বাঙালি যখন ত্যাগ করে তখন একেবারে চরমভাবেই ত্যাগ করে

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী
সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী। বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ, লেখক, বুদ্ধিজীবী। প্রফেসর এমিরেটাস, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। নিরন্তর জ্ঞান চর্চায় দেশের শিক্ষিত সমাজে একটা শ্রদ্ধাপূর্ণ জায়গায় পৌঁছেছেন। সম্প্রতি সাপ্তাহিক-কে দেয়া এই সাক্ষাৎকারে স্বাধীনতার ৪০ বছরে বাঙালির প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তি, পুঁজিবাদের বিকাশ ও ভবিষ্যৎ, দেশের সামাজিক ও রাজনৈতিক পরিস্থিতি, বর্তমান সরকারের মূল্যায়ণ, ঢাকা বিভক্তিসহ গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন বিষয়ে তাঁর মতামত ব্যক্ত করেছেন। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন শুভ কিবরিয়া ও স্বকৃত নোমান

সাপ্তাহিক : ঢাকাকে বিভক্ত করা হলো। স্বাধীনতার ৪০ বছরে এসে জাতি ঐক্যবদ্ধতার দিকে যাওয়ার কথা, অথচ আমরা প্রতিনিয়ত বিচ্ছিন্নতার দিকে যাচ্ছি। এটার সামাজিক ও রাজনৈতিক তাৎপর্য কী?

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী : স্বাধীনতার পর আমাদের যে স্বাধীনতা এসেছে সেটা হচ্ছে যথেচ্ছাচার স্বাধীনতা। যার ক্ষমতা আছে সে এই ক্ষমতাটাকে নিজের মতো করে নিজের প্রয়োজনে যেমন ইচ্ছে তেমন ব্যবহার করে। এটা আমরা সব জায়গা দেখি। অফিস-আদালতে, পারিবারিক ক্ষেত্রে, দাম্পত্য জীবনে এবং যে ছেলেটি রাস্তায় ইভটিজিং করে সেখানেও দেখা যায়। রাজনীতির বড় ক্ষেত্রটাতেও এই যথেচ্ছাচার। যে ক্ষমতায় আসে সে যা ইচ্ছে তাই করেন। এই পরিস্থিতিকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারত জনমত। কিন্তু জনমতের কাছে জবাবদিহিতা নাই, জনমতের কাছে জবাবদিহিতা প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব হচ্ছে না।

সাপ্তাহিক : আমাদের অর্থনৈতিক উন্নয়ন হয়েছে, প্রাতিষ্ঠানিক উন্নয়নও দেখছি, সব ধরনের উন্নয়নই আমরা দেখছি, কিন্তু এই জায়গাটায় কেন আমরা ব্যর্থ হলাম?

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী : এই উন্নয়নটাই যথেচ্ছাচারকে ত্বরান্বিত করছে। যদিও কথাটা স্থূল শোনায়, কিন্তু এটাই সত্যি যে, বিকাশটা হচ্ছে পুঁজিবাদী লাইনের। সেটা এই ধরনের, যাদের হাতে ক্ষমতা থাকবে তারাই ক্ষমতা ব্যবহার করবে এবং সে নিজেরটাই আগে দেখবে। আমাদের স্বাধীনতার অর্জন সমষ্টিগত অর্জন। সকলে মিলে অর্জন করেছিল। কিন্তু ৪০ বছরে যেটা ঘটেছে সেটা হলো, অর্জনগুলো সব ব্যক্তিগত হয়ে গেছে। শিক্ষা, চিকিৎসা, ক্ষমতা, সমষ্টিগত জমি, নদী, অর্জন, সুযোগ-সুবিধা সবই ব্যক্তিগত হয়ে গেছে। এই ব্যক্তিগত পর্যায়ে নিয়ে যাওয়াটা ক্রমাগতই বাড়ছে। এটা পুঁজিবাদী বিকাশেরই একটা ফলাফল এবং এটাই স্বাভাবিক। এই বিকাশের ক্ষেত্রে বিচ্ছিন্নতা তৈরি হয়। ব্যক্তির বিচ্ছিন্নতা তৈরি হয়, ব্যক্তি নিজের স্বার্থ দেখে, সমষ্টিগত স্বার্থ দেখে না। ফলে ক্ষমতার যে সামাজিকীকরণ এবং যে বিকেন্দ্রিকীকরণ, সেটা আমাদের এখানে ঘটেনি। ক্ষমতা রয়ে গেছে কতিপয়ের হাতে।

সাপ্তাহিক : পশ্চিমে এই পুঁজিবাদী মডেলের মধ্যে যে দেশগুলো বসবাস করছে তারা নিজের দেশে তো ন্যূনতম জায়গাগুলো তৈরি করেছে, কিন্তু আমরা পারলাম না কেন?

