আজ মুন্সীগঞ্জ মুক্ত দিবস

মুন্সীগঞ্জ নিউজ ডটকম : কাকডাকা ভোর। তখন ও পূর্ব আকাশে সূর্যের লাল আভার উদগিরণ হয়নি। গভীর আচ্ছন্ন মানুষ। সুখ-দু:খ, আনন্দ-বেদনা, ক্ষুধা-দরিদ্রের বিস্মৃতিতে সকলেই একাত্ম স্বীয় অস্তিত্বের সন্ধানে। দেশের সংকট সন্ধিক্ষনে উন্মাতাল টর্নেডো ন্যায় গোটা জাতি উদগ্রিব ‘স্বাধীনতার’ স্বাদ প্রাপ্তির প্রত্যাশায়। বীর বাঙালীর সুখ-সুনীল রাত্রিরে একদিন কাংক্ষিত সে দিবসের সূচনাও হয়।

৭১ এর ১১ ডিসেম্বর বাংলা মায়ের সূর্য সন্তান মুক্তিযোদ্ধাদের দূর্বার প্রতিরোধ ও প্রবলআক্রমনে মৃত্য ভয়ে ভীত সন্ত্রস্ত পাক হায়েনারা দলবেধে রাতের আধারে লেজ গুটিয়ে পালিয়ে প্রাণ রক্ষা করে। শত্রু মুক্ত হয় দীর্ঘ নয় মাস নারকীয় যন্ত্রণায় দগ্ধ মুন্সীগঞ্জের মাটি বিদ্যুৎ রক্তঝড়া দিনগুলোতে দেশের অন্যান্য জেলার ন্যায় মুন্সীগঞ্জ জেলা ও গর্জে উঠেছিল। মুক্তি বাহিনীর মাটি হিসেবে মুন্সীগঞ্জের প্রতি পাক সেনাদের প্রখর দৃষ্টি ছিল। মুন্সীগেঞ্জ প্রবেশের ক্ষেত্রে তারা অত্যন্ত সতর্কতা অবলম্বন করে। মুন্সীগঞ্জ ছিল ঢাকার অতি কাছে তাই পাকবাহিনী ঢাকার পার্শ্ববর্তী এ এলাকাকে নিজেদের দখলে রাখতে চেয়েছিল। এ ছাড়াও আরো একটি বিশেষ কারণে মুন্সীগঞ্জের প্রতি পাক হানাদারদের ক্ষিপ্ত করে তুলেছিল। পাক বাহিনীর কুখ্যাত দালাল পাকিস্তান নেজামে ইসলামের সহসভাপতি মৌলানা আল-মাদানী পলিয়ে যাওয়ার সময় আব্দুল্লাহপুরে এক জনসভায় মুন্সীগঞ্জের জনসাধারণের হাতে নিহত হয়। তাই ঢাকার পশ্চাদভূমি মুন্সীগঞ্জের প্রতি তাদের তিক্ষè দৃষ্টি ছিল। যার পরিণতিতে পাক বাহিনী মুন্সীগঞ্জে প্রবেশের পূর্বে থেকেই এই এলাকায় ব্যাপক হত্যাযজ্ঞ, ধ্বংস এবং অগ্নিকান্ড ঘটাতে শুরু করে।

