয়ে সংসার চলেনা । তাই ছেলেমেয়েদের আর এ কাজ শিখাইতেছি না।

মাটি দিয়ে হাড়ি তৈরী করছে মৃৎশিল্পি বাসনা রানী পাল ।

সিরাজদিখান উপজেলার উত্তর রাঙ্গামালিয়া গ্রামের মৃশিল্পিরা জানান, বর্তমানে বাজারে দধির পাতিল আর ফুলের টব ছাড়া অন্যান্য মাটির জীনিষের আর তেমন চাহিদা নেই। তাই এ কাজ করে আর সংসার চলেনা। মৃৎশিল্পি মধাব পাল বলেন, এক সময় তাদের কিছু কিনে খেতে হয়নি। গ্রামে গ্রামে মাটির জিনিষপত্র বিক্রি করে যে ধান পাওয়া যেতো তা দিয়ে চলে যেতো তাদের সারা বছর। কিন্তু বর্তমান ধান দিয়ে আর কেউ জিনিসপত্র কিনতে চায়না।

টঙ্গীবাড়ি উপজেলার আব্দুল্লাপুরের কুমারপাড়ার মৃৎশিল্পকর্মে জড়িত ছিল কয়েকশ’ মৃৎশিল্পী এখন এর পরিমাণ হাতেগোনা কয়েকজন। মৃৎশিল্পী সুবাস পাল জানান, দীর্ঘ বছর ধরে বংশানুক্রমিকভাবে এ কাজ করে আসছেন তারা। বাসন-কোসন, হাঁড়ি-পাতিল, দইয়ের পাতিল, সড়া, পিঠার খোলা, ব্যাংক, হরেক রকমের খেলনা প্রভৃতি তৈরি করেন তারা। এক সময় দেশের বিভিন্ন জায়গার মেলা ও হাট-বাজারে এসব পণ্যের ব্যাপক চাহিদা ছিল। এখন এর চাহিদা অনেক কম। প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতির অভাব ও অর্থের সমস্যার কারণে তারা আধুনিকরণ করতে পারছে না। এলুমিনিয়াম ও প¬াস্টিকের তৈরি বিভিন্ন পণ্যসামগ্রী স্বল্পমূল্যে বাজারজাত করে ক্রেতাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করছে। এসব কারণে মাটির তৈরি পণ্যের থেকে ক্রেতাদের দৃষ্টি অনেকটা সরে গেছে। একই চিত্র টঙ্গীবাড়ি উপজেলা সদরের কুমারবাড়ির। মৃিশল্পে জড়িত রানী পাল বলেন, আমাগো কাজের এক ট্রাক মাটির দাম বর্তমানে ২৬০০ টাকা। এই মাটি পাইন মারতে লাগে ৬/৭ মণ লাড়কি যার বর্তমান দাম ১৩০০/১৪০০ টাকা। এত টাকা আমাগো কাছে নাই,যার লাইগা আমরা বদলীর কাম করি। হাঁড়ি-পাতিল বানাইয়া দিলে ৪০/৫০ টাকা মজুরী পাই। এই দিয়া কোনরকম সংসার চলতাছে। আগে এই এলাকায় অনেকে এ কাজ করতো। এখন মাত্র ২০/৩০টা পরিবার এ কাজ করতাছে বাকিরা বাধ্য হয়ে মিল-কারখানার কাজে জড়িয়ে পড়েছে।

Leave a Reply