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী : আমাদের এখানে পুঁজিবাদের বিকাশটা অস্বাভাবিক বিকাশ। সামন্তবাদের মধ্য থেকে চট করে এটা চলে এসেছে। সামন্তবাদের মধ্যেও কিন্তু এটা ছিল। সামন্তবাদকে ধ্বংস করে বা সামন্তবাদের যে সংস্কৃতি, যে মূল্যবোধÑ সেটাকে চূর্ণ করে এই পুঁজিবাদ গঠিত হয়নি। যেটা ঘটেছে পুঁজিবাদী দেশগুলোতে। সেখানে ওই বিকাশের সঙ্গে সঙ্গে প্রতিষ্ঠানগুলোও গড়ে উঠেছে। এবং ওই প্রতিষ্ঠানগুলোর কাছে জবাবদিহিতাও থাকে। যেমন ব্রিটিশ পার্লামেন্টের কথা যদি বলি, যেভাবেই হোক সেখানে একটা জবাবদিহিতা থাকে। একটা কাজ করতে গেলে দাঁড়াতে হয়। জনগণ পরের নির্বাচনে তাকে নেবে না এই ভয় থাকে তার। ওই জবাবদিহিতাটা আমাদের এখানে প্রাতিষ্ঠানিকভাবে প্রতিষ্ঠিত হয়নি। কিংবা ওখানে বিচার ব্যবস্থা এমনি যে, প্রধানমন্ত্রীকেও কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হয়, তাকেও ডেকে পাঠানো হয়, বা যিনি সংসদ সদস্য তার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ এলে তার বিচার হয়। সামাজিক যে চাপটা সেটাও আছে সেখানে। সামাজিক চাপে অভিযুক্ত সংসদ সদস্য পদত্যাগ করতে বাধ্য হন। আমাদের এখানে প্রতিষ্ঠানগুলো গড়ে না উঠে পুঁজিবাদ চলে এসেছে।

সাপ্তাহিক : তার মানে আমরা মধ্যবর্তী একটা স্তর বাদ দিয়ে চলে এসেছি।

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী : হ্যাঁ, একটা জায়গা বাদ দিয়ে চট করে চলে এসেছি।

সাপ্তাহিক : উল্লম্ফন?

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী : উল্লম্ফনটা ঘটল এই জন্য, আমাদের দেশে সাম্রাজ্যবাদবিরোধী যে আন্দোলনটা ছিল, সেটা কিন্তু পুঁজিবাদবিরোধী ছিল না। আমরা যদি আমাদের নেতাদের দিকে তাকাই তাহলে দেখব যে, জিন্নাহ একজন পুঁজিবাদী ছিলেন, গান্ধী নিজেও পুঁজিবাদের সমর্থক ছিলেন। তিনি সমাজতন্ত্র খুবই ভয় করতেন। নেহেরু প্রায় কমিউনিস্ট হয়ে গিয়েছিলেন, কিন্তু শেষ পর্যন্ত আপসকামিতায় চলে গেলেন। তারা পুঁজিবাদের সঙ্গে হয় আপস করেছেন, নয় পুঁজিবাদকে গ্রহণ করেছেন। এখন ভারত একেবারেই পুঁজিবাদী রাষ্ট্র হয়ে গেছে।

পাকিস্তান প্রতিষ্ঠা হওয়ার পর পাকিস্তান-উপনিবেশবাদবিরোধী আমরা যে আন্দোলনটা করলাম, তার যে নেতৃত্ব তারাও কিন্তু পুঁজিবাদী ছিলেন। কখনোই তারা সমাজতন্ত্রের কথা বলেননি। সমাজতন্ত্রের কথা আওয়ামী লীগ প্রথম বলল ১৯৭০ সালে। নির্বাচনের ম্যানিফেস্টোর মধ্যে এটা আনতে হলো এই জন্য, বামপন্থিদের ও জনগণকে সন্তুষ্ট করতে হবে। কিংবা বিশ্ব প্রেক্ষপটের জন্য এনেছে। কিন্তু তারা কেউ পুঁজিবাদবিরোধী ছিলেন না। মওলানা ভাসানী পুঁজিবাদবিরোধী ছিলেন। সেজন্য তিনি আওয়ামী লীগে থাকতে পারলেন না, তাকে বেরিয়ে আসতে হলো। আমাদের দেশে পুঁজিবাদবিরোধী আন্দোলনটা গড়ে ওঠেনি। মওলানার নেতৃত্বে গড়ে উঠতে পারত। বামপন্থিরা মস্ত বড় যে ভুলটা করল সেটা হচ্ছে, তারা মওলানার নেতৃত্বকে পরিত্যাগ করল। মস্কোপন্থিরা তো প্রথমে পরিত্যাগ করল, তারপর পিকিংপন্থিরাও পরিত্যাগ করে সশস্ত্র নকশালবাড়ি আন্দোলনের দিকে চলে গেল। ফলে মওলানা অনেকটা নিষ্ক্রিয় হয়ে গেলেন। এতে জাতীয়তাবাদী ধারাটা পুঁজিবাদী ধারায় পরিণত হলো।

এখন দেখা যাক, মওলানাই কিন্তু প্রথম স্বাধীনতার কথা বলেছেন। সেই ১৯৫০-’৫৫ সালে বলেছেন যে, আমরা আসসালামু আলাইকুম দেব। তারপরে তিনিই কিন্তু স্বাধীনতার কথা বলছেন। জাতীয়তাবাদী আন্দোলনটা একটা সমাজতান্ত্রিক আন্দোলনে রূপান্তরিত হতে পারত, যদি মওলানার নেতৃত্ব পেত। কিন্তু সেই নেতৃত্ব তো পায়নি। যারা জাতীয়তাবাদী আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়েছেন তারা পুঁজিবাদে বিশ্বাস করতেন। তারপরে ওখানে থেমে গেল। মানে জাতীয়তাবাদীরা ’৭০ সালে সিদ্ধান্ত নিয়ে নিল দেশটাকে স্বাধীন করবে। এরপরের যে ধাপটা সেটাতে আমরা এগুতে পারিনি। বরং পুঁজিবাদ যেন মুক্ত হয়ে গেল, পুঁজিবাদ স্বাধীন হয়ে গেল।