২৫ মার্চ কাল রাতে পাক হায়েনারা রাজধানী ঢাকায় বর্বরোচিত, পৈশাচিক হামলা চালায়। সেই দিন থেকে রাজধানী ঢাকা সঙ্গে মুন্সীগঞ্জে ও আন্দোলন শুরু হয়। জঙ্গী মিছিলে ফেটে পড়ে মুন্সীগঞ্জের ছাত্র জনতা। ২৯ মার্চ মুক্তিপাগল ছাত্র জনতা মুন্সীগঞ্জের অস্ত্রাগার লুন্ঠন করে। সর্বস্তরের জনতা অস্ত্র নিয়ে যুদ্ধে অংশগ্রহণ করে। মুন্সীগঞ্জে যেন পাকবাহিনী তাদের ঘাটি স্থাপন করতে না পারে এবং পাকসেনারা যাতে সহজে মুন্সীগঞ্জে প্রবেশ করতে না পারে সেজন্য প্রবেশস্থলে (ধলেশ্বরী তীরবর্তী এলাকায়) বাংকার তৈরী করে পূর্ব থেকেই প্রস্তুতি নিয়েছিল মুক্তিবাহিনী। মুন্সীগঞ্জ এর সম্মুখভাগ নারায়ণগঞ্জেও প্রবেশের সময় পাকবাহিনীর সঙ্গে তাদের যুদ্ধ হয়। পরবর্তী সময়ে মে অতর্কিত পাকসেনারা মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া থানায় প্রবেশ করে। গজারিয়ায় থানায় ঢুকেই পাকসেনারা ব্যাপক হত্যা, ধ্বংস এবং অগ্নিসংযোগ শুরু করে।

