সিরাজদিখানে গৌরাঙ্গর বাড়িতে কান্নার রোল

কলকাতায় এএমআরআই হাসপাতালে অগি্নকাণ্ডের ঘটনায় প্রাণ হারানো ৮৯ জনের মধ্যে একজন বাংলাদেশি রয়েছেন। তাঁর নাম গৌরাঙ্গ মণ্ডল। বাড়ি মুন্সীগঞ্জের সিরাজদীখানে। ৭০ বছর বয়সের বৃদ্ধ গৌরাঙ্গকে গত সপ্তাহে কলকাতার ওই হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল।

গতকাল শুক্রবার সকালে কলকাতায় এই দুর্ঘটনার পর বিকেলে উপজেলার চিত্রকোট ইউনিয়নের কানাইনগর গ্রামে গৌরাঙ্গ মণ্ডলের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায় কান্নার রোল। বাড়িতে নিহতের এক ভাতিজা জানান, গৌরাঙ্গের সঙ্গে কলকাতা গিয়েছিলেন তাঁর এক ছেলে ও ভাগ্নে রক্ষিত রায়। রক্ষিত রায়ই টেলিফোনে বাড়িতে গৌরাঙ্গ মণ্ডলের মৃত্যুর খবর জানান। তিনি আরো জানান, কলকাতায় হাসপাতালে সকালে অগি্নকাণ্ডের খবর শুনে তাঁরা উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন। কেননা তাঁরা আগে থেকেই জানতেন যে গৌরাঙ্গ মণ্ডল এএমআরআই হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। অবশেষে দুপুরে কলকাতা থেকে তাঁরা টেলিফোনে এই মৃত্যুর খবর পান।

কলকাতা থেকে টেলিফোনে নিহত গৌরাঙ্গের ছেলে সাগর মণ্ডল বলেন, মস্তিষ্ক ও ফুসফুসের সমস্যার কারণে গত ৭ ডিসেম্বর গৌরাঙ্গ মণ্ডলকে এই হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ভর্তির সময় তিনি কথা বলতে পারছিলেন না। বৃহস্পতিবার বিকেল থেকে কথা বলা শুরু করেছিলেন। হাসপাতালের পাশে একটি ভাড়া বাসায় অবস্থান করছিলেন জানিয়ে তিনি বলেন, সকাল ৬টার দিকে খবর পেয়েই তাঁরা হাসপাতালে চলে আসেন। সাড়ে ১০টার দিকে তাঁর বাবার লাশ উদ্ধার করেন ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা।

সাগর আরো জানান, পিজি হাসপাতালে ময়নাতদন্তের পর তাঁরা লাশ নিয়ে দেশে ফিরবেন। এ জন্য সরকার ও ভারতে বাংলাদেশ উপহাইকমিশন তাদের সহায়তা করছে।

সাগর জানান, তাঁর বাবার সঙ্গে একই হাসপাতালে চট্টগ্রাম ও মানিকগঞ্জের দুজন রোগীও ভর্তি ছিলেন। তবে তিনি রোগী বা তাঁদের পরিবারের সদস্যদের গতকাল সন্ধ্যা পর্যন্ত দেখতে পাননি।

কালের কন্ঠ

Leave a Reply