বাংলাদেশের স্বাধীনতার সঙ্গে সঙ্গে বাংলাদেশের পুঁজিবাদও স্বাধীনতা পেয়ে গেল। সেটাই এখন চরম যে, এখানে অর্থ উপার্জন বা বিত্তবান হওয়ায় কোনো বাধা রইল না। এটা লুণ্ঠনকারী পুঁজিবাদী, এটা উৎপাদনশীল পুঁজিবাদী না। ইউরোপে যেটা বিকশিত হয়েছে সেটা উৎপাদনশীল পুঁজিবাদ। তারা উৎপাদনের সঙ্গে জড়িত। তারা কলকারখানা গড়ছেন, বাণিজ্য করছেন, পৃথিবীময় ছড়িয়ে পড়ছেন, পৃথিবীর সব জায়গা থেকে কাঁচামাল আনছেন, সব জায়গায় বাজার তৈরি করছেন। আমাদের এখানে তো সেটা হলো না। আমাদের এখানে যে সম্পদ আছে সেগুলো লুণ্ঠন করা হলো বা হচ্ছে। লুণ্ঠন করে দেশের সম্পদ বিদেশিদের হাতে তুলে দেয়। বিদেশিদের সঙ্গে সহযোগিতা করে তাদের পণ্যের বাজার তৈরি করে দেয়।

সাপ্তাহিক : এর মধ্যে সামাজিকভাবে ষাটের দশকে যে শিক্ষিত মধ্যবিত্তের একটা অবস্থান ছিল, ৪০ বছর পর এসে আমরা ওই মধ্যবিত্তকেও তো দেখছি না…।

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী : হ্যাঁ, সেই মধ্যবিত্তের মধ্যে যারা তরুণ ছিল, ধরা যাক তারা ছাত্র, তারাই কিন্তু আন্দোলনগুলো করেছে। আমাদের দেশে যত আন্দোলন হয়েছে সব আন্দোলনেই তরুণরা ছিল। তারা পুঁজিবাদী ধারার ছিল। কিন্তু পরে পুঁজিবাদ এদেরকে টেনে নিয়ে গেল। মেধাবান ছাত্রদেরকে রাষ্ট্র নিজের মধ্যে নিয়ে নিল, চাকরি-বাকরি দিল অথবা বিভিন্নভাবে নিষ্পেষণ করে তাদেরকে স্তিমিত করে দিল। দ্বিতীয়ত, স্বাধীনতার পরে যেটা ঘটল সেটা, একটা সুযোগ তৈরি হলো এই মধ্যবিত্তের জন্য, তরুণদের জন্য। চাকরি-বাকরি হচ্ছে, ব্যবসার সুযোগ হচ্ছে, বিদেশে যাওয়ার সুযোগ এলো। কাজেই ওই মধ্যবিত্ত এখানে ব্যর্থ হয়ে পড়ল। আর আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের পর ওই আদর্শবাদটা একটা ধাক্কা খেল। আর এখানে যারা বামপন্থি আন্দোলন করছিলেন তারা যেহেতু খুব শক্ত অবস্থানে ছিলেন না, তাদের দার্শনিক গভীরতা ছিল না, সেজন্য তারাও দাঁড়াতে পারলেন না। অন্য কোথাও কিন্তু কমিউনিস্ট পার্টি বিলুপ্ত করার কথা ভাবেনি। বাংলাদেশে স্বাধীনতার পর কমিউনিস্ট পার্টি বিলুপ্ত করার চেষ্টা করল। বিলোপবাদী এবং সংগঠনবাদী দুই ধারা হয়ে গেল। মস্কোপন্থি কমিউনিস্ট পার্টিই এটা করল। পিকিংপন্থিরা তো খ-বিখ- হয়ে পড়ল, জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ল। ফলে পুঁজিবাদকে প্রতিহত করার বা পুঁজিবাদী বিকাশের বিরুদ্ধে দাঁড়ানোর শক্তি সামাজিক বা রাজনৈতিকভাবে রইল না। আইএমএফ-ওয়ার্ল্ড ব্যাংক ঢুকে পড়েছে, তাদের পরামর্শে চলছে সব। পুঁজিবাদকে রক্ষা করার জন্য তারা এখানে মাদ্রাসা শিক্ষাকে বিকশিত ও উৎসাহিত করল। মাদ্রাসা শিক্ষাও আরেকটা দুর্বলতা তৈরি করল।

সাপ্তাহিক : আমাদের যে বাঙালি জাতীয়তা, সেটার সঙ্গে সাম্প্রদায়িকতাও একটা বড় শক্তি হিসেবে আবির্ভূত হলো। এটা আসলে কোন দিকে যাচ্ছে? এটার পরিণতি কী? এটাই কি শক্তিমান হবে সামনের দিনগুলোতে?

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী : না না। জাতীয়তাবাদের এখন ভূমিকাটা হওয়া উচিত সাম্রাজ্যবাদবিরোধী। অর্থাৎ আমাদের সম্পদ রক্ষা করা বা ওদের কথামতো না চলা এটা হওয়া উচিত। কিন্তু আমাদের ওখানে যেতে হবে। যে স্বপ্ন নিয়ে আমরা কাজ করেছি দীর্ঘদিন, মানে মুক্তির স্বপ্ন যেটা, সেটা হচ্ছে সামাজিক বিপ্লব। সেটা এখানে ঘটেনি। চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত সমাজে যে একটা ব্যবস্থা তৈরি করল সেই সম্পর্কটা, মানে জমিদার এবং প্রজার সম্পর্ক, ধনী এবং দরিদ্রের সম্পর্ক, ক্ষমতা কেন্দ্রীভূতকরণের ব্যবস্থা- এটিই কিন্তু সমাজে রয়ে গেছে। সমাজে একটা বৈপ্লবিক পরিবর্তনের সম্ভাবনা বা স্বপ্ন তৈরি হয়েছিল একাত্তর সালে মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে, যখন সকল শ্রেণী একসঙ্গে হয়ে লড়ছে পুঁজিবাদের বিরুদ্ধে। কিন্তু একাত্তরের পর থেকে ওই স্বপ্নটা তো আর থাকল না, লক্ষ্যটাও থাকল না। স্বপ্নগুলো সব ব্যক্তিগত হয়ে গেল। ব্যক্তিগতভাবে যে যত ক্ষমতা অর্জন করছে সে তার ক্ষমতার যথেচ্ছা ব্যবহার করছে, স্বেচ্চাচারী হয়ে পড়ছে এবং ক্ষমতার কেন্দ্রীকরণ করা হয়েছে। ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণ ঘটেনি।