৯ মে কাক ডাকা ভোরে গজারিয়া থানার গোসাইচরে পাকসেনারা নির্বিচারে ৩৫০জন নিরীহ বাঙালী জেলেকে কিছু বুঝে ওঠার পূর্বেই গানবোট নিয়ে ঘেরাও করে গুলি করে হত্যা করে। এ হত্যাযজ্ঞের মাধ্যমেই পাকসেনারা মুন্সীগঞ্জে শহরে অনুপ্রবেশ করে। মুন্সীগঞ্জে প্রবেশ করে তারা হত্যাযজ্ঞ অক্ষুন্ন রাখে। ১৪ মে শহরসংলগ্ন কেওয়ার চৌধুরী বাড়িতে শহরের বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ অনিল মূখার্জি, কেদার চৌধুরী, ডাঃ সুরেন্দ্র সাহা, দ্বিজেন্দ্র সাহা, বাদল ভট্টাচার্জ্য, শচীন্দ্র মুখার্জী, সুনীল মুখার্জীসহ ১৭জনকে গভীর রাতে ঘেরাও করে এনে খালের পার সারিবদ্ধভাবে দাড় করিয়ে ব্রাশ ফায়ারে হত্যা করে। পাকসেনারা স্থানীয় নৃশংস হত্যাকান্ড ধ্বংসজ্ঞের বিরুদ্ধে মুক্তিসেনারা প্রতিরোধ গড়ে তুলতে থাকে। সেই লক্ষ্যে তারা পাকবাহিনীর ঘাটি গুলিতে আক্রমন চালাতে থাকে। সেই লক্ষ্যে তারা পাকবাহিনীর ঘাটি গুলিতে আক্রমন চালাতে থাকে। ১১ আগষ্ট মুক্তিযোদ্ধারা শ্রীনগর থানায় হামলা চালায় এবং পাকসেনাদের সঙ্গে তুমুল যুদ্ধের পর শ্রীনগর থানা দখল করে নেয়। অনুরূপভাবে ১৪ আগষ্ট মুক্তিযোদ্ধারা লৌহজং থানা দখল করে নেয়। সেপ্টেম্বর মাসে বাড়ৈখালীর শিকরামপুরহাটে পাকসেনাদের সঙ্গে মুক্তিযোদ্ধাদের মুখোমুখি যুদ্ধ হয়। এ যুদ্ধে পাক হানাদার বাহিনীর শতাধিক সৈন্য নিহত হয়। মুক্তিযোদ্ধাদের প্রবল আক্রমনে পাকসেনারা কুল কিনারা না পেয়ে নদীতে ঝাপিয়ে পড়ে। পাকসৈন্য বোঝাই ৩টি গানবোট নবাবগঞ্জ থেকে শিকরামপুর পৌছলে মুক্তিযোদ্ধারা এ হামলা চালায়। পাকসৈন্যদের ৩টি গানবোটই নদীদে তলিয়ে যায়। এ যুদ্ধে সকল পাকসৈন্য নিহত হয়। এ যুদ্ধে বিজয়ের ফলে মুন্সীগঞ্জের মুক্তি পাগল জনতা মু্িক্তর নেশায় মত্ত হয়ে উঠে। মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে পাকসেনাদের একটি জোড় লড়াই হয় গোয়ালী মান্দ্রায়। জেলার অভ্যন্তরে পদ্মা, মেঘনা, ধলেশ্বরী নদীর সর্বত্র পাকসেনাদের গানবোট ঘিরে ছিল। এ সময় গোয়ালী মান্দ্রায় প্রকাশ্যে ৬ জন রাজাকারকে হত্যা করে। এ ঘটনা পাকসৈন্যদের ব্যাপক নাড়া দেয়। মুন্সীগঞ্জ শহর থেকে প্রায় ৩০০ পাকসৈন্য গোয়ালী মান্দ্রার উদ্দেশ্য রওনা দেয়। খবর পেয়ে মুক্তিযোদ্ধারা পূর্ব থেকেই আক্রমনের লক্ষ্যে প্রস্তুতি নিয়ে থাকে। পাকসৈন্যরা নিদির্ষ্ট স্থানে পৌছামাত্র এ মুক্তিযোদ্ধারা চারদিক থেকে তাদের উপর আক্রমণ চালায়। ৩৮ ঘন্টা উভয় পক্ষে তুমুল যুদ্ধ হয়। এ যুদ্ধে শত্রুপক্ষের দুটি গানবোটই নদীতে তলিয়ে যায়। এতে একজন পাক সুবেদারসহ ৭৫জন সৈন্যদের সলিল সমাধি ঘটে। এ যুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধাদের হাতে বহু অস্ত্র ও গোলাবারুদ চলে আসে। যুদ্ধ জয়ের উদ্দীপনায় ও নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা টঙ্গীবাড়ী থানা আক্রমন করে দখল করে নেয়। ১৪ নভেম্বর ১৭ রমজান মুক্তিযোদ্ধারা মুন্সীগঞ্জ থানায় আক্রমন করে এবং পাক সৈন্যদের সঙ্গে কয়েক ঘন্টা যুদ্ধের পর মুক্তিযোদ্ধারা এ থানা দখল করে নেয়। মুন্সীগঞ্জের মুক্তিসেনাদের সাথে পাকসেনাদের আর একটি তুমুল যুদ্ধ হয় শহরের অদুরে রতনপুর গ্রামে। এ যুদ্ধে গোটা মুন্সীগঞ্জ এর বিভিন্ন এলাকা থেকে মুক্তিযোদ্ধারা অংশ নেয়। মুক্তিযোদ্ধাদের উপস্থিতি আচ করতে পেরে প্রথমে পাক সৈন্যদের তাদের উপর আক্রমণ করে ধলেশ্বরী নদীতে অবস্থানরত পাকিবাহিনীর গানবোট থেকে ও গোটা রামের গাঁও পঞ্চসার, মুক্তারপুর এলাকায় পাক নৌবাহিনীর সৈন্যরা মর্টারে সেল ছুড়তে থাকে। সমগ্র এলাকা যুদ্ধনগরীতে পরিণত হয়। অবশেষে এ যুদ্ধে মিত্রবাহিনীর বিমান বহর এসে পড়লে পাক বাহিনী পিছু হটে । এ যুদ্ধে পাক হানাদার বাহিনীর দোসর ৩জন রাজাকার সহ ৪জন পাক সেনা নিহত হয়। মিত্রবাহিনীর হামলায় পাক সেনাদের গানবোট বিধ্বস্ত হয়। ১০ ডিসেম্বর রাতে মুক্তিযোদ্ধার প্রবল প্রতিরোধ ও আক্রমণের মুখে পূর্ব আকাশে সূর্য উদয়ের জয় বাংলা শ্লোগানে মুক্তিযোদ্ধারা শহরে প্রবশে করতে থাকে। সর্বস্তরের জনতার মহুর্মুহ মিছিলে, বিজয় উল্লাসে উৎসব নগরীতে পরিণত হয় গোটা মুন্সীগঞ্জ।

মুন্সীগঞ্জ নিউজ

Leave a Reply