কলকাতায় নিহত গৌরাঙ্গ মুন্সীগঞ্জের

কলকাতার এএমআরআই হাসপাতালে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় নিহত বাংলাদেশি গৌরাঙ্গ মণ্ডলের বাড়ি মুন্সীগঞ্জের সিরাজদীখান উপজেলায়। চিত্রকোট ইউনিয়নের কানাইনগর গ্রামের গৌরাঙ্গের বাড়িতে শুক্রবার বিকালে গিয়ে দেখা যায় কান্নার রোল। ৭০ বছর বয়সি গৌরাঙ্গকে গত সপ্তাহে কলকাতার ওই হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিলো।

গৌরাঙ্গের সঙ্গে গিয়েছিলেন তার এক ছেলে এবং ভাগ্নে রক্ষিত রায়। রক্ষিত রায়ই টেলিফোন করে গৌরাঙ্গের মৃত্যুর সংবাদ দিয়েছে বলে জানান প্রয়াতের ভাতিজা জ্যোতিষ মণ্ডল।

জ্যোতিষ বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, সকালে অগ্নিকাণ্ডের খবর শুনে তারা উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন। দুপুরে কলকাতা থেকে রক্ষিত রায় মৃত্যু সংবাদ জানায়।

এর আগে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছিলো, নিহতদের মধ্যে অন্তত একজন বাংলাদেশি রয়েছেন। তবে তখন গৌরাঙ্গের নামটাই শুধু জানানো হয়েছিলো।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দক্ষিণ এশিয়া বিভাগের মহা পরিচালক মাশফি বিনতে শামস বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “গৌরাঙ্গ মণ্ডল নামে একজন বাংলাদেশি নাগরিক ওই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। পরিবারের সদস্যরা তার লাশ সনাক্ত করেছেন।”

কলকাতায় ডেপুটি হাইকমিশনের মাধ্যমে গৌরাঙ্গ মণ্ডলের মরদেহ দেশে ফিরিয়ে আনার ব্যবস্থা হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

গৌরাঙ্গের স্বজনরা জানান, মস্তিস্কে পানি জমে যাওয়ায় মাখ খানেক ধরে ঢাকায় চিকিৎসার পর তাকে কলকাতায় নেওয়া হয়।

বাংলাদেশ থেকে অনেক রোগীই কলকাতাসহ ভারতের বিভিন্ন হাসপাতালে উন্নত চিকিৎসা নিতে যান।

কৃষক গৌরাঙ্গের তিন ছেলে ও এক মেয়ের মধ্যে দুই ছেলে কুয়েত এবং এক ছেলে সিঙ্গাপুরে থাকেন।

দক্ষিণ কলকাতার ঢাকুরিয়ায় ওই হাসপাতালের একটি ভবনে শুক্রবার ভোররাতে আগুন লাগে। পরে শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থার মাধ্যমে ধোঁয়া অন্যান্য তলায় ছড়িয়ে পড়লে শ্বাসরুদ্ধ হয়ে অন্তত ৮৯ জনের মৃত্যু হয়।

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ইতোমধ্যে নিহত প্রত্যেকের পরিবারকে ৫ লাখ রুপি করে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে।

কলকাতার হাসপাতালে অগ্নিকাণ্ডে প্রাণহানিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শোক প্রকাশ করেছেন।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম

Leave a Reply