আমলাতান্ত্রিক কাঠামো রাষ্ট্রে রয়ে গেছে, যেটা ব্রিটিশ তৈরি করেছিল। এটা পাকিস্তান আমলেও ছিল, এখনও আছে। কেননা অন্যরা তো যায় আসে, আর আমলারা থাকে। আমলারা নিজেদের মেধাবান মনে করে। রাজনীতিকদের ব্যবহার করে।

সাপ্তাহিক : বাংলাদেশের এখনকার প্রেক্ষাপটটা কী? বাংলাদেশে তো ধর্মভিত্তিক রাজনীতি আনুষ্ঠানিকভাবে পঞ্চম সংশোধনীর মধ্য দিয়েও বিলোপ করা গেল না। দ্বিতীয়ত, পাশাপাশি মধ্যপ্রাচ্য জুড়ে যে সামাজিক বা রাজনৈতিক আন্দোলন হচ্ছে, নানারকম উথাল-পাথাল হচ্ছে। এই অবস্থায় বাংলাদেশ কোনদিকে যেতে পারে? সামনের দিকে আমাদের চ্যালেঞ্জ কী?

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী : মধ্যপ্রাচ্যের ঘটনাগুলো পরিষ্কার করে দিচ্ছে যে, যদি সামনে একটা সুনির্দিষ্ট গন্তব্য না থাকে বা একটা ভিশন না থাকে যে, আমরা কী চাই? তাহলে মিসরে যা হচ্ছে সেটাই ঘটবে। সেখানে সামরিকতন্ত্র চলে আসছে, নির্বাচনে ইসলামি ব্রাদারহুড আসছে। ইন্দোনেশিয়া, মরক্কোতেও আসছে এরকম একটা সম্ভাবনা। কাজেই দেখা যাচ্ছে, আমরা কী ধরনের সমাজ চাই সেই দৃষ্টিভঙ্গি যদি না থাকে এবং সেটাকে অর্জনের জন্য যদি সাংগঠনিক প্রস্তুতি না থাকে, রাজনৈতিক দল না থাকে, তাহলে তো হবে না। আমরাও তো একই জায়গার মধ্যে পড়েছি। আমরাও পাকিস্তানিদের হটিয়ে দিলাম। তারপর একে একে সামরিক শাসন এলো, তারপর আমরা অনির্বাচিত স্বৈরাচারকে সরিয়ে নির্বাচিত স্বৈরাচারকে নিয়ে এসেছি। বিকল্প যে একটা ধারা, সেটা তৈরি করতে পারিনি। বিকল্প কিন্তু তৃতীয় শক্তি নয়, এটা হচ্ছে বিকল্প শক্তি। যারা বুর্জোয়া বা পুঁজিবাদী রাজনীতি করে তাদের বাইরে একটা বিকল্প, অর্থাৎ প্রকৃত গণতন্ত্র গড়ে তুলতে পারছি না।

সাপ্তাহিক : অকুপাই ওয়ালস্ট্রিট আন্দোলন, মধ্যপ্রাচ্যের আন্দোলন, ল্যাটিন আমেরিকায় আন্দোলন চলছে। পৃথিবী একটা লড়াইয়ের মধ্যে চলে যাচ্ছে। এটা কেন ঘটছে? এটার গন্তব্য কী? এটা শেষ পর্যন্ত বড় ধরনের কোনো পরিবর্তন আনতে পারবে কিনা?

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী : পুঁজিবাদ উন্মোচিত হয়ে গেছে। পুঁজিবাদ আর পারছে না, মানুষকে সন্তুষ্ট রাখতে পারছে না কিছুতেই। অকুপাই ওয়ালস্ট্রিট আন্দোলনের যে স্লোগান, এই স্লোগানটা সবাই বুঝে ফেলেছে যে, অল্প লোকের হাতে ধনসম্পদ রয়ে গেছে, ৯৯ জন নানাভাবে বঞ্চিত হচ্ছে। সেটাই হচ্ছে কারণ। মানে পুঁজিবাদের দুর্বলতা ধরা পড়েছে, মানুষ বুঝে ফেলেছে। কিন্তু আন্দোলনটা কোথায় যাবে সেটা কিন্তু অকুপাই ওয়ালস্ট্রিট আন্দোলনের মধ্যেও নাই। মধ্যপ্রাচ্যে বা আমাদের দেশেও নাই। ল্যাটিন আমেরিকায় কিছুটা আছে। কারণ তারা একটা সাংগঠনিক জায়গায় আছে। সেটা কিন্তু আমাদের এখানে হবে না।

আমাদের দুর্বলতার একটা দিক হচ্ছে, এই যে দ্বিদলীয় ব্যবস্থা, এটা কিন্তু একটা মোহ সৃষ্টি করেছে। এক ধরনের আবরণ, এক ধরনের সুবিধা তৈরি করে রেখেছে শাসক শ্রেণীর জন্য। এ দল ক্ষমতায় না গেলে ওই দল যাবে। মানে আমরাই তো আছি। এ দলেও আমরা, ওই দলেও আমরা। জনগণ বিকল্প পাচ্ছে না, দ্বিদলীয় ব্যবস্থার মধ্যে আটকা পড়েছে। দ্বিদলীয় ব্যবস্থা তো আসলে একদলীয়। তার বাইরে যে আন্দোলন, যেটা ল্যাটিন আমেরিকাতে হচ্ছে, সেটা এখানে হচ্ছে না। আমেরিকাতেও হচ্ছে না বলে অকুপাই ওয়ালস্ট্রিট আন্দোলন শেষ পর্যন্ত তো কোনো ফল দিতে পারবে না। ওবামা ক্ষমতায় এলো, কিন্তু ওবামার সঙ্গে বুশের মৌলিক পার্থক্যটা কোথায়? নাম ও বর্ণের পার্থক্য ছাড়া তো আর কোনো পার্থক্য নাই।

আমাদের এখানেও বুর্জোয়া রাজনীতির বিকল্প তৈরি করতে পারিনি। যেমন ধরা যাক, ব্রিটিশ আমলে কমিউনিস্ট পার্টি ছিল। কিন্তু তারা এতসব ভুল করেছে, বিকল্প শক্তি হিসেবে দাঁড়াতে পারেনি। তাদের শেষ স্লোগানগুলো ছিল ‘লীগ-কংগ্রেস এক হও’। লীগ কংগ্রেস এক হয়ে গেলে তো মানুষ শাসক শ্রেণীর মধ্যেই থেকে গেল। দ্বন্দ্ব থাকাই তো ভালো। এক হয়ে গেলে তো জনগণের ক্ষতি। ১৯৫৪’র নির্বাচনে একটা যুক্তফ্রন্ট হলো। রাষ্ট্রভাষা আন্দোলনের ফল হচ্ছে এই ইলেকশন এবং যুক্তফ্রন্ট। কিন্তু এর মধ্যে হঠাৎ করে ফজলুল হক চলে এলেন, নেজামে ইসলাম পার্টি চলে এলো। মওলানা ভাসানী একটা বিকল্প ছিলেন। তার নেতৃত্বে যদি আওয়ামী লীগ বামপন্থিদের নিয়ে এককভাবে নির্বাচন করত, তাহলে এই ফলই আসত। মানে মুসলিম লীগকে মানুষ প্রত্যাখ্যান করত। কিন্তু সেটা হলো না। ফজলুল হক আর সোহরাওয়ার্দীর মধ্যে দ্বন্দ্ব, সেই দ্বন্দ্বের মধ্যে মার্শাল ল ঢুকে গেল। আমরা ওখানে ব্যর্থ হয়ে গেলাম। ’৬৯ সালে গণঅভুত্থান হলো। সেই অভুত্থানটা একেবারেই জনগণের মধ্য থেকে হলো, গ্রামে গ্রামে ছড়িয়ে গেল। ওখানেও বামপন্থিরা ওটাকে ধরতে পারল না।

এখন দেখা যায় যে, বামপন্থিরা ক্ষেত্রটা তৈরি করে। রাষ্ট্রভাষা আন্দোলনে বামপন্থিরা ছিল, ’৬৯-এর অভ্যুত্থানে বামপন্থিরা ছিল। কিন্তু এটা চলে যায় নির্বাচনে। ’৪৫-৪৬ সালে আমাদের বাংলায় প্রায় একটা বিপ্লবী পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছিল। গ্রামে তেভাগা আন্দোলন চলছে, শহরে শ্রমিক আন্দোলন চলছে, ছাত্র আন্দোলন চলছে। তখন নির্বাচন দিয়ে নির্বাচনের মধ্যে ঢুকিয়ে দিল এটাকে। নির্বাচনের ফল বেরুনোর পর রায়ট আরম্ভ হয়ে গেল। রায়টের পর দেশ ভাগ হয়ে গেল।

’৫২ সালে আমরা রাষ্ট্রভাষা আন্দোলনের মধ্য দিয়ে যে অর্জনটা করলাম, ’৫৪ সালে নির্বাচন হলো, মুসলিম লীগের পতন হলো। কিন্তু যুক্তফ্রন্টের মধ্যে যে মারামারি, তাতে শাহেদ আলী মারা গেলেন। সেনাবাহিনী এটার জন্য অপেক্ষা করছিল। অজুহাত তৈরি করে তারা চলে যাবে। কাজেই বিজয়টাকে ধরে রাখা গেল না। এবং ’৭০-এর অভ্যুত্থানে যেটা হলো সেটাও বামপন্থিরা এগিয়ে নিয়ে যেতে পারল না। তারা মওলানাকে ত্যাগ করে চলে গেল। তখন এই নির্বাচনে যে রায় এলে সেটা স্বাধীনতার পক্ষে। আগে যেটা হয়েছিল সেটাও কিন্তু দাঙ্গা বাধানো। ’৫৪ সালের নির্বাচনের পরে বিহারি-বাঙালি দাঙ্গা বাধানো হয়েছিল। ’৭০-এর নির্বাচনেও পাকিস্তানিরা মনে করেনি এরকম একটা ফল আসবে। এখানে তারা যখন দেখল, দাঙ্গা বাধানো বা অন্য কিছু করা যাচ্ছে না, তখন তারা ঝাঁপিয়ে পড়ল।

সে জন্য আমরা সমাজ পরিবর্তনের শক্তিটাকে গড়ে তুলতে পারিনি। এখানকার মধ্যবিত্ত মধ্যপ্রাচ্যের মধ্যবিত্তের চাইতে অনেক শক্তিশালী। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ফলগুলো জনগণের পক্ষে আসছে না। সেটার ধারাবাহিকতা ৪০ বছরেও অব্যাহত।

সাপ্তাহিক : জনগণ একেবারে বিপুল ভোট দিয়ে একেক দলকে ক্ষমতায় নিয়ে আসছে, কিন্তু শেষে একটা অভ্যুত্থান বা ক্যু ঘটে। ’৭৫ থেকে ২০০৮ পর্যন্ত একই ধারাবাহিকতা চলে আসছে। বর্তমান সরকারের সময়ে যা দেখা যাচ্ছে, তাতে কি আগের সেই অভ্যুত্থানগুলোর পুনরাবৃত্তি হবে বলে আপনি মনে করেন?

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী : মানুষ কিন্তু আগের চাইতে বেশি বিক্ষুব্ধ হয়ে যাচ্ছে। মানুষ বিক্ষুব্ধ হয়ে বেরিয়ে পড়তে পারে। এর বিকল্প হচ্ছে সেই সংগঠিত বামশক্তি, যারা ধরে রাখতে পারবে। বাম বলতে আমি বোঝাতে চাচ্ছি দেশপ্রেমিক এবং গণতান্ত্রিক শক্তি। তারা যদি গড়ে ওঠে তাহলে জনগণের বিক্ষোভটাকে একটা জায়গায় নিয়ে যেতে পারবে। তাহলে দেশ নৈরাজ্যের দিকে যাবে না।

সাপ্তাহিক : কিন্তু এখনো তো সেই শক্তি তৈরি হয়নি…।

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী : না হয়নি। এখন যারা চিন্তা করছে তাদের কর্তব্য হচ্ছে এই শক্তিটাকে তৈরি করা। যারা জনগণের বিক্ষোভকে ধারণ করতে পারবে, সঠিক পথে পরিচালনা করতে পারবে। এবং আমাদের বিদ্যমান শাসক শ্রেণী, যাদের অন্তর্দ্বন্দ্বই এখন রাজনীতির প্রধান স্রোত হয়ে দাঁড়িয়েছে, তার বাইরে যারা দাঁড়াতে পারে। জনগণ কী চায় সেটা তো নারায়ণগঞ্জের নির্বাচনেই বোঝা গেল। জনগণ চায় একটা বিকল্প। বিকল্প যদি পেয়ে যায় তাহলে তার পেছনে চলে যায় তারা। তা না হলে স্রোতের পেছনে যায় মানুষ। বাঙালি যখন ত্যাগ করে তখন একেবারে চরমভাবেই ত্যাগ করে। বাঙালি এ ব্যাপারে আবার খুব নিষ্ঠুর। ত্যাগটাই তখন বড় হয়ে দাঁড়ায়, তখন অর্জনের জন্য ত্যাগ করে না। বিপক্ষ দল যে কোনো ভালো কাজ করছে বা করবে এটার জন্য যায় না। তারা মূলত চটে গিয়ে ত্যাগ করে। আমাদের সংস্কৃতির মধ্যেই এটা আছে। আমাদের নদীতে জোয়ার আসে, আবার ভাটাও আছে। নদীর সংস্কৃতিটাই আমাদের রাজনীতি ও সংস্কৃতির মধ্যে আছে। আবার এটা আমাদের চেতনার মধ্যেও আছে। গরম দেশও বটে আবার নদীর দেশও বটে। তাই ওঠানামা করে। কিন্তু সংস্কৃতি মানে তো প্রাকৃতিক জিনিস না। সংস্কৃতি তো মানুষ বিনির্মাণ করে। ওইসব থেকে, যেটা প্রকৃতি আমাদের দিয়েছে, প্রকৃতি আমাদের উর্বরতা দিয়েছে। উর্বরতাকে আমরা ব্যবহার করব। প্রকৃতি নদী দিয়েছে, কিন্তু নদীকে তো আমরা ব্যবহার করব। তার বাইরেও তো যাব। সংস্কৃতি মানেই তো হচ্ছে নির্মাণ করা। নির্মাণটা তো করতে হবে যাতে আমরা সংগঠিত হতে পারি।

সাপ্তাহিক : আওয়ামী লীগ তো এক ধরনের কসমোপলিটন দল বলা যায়। এখানে বামপন্থিরা ছিল, সাম্প্রদায়িক মনোভাবাপন্ন বা প্রগতিশীল লোকরা ছিল। স্বাধীনতার পরে তাজউদ্দীন আহমেদ ও বঙ্গবন্ধুর মধ্যে যে বিরোধটা হলো সেটা কি সাংস্কৃতিক জায়গা থেকে হলো? এটা কি অবশ্যম্ভাবী ছিল?

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী : ব্যক্তিগত পর্যায়ে সন্তোষ-অসন্তোষের ব্যাপার ছিল সেখানে, কিন্তু সংস্কৃতির মধ্যেই ছিল সেটা। মানে আওয়ামী লীগের মধ্যেই ছিল। তাজউদ্দীনরা যে ধারার, খন্দকার মোশতাকরা কিন্তু সেই ধারার না। খন্দকার মোশতাকরা শেষ পর্যন্ত জয়ী হলো, তারা হত্যাকা-ের সঙ্গে যুক্ত হয়ে পড়ল। তাজউদ্দীন কিন্তু প্রথমেই ওখান থেকে সরে গিয়েছিলেন। তো তাজউদ্দীন ধারা ও খন্দকার মোশতাক ধারা তো ছিলই এর মধ্যে।

সাপ্তাহিক : এখন যখন আওয়ামী লীগের মধ্যে সমাজতন্ত্রও রাখছে, ধর্মনিরপেক্ষতা বা রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম রাখছে, তাহলে কি এই ধারার মধ্যে কোনো কনফ্রন্টেশন দেখতে পাচ্ছি না। তাহলে কি আমরা বলব যে, সেই আওয়ামী লীগ ও এই আওয়ামী লীগের মধ্যে অনেক ব্যবধান?

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী : আগের আওয়ামী লীগ তো এখন আর নাই, এটা তো সবাই মানবে। এখানে একটা সংমিশ্রণ আছে। এবং এখনকার নেতৃত্ব ব্যক্তি নেতৃত্বে চলে গেছে। আগে তো একটা আন্দোলনের নেতৃত্ব ছিল। এখন তো ক্ষমতায় থাকা না থাকার নেতৃত্ব। এ দুটোর মধ্যে মৌলিক পার্থক্য আছে। ’৭০-৭১ পর্যন্ত আওয়ামী লীগ ছিল একটা আন্দোলনের দল। নেতাকে জেলে যেতে হচ্ছে, তাকে নিষ্পেষণ সহ্য করতে হচ্ছে, তাকে নানারকমভাবে উত্ত্যক্ত করা হচ্ছে। এখন এটা হচ্ছে ক্ষমতার দল। ক্ষমতার দল ও আন্দোলনের দলের মধ্যে তো মৌলিক পার্থক্য আছে। এখন ক্ষমতায় থাকার জন্য সে নানারকম আপস করবে, নানা রকম পদ্ধতি অবলম্বন করবে। যেটা আন্দোলনের সময় ছিল না।

সাপ্তাহিক : আমাদের রাষ্ট্র, গণতন্ত্র, রাজনীতির সঙ্গে সেনাবাহিনী একটা প্যারালাল জায়গায় দাঁড়িয়ে গেল। এটার ভবিষ্যৎ কী? একটা রাষ্ট্রের মধ্যে তো সেনাবাহিনী গুরুত্বপূর্ণ। মানুষ কখনো কখনো বিকল্প হিসেবে সেনাবাহিনীকে ভাবছে। এটা থেকে কি মুক্তি হবে?

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী : মুক্তি তো হতেই হবে। সেনাবাহিনী আপাতত আমাদের এখানে ক্ষমতা দখলের কথা ভাববে না। তারা এখন আন্তর্জাতিক বাহিনীতে, শান্তি রক্ষা বাহিনীতে আয় উপার্জন করছে। বিপজ্জনক ক্ষমতা দখলের চাইতে ওটাতেই তারা বেশি আগ্রহী। দ্বিতীয়ত, জনগণও সেনাবাহিনীর উপর সাময়িকভাবে আস্থা রাখতে পারে। সেনাবাহিনীর পক্ষে তো ক্ষমতা ধরে রাখা সম্ভব নয়। কারণ তাদের জনসম্পৃক্ততা নাই, জনভিত্তি নাই। জনগণ আগামীতে ক্ষমতা দখল করে নেবে এটাও আমি মনে করি না। কিন্তু আমি মনে করি, আমলাতান্ত্রিক যে ব্যবস্থাটা, ওটা কিন্তু সেনাবাহিনীর চাইতে কম শক্তিশালী না। আমরা অফিসে গেলে তারই অর্থাৎ সেই আমলারই ক্ষমতা দেখি। তাদের বিরুদ্ধেই ঘুষের অভিযোগ। তাদের কারণেই ঘুষ চলছে। এখন তো সরাসরি কিছু হয় না। সরকারি রাজকোষে টাকা জমা দেয়ার চাইতে দালালের মাধ্যমে ঘুষ দিয়ে কাজ করাতে চায় মানুষ। ঘুুষ দিলে খুব দ্রুতগতিতে হবে এবং অল্প পয়সায় হবে।

সাপ্তাহিক : শাসনতান্ত্রিক এই কাঠামো তো একটা শক্তিশালী অবস্থান নিয়ে ফেলেছে। এটাকে একটা জনগণমুখী আমলাতন্ত্র তৈরির সম্ভাবনা আছে কিনা রাষ্ট্রের?

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী : ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণ হলে কিন্তু আমলাতন্ত্র শক্তিশালী থাকে না। ব্রিটিশ সিস্টেমে কে আমলা, কে সচিব এগুলো বোঝা যায় না। কারণ, ক্ষমতাটা রাজনীতির হাতে এবং ক্ষমতা বিকেন্দ্রীকরণ হয়েছে। ওদের স্থানীয় সরকারটা খুবই শক্তিশালী। ওসব জায়গাতে পুলিশ স্থানীয় শাসনের অধীনে থাকে।

সাপ্তাহিক : সরকার বলছে সেবা দিতে চাই, তাই ঢাকাকে দুই ভাগ করেছে। টাকা থাকলে আরো চার ভাগ করতেন- এরকম কথাও বলেছেন। আপনার কথার সঙ্গে তো এটা মিলে যাচ্ছে তাহলে?

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী : না, না। সেবা দরকার নাই। আসল কথা হচ্ছে ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণ দরকার। সেবার ওপর মানুষ আস্থা রাখে না। আমাদের দেশে সার্ভিস দেখলে ভয় পায়। গভর্ণমেন্ট সার্ভেন্ট দেখলে মানুষ ভয় পায়। তাই সেবার দরকার নাই। ঢাকার ওয়ার্ডগুলোকে যদি শক্তিশালী করা হয় এবং সেখানে জনজীবনের প্রয়োজনগুলো মেটানোর বন্দোবস্ত থাকে তাহলে আর সমস্যা থাকে না। রাস্তাঘাটে ময়লা হলে মানুষ ওয়ার্ড কমিশনারকে গিয়ে ধরতে পারবে।

সাপ্তাহিক : ঢাকাকে যে দুই ভাগে ভাগ করা হলো, এটাকে আপনি কীভাবে দেখছেন?

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী : আমার কাছে এটা খুবই অপ্রয়োজনীয় এবং ক্ষতিকর বলে মনে হচ্ছে। এটাকে পছন্দ করার কোনা কারণই নেই। আমি বারবারই বলব, ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণ করতে হবে।

সাপ্তাহিক : মহাজোট সরকারের তিন বছর পূর্ণ হতে চলেছে। আপনার মূল্যায়ন কী?

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী : আমি দেখতে পাচ্ছি, সরকার তার প্রতিশ্রুতি রক্ষা করতে পারেনি। যেসব কাজ করা তার প্রতিশ্রুতির মধ্যে ছিল না। যেমন ঢাকা ভাগ করা। এসব অপ্রয়োজনীয় কাজ করছে সরকার। সরকারকে সচেতন হতে হবে, তার প্রতিশ্রুতিগুলো রক্ষা করতে হবে। তাতে আমাদেরও মঙ্গল, সরকারেরও মঙ্গল হবে।

সাপ্তাহিক : যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের ব্যাপারে সরকার পদক্ষেপ নিয়েছে। এ ব্যাপারে আপনি কতটা আশ্বস্ত বা আশাবাদী?

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী : সরকার পদক্ষেপ নিয়েছে ঠিক আছে, কিন্তু এ ব্যাপারে কোনো কংক্রিট কাজ তো দেখছি না। সরকারের পদক্ষেপগুলো তো মানুষের মনে আস্থা তৈরি করতে পারছে না। কারণ সরকারের যে জবাবদিহিতা নেই। যার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ তার শাস্তি হচ্ছে না, তাকে সরানোও হচ্ছে না। জবাবাদিহিতা না থাকলে সরকারের যা ইচ্ছে তাই করতে পারে।

সাপ্তাহিক : অখ- ভারত, পাকিস্তানি শাসনামল এবং বাংলাদেশ এই তিন কাল আপনি দেখেছেন। কোনো পরিবর্তন কি হলো? আপনার কী মনে হয়?

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী : হলো না। আমাদের কাছে স্বপ্নটা ছিল মুক্তির। যারা সমাজে চিন্তা করে তারা মনে করে যে একটা স্পষ্ট রূপ ক্রমাগত বাড়ছিল। যেসব আন্দোলন চলছিল, সেগুলোর মাধ্যমে পরিষ্কার হচ্ছিল যে, আমরা সমাজের ও রাষ্ট্রের একটা মৌলিক পরিবর্তন চাই। গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র চাই, গণতান্ত্রিক সমাজ চাই। অধিকার এবং সুযোগের সাম্য থাকবে নাগরিকদের মধ্যে। দ্বিতীয়ত, ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণ হবে। তৃতীয়ত, সর্বস্তরে জনপ্রতিনিধিদের শাসন প্রতিষ্ঠিত হবে, আমলাদের নয়। এই আকাক্সক্ষা বাস্তবায়ন করতে পারিনি। মানুষ সচেতন হয়েছে আগের চাইতে, কিন্তু আমরা অর্জন করতে পারলাম না। ভরসা হচ্ছে সচেতনতার জায়গাটাতে।

সাপ্তাহিক : এখনকার তরুণদের কাছে আপনার প্রত্যাশা বা ভরসা কী?

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী : দেশপ্রেম ও গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ। দেশপ্রেম তো থাকতেই হবে। কেননা তরুণ যদি ভাবে কেবল সে নিজেরটাই দেখবে, স্বার্থপর হবে, তাহলে তো সে স্বার্থপর প্রাণীতে পরিণত হবে। সে একটা প্রাণী। মানুষের মধ্যে সামাজিক দায়িত্ববোধ থাকে, সামাজিক সংবেদনশীলতা থাকে। সামাজিকভাবে মানুষ বিকশিত হয়। ওটাই হচ্ছে দেশপ্রেম। দ্বিতীয়ত, দেখতে হবে সকলের সমান অধিকার। আমার মুক্তি সকলের মুক্তির সঙ্গে জড়িত এই বোধটা থাকতে হবে। আমার বাড়িটা বড় হলো, কিন্তু রাস্তায় বেরুলে আবর্জনা, তাহলে তো হলো না। এগুলোর জন্য সামাজিক ও রাষ্ট্রীয়ভাবে পরিবর্তন আনতে হবে। এই পরিবর্তনের জন্য প্রত্যাশা তরুণের কাছে।

সাপ্তাহিক : অর্থাৎ বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ নিয়ে আপনি কতটা আশাবাদী?

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী : হতাশার অনেক কারণ আছে। তবু আমি হতাশ হব না। আমাদের সংগ্রামের একটা ঐতিহ্য আছে। সেটা কিন্তু নষ্ট হয় না, এটাকে মুছে ফেলা যায় না। এটা থাকে। মানুষ কিন্তু একটা সচেতনতার জায়গায় চলে এসেছে। যেটাকে বলা হতো ইতিহাস তার গন্তব্যে পৌঁছে গেছে, সেটা কিন্তু আর নাই। একদিকে আমাদের সংগ্রামের ঐতিহ্য, আরেকদিকে বৈশ্বিক পরিস্থিতি। তাছাড়া তরুণরা তো দেখছে এবং বুঝতে পারছে যে, একটা পরিবর্তন দরকার। এখন যেটা দরকার সেটা হচ্ছে বোঝা এবং পরিবর্তনের জন্য চেষ্টা করা। কেবল বুঝলে হবে না, পরিবর্তনের জন্য চেষ্টাও করতে হবে। এ জন্য সংগঠিত হতে হবে। সেই সংগঠন রাজনৈতিক সংগঠন হবে। তাতে সংস্কৃতি থাকে। সংস্কৃতির মধ্য দিয়ে, অর্থাৎ লেখা, নাটক, গান এবং খেলাধুলার মধ্য দিয়ে একটা সমষ্টিগত জায়গায় চলে যাব। সেই জায়গাটা আমাদের দরকার। যাতে একটা মৌলিক পরিবর্তনে আমরা চলে যাব। সেটাই হচ্ছে লক্ষ্য বা প্রত্যাশা।

সাপ্তাহিক

Leave a Reply